রহনপুর রেলসেতু

রহনপুর রেলসেতু বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন একটি রেলসেতু।[১] এটি বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন রেলসেতু হিসেবে পরিচিত। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার রহনপুর রেলওয়ে স্টেশনের পশ্চিমে মহানন্দা-পুনর্ভবা নদীর সংযোগস্থলের উপর এই সেতুটি অবস্থিত।[২][৩]

রহনপুর রেলসেতু
Rohanpur Railway Bridge 01.jpg
রহনপুর রেলসেতুর উপরের ছবি
স্থানাঙ্ক ২৪°৪৯′ উত্তর ৮৮°১৯′ পূর্ব / ২৪.৮২° উত্তর ৮৮.৩২° পূর্ব / 24.82; 88.32স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৯′ উত্তর ৮৮°১৯′ পূর্ব / ২৪.৮২° উত্তর ৮৮.৩২° পূর্ব / 24.82; 88.32
বহন করেব্রড-গেজ রেললাইন
অতিক্রম করেমহানন্দা-পুনর্ভবা সংযোগস্থল
স্থানরহনপুর, গোমস্তাপুর উপজেলা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা, বাংলাদেশ
অফিসিয়াল নামরহনপুর রেলসেতু
বৈশিষ্ট্য
নকশাব্রিটিশ
অবস্থান

অবস্থানসম্পাদনা

রহনপুর রেলসেতু গোমস্তাপুর উপজেলাধীন রহনপুর পৌরসভায় অবস্থিত। রহনপুর রেলসেতু গোমস্তাপুর উপজেলার একটি ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা। গোমস্তাপুর উপজেলা সদর হতে প্রায় ৮ কিঃ মিঃ পশ্চিমে রহনপুর পৌরসভার মহানন্দা-পুনর্ভবা নদীর সংযোগস্থলের উপর ব্রীজটি অবস্থিত।[৪]

ব্যবহারসম্পাদনা

ভারতের সিঙ্গাবাদ স্টেশন এবং বাংলাদেশের রহনপুর স্টেশনের মধ্যে যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে এই ব্রিজ টি কাজ করে থাকে। রহনপুর শুল্ক বন্দর বা বাংলাদেশের রহনপুর স্টেশনের দিয়ে পাথর, চাউল, গম, ভুট্টা এবং পোল্ট্রি ফিড আমদানি হয়ে থাকে। অন্যদিকে এ রুট দিয়ে নেপালে বাংলাদেশ থেকে পণ্য রফতানি করা হয়।

ইতিহাসসম্পাদনা

রহনপুর রেলসেতুর নকশা অনেকটা হার্ডিঞ্জ সেতু এর সাথে মিল আছে। এটি অত্যন্ত পুরাতন স্থপত্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

গ্যালারিসম্পাদনা

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "ভারত থেকে ট্রেনে আসবে পদ্মা সেতুর পাথর 0"আমাদেরসময়। ঢাকা, বাংলাদেশ। আগস্ট ১৮, ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০৩ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. "Joint Statement on the occasion of the visit of the PM of India to Bangladesh, 7 September 2011"Item No. 40। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, ভারত সরকার। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৩-০৪ 
  3. "Bangladesh export to Nepal thru India resumes tomorrow"। প্রিয়.কম। ২০১২-০৪-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১২ 
  4. "Executive Summary" (PDF)। ২০১২-০৪-২৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১২