চাঁদের হাট বাংলাদেশের একটি জাতীয় শিশু-কিশোর সংগঠন। দেশের বিখ্যাত সাংবাদিক ও ছড়াকার রফিকুল হক দাদুভাইয়ের উদ্যোগে ১৯৭৪ সালে ঢাকায় “চাঁদের হাট” প্রতিষ্ঠিত হয়। কয়েক বৎসরের মধ্যে সারা দেশব্যাপী সংগঠনের শাখা সৃষ্টি হয়। এর প্রতিষ্ঠাতা কমিটির আহবায়ক ছিলেন শামীম আহসান।[১]

ইতিহাসসম্পাদনা

দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকায় শিশু-কিশোর লেখকরে জন্য একটি বিভাগ ছিল যার নাম “চাঁদের হাট”। এর পরিচালক ছিলেন পত্রিকাটির ফিচার এডিটর রফিকুল হক দাদুভাই। দেশের বিভিন্ন স্থানের শিশু-কিশোর-যুবক লেখকরা এই বিভাগের সঙ্গে সংযুক্ত ছিল। [২] ১৯৭৪ সালের ১৪ই এপ্রিল তারিখে ‘আমরা সুন্দর হব’ এ মূলমন্ত্র নিয়ে নতুন প্রজন্মকে আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার প্রয়াসে পূর্বদেশের শিশু-কিশোরদের বিভাগ চাঁদের হাটকে একটি শিশু-কিশোর প্রতিষ্টানের রূপ দেয়া হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বাংলাদেশের শিশুদের নান্দনিক বোধের বিকাশে চাঁদের হাট গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। এছাড়া শিশুদের অধিকার আদায়েও সংগঠনটি সদাসক্রিয়। রফিকুল হক দাদুভাই চাঁদের হাটের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ছিলেন। স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের অধিনায়ক মো. জাকারিয়া পিন্টু সংগঠনের জাতীয় প্রেসিডিয়ামের চেয়ারম্যান। পিআইবি মহাপরিচালক শাহ আলমগীর কেন্দ্রীয় সভাপতি এবং বিশিষ্ট শিশু সংগঠক মাজহারুল ইসলাম বুলবুল কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করছেন। [৩][৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. যুগান্তর প্রতিবেদন
  2. প্রথমআলো প্রতিবেদন-১
  3. চাঁদের হাটের ৪৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ
  4. [https://www.kalerkantho.com/print-edition/kothaikothai/2019/06/28/784661 আমিই চাঁদের হাটের প্রতিষ্ঠাতা]