হারুনুর রশীদ (চাঁপাইনবাবগঞ্জের রাজনীতিবিদ)

বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ

হারুনুর রশীদ একজন বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ যিনি ষষ্ঠ, সপ্তম, অষ্টমএকাদশ জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসন থেকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালের ১৯শে মার্চ হারুনুর রশীদ বিএনপির জাতীয় কাউন্সিলে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব হিসেবে নির্বাচিত হন।[১][২]

হারুনুর রশীদ
চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসন আসনের
সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
ফেব্রুয়ারি ১৯৯৬ – ২০০৬
পূর্বসূরীলতিফুর রহমান
উত্তরসূরীআব্দুল ওদুদ
কাজের মেয়াদ
২০১৮ – চলমান
পূর্বসূরীআব্দুল ওদুদ
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১ জানুয়ারি ১৯৬২
চাঁপাইনবাবগঞ্জ, পূর্ব পাকিস্তান
(বর্তমান বাংলাদেশ)
নাগরিকত্বপাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
বাংলাদেশ
জাতীয়তাবাংলাদেশি
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)
দাম্পত্য সঙ্গীসৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়া
সন্তাননিশাত সাদিয়া রশিদ (সূচনা)
রিফাত রশিদ (অনন্যা)
রুবাইয়াৎ ইবনে হারুন
প্রাক্তন শিক্ষার্থীরাজশাহী ডিগ্রি কলেজ
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
পেশারাজনীতিবিদ

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

হারুনুর রশীদ ১ জানুয়ারি ১৯৬২ সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের চক আলমপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম আব্দুস সামাদ মিয়া ও মাতার নাম সেলিনা বেগম।

শিক্ষা জীবনসম্পাদনা

হারুনুর রশীদ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মহারাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষাজীবন শুরু করেন। ১৯৭৩ সালে রাজশাহীর শিরোইল উচ্চ বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হন। পরবর্তীতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সপিরিমেন্টাল উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ১৯৭৯ সালে এসএসসি পাস করে ভর্তি হন রাজশাহী ডিগ্রি কলেজে। ১৯৮১ সালে এইচএসসি পাস করে ভর্তি হন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

রাজনৈতিক জীবনসম্পাদনা

কলেজ পড়াকালে ছাত্রদলের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। কলেজের ছাত্র সংসদে নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয়লাভ করেন। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদলের সক্রিয় রাজনীতি শুরু করেন। ৮৪ সালে বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির আহ্বায়কের দায়িত্ব পান। ৮৬ সালে বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয় তাকে। ওই সময় ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির পরপর তিনবার সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি। রাজপথে মিছিল-মিটিং সভা-সমাবেশে নেতৃত্ব দেন। ’৯২ সাল পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ওই সময় রিজভী-হারুণ পরিষদে রাকসু নির্বাচনে অংশ নেন।

২০০৯ সালের দলের পঞ্চম জাতীয় কাউন্সিলে রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয় তাকে। এরপর ২০১৬ সালের দলের ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের পর তাকে পদোন্নতি দেয়া হয়। নির্বাচিত হন দলের যুগ্ম মহাসচিব।

হারুনুর রশীদ ১৯৯৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রথমবারের মত চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসন থেকে সংসদ সদস্য হন।[৩] পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালের জুনে সপ্তম,[৪] ২০০১ সালে অষ্টম[৫][৬]২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[৭][৮][৯] ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে আব্দুল ওদুদের কাছে পরাজিত হন।[১০] ২০১৮ সালে বিএনপির মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

হারুনুর রশীদের স্ত্রী সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়া আইনজীবী, রাজনীতিবিদ ও সাবেক সাংসদ। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল একজন কেন্দ্রীয় নেতা। তাদের তিন সন্তান যথাক্রমে নিশাত সাদিয়া রশিদ (সূচনা), রিফাত রশিদ (অনন্যা), রুবাইয়াৎ ইবনে হারুন।[১১]

কারাদণ্ডসম্পাদনা

হারুনুর রশীদকে শুল্কমুক্ত সুবিধায় আমদানি করা গাড়ি বিক্রি করে শুল্ক ফাঁকির মামলায় কারাদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। আদালতের রায়ে ৫ বছরের কারাদণ্ডের পাশাপাশি ৫০ লাখ টাকা জরিমানা করা। জরিমানার টাকা না দিলে তাকে আরও ছয় মাসের শাস্তি ভোগ করার কথা বলা হয়।[১২] মামলার নথিতে বলা হয় হারুন সংসদ সদস্য থাকা অবস্থায় শুল্কমুক্ত সুবিধায় গাড়ি আমদানি করে তা বিক্রি করেছেন। তাদের ৩ জনের বিরুদ্ধে ঢাকার তেজগাঁও থানায় ২০০৭ সালের ১৭ মার্চ মামলা হয়। তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ১৮ জুলাই চ্যানেল নাইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ব্যবসায়ী এনায়েতুর রহমান বাপ্পী ও হারুনসহ মোট তিনজনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক মোনায়েম হোসেন অভিযোগপত্র দেন। অভিযোগের ভিত্তিতে আদালত ২০০৭ সালের ২০ আগস্ট বিচার কার্যক্রম শুরু করে এবং ২১ অক্টোবর ২০১৯ সালে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম এ রায় দেয়। পরে রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করে ২৮ অক্টোবর ২০১৯ সালে৬ মাসের জামিন পেয়েছেন তিনি।[১৩][১৪][১৫]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "বিএনপি'র যুগ্ম মহাসচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদকের নাম ঘোষণা"চ্যানেল আই। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৯ 
  2. "বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জানুয়ারি ১, ২০১৯" (PDF)ecs.gov.bdবাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ১ জানুয়ারি ২০১৯। ২ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  3. "৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "৭ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. "হারুনুর রশিদ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ)"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৯ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  6. "৮ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. "একাদশ সংসদ নির্বাচন"সমকাল। ৮ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  8. "বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জানুয়ারি ১, ২০১৯" (PDF)ecs.gov.bdবাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ১ জানুয়ারি ২০১৯। ২ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  9. "সংসদ নির্বাচন ২০১৮ ফলাফল"বিবিসি বাংলা (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৯ 
  10. "চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১৯ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  11. "পাপিয়ার মুক্তি চেয়ে ছেলে-মেয়েদের সংবাদ সম্মেলন"বিডিনিউজ২৪। ২৩ আগস্ট ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৯ 
  12. "শুল্কমুক্ত গাড়ি বিক্রি, এমপি হারুনকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড | কালের কণ্ঠ"Kalerkantho। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২১ 
  13. প্রতিবেদক, আদালত; ডটকম, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর। "৫ বছরের সাজায় কারাগারে বিএনপির এমপি হারুন"bangla.bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২১ 
  14. "বিএনপির এমপি হারুন কারাগারে, শুল্ক ফাঁকির মামলায় পাঁচ বছরের দণ্ড | banglatribune.com"Bangla Tribune। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২১ 
  15. "জামিন পেলেন বিএনপির এমপি হারুন"Dhaka Tribune Bangla। ২০১৯-১০-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৯