সৈয়দ শাহ মোস্তফা আল-বাগদাদী ( আরবি: سید شاه مصطفى البغدادي‎‎ ), শাহ মোস্তফা নামে পরিচিত, সিলেট অঞ্চলের একজন সুফি মুসলিম ব্যক্তিত্ব। মোস্তফার নাম মৌলভীবাজারে ইসলাম প্রচারের সাথে যুক্ত, যা মধ্য প্রাচ্য, মধ্য এশিয়া এবং দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যবর্তী দীর্ঘ ইতিহাসের অংশ। তিনি ১৩০৩ সালে শাহ জালালের নেতৃত্বে সিলেটের বিজয় অংশ নিয়েছিলেন। এছাড়াও তিনি ফার্সি উপনাম শের-ই-সোওয়ার এবং চাবুকমার নামে ডাকা হয়।[১]


শাহ মোস্তাফা

শের-ই-সোওয়ার চাবুকমার আল-বাগদাদি
উপাধিশের-ই-সোওয়ার, চাবুকমার
ব্যক্তিগত
জন্ম
মৃত্যুজানুয়ারি ১৪, ১৩৩৬(১৩৩৬-০১-১৪)
সমাধিস্থলদরগাহ-ই-শাহ মুস্তাফা, দরগাহ মহল্লা, মৌলভীবাজার
ধর্মইসালম
জাতীয়তাইরাকি
দাম্পত্য সঙ্গীসালমা খাতুন, বিবি হামিরা সহ আরও ১ জন
সন্তানসৈয়দ ইসমাইল, সৈয়দ শাহ নাসরুল্লাহ, সৈয়দ শাহ হাসান
পিতামাতা
  • সৈয়দ সুলতান কাদিরী (পিতা)
আখ্যাসূফি (সোহরাওয়ার্দিয়া)
শিক্ষালয়শাফেঈ
বংশআব্দুল কাদের জিলানী
আত্মীয়শাহ ইসমাইল ও শাহ ইয়াসিন (ভাগ্নে), সৈয়দ আব্দুল মজিদ (বংশধর), হেলিমুদ্দিন ও চন্দ্র সিং (শ্বশুর)
ঊর্ধ্বতন পদ
ভিত্তিকমৌলভীবাজার
কাজের মেয়াদচতুর্দশ শতাব্দীর প্রথম দিকে
পদওলি

জীবনকালসম্পাদনা

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

 
শাহ মোস্তফা বাগদাদ অবরোধের (১২৫৮) সময় উপস্থিত ছিলেন।

শাহ মোস্তফা ইরাকের বাগদাদে একটি ঐতিহ্যবাহী ইসলামী বাড়িতে জন্ম ও বেড়ে ওঠেন।[২] তাঁর পিতা সৈয়দ সুলতান ছিলেন ইসলামী পণ্ডিত আবদুল কাদির জিলানির বংশধর।[৩] কিছু সূত্র এও উল্লেখ করেছে যে তাঁর পূর্বপুরুষেরা মক্কা থেকে বাগদাদে পাড়ি জমান।[৪] মোস্তফা একজন সৈয়দা মহিলাকে বিয়ে করেছিলেন এবং সৈয়দ ইসমাইলের নামে ছেলেও ছিল। যদিও তিনি কাদিরী তরিকায় শিক্ষিত ছিলেন, তবে কথিত আছে যে তিনি পরবর্তী জীবনে সোহরাওয়ার্দিয়ার তরীকা অনুসরণ করেছিলেন।

হিজরতসম্পাদনা

ইয়েমেনের হাধরামাউত থেকে ভারতীয় উপমহাদেশের দিকে শাহ জালালের অভিযানের সময় শাহ জালাল বাগদাদ শহরের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করেন, যা হালাকু খান শাসিত মঙ্গোল সাম্রাজ্যের দক্ষিণ-পশ্চিম সেক্টর ইলখানাতের দখলে ছিল। এখানে শাহ মুস্তাফা ও তার পুত্র ইসমাইল জালালের সাথে সাক্ষাৎ করেন এবং ১২৫৮ সালে সর্বশেষ আব্বাসি খলিফা আল-মুস্তাসিম হত্যার পর তার অভিযানে তার সাথে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।[৫] ১৩০৩ সালে শাহ জালালের নেতৃত্বে মোস্তফা ও ইসমাইল সিলেটের বিজয়ের তৃতীয় যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন।

বিজয়ের পর শাহ জালাল শাহ মুস্তাফা, নূর আলী শাহ, সৈয়দ ইসমাইল প্রভৃতিকে ইসলামের ধর্ম প্রচারের জন্য চন্দ্রপুর (আধুনিক মৌলভীবাজার) হিজরত করাএ আদেশ দেন।[৬] এখানে মোস্তফা একটি ছোট পাহাড়ের উপর একটি ছোট কুটির নির্মাণ করেন যেখানে বোরশিজুরার কাছাকাছি একটি গ্রামে অবস্থিত ছিল[১] এতার এলাকা পরবর্তীতে মোস্তফাপুর নামে পরিচিত হবে, তার নিজের নামে নামকরণ করা হয়। এই সময় এলাকা রাজা চন্দ্র নারায়ণ সিং দ্বারা পরিচালিত হয়, যিনি বৃহত্তর ত্রিপুরা রাজ্যের অধীনে ইটা রাজপরিবারের সদস্য বা স্থানীয়ভাবে শাসিত ছিল বলে শোনা যায়। মুস্তাফা তার রাজ্যে বসবাসের অনুমতি চেয়েছিলেন কিন্তু রাজা তা গ্রহণ করেননি। এই সময়ে ইসমাইল মারা যান। কথিত আছে, তার ছোট ্ট কুটির থেকে মুস্তাফা একটি হুজরা র আয়োজন করতেন এবং স্থানীয় জনগণের কাছে প্রচার করতেন যত বেশি মানুষ তাঁর কাছে আসতেন। শাহ মুস্তাফার হুজরাতে যোগ দানের পর অনেক মানুষ ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করছে শুনে সিং ক্ষুব্ধ হন। তিনি শাহ মুস্তাফাকে তার ডোমেইন থেকে খালি করার জন্য একটি আনুষ্ঠানিক নির্দেশিকা জারি করেন।[৩]

একদিন, একটি বিষাক্ত সাপ রাজার সিংহাসনে বসল এবং রাজার লোকদের মধ্যে কেউ তাড়াতে পারলো না। [৬] এই ঘটনার সমাধান কীভাবে করা যায় তা চিন্তা করে বোর্শিজুরার সাতপাবিয়া পাহাড়ের উপরে রাজার প্রাসাদে সভা অনুষ্ঠিত হয়। একই সময়ে, যখন রাজকীয় লোকেরা প্রাসাদে ব্যস্ত ছিল, একটি বাঘ বাজারে প্রবেশ করে এবং সিং এর ডোমেইন জুড়ে বিপর্যয় সৃষ্টি করছিল।[৭] এই ঘটনার সংবাদ শাহ মুস্তাফার কাছে পৌঁছেছে। অবশেষে মুস্তাফা তার কুটির থেকে চলে গেলেন এবং প্রাসাদে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন। পথে তিনি বোরশিজুরার বাঘের সাথে এমনভাবে চেপে ধরেছিলেন যে তিনি যাত্রা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এরপর তিনি সাতপাবিয়ার প্রাসাদে এসে সাপটিকে পরাজিত করার জন্য তার চাবুক ব্যবহার করেন।[৮] রাজা শাহ মুস্তাফার সাহসে মুগ্ধ হন এবং তারপর তাকে তার ডোমেইনে থাকার অনুমতি দেন। রাজা তার একমাত্র সন্তান সালমা খাতুনকে শাহ মুস্তাফাকে বিয়ে করতে দেন, যদিও রাজা নিজে ইসলাম গ্রহণ করেন কিনা তা নিয়ে বিতর্ক হয়।[১] এই দম্পতির একটি ছেলে ছিল, সৈয়দ শাহ নাসরুল্লাহ, যাকে একজন উল্লেখযোগ্য ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব হিসেবেও দেখা হয়।[৩] শাহ মুস্তাফা এছাড়াও চন্দ্রপুর উপর শাসন চন্দ্র সিং স্থলাভিষিক্ত হন। রাজা চন্দ্র সিং কমলগঞ্জের দেওরাছড়ি চা এস্টেটের উত্তরে নিজের জন্য একটি নতুন প্রাসাদ নির্মাণ করেন। সমরকোনা গ্রামের ঠিক পশ্চিমে এই নতুন প্রাসাদের ধ্বংসাবশেষ, সেই সাথে রাজার দিঘি নামে পরিচিত একটি বড় পুকুর আজও রয়ে গেছে।[৯]

শাহ মুস্তাফা শাহ জালালের আরেক সঙ্গী কানিহাটির শাহ আব্দ আল-মালিকের কন্যা বিবি হামিরাকে বিয়ে করেন এবং সৈয়দ শাহ হাসান নামে তাদের একটি সন্তান হয়।

উত্তরাধিকারসম্পাদনা

আজ অবধি মৌলভীবাজার জেলা জুড়ে শাহ মোস্তফার নামে অনেকগুলি জায়গা রয়েছে। সবচেয়ে লক্ষণীয় বিষয় হল, সুফি পীরের মাজারটি মৌলভীবাজারের দরগাহ মহল্লায় অবস্থিত। প্রতিবছর এই দরগায় মোস্তফার উরস স্মরণ করা হয় এবং প্রায় ৭০০ বছর ধরে চলেছে।[১০] এই অনুষ্ঠান অনেক মানুষকে আকর্ষণ করে এবং কমপ্লেক্সের চারপাশে দুই দিনব্যাপী একটি মেলা অনুষ্ঠিত হয়।[১১][১২] কমপ্লেক্সের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে শাহ মুস্তাফার দুই ভাগ্নে শাহ ইসমাইল ও শাহ ইয়াসিনের দরগা রয়েছে।[৭] রাজা চন্দ্র নারায়ণ সিংহের প্রাসাদগুলি এখনও খলিলপুর এবং দেওরাছড়ায় রয়েছে।[১৩]

নামকরণসম্পাদনা

  • দরগাহে শাহ মোস্তফা, দোরগাহ রোড
  • মৌলভীবাজার সদর উপজেলার মোস্তফাপুর ইউনিয়ন শাহ মুস্তফা যে গ্রামে বাস করতেন এবং প্রচার করেছিলেন তার নামানুসারে নামকরণ করা হয়েছে।
  • শাহ মোস্তফা রোড, মৌলভীবাজার
  • শাহ মোস্তফা স্কয়ার, কালেক্টরেট হাউজের বিপরীতে
  • শাহ মোস্তফা একাডেমি, কে বি আলাউদ্দিন রোড
  • শাহ মোস্তফা জামে মসজিদ, রাজনগর
  • সৈয়দ শাহ মোস্তফা কলেজ, শমসের নগর রোড
  • সৈয়দ শাহ মোস্তফা হাফিজিয়া মাদ্রাসা, দোরগাহ রোড
  • সৈয়দ শাহ মোস্তফা জামে মসজিদ, ১ ক্রাউন টেরেস, অ্যাবারডিন, স্কটল্যান্ড, এবি ১১ ৬ এইচডি

বংশধরসম্পাদনা

তাঁর অধিকাংশ বংশধর মোস্তফাপুর, দরগাহ মহল্লা, গেভিন্দশ্রী, ধোরকাপন, কাজিরগাঁও, খোলাপাড়া ও হিলালপুর এলাকায় ঐতিহাসিক চৌলিশ পারগানা জুড়ে বসবাস করেন এবং সৈয়দের নাম বহন করেন।[৪][৭]

মৌলভীবাজার জেলার নামকরণ করা হয়েছে মৌলভী সৈয়দ কুদরতউল্লাহর নামে, সৈয়দ হুরমতুল্লাহর পুত্র যিনি শাহ মোস্তফার ভাগ্নী শাহ ইয়াসিনের বংশধর ছিলেন।

শাহ মুস্তাফার আরেক বংশধর সৈয়দ মুহিবুল্লাহ, যিনি তার পুত্র সৈয়দ আব্দুল জলিলের সাথে সিলেটের কাজী ইলিয়াস পাড়ায় বসবাস করতেন। আব্দুল জলিলের পুত্র ছিলেন সৈয়দ আব্দুল মজিদ (কাপ্তান মিয়া) যিনি ১৮৭২ সালে জন্মগ্রহণ করেন। আব্দুল মজিদ ছিলেন একজন অভিজাত ব্যক্তি যিনি ১৯১১ সালে সম্রাট পঞ্চম জর্জের উপমহাদেশ সফরের সময় দিল্লি দরবারে উপস্থিত থাকার জন্য আমন্ত্রিত হন এবং ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সঙ্গী Companion of the Order of the Indian Empire এবং খান বাহাদুর উপাধি প্রদান করেন। [১৪]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "শের সওয়ার, চাবুক মার"। Shaptahik। ২০০৯। 
  2. "Bāṃlā Ekāḍemī patrikā"Bangla Academy। ২০০৪। 
  3. Rajat Kanti Goswami (৩১ মার্চ ২০০৭)। "Journey Through Bangladesh: Hazrat Shah Mustafa's Legacy"2। Star Insight (Daily Star)। 
  4. Rashid, Ahmad (১৯৭৬)। Tazkeratul Aoliya। Shireen Publications। পৃষ্ঠা 137–139। 
  5. Ibn BattutahThe Rehla of Ibn Battuta 
  6. Syed Murtaza Ali (১৯৬৫)। হজরত শাহ জালাল ও সিলেটের ইতিহাস। পৃষ্ঠা 42। 
  7. Mujibur Rahman Mujib (১০ জানুয়ারি ২০১৯)। "পীরে কামেল হযরত সৈয়দ শাহ"। Patakuri। 
  8. "জানুয়ারি হযরত সৈয়দ শাহ্ মোস্তফা (রঃ) এর উরস মোবারক"। Jalalabad Barta। ১৩ জানুয়ারি ২০১৯। 
  9. Patrikā, Volume 6। Bengali Academy। ১৯৬২। পৃষ্ঠা 103। 
  10. S M Umed Ali (১৫ জানুয়ারি ২০১৭)। "মৌলভীবাজারে শাহ মোস্তফা (রহ.) দরগায় ওরস শুরু"NTV 
  11. "District census report"। Population Census of Bangladesh। Bangladesh Bureau of Statistics, Statistics Division, Ministry of Planning। ১৯৭৪। পৃষ্ঠা 30। 
  12. "হযরত সৈয়দ শাহ মোস্তফা (রঃ) এর ৬৭৮ তম ওরুস মোবারক শুরু"। Moulvibazar Barta। ১৭ জানুয়ারি ২০১৯। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  13. "Introduction"Moulvibazar.com। জানুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  14. Chowdhury, MKI Quayyum। "Majid, Khan Bahadur Syed Abdul"Banglapedia: National Encyclopedia of BangladeshAsiatic Society of Bangladesh