কীচক বধম

রঙ্গস্বামী নটরাজ মুদলিয়ার পরিচালিত ১৯১৮ সালের একটি নির্বাক চলচ্চিত্র

কীচক বধম (বাংলা: কীচকের বধ বা কীচকের হত্যাকাণ্ড) হলো একটি ভারতীয় নির্বাক চলচ্চিত্র। চলচ্চিত্রটি রঙ্গস্বামী নটরাজ মুদলিয়ার দ্বারা প্রযোজিত, পরিচালিত, চিত্রগ্রহণ করা এবং সম্পাদিত। চলচ্চিত্রটি দক্ষিণ ভারতে নির্মিত প্রথম চলচ্চিত্র এবং এটি নটরাজ মুদলিয়ারের প্রযোজনা সংস্থা, ইন্ডিয়া ফিল্ম কোম্পানি-তে পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে চিত্রধারণ করা হয়। যেহেতু চলচ্চিত্রকর্মীদের সদস্যরা জাতিগতভাবে তামিল ছিলেন, সেহেতু কীচক বধম চলচ্চিত্রটিকে সর্বপ্রথম তামিল চলচ্চিত্র হিসেবে গণ্য করা হয়। এটির কোন মুদ্রণ বেঁচে আছে বলে জানা যায়নি, যা চলচ্চিত্রটিকে একটি হারানো চলচ্চিত্র তালিকায় তালিকাভুক্ত করে।

কীচক বধম
পরিচালকরঙ্গস্বামী নটরাজ মুদলিয়ার
প্রযোজকরঙ্গস্বামী নটরাজ মুদলিয়ার
রচয়িতাসি. রাঙ্গাভাদিভেলু
শ্রেষ্ঠাংশেরাজু মুদলিয়ার
জীবর্থনাম
চিত্রগ্রাহকরঙ্গস্বামী নটরাজ মুদলিয়ার
সম্পাদকরঙ্গস্বামী নটরাজ মুদলিয়ার
প্রযোজনা
কোম্পানি
ইন্ডিয়া ফিল্ম কোম্পানি
মুক্তি১৯১৬–১৯১৮[ক]
দেশভারত
ভাষানির্বাক (তামিল প্রেক্ষাপট)
নির্মাণব্যয় ৩৫,০০০[৩]
আয় ৫০,০০০[৪]

সি. রাঙ্গাভাদিভেলু দ্বারা লিখিত চিত্রনাট্যটি হিন্দু মহাকাব্য মহাভারত-এর বিরাট পর্ব অংশের একটি পর্বের উপর কেন্দ্রিত, যেখানে চিত্রনাট্যটি কীচকের দ্রৌপদীকে পাওয়ার চেষ্টার উপর আলোকপাত করে। চলচ্চিত্রের অভিনয়ে মূল চরিত্রগুলিতে রয়েছেন রাজু মুদলিয়ার ও জীবর্থনাম।

১৯১০-এর দশকের শেষের দিকে মুক্তি পাওয়া কীচক বধম ব্যবসাহিকভাবে সফল হয় এবং ইতিবাচক সমলোচক প্রতিক্রিয়া অর্জন করে। চলচ্চিত্রটির সফলতা নটরাজ মুদলিয়ারকে একই রকমের বহুসংখ্যক ঐতিহাসিক চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য উৎসাহিত করে, যা দক্ষিণ ভারতীয় চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য ভিত্তি স্থাপন করে এবং তাকে তামিল চলচ্চিত্রের জনক হিসেবে স্বীকৃত লাভ করতে সাহায্য করে। নটরাজ মুদলিয়ারের কাজ রঘুপতি প্রকাশ ও জোসেফ চেল্লাইয়া ড্যানিয়েল-এর মতো অন্যান্য চলচ্চিত্র-নির্মাতাদের জন্য একটি অনুপ্রেরণা ছিল।

কাহিনি সংক্ষেপসম্পাদনা

রাজা বিরাটের সৈনবাহিনীর সেনাপতি, কীচক দ্রৌপদীকে যেকোন অবস্থায় পাওয়া ও বিবাহ করার চেষ্টা করেন; তিনি এমন কি দ্রৌপদীকে উৎপীড়ন করার চেষ্টা করেন, যা দ্রৌপদীকে ভীমের (তার স্বামী এবং পাণ্ডব ভ্রাতৃদ্বয়ের মধ্যে একজন) কাছে এই ঘটনা সম্পর্কে বলার জন্য পরিচালনা করে। পরবর্তীতে, যখন কীচক দ্রৌপদীর সাথে দেখা করেন, দ্রৌপদী তাকে একটি গোপন জায়গায় তার সাথে একাকী সাক্ষাৎ-এর জন্য অনুরোধ করেন। তিনি কথামত সেই স্থানে পৌছাঁয়, কিন্তু যানতে পারেন যে সেখানে দ্রৌপদীর পরিবর্তে ভীম রয়েছেন এবং ভীম তাকে ঘটনাস্থলে হত্যা করেন।

কুশীলবসম্পাদনা

নির্মাণসম্পাদনা

উন্নয়নসম্পাদনা

 
রাজা রবি বর্মা কর্তৃক কীচক ও দ্রৌপদীর একটি অঙ্কনচিত্র

মাদ্রাজের গাইটি থিয়েটারে দাদাসাহেব ফালকে-এর ১৯১৩ সালের পৌরাণিক চলচ্চিত্র রাজা হরিশচন্দ্র দেখার পর, মাদ্রাজে জন্মগ্রহণ করা এক গাড়ি বিক্রেতা, রঙ্গস্বামী নটরাজ মুদলিয়ার চলচ্চিত্রের উপর আগ্রহ গড়ে তুলেন। তিনি তখন স্টিওয়ার্ট স্মিথ থেকে আলোকচিত্রবিদ্যা ও চিত্রগ্রহণের গুরুত্বপূর্ণ উপাদানগুলি শিখেছিল।

চিত্রগ্রহণসম্পাদনা

মুক্তি, অভ্যর্থনা এবং কিংবদন্তিসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

টীকাসম্পাদনা

  1. চলচ্চিত্র ইতিহাসবিদ এস. থিওডু বাস্কারাণ, চলচ্চিত্র পরিচালক আর. কে. সেলভামানি এবং ইতিহাসবিদ প্রেম চৌধুরী উল্লেখ করেন ১৯১৬ সালকে চলচ্চিত্রের মুক্তির বছর হিসেবে। অন্যদিকে চলচ্চিত্র ইতিহাসবিদ সুরেশ চাবরিয়া এবং ফিল্ম নিউজ আনন্দন বলেন যে চলচ্চিত্রটি ১৯১৭ সালে মুক্তি পায়।[১] চলচ্চিত্র ইতিহাসবিদ র‌্যান্ডোর গাই, এস. মুথিয়া এবং ইতিহাস অধ্যাপক নুট এ. জেকবসন দাবি করেন যে ১৯১৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত।[২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

গ্রন্থপঞ্জিসম্পাদনা

বইসম্পাদনা

পত্রিকাসম্পাদনা

  • Baskaran, S. Theodore (সেপ্টেম্বর ২০১১)। "How old is Tamil Cinema?"Madras MusingsXXI (10)। ২৮ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  • Baskaran, S. Theodore (৩০ জানুয়ারি ২০১৬)। "From the shadows into the limelight"The Hindu। ৩ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১৭ 
  • Guy, Randor (১০ জুলাই ২০০০)। "The stamp of honour"The Hindu। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১১ 
  • Guy, Randor (৯ মে ২০০২)। "Remembering a pioneer"The Hindu। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১১ 
  • Guy, Randor (ডিসেম্বর ২০০৭)। "A Miller's Road Film Pioneer" (PDF)Madras MusingsXVII (16)। পৃষ্ঠা 6। ২৮ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  • Guy, Randor (৫ অক্টোবর ২০১৩)। "The forgotten heroes"The Hindu। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১৩ 
  • K. R., Manigandan (২৬ নভেম্বর ২০১৫)। "Director' Association May Screen Classic Films for Free"The New Indian Express। ১৪ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মে ২০১৬ 
  • Madhavan, Pradeep (২২ আগস্ট ২০১৪)। "சென்னையும் சினிமாவும்: குதிரைகள் தயவால் உருவான கோடம்பாக்கம்!" [Chennai and cinema: Kodambakkam, a place that evolved with the help of horses!]। The Hindu Tamil (Tamil ভাষায়)। ৭ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জানুয়ারি ২০১৭ 
  • Muthiah, S. (৭ সেপ্টেম্বর ২০০৯)। "The pioneer 'Tamil' film-maker"The Hindu। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১১ 
  • Roy, Anjan (৪ জুন ২০১৩)। "The mystery of India's purchasing power parity"Shillong Times। ৫ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ অক্টোবর ২০১৫ 
  • Subramanian, Anupama (২৯ মে ২০১৩)। "Classics must be preserved, says B. Mahendra"Deccan Chronicle। ২৮ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৩ 
  • Suganth, M. (২ মার্চ ২০১২)। "Black and white films in Kollywood"The Times of India। ১ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১২ 
  • Thakur, Atul (১ মে ২০১০)। "Gone Forever"The Times of India। ২১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১১ 
  • Venkatesan, Deepa (২২ আগস্ট ২০১৪)। "Madras Day: Tracing a city's transformation as Chennai turns 375"Daily News and Analysis। ৫ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ অক্টোবর ২০১৫ 

ওয়েবসাইটসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা