প্রধান মেনু খুলুন

মারভিন ওয়েট

অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার

মারভিন জর্জ ওয়েট (ইংরেজি: Mervyn Waite; জন্ম: ৭ জানুয়ারি, ১৯১১ - মৃত্যু: ১৬ ডিসেম্বর, ১৯৮৫) দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার কেন্ট টাউনে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১] অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৩৮ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

মারভিন ওয়েট
Mervyn Waite 1938.jpg
১৯৩৮ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে মারভিন ওয়েট
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামমারভিন জর্জ ওয়েট
জন্ম(১৯১১-০১-০৭)৭ জানুয়ারি ১৯১১
কেন্ট টাউন, দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু১৬ ডিসেম্বর ১৯৮৫(1985-12-16) (বয়স ৭৪)
জর্জটাউন, দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়া, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ-স্পিন
ভূমিকাঅল-রাউন্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১৬২)
২২ জুলাই ১৯৩৮ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২০ আগস্ট ১৯৩৮ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১০৩
রানের সংখ্যা ১১ ৩৮৮৮
ব্যাটিং গড় ৩.৬৬ ২৭.৭৭
১০০/৫০ ০/০ ১/২৩
সর্বোচ্চ রান ১৩৭
বল করেছে ৫৫২
উইকেট ১৯২
বোলিং গড় ১৯০.০০ ৩১.৬১
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/১৫০ ৭/১০১
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/০ ৬৬/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১২ জুলাই ২০১৯

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে সাউথ অস্ট্রেলিয়া দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ অল-রাউন্ডার হিসেবে খেলতেন। ডানহাতে অফ স্পিন বোলিংয়ের পাশাপাশি ডানহাতে ব্যাটিংশৈলী প্রদর্শন করতেন মারভিন ওয়েট

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯৩০-৩১ মৌসুম থেকে ১৯৪৫-৪৬ মৌসুম পর্যন্ত মারভিন ওয়েটের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। আক্রমণধর্মী ব্যাটসম্যান ও মিডিয়াম পেস বোলার মারভিন ওয়েট অফ ব্রেক বোলিংও করতে পারতেন। শেফিল্ড শিল্ডে সাউথ অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে খেলতেন।

১৯৩৯-৪০ মৌসুমে সাউথ অস্ট্রেলিয়া ৮২১/৭ তুলে কুইন্সল্যান্ডের বিপক্ষে ইনিংস ঘোষণা করে। ঐ ইনিংসে তিনি ১৩৭ রান তুলেন। পঞ্চম উইকেট জুটিতে সিএল ব্যাডককের সাথে ২৮১ রান যোগ করেন। রাজ্য দলের রেকর্ড জুটিতে সংগৃহীত এ রানটিই তার একমাত্র সেঞ্চুরি ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর কুইন্সল্যান্ডের বিপক্ষে ৪/১১ লাভ করলেও তার দল পাঁচ উইকেটে পরাজয়বরণ করে। এটিই তার শেষ প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলায় অংশগ্রহণ ছিল। সকল প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়ে ২৭.৭৭ গড়ে ৩,৮৮৮ রান ও ৩১.৬১ গড়ে ১৯২ উইকেট পান। এছাড়াও, ৬৬টি ক্যাচ তালুবন্দী করেছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে দুইটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন মারভিন ওয়েট। ২২ জুলাই, ১৯৩৮ তারিখে লিডসে স্বাগতিক ইংরেজ দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। একই টেস্টে ইংরেজ ক্রিকেটার ফ্রেড প্রাইসেরও অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হয়েছিল।[২] ২০ আগস্ট, ১৯৩৮ তারিখে ওভালে একই দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

১৯৩৮ সালে অস্ট্রেলিয়া দলের সদস্যরূপে ইংল্যান্ড গমন করেন। লিডস ও ওভাল টেস্টে বোলিং উদ্বোধনে নেমেছিলেন। ওভাল টেস্টে স্বাগতিক ইংল্যান্ড দল ৯০৩/৭ তুলে ইনিংস ঘোষণা করে। এ ইনিংসে তার বোলিং পরিসংখ্যান ছিল ৭২-১৬-১৫০-১। এ উইকেটটি ছিল ডেনিস কম্পটনের। ইংল্যান্ডের দলীয় সংগ্রহ ৫৪৭/৪ থাকা অবস্থায় কম্পটন ১ রানে বিদায় নেন। স্বাগতিকদের সংগ্রহ ৮ রান থাকাকালে এডি পেন্টার বিল ও’রিলির বলে শূন্য রানে এলবিডব্লিউর শিকারে পরিণত হয়েছিলেন। কিন্তু, অপর প্রান্তে লেন হাটন শক্তভাবে হাল ধরেন। পরবর্তীতে এটিই তার একমাত্র উইকেট হিসেবে চিত্রিত হয়।

এ সফরে অল-রাউন্ডার হিসেবে বেশ ভালো খেলেন। ২৫.৩৩ গড়ে ৬৮৪ রান এবং ২৫.৯৬ গড়ে ৫৬ উইকেট তুলে নেন। ব্রামল লেনে অনুষ্ঠিত বৃষ্টিবিঘ্নিত খেলায় ইয়র্কশায়ারের প্রথম ইনিংসে ৭/১০১ লাভ করেন। এ পর্যায়ে তিনি সুইং ও অফ স্পিন বোলিংয়ের সংমিশ্রণ ঘটিয়েছিলেন। এটিই তার ব্যক্তিগত সেরা বোলিং পরিসংখ্যান ছিল। ফলশ্রুতিতে, লিডস টেস্টে নিজের স্থান নিশ্চিত করেন। হেডিংলিতে কোন উইকেট লাভে ব্যর্থ হন। তবে, ষষ্ঠ উইকেটে ৩৭ রানের জুটিতে ডন ব্র্যাডম্যানের এ মাঠে উপর্যুপরী তৃতীয় শতক লাভে যথেষ্ট সহায়তা করেন। ৩ রানে বিদায় নিয়েছিলেন তিনি। এ খেলায় অস্ট্রেলিয়া দল জয় পেয়ে অ্যাশেজ অক্ষুণ্ন রাখে।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি অস্ট্রেলীয় রুলস ফুটবলে পারদর্শী ছিলেন মারভিন ওয়েট। সাউথ অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ফুটবল লীগে (এসএএনএফএল) প্রথমে ওয়েস্ট টরেন্সে খেলার পর গ্লেনেলগে খেলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন গ্লেনেলগ/ওয়েস্ট অ্যাডিলেডে খেলার পর সাউথ অ্যাডিলেডের প্রতিনিধিত্ব করেন। সর্বমোট ১৪২টি লীগ খেলায় অংশ নিয়ে ৩৪৩ গোল করেন। তন্মধ্যে, ১৯৩১, ১৯৩২ ও ১৯৩৪ সালে ওয়েস্ট টরেন্সের শীর্ষস্থানীয় গোলকিকার ছিলেন।[৩]

১৬ ডিসেম্বর, ১৯৮৫ তারিখে ৭৪ বছর বয়সে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার জর্জটাউন এলাকায় মারভিন ওয়েটের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Australia – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুন ২০১৯ 
  2. "Australia in England (1938): Scorecard of fourth Test"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১২, ২০১৯ 
  3. The Mail (SA), "Sporting Spotlights", 2 October 1937. p. 8

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা