প্রধান মেনু খুলুন

ন-অসমীয়া বা সকলের কাছে পরিচিত মিয়া হল আসামের অভিবাসী মুসলমান জনগনকে বোঝায়, যারা ভারতের অসম রাজ্যে পূর্ব বাংলার (পরে পূর্ব পাকিস্তানবাংলাদেশ) থেকে আসেন এবং ব্রহ্মপুত্র উপত্যকায় বসতি স্থাপন শুরু করেন। ১৯৪০-এর দশকে মুসলিম লীগ সরকার এবং ভারত বিভাগের পূর্বে অসমীয়া অভিজাত শ্রেণির অভিপ্রায়টি পাকিস্তান কর্তৃক অনুমোদিত হয় এবং ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের সংবিধানের পর অবৈধ বলে বিবেচিত হয়। এই অভিবাসী মুসলমানরা ব্রহ্মপুত্র নদের চরগুলি, অন্যান্য নিম্নভূমি এবং নদী দ্বীপে বসতি স্থাপন করে। আসামের চারটি প্রধান মুসলিম জাতিগত গোষ্ঠী মধ্যে ন-অসমীয়া মুসলিম জাতিগত গোষ্ঠী সর্বাধিক সংখ্যাগরিষ্ঠ যারা আসামের এক তৃতীয়াংশ ভোট গঠন করেছে। [১]

ব্যাকরণসম্পাদনা

অসমীয়া ভাষায় ন-অসমীয়া শব্দটি আক্ষরিকভাবে নতুন অসমীয়া, উপসর্গ ন-অর্থ 'নতুন' এবং অসমী শব্দের অর্থ অসমীয়া [২] ভারত বিভাগের পর, ন অসমীয়ারা নিজেদের বাংলাভাষী হিসাবে পরিচয় দেয় এবং পরে অসমীয়া ভাষাটি গ্রহণ করে। ধীরে ধীরে তারা গামোসা মত আসামি সংস্কৃতি গ্রহণ করে, তারা কখনও কখনও নব্য-অসমী নামে পরিচিত। ন-অসমীয়াদেরও চারুয়া মুসালমান নামে অভিহিত করা হয়, আক্ষরিকভাবে নদী চরগুলির মুসলমানদের বসতি রয়েছে। তারা পামুয়া মুসালমান নামেও পরিচিত, আক্ষরিক অর্থে কৃষিজমী মুসলমানরা, যেমন কৃষি তাদের প্রাথমিক জীবিকা। [৩] কিছু পণ্ডিতরা 'ইমিগ্রান্ট মুসলিম' বা 'বাংলা মুসলিম' শব্দটি ব্যবহার করে এই জনগষ্ঠির জন্য ব্যবহার করে।[৩]

জাতিতত্ত্বসম্পাদনা

ন-অসমীয়া মুসলমানরা নৃবিজ্ঞানী এবং সংস্কৃতিগতভাবে অসমীয়া মুসলমানদের থেকে আলাদা। অসমীয়া মুসলমানদের মাঝারি আকারের লেপট্রেরিন নাক এবং মেসোফেলিক মাথা রয়েছে। [৪] ১৯৯৫ সালে কামরূপ জেলায় পরিচালিত একটি তুলনামূলক গবেষণার মতে প্রাক-কিশোর অসমীয়া মুসলিম পুরুষ তাদের ন-অসমীয়া মুসলিম পুরুষদের তুলনায় ক্ষুদ্র এবং কম ওজনের পাওয়া যায়। [৫] অসমীয়া মুসলমান জনগন ন-অসমীয়া মুসলমানদের থেকে ভিন্ন এবং উল্লেখযোগ্য ভাবে বরাক উপত্যকার মুসলমানদের (ন-অসমীয়া) থেকে ভিন্ন। [৩]

ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে ত্রিশ লক্ষ ন-অসমীয়া মুসলিম জনসংখ্যার বাস। তাদের ৭০% দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাস করে। [৬] ন-অসমীয়ারা ধুবড়ী, বরপেটা, নলবাড়ি, কামরূপ, মরিগাঁও, নগাঁও, দরং, শোণিতপুর জেলার পাশে ব্রহ্মপুত্র চর দখল করে বসবাস করেন। [৭]

এই এলাকাতে অসমীয়া ভাষা এবং গোলাপিয়ার উপভাষা সরকারি ভাবে স্বীকৃত, ফলে ন-অসমীয়ারা সময়ের সাথে সাথে তাদের মূল ভাষা ভুলে যাওয়া শুরু করে। তারা ধীরে ধীরে তাদের নিজস্ব একটি ক্রেওল ভাষা গড়ে তোলেন যার মধ্যে ৫০% আসামি ভাষা থেকে, ৪০% বাংলা ভাষা থেকে এবং ১০% উর্দু ভাষা থেকে এসেছে। নতুন ভাষাটি চারুয়া, পামুয়া বা মিয়া নামে পরিচিত হয় এই প্যাডিন ভাষা বেশিরভাগ বাড়িতে ও গ্রামে ন-অসমীয়াদের দ্বারা বলা হয়, কিন্তু আনুষ্ঠানিক ও আনুষ্ঠানিক বৈঠকে তারা আসামের সাধারণ অসমীয়া ভাষায় কথা বলেন।

ইতিহাসসম্পাদনা

অসমে অভিবাসনসম্পাদনা

পূর্ব বাংলার থেকে আসামে মুসলমানদের অভিবাসন ১৯০১-১১ সালের জন গণনা দশকের শুরুতে শুরু হয়। [৩] আদমশুমারি রিপোর্ট অনুযায়ী, ১৯১১ ও ১৯৪১ সালের মধ্যে পূর্ব বাংলার থেকে জনসংখ্যার একটি বৃহৎ পরিসর এসেছিল অসম রাজ্যে। [৮] অভিবাসী জনসংখ্যার ৮৫% ছিল সামাজিকভাবে এবং অর্থনৈতিকভাবে পশ্চাৎপদ মুসলমান, যারা আসামে বাস্তুচ্যুত হয়। [৮] অধিকাংশ অভিবাসীরাই পূর্ববাংলা অবিভক্ত ময়মনসিংহ, পাবনা, বগুড়া ও রংপুর জেলা এবং পূর্ব ও উত্তর বাংলার রাজশাহী বিভাগ থেকে এসেছে। [৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Bhaumik, Subir (April 2011)। "Risk of durable disorder"Seminar। New Delhi: Seminar Publications (620)। সংগ্রহের তারিখ 05 December 2017  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. Khandakar, Abdullah (৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৬)। Social Exclusion of Inhabitants of Chars: A Study of Dhubri District in Assam (PDF) (M.Phil.)। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৭ 
  3. Bokth, Humayun (ডিসেম্বর ২০১৪)। "Social Life in Char Area: A Study of Neo-Assamese Muslim Village in Brahmaputra Valley of Assam" (PDF)International Journal of Development Research4 (12)। আইএসএসএন 2230-9926। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৭ 
  4. Dutta, P.C.; Pradhan, B.C. (২০০৬)। "Issues and Problems of Ethnicity in Assam"। Deb, Bimal J.। Ethnic Issues, Secularism, and Conflict Resolution in North East Asia। Contributed articles presented at the Seminar on Ethnic Issues, Secularism, and Conflict Resolution in North-East India held at Shillong during 25–26 April 2001। North-East India Council for Social Science Research। Concept Publishing Company। পৃষ্ঠা 164। আইএসবিএন 9788180691348 
  5. Subba, Tanka Bahadur; Ghosh, G.C. (২০০৩)। The Anthropology of North-East India। Anthropological Survey of India, North Eastern Hill University (Reprint সংস্করণ)। Orient Blackswan। পৃষ্ঠা 144। আইএসবিএন 9788125023357। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৭ 
  6. Rix, Meredydd (১৯ জুলাই ২০১৬)। "Na-Asamiya Muslims Remain Targeted in Assam"The Citizen। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৭ 
  7. Begum, Farzana। "Study on Brahmaputra: The Lifeline of the People of Assam" (PDF)The Mahabahu Brahmaputra। Flood and River Erosion Management Agency of Assam। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৭ 
  8. Ahmed, Shahiuz Zaman। "Identity Issue, Foreigner's Deportation Movement and Erstwhile East Bengal (Present Bangladesh) Origin People of Assam"Proceedings of the Indian History Congress। Indian History Congress। 67 (2006-2007): 624–639। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৭