রফিকুল হক

বাংলাদেশী লেখক এবং কবি

রফিকুল হক বাংলাদেশের একজন প্রখ্যাত ছড়াকার। তিনি শিশু সংগঠন চাদেঁর হাটের প্রতিষ্ঠাতা।[১] তিনি দাদু ভাই নামে সমধিক পরিচিত।[২] পেশাগতভাবে তিনি একজন সাংবাদিক।[৩]

রফিকুল হক
Rafiqul Haque Feb 2013.jpg
জন্ম১৯৩৭
জাতীয়তাবাংলাদেশী
নাগরিকত্ববাংলাদেশী
পরিচিতির কারণছড়াকার

জন্ম ও প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

তার জন্ম ১৯৩৭ খ্রিষ্টাব্দের ৮ জানুয়ারী রংপুর সদর উপজেলার কামাল কাছনা মহল্লায়। তার বাবার নাম ইয়াসিন উদ্দিন আহম্মদ, মাতার নাম রহিমা খাতুন।[৪] তিনি রংপুর কারমাইকেল কলেজ থেকে ১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দে বি, এ পাস করেন।[৫] এছাড়াও তিনি জুরিখের ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইন্সটিটিউট (আইপিআই) থেকে সাংবাদিকতায় উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন।[৪]

ছড়াসম্পাদনা

তার ছন্দজ্ঞান অসাধারণ, বিষয়বৈচিত্র্য তুলনারহিত এবং শব্দের কারিগরি অভিনব ও দৃষ্টান্তমূলক। তার ছড়া সমাজ সচেতন। ১২ নভেম্বর ১৯৭০ খ্রিষ্টাব্দে প্রবল সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাসে মাত্র এক রাতে বাংলাদেশের দক্ষিণ অঞ্চলে সমুদ্রের উপকূলবর্তী স্থানের কয়েক লক্ষ মানুষ নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। ঘরবাড়ি, গবাদি পশু কিছুই রক্ষা পায়নি।

সাংবাদিকতাসম্পাদনা

তিনি বহু বাংলা সংবাদপত্রে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০০৪ খ্রিষ্টাব্দ থেকে তিনি দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় কর্মরত। ১৯৭৫ পর্যন্ত তিনি দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার ফিচার এডিটরের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ১৯৭৬ থেকে ১৯৮৩ পর্যন্ত তিনি কিশোর বাংলা পত্রিকার কার্যনির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। অতঃপর তিনি দৈনিক রূপালী পত্রিকার কার্যনির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

কিশোর বাংলার সম্পাদনাসম্পাদনা

তিনি বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ১৯৭৬ খ্রিষ্টাব্দে প্রকাশিত সাপ্তাহিক কিশোর বাংলা পত্রিকার কার্যনর্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

চাঁদের হাটসম্পাদনা

তনি দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকায় শিশুদের পাতা চাঁদের হাট সম্পাদনা করতেন। তারই সূত্রে তিনি ১৯৭৪ খ্রিষ্টাব্দে জাতীয় শিশু-কিশোর সংগঠান চাদেঁর হাট প্রতিষ্ঠা করেন।

প্রকাশনাসম্পাদনা

তার প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৭টি।

  • বর্গী এলো দেশে
  • পান্তাভাতে ঘি
  • নেবুরপাতা করমচা
  • আম পাতা জোড়া জোড়া
  • রফিকুল হক দাদু ভাই-এর সমকালীন ছড়া
  • বই বই হই চই
  • প্রাচীন বাংলার রূপকথা।[৪]

পুরস্কারসম্পাদনা

[৬]

  • অগ্রণী ব্যাংক শিশু সাহিত্য পুরুস্কার
  • নিখিল ভারত শিশু সাহিত্য সংঘ সম্মাননা
  • বিশ্ব সাহিত্য সম্মেলনে (পাটনা ভারত) স্ক্রোল অব অনার।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা