প্রধান মেনু খুলুন

হারারে স্পোর্টস ক্লাব

স্থানাঙ্ক: ১৭°৪৮′৫০.৬৭″ দক্ষিণ ৩১°৩′২.০৮″ পূর্ব / ১৭.৮১৪০৭৫০° দক্ষিণ ৩১.০৫০৫৭৭৮° পূর্ব / -17.8140750; 31.0505778

হারারে স্পোর্টস ক্লাব
অবস্থানহারারে, জিম্বাবুয়ে
মালিকজিম্বাবুয়ে ক্রিকেট
ধারণক্ষমতা১০,০০০
মাঠের আয়তন৩০০মি X ২৫০মি
উপরিভাগঘাস
ভাড়াটিয়া
জিম্বাবুয়ে জাতীয় ক্রিকেট দল
মাশোনাল্যান্ড ঈগলস

হারারে স্পোর্টস ক্লাব (ইংরেজি: Harare Sports Club) জিম্বাবুয়ের হারারে এলাকায় অবস্থিত একটি ক্রিকেট খেলার মাঠ। সূচনালগ্ন থেকেই এটি রোডেশিয়া ও জিম্বাবুয়ের প্রধান ক্রিকেট মাঠের মর্যাদা পেয়ে আসছে। সচরাচর মাঠটি সলসবারি স্পোর্টস ক্লাব নামে পরিচিত। অক্টোবর, ১৯৯২ সালে টেস্ট মাঠের পরিচিতি পায়। জিম্বাবুয়ের উদ্বোধনী টেস্টে প্রতিপক্ষ ভারতীয় দল এ মাঠে নেমেছিল। কিছুদিন পরই এ মাঠে প্রথমবারের মতো একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও, জিম্বাবুয়ে প্রথমবারের মতো টেস্টে বিজয় লাভ করেছিল।[১]

বিবরণসম্পাদনা

স্টেডিয়ামের চতুর্দিকে জাকারান্দা গাছের আচ্ছাদন রয়েছে। ভিতরে রয়েছে সুন্দর প্যাভিলিয়ন। হারারে স্টেডিয়ামটি নগরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত। এর একপাশে রয়েছে প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেস ও অন্য পার্শ্বে রয়্যাল হারারে গলফ ক্লাব। অক্টোবর, ১৯৯২ থেকে টেস্ট ক্রিকেট খেলা উদ্বোধনের পর টেস্ট ও একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার জন্য দেশের প্রধান মাঠের মর্যাদা পেয়ে আসছে। মাঠে দর্শক ধারণ সংখ্যা দশ হাজার হলেও প্রয়োজনে অস্থায়ীভাবে আসন সংখ্যা বাড়ানো যায়। ১৯৫৬ সালে এ মাঠে সর্বোচ্চ ছাব্বিশ হাজার দর্শক এসেছিলেন রোডেশিয়া বনাম এমসিসি’র মধ্যকার খেলা দেখতে।

এ মাঠটি স্থানীয় ম্যাশোনাল্যান্ড ঈগলস ক্লাবটি ব্যবহার করে থাকে। এছাড়াও, হারারে স্পোর্টস ক্লাব দেশের ক্রিকেট বোর্ড জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট ইউনিয়ন কর্তৃক ব্যবহৃত হয়।

পরিকল্পনাসম্পাদনা

অক্টোবর, ২০১০ সালে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট ঘোষণা করে যে, নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য ঘরোয়া টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতা আয়োজনের লক্ষ্যে হারারে স্পোর্ট ক্লাব এবং মুতারে স্পোর্টস ক্লাবের উন্নয়ন করা হবে। এরফলে আসন সংখ্যা বৃদ্ধি, দর্শকদের সুযোগ-সুবিধা, প্রশিক্ষণের সুযোগ এবং মাঠের সুবিধা বৃদ্ধিসহ দিন/রাত ক্রিকেট আয়োজনের লক্ষ্যে ফ্লাডলাইটের ব্যবস্থা করা হবে। এরফলে টেস্ট ক্রিকেটে জিম্বাবুয়ের পুণরায় অংশগ্রহণে ব্যাপক সুবিধা প্রদান করবে।[২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

পাদটীকাসম্পাদনা

আরও পড়ুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা