আলাপ:রেবন্ত

সক্রিয় আলোচনা
রেবন্ত দর্শন এবং ধর্মবিষয়ক ভালো নিবন্ধের মানদণ্ড অনুসারে একটি ভালো নিবন্ধ হিসেবে চিহ্নিত। আপনি যদি নিবন্ধটির আরো উন্নয়ন করতে সমর্থ হন, তবে অনুগ্রহপূর্বক তা করুন। আপনি যদি মনে করেন যে নিবন্ধটিতে মানদণ্ড অনুসৃত হয়নি তাহলে এটির পুনঃপর্যালোচনা আহবান করতে পারেন।
মে ১, ২০১৯ প্রস্তাবিত ভাল নিবন্ধ তালিকাভুক্ত

প্রধান পাতার সূচনাংশসম্পাদনা

রেবন্ত বা রাইভত হলেন একজন হিন্দু দেবতা। ঋগ্বেদ অনুযায়ী, রেবন্ত হলেন প্রধান সৌর দেবতা সূর্য এবং তার স্ত্রী সরণ্যুর কনিষ্ঠ সন্তান। রেবন্তের জন্মের উপাখ্যান বিষ্ণু পুরাণ এবং মার্কণ্ডেয় পুরাণে বর্ণনা করা হয়েছে। দেবশিল্পী বিশ্বকর্মার কন্যা সংজ্ঞা ছিলেন সূর্যের পত্নী। তিনি সূর্যের অনুগ্রহ লাভে বঞ্চিত হয়ে নিজের প্রতিচ্ছায়া ছায়াকে সূর্যের কাছে রেখে বনে গিয়ে এক ঘোটকীর রূপ ধারণ করে কঠোর তপস্যায় রত হন। ছায়া যে সংজ্ঞা নন, সে কথা বুঝতে পেরে সূর্য সংজ্ঞাকে খুঁজতে বের হন এবং উত্তর কুরুতে তাঁর সাক্ষাৎ পান। তারপর তিনি ঘোড়ার ছদ্মবেশে তাঁর সঙ্গে মিলিত হন এবং তাঁদের মিলনের ফলে যমজ অশ্বিনীকুমার এবং রেবন্তের জন্ম হয়। রেবন্ত হলেন যক্ষ প্রভৃতি উপদেবতা ও দানবীয় সত্ত্বা গুহ্যকদের প্রধান। হিন্দু বিশ্বাস অনুযায়ী, এই যক্ষেরা হিমালয়ের বনাঞ্চলে বাস করেন। রেবন্তের প্রতিকৃতি ও ভাস্কর্যে প্রায়শই তাঁকে ধনুর্বানধারী অশ্বারোহী এক শিকারী পুরুষের রূপে দেখা যায়। রেবন্তকে যোদ্ধা ও অশ্বের রক্ষক, অরণ্যের বিপদে ত্রাণকর্তা ও শিকারীদের রক্ষাকর্তা হিসেবে পূজা করা হত। তাঁর পূজার সঙ্গে সূর্যোপাসক সৌর সম্প্রদায়ের ঘনিষ্ঠ সম্বন্ধ ছিল। বিষ্ণুধর্মোত্তর পুরাণকালিকা পুরাণের মতো কয়েকটি গ্রন্থে সূর্যের সঙ্গে রেবন্তের অথবা সূর্যপূজার বিধি অনুযায়ী রেবন্তের পূজার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সভা-কল্প-দ্রুম গ্রন্থের বিবরণ থেকে জানা যায়, যোদ্ধাদের দ্বারা হিন্দু মাস আশ্বিন মাসে যোদ্ধারা সূর্যপূজার পর রেবন্তের পূজা করতেন। (বাকি অংশ পড়ুন...)

"রেবন্ত" পাতায় ফেরত যান।