প্রধান মেনু খুলুন

সঞ্জয় দত্ত

ভারতীয় বলিউড অভিনেতা ও রাজনীতিবিদ

সঞ্জয় বলরাজ দত্ত (জন্ম: ২৯ জুলাই ১৯৫৯) হলেন ভারতের একজন জনপ্রিয় চলচ্চিত্র অভিনেতা। তিনি অভিনয়শিল্পী দম্পতি সুনীল দত্তনার্গিস দত্তের সন্তান। ১৯৮১ সালে রকি চলচ্চিত্রে অভিষেকের পর তিনি ১৮০-এর অধিক হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। যদিও দত্ত প্রণয়ধর্মী থেকে শুরু করে হাস্যরসাত্মক চলচ্চিত্রে শ্রেষ্ঠাংশে অভিনয় করে সফলতা অর্জন করেছেন, নাট্যধর্মী ও মারপিঠধর্মী চলচ্চিত্রে গ্যাংস্টার, গুন্ডা ও পুলিশ অফিসার চরিত্রে অভিনয় করে তিনি বেশি সমাদৃত হয়েছেন। এইসব চরিত্রে তার কাজের জন্য ভারতীয় গণমাধ্যম ও দর্শক তাকে "ডেডলি দত্ত" বলে অভিহিত করে। তার অভিনীত চলচ্চিত্রসমূহের মধ্যে খলনায়ক (১৯৯৩), বাস্তব (১৯৯৯), মুন্না ভাই এম.বি.বি.এস. (২০০৩) অন্যতম। তিনি আমির খানের সাথে মিলে ২০১৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত পিকে ছবিতে অসাধারণ এক পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করেন।[২] ৩৭ বছরের অধিক চলচ্চিত্র জীবনে তিনি দুটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার, দুটি আইফা পুরস্কার, দুটি বলিউড মুভি পুরস্কার, দুটি স্ক্রিন পুরস্কার, তিনটি স্টারডাস্ট পুরস্কার ও একটি করে গ্লোবাল ইন্ডিয়ান ফিল্ম পুরস্কার ও বঙ্গ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি পুরস্কার অর্জন করেছেন।

সঞ্জয় দত্ত
संजय दत्त
Dutt posing for the camera in a black T-shirt, also carrying a strap bag
২০১৮ সালে সঞ্জয় দত্ত
জন্ম
সঞ্জয় বলরাজ দত্ত

(1959-07-29) ২৯ জুলাই ১৯৫৯ (বয়স ৬০)
বাসস্থানমুম্বই, মহারাষ্ট্র, ভারত
পেশাঅভিনেতা, প্রযোজক, রম্য-অভিনেতা, রাজনীতিবিদ, টিভি উপস্থাপক
কার্যকাল১৯৭২, ১৯৮১-২০১৩ (আপাতঃ অবসর)
উচ্চতা৫'-১১"
দাম্পত্য সঙ্গীরিচা শর্মা(১৯৮৭-১৯৯৬)(মৃত্যু),
রিয়া পিল্লাই (১৯৯৮-২০০৫) (বিচ্ছেদ প্রাপ্ত)[১],
মান্যাতা দত্ত (২০০৮-বর্তমান)
সন্তানতৃষালা দত্ত
পিতা-মাতাসুনীল দত্ত
নার্গিস দত্ত

১৯৯৩ সালের এপ্রিলে দত্তকে সন্ত্রাসী ও সংহতি নাশমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য গ্রেফতার করা হয়। তার উপর আনা চার্জ মওকুফ হলেও তাকে বেআইনি অস্ত্র রাখার জন্য দোষী সাব্যস্ত করা হয়। সাজা ভোগকালীন ভাল ব্যবহার ও আচরণের জন্য ২০১৬ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি তাকে জেল থেকে মুক্তি দেওয়া হয়।

জীবনীসম্পাদনা

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

সঞ্জয় এর পিতামাতা হচ্ছেন প্রয়াত হিন্দি চলচ্চিত্র অভিনেতা-অভিনেত্রী সুনীল দত্ত এবং নার্গিস, যারা দুজনেই বলিউড চিত্র জগতে সুপরিচিত ছিলেন। সঞ্জয় একজন ধার্মিক মানুষ, হিন্দু ধর্মের প্রতি তার প্রগাঢ় আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে।[৩] তার মা নার্গিস ১৯৮১ সালে মারা যান, এই ১৯৮১ সালে সঞ্জয় অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র রকি মুক্তি পায়, চলচ্চিত্রটি মুক্তি পাবার আগেই নার্গিস মারা যান, অনেকে মনে করেন মা নার্গিসের মৃত্যুর শোকেই সঞ্জয় মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছিলেন।[৪] শিশুশিল্পী হিসেবে সঞ্জয় ১৯৭২ সালের চলচ্চিত্র 'রেশমা অর শেরা'তে অভিনয় করেছিলেন, চলচ্চিত্রটিতে তার বাবা সুনীল দত্ত ছিলেন, সঞ্জয়কে চলচ্চিত্রটিতে কিছুক্ষণের জন্য বাচ্চা কাওয়ালি গায়ক হিসেবে দেখানো হয়।[৫]

প্রারম্ভিক কর্মজীবন ও মাদকাসক্তিসম্পাদনা

১৯৮১ সালে রকি দিয়ে সঞ্জয় দত্তের বলিউড চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়। তার পিতা সুনীল দত্ত পরিচালিত চলচ্চিত্রটি বক্স অফিসে হিট তকমা লাভ করেন। ১৯৮২ সালে তিনি সে বছরের সবচেয়ে ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র বিধাতা ও ১৯৮৩ সালে সুপারহিট ম্যাঁ আওয়ারা হুঁ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ১৯৮৫ সালে প্রায় তিন বছর পর তিনি জান কি বাজি (১৯৮৫) ছবিতে কাজ করেন। এটি তার মাদক গ্রহণকালীন পর্যায় পরবর্তী প্রথম চলচ্চিত্র। ব্যক্তিগত সমস্যা ও মাদকাসক্তি নিরাময়ের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার পূর্বে তার অভিনীত ও মুক্তিপ্রাপ্ত কয়েকটি চলচ্চিত্র বক্স অফিসে ফ্লপ হয় এবং তিনি পুনরায় চলচ্চিত্রে ফিরে আসতে নারাজ ছিলেন।

চলচ্চিত্রে সফলতা ও প্রথম বিবাহসম্পাদনা

জান কি বাজি ছবিটি সফল হলে ১৯৮০-এর দশকে তিনি ঈমানদার, ইনাম দাস হাজার, জিতে হ্যাঁ শান সে (১৯৮৮), মার্দোঁ ওয়ালি বাত (১৯৮৮), ইলাকা (১৯৮৯), হাম ভি ইনসান হ্যাঁ (১৯৮৯), কানুন আপনা আপনা (১৯৮৯), ও তাকাতওয়ার-এর মত সফল চলচ্চিত্রে অভিনয় করে।

সঞ্জয় অভিনেত্রী রিচা শর্মার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন ১৯৮৭ সালে।[৬] রিচা ১৯৯৬ সালে ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। সঞ্জয় এবং রিচা তৃষালা নামের এক মেয়ের জন্ম দেন, রিচা মারা যাবার পর সঞ্জয় তৃষালাকে নিজের কাছে রাখতে চেয়েছিলেন কিন্তু রিচা'র মাবাবার কাছে আইনী লড়াইয়ে তিনি হেরে যান।[৭]

বোম্বে বোমা হামলার সাথে সম্পৃক্ততাসম্পাদনা

১৯৯৩ সালে মুম্বই শহরে ধারাবাহিক বোমা হামলা হয়। বলিউডের যারা এই হামলার সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন সঞ্জয় দত্ত তাদের একজন। প্রমাণ মিলে যে দত্ত মুম্বই বোমা হামলার সাথে জড়িত আবু সালেম ও রিয়াজ সিদ্দিকীর কাছ থেকে অবৈধ অস্ত্র এনে তার বাড়িতে রাখেন। অভিযোগ ওঠে এই অস্ত্রগুলো সন্ত্রাসীদের বড় অস্ত্র হস্তান্তরের সাথে জড়িত ছিল। দত্ত তার স্বীকারোক্তিতে বলেন তিনি তার সনম চলচ্চিত্রের প্রযোজকের নিকট থেকে তার নিজের পরিবারের নিরাপত্তার জন্য একটি একে-৫৬ রেখেছিলেন।[৮]

১৯৯৩ সালের এপ্রিলে সন্ত্রাসী ও সংহতি নাশমূলক কর্মকাণ্ড (সংরক্ষণ) আইনের অধীনে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ১৯৯৩ সালের ৫ই মে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট তার জামিন মঞ্জুর করে, কিন্তু ১৯৯৪ সালের ৪ঠা জুলাই তার জামিন বাতিল করা হয় এবং তাকে পুনরায় গ্রেফতার করা হয়। ১৯৯৫ সালের ১৬ই অক্টোবর তিনি জামিনে ছাড়া পান।[৯]

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

 
২০১১ সালে পত্নী মান্যতার সঙ্গে সঞ্জয়

১৯৯৮ সালে সঞ্জয় রিয়া পিল্লাই নামের এক মডেলকে বিয়ে করেন।[১০] ২০০৫ সালে তাদের মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এরপর সঞ্জয় ২০০৮ সালে মান্যতাকে গোয়াতে গোপন এক অনুষ্ঠানে বিয়ে করেন[১১], বিয়ের আগে তারা দুই বছর প্রেম করেছিলেন।[১২] ২০১০ সালের ২১ অক্টোবর তারিখে সঞ্জয় আর মান্যতা জমজ ছেলেমেয়ের পিতামাতা হন।[১৩]

 
ব্লকবাস্টার ট্রেড ম্যাগাজিন লঞ্চে সঞ্জয় দত্ত।

চলচ্চিত্রসম্পাদনা

  চিহ্নিত চলচ্চিত্রগুলির নির্মাণ চলছে
বছর চলচ্চিত্র চরিত্র সহ-শিল্পী পরিচালক
১৯৮১ রকি রাকেশ / রকি ডি সুজা টিনা মুনিম সুনীল দত্ত
১৯৯১ সাজন অমন বার্মা / সাগর মাধুরী দীক্ষিত লরেন্স ডি'সুজা
১৯৯৩ খলনায়ক বলরাম রাকেশ প্রসাদ / বাল্লু মাধুরী দীক্ষিত সুভাষ ঘাই
২০০০ মিশন কাশ্মীর এনায়েত খান প্রীতি জিনতা বিধু বিনোদ চোপড়া
২০০৩ মুন্না ভাই এম.বি.বি.এস. মুরলি প্রসাদ শর্মা / মুন্না ভাই গ্রেসি সিং রাজকুমার হিরানী
২০০৬ লাগে রাহো মুন্না ভাই মুরলি প্রসাদ শর্মা / মুন্না ভাই বিদ্যা বালান রাজকুমার হিরানী
২০১২ সন অব সরদার বিল্লু সোনাক্ষি সিনহা আশ্বীন ধির
২০১৮ সঞ্জু সঞ্জয় দত্ত দিয়া মির্জা রাজকুমার হিরানী
২০১৯ প্রস্থানাম বলরাজ কুন্ডু মনীষা কৈরালা দেবা কত্তা
পানিপথ   আহমদ শাহ আবদলি কৃতি শ্যানন আশুতোষ গোয়ারিকর
২০২০ সড়ক ২   রবি পূজা ভাট মহেশ ভাট
শামশেরা   আশুবীর সাক্সেনা বাণী কাপুর করণ মালহোত্রা
কেজিএফ: চ্যাপ্টার টু   আধীরা শ্রীনিধি শেট্টি প্রশান্ত নীল

জনসংস্কৃতিতেসম্পাদনা

সঞ্জয় দত্তের মাদকাসক্ত পর্যায় ও বিতর্কিত সন্ত্রাসী জীবন নিয়ে রাজকুমার হিরানী নির্মাণ করেন সঞ্জু। ছবিটিতে রণবীর কাপুর তার ভূমিকায় অভিনয় করেন।[১৪][১৫] ছবিটি বিশ্বব্যাপী ২০১৮ সালের ২৯শে জুন মুক্তি পায়।[১৬][১৭]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "I would love to write my biography: Sanjay Dutt"The Times of India। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১০-০৩ 
  2. "Sanjay Dutt shot for his role in 'P.K' before going to jail: Rajkumar Hirani"indianexpress..com। মার্চ ৫, ২০১৪। 
  3. Personal Life Material - Religious Views Source
  4. "Sanjay Dutt used to Drugs"। bollywoodmantra.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৮-২২ 
  5. PTI (২ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "Sanjay Dutt to do a qawwali after 41 years in Zanjeer"The Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-১৭ 
  6. "I have become a family man: Sanjay Dutt"The Express Tribune। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-২১ 
  7. "Sanjay Dutt's tearful reunion with daughter in the Bahamas"Rediff। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-২১ 
  8. "1993 Mumbai blasts: Sanjay Dutt's confessional statement"নিউজ এইটিন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৮ 
  9. "From arrest to release: A complete, 23-year-long Sanjay Dutt timeline"হিন্দুস্তান টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৮ 
  10. "Life and loves of Sanjay Dutt he is a really fantastic"। NDTV। ২০১১-০৭-১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-২১ 
  11. "Unknown starlet Dilnawaz's journey to Mrs Manyata Dutt"। Ibnlive.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-২১ 
  12. "Sanjay Dutt marries Manyata"Reuters। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-২১ 
  13. "Manyata Dutt delivers twins"Times of India। ২১ অক্টোবর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১০-২১ 
  14. "বলিউড তারকা সঞ্জয় দত্তের বিভিন্ন বয়সে রণবীর"দৈনিক প্রথম আলো। ২৪ এপ্রিল ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৮ 
  15. "যেভাবে 'সঞ্জু'তে রুপান্তরিত হলেন রণবীর (ভিডিও)"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ৭ জুলাই ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৮ 
  16. "'সঞ্জু' ছবি মুক্তি পাচ্ছে ২৯ জুন"বৈশাখী অনলাইন। ৪ জুন ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৮ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  17. "কাল মুক্তি পাচ্ছে বায়োপিক 'সঞ্জু'"দৈনিক ইনকিলাব। ২৮ জুন ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা