এরিস (গ্রহাণুপুঞ্জ উপাধি ১৩৬১৯৯ এরিস) হলো সৌরজগতের সবচেয়ে ভারী [১] এবং দ্বিতীয় বৃহত্তম বামন গ্রহমাইকেল ই. ব্রাউনের নেতৃত্বে পালোমার অবজারভেটরি ভিত্তিক একটি দল ২০০৫ সালের জানুয়ারিতে এরিস বামন গ্রহ আবিষ্কার করে এবং আবিষ্কারটি পরের বছরেই যাচাই করা হয়। এরিস হল সরাসরি সূর্যকে প্রদক্ষিণ করা নবম-বৃহত্তম বৃহদায়তন বস্তু এবং সৌরজগতে ( চাঁদ সহ) সামগ্রিকভাবে ষোড়শতম-বৃহত্তর বস্তু। এছাড়াও এটি এমন গরিষ্ঠ বস্তু যা কোনও কোনও মহাকাশযান দর্শন করতে পারেনি। এরিসের পরিমাপ করে পাওয়া গেছে তার ব্যাস ২,৩২৬ ± ১২ কিলোমিটার (১,৪৪৫.৩ ± ৭.৫ মা) । [২] এর ভর পৃথিবীর ভরের ০.২৭ শতাংশ এবং বামন গ্রহ প্লুটোর চেয়ে ২৭ শতাংশ বেশি। [৩][৪] তবে যদিও প্লুটো আয়তনের তুলনায় কিছুটা বড়।[৫]

এরিস
Eris (center) and Dysnomia (left of center), taken by the Hubble Space Telescope
2003 UB313 (center) and moon (right of center).
Keck Observatory.
আবিষ্কার
আবিষ্কারকএম. ই. ব্রাউন,
C. A. Trujillo,
D. L. Rabinowitz
বিবরণ
এমপিসি পদমর্যাদা১৩৬১৯৯ এরিস
নামকরণের উৎসএরিস
বিকল্প নামসমূহ২০০৩ ইউবি৩১৩৩১৩
কক্ষপথের বৈশিষ্ট্য
যুগ ৬ মার্চ, ২০০৬ (JD ২৪৫৩৮০০.৫)
অপসূর৯৭.৫৬ এইউ (১৪.৬০ টিএম)
অনুসূর৩৭.৭৭ এইউ (৫.৬৫ টিএম)
অর্ধ-মুখ্য অক্ষ৬৭.৬৬৮১ এইউ (১০.১২ টিমি)
উৎকেন্দ্রিকতা০.৪৪১৭৭
কক্ষীয় পর্যায়কাল২০৩,৫০০ দিন (৫৫৭ )
গড় ব্যত্যয়১৯৭.৬৩৪২৭°
নতি৪৪.১৮৭ °
উদ্বিন্দুর দ্রাঘিমা৩৫.৮৬৯৬°
অনুসূরের উপপত্তি১৫১.৪৩০৫°
ভৌত বৈশিষ্ট্যসমূহ
মাত্রাসমূহ২৩২৬ কিলোমিটার
গড় ব্যাসার্ধ১৬৩±কিমি
পৃষ্ঠের ক্ষেত্রফল(১.৭০±০.০২)×১০বর্গ কি.মি.
আয়তন(৬.৫৯±০.১০)×১০ঘন কি.মি.
ভর
  • (১.৬৬±০.০২)×১০২২কেজি
  • ০.০০২৮ Earths
  • ০.২৩ Moons
গড় ঘনত্ব২.৫২±০.০৭g/cm3
বিষুবীয় পৃষ্ঠের অভিকর্ষ০.৮২±০.০২m/s2
০.০৮৩±০.০০২ g
মুক্তি বেগটেমপ্লেট:V2±0.01 km/s
ঘূর্ণনকাল> 8 h?
নাক্ষত্রিক ঘূর্ণনকাল২৫.৯±০.৫hr
প্রতিফলন অনুপাত০.৯৬++০.০৯
০.০৪
পৃষ্ঠের তাপমাত্রা ন্যূন মধ্যক সর্বোচ্চ
(প্রায়) ৩০ কে ৪২.৫ কে ৫৫ কে
বর্ণালীর ধরনB−V=০.৭৮, V−R=০.৪৫
আপাত মান১৮.৭
কৌণিক ব্যাস৪০ মিলি-আর্কসে

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Sengupta, Sujan (২০১৫)। Worlds Beyond Our Own: The Search for Habitable Planets। Springer International Publishing। পৃষ্ঠা 49। আইএসবিএন 978-3-319-09893-7 
  2. Sicardy, B.; Ortiz, J. L.; Assafin, M.; Jehin, E.; Maury, A.; Lellouch, E.; Gil-Hutton, R.; Braga-Ribas, F.; Colas, F.; Widemann (২০১১)। "Size, density, albedo and atmosphere limit of dwarf planet Eris from a stellar occultation" (PDF)European Planetary Science Congress Abstracts6: 137। বিবকোড:2011epsc.conf..137S। অক্টোবর ১৮, ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১১ 
  3. Brown, Michael E.; Schaller, Emily L. (জুন ১৫, ২০০৭)। "The Mass of Dwarf Planet Eris" (PDF)Science316 (5831): 1585। এসটুসিআইডি 21468196ডিওআই:10.1126/science.1139415পিএমআইডি 17569855বিবকোড:2007Sci...316.1585B। মার্চ ৪, ২০১৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৫ 
  4. "Dwarf Planet Outweighs Pluto"space.com। ২০০৭। জুন ১৭, ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৪, ২০০৭ 
  5. "How Big Is Pluto? New Horizons Settles Decades-Long Debate"www.nasa.gov। ২০১৫। জুলাই ১, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৪, ২০১৫