রক্তের গ্রুপ

রক্তের শ্রেণীবিন্যাস
(রক্তগ্রুপ থেকে পুনর্নির্দেশিত)

রক্তের প্রকার (রক্তের গ্রুপ নামেও পরিচিত) হল রক্তের একটি শ্রেণীবিন্যাস, যা লোহিত কণিকার (RBC) পৃষ্ঠতলে অ্যান্টিবডি এবং বংশগতিসূত্রেপ্রাপ্ত এন্টিজেনিক পদার্থের উপস্থিতি এবং অনুপস্থিতি উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়। রক্তগ্রুপ পদ্ধতির উপর নির্ভর করে এই অ্যান্টিজেনগুলি প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, গ্লাইকোপ্রোটিন বা গ্লাইকোলিপিড হতে পারে। এই অ্যান্টিজেনগুলির মধ্যে কয়েকটি অ্যান্টিজেন বিভিন্ন কলার অন্যান্য ধরণের কোষের পৃষ্ঠেও উপস্থিত থাকে । এই লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠের অ্যান্টিজেনগুলির মধ্যে বেশ কয়েকটি একটি অ্যালিল (বা একটি জিনের বিকল্প সংস্করণ) থেকে উদ্ভূত হতে পারে এবং সম্মিলিতভাবে রক্তগ্রুপের একটি পদ্ধতি তৈরি করতে পারে।[১]

লোহিত রক্তকণিকার অংশে এবিও রক্তগ্রুপ অ্যান্টিজেনের উপস্থিতি দ্বারা রক্তের গ্রুপ (বা রক্তের ধরন) নির্ধারণ করা হয়।

রক্তগ্রুপ বংশগতিসুত্রেপ্রাপ্ত এবং এটি পিতামাতা উভয়ের অবদানের প্রতিরূপ থেকে সৃষ্টি হয়। ২০১৯-এর হিসাব অনুযায়ী, ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি অফ ব্লাড ট্রান্সফিউশন (ISBT) দ্বারা মোট ৪১ টি মানব রক্তগ্রুপ পদ্ধতি স্বীকৃত।[২] সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি রক্তগ্রুপ পদ্ধতি হল ABO এবং Rh ; এগুলো রক্ত সঞ্চালনের উপযুক্ততার জন্য কারো রক্তের গ্রুপ (RhD নির্দেশক +, − শূন্যসহ A, B, AB, এবং O) নির্ধারণ করে।

রক্তের গ্রুপ পদ্ধতিসম্পাদনা

রক্তের একটি সম্পূর্ণ ধরন ৩৮টি রক্তগ্রুপের প্রতিটিকে বর্ণনা করে এবং একজন ব্যক্তির রক্তের গ্রুপ, সম্ভাব্য অনেকগুলো রক্ত-গ্রুপ অ্যান্টিজেনের সংমিশ্রণগুলোর একটি।[২] প্রায় সবসময়ই, একজন ব্যক্তির সারাজীবন রক্তের গ্রুপ একই থাকে, কিন্তু খুব কম ক্ষেত্রেই সংক্রমণ, ম্যালিগন্যান্সি বা স্বতঃঅনাক্রম্য রোগে অ্যান্টিজেন যোগ বা হারানোর মাধ্যমে একজন ব্যক্তির রক্তের গ্রুপ পরিবর্তিত হয়।[৩][৪][৫][৬] রক্তের ধরন পরিবর্তনের আরেকটি সাধারণ কারণ হল অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন । অন্যান্য অনেক রোগের মধ্যে লিউকেমিয়া এবং লিম্ফোমার জন্য অস্থি-মজ্জা প্রতিস্থাপন করা হয়ে থাকে। যদি একজন ব্যক্তি ভিন্ন ABO প্রকারের কারো কাছ থেকে অস্থি মজ্জা গ্রহণ করেন (যেমন, একজন A গ্রুপের রোগী একজন O গ্রপের ব্যাক্তির অস্থিমজ্জা গ্রহণ করেন), রোগীর রক্তের ধরনটি অবশেষে দাতার প্রকারে পরিণত হওয়া উচিত, কারণ রোগীর হেমাটোপয়েটিক স্টেম সেল (HSC) ধ্বংস হয়ে যায়, হয় অস্থি মজ্জার বিলুপ্তির মাধ্যমে বা দাতার টি-কোষ দ্বারা। একবার রোগীর সমস্ত আসল লোহিত রক্তকণিকা মারা গেলে, দাতা হেমাটোপয়েটিক স্টেম সেল (HSC) থেকে প্রাপ্ত নতুন কোষ দ্বারা সম্পূর্ণরূপে প্রতিস্থাপিত হবে। যদি দাতার একটি ভিন্ন ABO টাইপ থাকে, তবে নতুন কোষের পৃষ্ঠের অ্যান্টিজেনগুলি রোগীর মূল লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠের থেকে আলাদা হবে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

রক্তের কিছু ধরন অন্যান্য রোগের উত্তরাধিকারের সাথে সম্পর্কিত; উদাহরণস্বরূপ, কেল অ্যান্টিজেন কখনও কখনও ম্যাক্লিওড সিন্ড্রোমের সাথে সম্পর্কিত থাকে।[৭] নির্দিষ্ট কিছু রক্তের ধরন সংক্রমণের সংবেদনশীলতাকে প্রভাবিত করতে পারে, একটি উদাহরণ হল নির্দিষ্ট ম্যালেরিয়া প্রজাতির প্রতিরোধ ক্ষমতা, যা তাদের মধ্যে ডাফি অ্যান্টিজেনের অভাবের কারণে দেখা যায়।[৮] সম্ভবত প্রাকৃতিক নির্বাচনের ফলে, ডাফি অ্যান্টিজেন ম্যালেরিয়ার উচ্চ প্রকোপ রয়েছে এমন এলাকার জনসংখ্যার গোষ্ঠীতে কম দেখা যায়।[৯]

ABO রক্তগ্রুপ পদ্ধতিসম্পাদনা

 
এ বি ও রক্তগ্রুপ পদ্ধতি: চিত্রটি কার্বোহাইড্রেট শিকলটি দেখাচ্ছে যা এবিও রক্ত​​গ্রুপ নির্ধারণ করে

ABO রক্তগ্রুপ পদ্ধতিতে মানুষের রক্তে পাওয়া দুটি অ্যান্টিজেন এবং দুটি অ্যান্টিবডি জড়িত। দুটি অ্যান্টিজেন হল অ্যান্টিজেন এ এবং অ্যান্টিজেন বি। দুটি অ্যান্টিবডি হল অ্যান্টিবডি এ এবং অ্যান্টিবডি বি। অ্যান্টিজেনগুলি লোহিত রক্তকণিকা এবং সিরামের অ্যান্টিবডিগুলিতে উপস্থিত থাকে। রক্তের অ্যান্টিজেন বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে সমস্ত মানুষকে 4টি গ্রুপে শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে পারে, যাদের অ্যান্টিজেন A (গ্রুপ A), অ্যান্টিজেন B (গ্রুপ B), যাদের অ্যান্টিজেন A এবং B (গ্রুপ AB) এবং যাদের কোন অ্যান্টিজেন নেই (গ্রুপ ও)। অ্যান্টিজেনের সাথে উপস্থিত অ্যান্টিবডিগুলি নিম্নলিখিত অনুযায়ী পাওয়া যায়:[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

  1. অ্যান্টিজেন A এর সাথে অ্যান্টিবডি B
  2. অ্যান্টিবডি A এর সাথে অ্যান্টিজেন বি
  3. অ্যান্টিজেন AB এর কোনো অ্যান্টিবডি নেই
  4. অ্যান্টিজেন শূন্যতাসহ অ্যান্টিবডি A এবং B (গ্রুপ O)।

অনুরূপ অ্যান্টিজেন এবং অ্যান্টিবডির মধ্যে একটি সংযোজন বিক্রিয়া রয়েছে (উদাহরণস্বরূপ, অ্যান্টিজেন A অ্যান্টিবডি A কে এবং অ্যান্টিজেন B অ্যান্টিবডি B কে সংযুক্ত করে)। এইভাবে, যতক্ষণ না গ্রহীতার সিরামে দাতার রক্তকণিকা অ্যান্টিজেনের জন্য অ্যান্টিবডি না থাকে ততক্ষণ পর্যন্ত রক্ত সঞ্চালন নিরাপদ বলে বিবেচিত হতে পারে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ABO পদ্ধতি মানব-রক্ত সঞ্চালনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ রক্ত-গ্রুপ পদ্ধতি। সংশ্লিষ্ট অ্যান্টি-এ এবং অ্যান্টি-বি অ্যান্টিবডিগুলি সাধারণত ইমিউনোগ্লোবুলিন এম (সংক্ষেপে IgM) অ্যান্টিবডি। অনুমান করা হয় যে, ABO IgM অ্যান্টিবডিগুলি জীবনের প্রারম্ভিক বছরগুলিতে খাদ্য, ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাসের মতো পরিবেশগত পদার্থের প্রতি সংবেদনশীলতার মাধ্যমে উত্পাদিত হয়, যদিও রক্তের গ্রুপ সামঞ্জস্যের নিয়মগুলি অনুশীলনের বিষয় হিসাবে নবজাতক এবং শিশুদের ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হয়।[১০] 1901 সালে কার্ল ল্যান্ডস্টেইনার শ্রেণীবিভাগের জন্য ব্যবহৃত মূল পরিভাষাটি ছিল A/B/C; পরবর্তী প্রকাশনায় "C" কে "O" করা হয়।[১১] টাইপ O কে প্রায়ই অন্যান্য ভাষায় 0 (শূন্য বা অকার্যকর ) বলা হয়।[১২][১৩]

রক্তের প্রকারের ফেনোটাইপ এবং জিনোটাইপ
ফেনোটাইপ জিনোটাইপ
A AA বা AI
B BB বা BI
AB AB
O II

Rh রক্তগ্রুপ পদ্ধতিসম্পাদনা

Rh পদ্ধতি (Rh অর্থ রেসাস ) বর্তমানে ৫০টি অ্যান্টিজেন সহ মানব-রক্ত সঞ্চালনের ক্ষেত্রে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উল্লেখযোগ্য রক্ত-গ্রুপ পদ্ধতি। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য Rh অ্যান্টিজেন হল D অ্যান্টিজেন, কারণ এটি পাঁচটি প্রধান Rh অ্যান্টিজেনের এটির অনাক্রম্যতন্ত্র প্রতিক্রিয়া উত্তেজিত করে দেওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। D-নেগেটিভ ব্যক্তিদের জন্য কোনো অ্যান্টি-D IgG বা IgM অ্যান্টিবডি না থাকা সাধারণ, কারণ অ্যান্টি-D অ্যান্টিবডি সাধারণত পরিবেশগত পদার্থের বিরুদ্ধে সংবেদনশীলতার মাধ্যমে তৈরি হয় না। যাইহোক, D-নেগেটিভ ব্যক্তিরা একটি সংবেদনশীল ঘটনা অনুসরণ করে IgG অ্যান্টি-D অ্যান্টিবডি তৈরি করতে পারে: সম্ভবত গর্ভাবস্থায় ভ্রূণ থেকে রক্তের ভ্রূণীয় সঞ্চালন বা মাঝে মাঝে D-পজিটিভ লোহিত রক্তকণিকার সাথে রক্ত সঞ্চালন করার মাধ্যমে।[১৪] এই ক্ষেত্রে Rh রোগ বিকশিত হতে পারে।[১৫] ইউরোপীয় জনসংখ্যার (১৫%) তুলনায় এশিয়ান জনসংখ্যায় (০.৩%) Rh নেগেটিভ রক্তের ধরন সাধারণত অনেক কম।[১৬] Rh(D) অ্যান্টিজেনের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতি + বা − চিহ্ন দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, উদাহরণস্বরূপ, A− গ্রুপটিতে ABO গ্রুপ A আছে এবং এতে Rh (D) অ্যান্টিজেন নেই।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

দেশ অনুসারে ABO এবং Rh বিন্যাসসম্পাদনা

অন্যান্য অনেক বংশগত বৈশিষ্ট্যের মতো, ABO এবং Rh রক্তগ্রুপগুলি জনসংখ্যার মধ্যে উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তিত হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

অন্যান্য রক্তগ্রুপ পদ্ধতিসম্পাদনা

২০১৯-এর হিসাব অনুযায়ী, ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি ফর ব্লাড ট্রান্সফিউশন ABO এবং Rh সিস্টেম ছাড়াও ৩৬ টি রক্ত-গ্রুপ পদ্ধতি চিহ্নিত করেছে।[২] এইভাবে, ABO অ্যান্টিজেন এবং Rh অ্যান্টিজেন ছাড়াও, অন্যান্য অনেক অ্যান্টিজেন লোহিত রক্তকণিকা পৃষ্ঠের ঝিল্লিতে স্পষ্ট হয়। উদাহরণস্বরূপ, একজন ব্যক্তি AB, D পজিটিভ এবং একই সাথে M এবং N পজিটিভ (MNS পদ্ধতি), K পজিটিভ (কেল পদ্ধতি), Lea বা Leb নেগেটিভ (লুইস পদ্ধতি) হতে পারে এবং তাই, প্রতিটি রক্তের গ্রুপ সিস্টেম অ্যান্টিজেনের জন্য পজেতিভ বা নেগেটিভ হতে পারে। ব্লাড গ্রুপ সিস্টেমের অনেকগুলি রোগীদের নামে নামকরণ করা হয়েছিল যাদের মধ্যে সংশ্লিষ্ট অ্যান্টিবডিগুলি প্রাথমিকভাবে ধরা পড়েছিল। ABO এবং Rh ব্যতীত অন্য ব্লাড গ্রুপ পদ্ধতিগুলি বিভিন্ন লোকের রক্ত মিশ্রিত হওয়ার ফলে জটিলতার ঝুঁকি তৈরি করে, তবে তুলনামূলকভাবে কম।[১৭]

নিম্নে প্রধান মানব রক্তের গ্রুপ পদ্ধতির সাথে অ্যান্টিবডিগুলির চিকিত্সাগতভাবে প্রাসঙ্গিক বৈশিষ্ট্যগুলির একটি তুলনা করা হল:[১৮]

ABO Rh কেল ডাফি কিড
প্রাকৃতিকভাবে ঘটে হ্যাঁ না না না না
তাৎক্ষণিক হেমোলাইটিক সঞ্চালন প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ A হ্যাঁ Fya Jka
বিলম্বিত হেমোলাইটিক ট্রান্সফিউশন প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ E,D,C Jka
নবজাতকের হেমোলাইটিক রোগে সবচেয়ে সাধারণ হ্যাঁ D,C হ্যাঁ
সাধারণত ইন্ট্রাভাসকুলার হেমোলাইসিস তৈরি করে হ্যাঁ হ্যাঁ

ক্লিনিকাল গুরুত্বসম্পাদনা

রক্তদানসম্পাদনা

ট্রান্সফিউশন মেডিসিন হল হেমাটোলজির একটি বিশেষ শাখা যা ব্লাড গ্রুপ অধ্যয়নের সাথে সম্পর্কিত এবং রক্ত এবং অন্যান্য রক্তের পদার্থগুলির জন্য একটি ট্রান্সফিউশন পরিষেবা প্রদানের জন্য একটি ব্লাড ব্যাঙ্কের কাজ। বিশ্ব জুড়ে, রক্তের পদার্থগুলিকে অবশ্যই ওষুধের মতোই একজন ডাক্তার (লাইসেন্সপ্রাপ্ত চিকিত্সক বা সার্জন) দ্বারা নির্ধারিত করতে হবে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

 
রক্তের গ্রপের অমিলের কারণে তীব্র হেমোলাইটিক প্রতিক্রিয়ার প্রধান লক্ষণ।[১৯][২০]

একটি ব্লাড ব্যাঙ্কের বেশিরভাগ দৈনন্দিন কাজের মধ্যে দাতা এবং গ্রহীতা উভয়ের রক্ত পরীক্ষা করা অন্তর্ভুক্ত থাকে, যাতে প্রত্যেক গ্রহীতা ব্যক্তিকে যে রক্ত দেওয়া হয় তা সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং যতটা সম্ভব নিরাপদ হয়। যদি দাতা এবং গ্রহীতার মধ্যে এক ইউনিট অসামঞ্জস্যপূর্ণ রক্ত সঞ্চালন করা হয়, তবে গুরুতর তীব্র হেমোলাইটিক প্রতিক্রিয়াসহ লালিকানাশ (লোহিত রক্তকণিকা ধ্বংস), শক এবং বৃক্কের অকার্যকারীতা হতে পারে এবং মৃত্যুর সম্ভাবনা থাকে। অ্যান্টিবডিগুলি অত্যন্ত সক্রিয় হতে পারে এবং লোহিত রক্তকণিকাকে-কে আক্রমণ করতে পারে এবং কমপ্লিমেন্ট সিস্টেমের উপাদানগুলিকে আবদ্ধ করতে পারে যাতে সঞ্চালিত রক্তের ব্যাপক হেমোলাইসিস হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

সঞ্চালন প্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনা কমাতে রোগীদের আদর্শভাবে তাদের নিজেদের রক্ত বা গ্রুপ-নির্দিষ্ট রক্তজাত পদার্থ গ্রহণ করা উচিত। সঞ্চালনের জন্য রোগীর নিজের রক্তও ব্যবহার করা সম্ভব। একে অটোলোগাস ব্লাড ট্রান্সফিউশন বলা হয়, যা সবসময় রোগীর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়। রোগীর নিজের লাল রক্তকণিকা পরিষ্করণের পদ্ধতিটি নিম্নরূপ: রোগীর হারানো রক্ত সংগ্রহ করা হয় এবং স্যালাইন দ্রবণ দিয়ে পরিষ্করণ করা হয়। পরিষ্করণ পদ্ধতিতে ঘনীভূত পরিষ্কৃত লোহিত রক্তকণিকা পাওয়া যায়। শেষ ধাপ হল রোগীর মধ্যে প্যাক করা লোহিত রক্তকণিকা পুনরায় সঞ্চালন করা। লোহিত রক্তকণিকা পরিষ্করণের একাধিক উপায় রয়েছে। দুটি প্রধান উপায় হল কেন্দ্রীভূতকরণ এবং পরিস্রাবণ পদ্ধতি। এই পদ্ধতিটি হেমোক্লিয়ার ফিল্টারের মতো মাইক্রোফিল্ট্রেশন ডিভাইস দিয়ে করা যেতে পারে। ক্রস-ম্যাচিং রক্তের মাধ্যমে ঝুঁকি আরও কমানো যেতে পারে, তবে জরুরি প্রয়োজনে রক্তের প্রয়োজন হলে এটি এড়ানো যেতে পারে। ক্রস-ম্যাচিং এর ক্ষেত্রে দাতার লোহিত রক্তকণিকার নমুনার সাথে প্রাপকের সিরামের একটি নমুনা মিশ্রিত করা এবং মিশ্রণটি জমাট বাঁধছে কিনা বা গুটি তৈরি করছে কিনা তা পরীক্ষা করা হয়। যদি প্রত্যক্ষ দৃষ্টি দ্বারা জমাট বাঁধা সুস্পষ্ট না হয়, তবে ব্লাড ব্যাঙ্কের প্রযুক্তিবিদরা সাধারণত একটি অণুবীক্ষণ যন্ত্র দিয়ে অ্যাগ্লুটিনেশন পরীক্ষা করেন। যদি জমাট বাঁধে, তবে সেই নির্দিষ্ট দাতার রক্ত সেই নির্দিষ্ট প্রাপকের কাছে স্থানান্তর করা যাবে না। একটি ব্লাড ব্যাঙ্কে সমস্ত রক্তের নমুনা সঠিকভাবে চিহ্নিত করা অত্যাবশ্যক, তাই ISBT 128 নামে পরিচিত একটি বারকোড সিস্টেম ব্যবহার করে লেবেলিংকে মানদণ্ড করা হয়েছে।

শনাক্তকরণ ট্যাগ বা সামরিক কর্মীদের দ্বারা পরিধান করা উল্কিতে রক্তের গ্রুপ অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে, যদি তাদের জরুরি রক্ত সঞ্চালনের প্রয়োজন হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ফ্রন্টলাইন জার্মান ওয়াফেন-এসএস-এর রক্তের গ্রুপের ট্যাটু ছিল।

বিরল রক্তের প্রকারগুলি ব্লাড ব্যাঙ্ক এবং হাসপাতালের সরবরাহের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, আফ্রিকান বংশোদ্ভূত লোকেদের মধ্যে ডাফি-নেগেটিভ রক্ত অনেক বেশি সংখ্যায় দেখা যায়,[২১] এবং বাকি জনসংখ্যার মধ্যে এই ধরনের রক্তের বিরলতার কারণে এই রোগীদের জন্য ডাফি-নেগেটিভ রক্তের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। একইভাবে, RhD নেগেটিভ লোকেদের জন্য বিশ্বের এমন কিছু অংশে ভ্রমণের সাথে সম্পর্কিত ঝুঁকি রয়েছে যেখানে RhD নেগেটিভ রক্তের সরবরাহ বিরল, বিশেষ করে পূর্ব এশিয়ায়, যেখানে রক্ত পরিষেবাগুলি পশ্চিমাদের রক্তদানে উৎসাহিত করার চেষ্টা করতে পারে।[২২]

নবজাতকের হেমোলাইটিক রোগ (HDN)সম্পাদনা

একজন গর্ভবতী মহিলা এমন একটি ভ্রূণ বহন করতে পারে যার রক্তের গ্রুপ তার নিজের থেকে আলাদা। সাধারণত, এটি একটি সমস্যা যদি একজন Rh- মায়ের একটি Rh+ পিতার সন্তান থাকে এবং ভ্রূণটি পিতার মতো Rh+ হয়।[২৩] সেসব ক্ষেত্রে মা IgG ব্লাড গ্রুপের অ্যান্টিবডি তৈরি করতে পারেন। এটি ঘটতে পারে যদি ভ্রূণের কিছু রক্তকণিকা মায়ের রক্ত সঞ্চালনে প্রবেশ করে (যেমনঃ সন্তান জন্মদানের সময় বা প্রসূতি মধ্যবর্ত্তিতার সময় ক্ষুদ্র ভ্রূণীয় রক্তক্ষরণ), বা কখনও কখনও থেরাপিউটিক রক্ত সঞ্চালনের পরে। এটি বর্তমান গর্ভাবস্থা এবং/অথবা পরবর্তী গর্ভাবস্থায় Rh রোগ বা নবজাতকের (HDN) হেমোলাইটিক রোগের অন্যান্য রূপের কারণ হতে পারে। কখনও কখনও এটি ভ্রূণের জন্য প্রাণঘাতী; এসব ক্ষেত্রে একে হাইড্রপস ফেটালিস বলা হয়। [২৪] যদি একজন গর্ভবতী মহিলার অ্যান্টি-ডি অ্যান্টিবডি রয়েছে বলে জানা যায়, তবে Rh রোগের ভ্রূণের ঝুঁকি মূল্যায়ন করতে ভ্রূণের Rh রক্তের গ্রুপ মাতৃ প্লাজমাতে ভ্রূণের ডিএনএ বিশ্লেষণের মাধ্যমে পরীক্ষা করা যেতে পারে। [২৫] বিংশ শতাব্দীর ওষুধসামগ্রীর একটি প্রধান অগ্রগতি হল Rho(D) ইমিউন গ্লোবুলিন নামক একটি ইনজেকশনযোগ্য ওষুধের মাধ্যমে ডি নেগেটিভ মায়েদের দ্বারা অ্যান্টি-ডি অ্যান্টিবডি তৈরি করা বন্ধ করে এই রোগ প্রতিরোধ করা।[২৬][২৭] কিছু রক্তের গ্রুপের সাথে যুক্ত অ্যান্টিবডি গুরুতর HDN ঘটাতে পারে, অন্যরা শুধুমাত্র হালকা HDN ঘটাতে পারে এবং বাকিরা HDN ঘটায় বলে জানা যায় না।[২৪]

রক্তজাত পদার্থসম্পাদনা

প্রতিটি রক্তদান থেকে সর্বাধিক সুবিধা প্রদান করতে এবং স্থায়িত্বকাল বৃদ্ধির জন্য, ব্লাড ব্যাঙ্কগুলি কিছু সম্পূর্ণ রক্তকে বিভিন্ন পদার্থে ভাগ করে। এই পদার্থগুলির মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ হল প্যাকড আরবিসি, প্লাজমা, প্লেটলেট, ক্রায়োপ্রিসিপিটেট এবং হিমায়িত তাজা রক্তরস (এফএফপি)। ল্যাবাইল ক্লোটিং ফ্যাক্টর V এবং VIII কে ধরে রাখতে এফএফপি দ্রুত হিমায়িত করা হয়, যা সাধারণত রোগীদের সেসব দেওয়া হয় যাদের গুরুতর লিভারের রোগ, অ্যান্টিকোয়াগুল্যান্টের ওভারডোজ বা ডিসমিনেটেড ইন্ট্রাভাসকুলার কোগুলেশন (DIC) এর মতো অবস্থার কারণে সম্ভাব্য মারাত্মক রক্ত জমাট বাঁধার মতো সমস্যা রয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

প্যাকেটজাত লোহিত কণিকার ইউনিটগুলি সম্পূর্ণ রক্তের ইউনিট থেকে যতটা সম্ভব রক্তরস অপসারণ করে তৈরি করা হয়।

আধুনিক রিকম্বিন্যান্ট পদ্ধতি দ্বারা সংশ্লেষিত রক্ত তঞ্চনের কারণগুলি এখন হিমোফিলিয়ার জন্য নিয়মিত ক্লিনিকাল ব্যবহারে রয়েছে, কারণ একত্র করা রক্তের পদার্থগুলির সাথে সংক্রমণ স্থানান্তরের ঝুঁকি এড়ানো হয়।

লোহিত রক্তকণিকার সামঞ্জস্যসম্পাদনা

  • AB রক্তগ্রুপের ব্যক্তিদের লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠে A এবং B উভয় অ্যান্টিজেন থাকে এবং তাদের রক্তের প্লাজমাতে A বা B অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে কোনো অ্যান্টিবডি থাকে না। তাই, AB টাইপের একজন ব্যক্তি যে কোনো গ্রুপ থেকে রক্ত গ্রহণ করতে পারেন (AB প্রাধান্যযোগ্য) কিন্তু AB ছাড়া অন্য কোনো গ্রুপকে রক্ত দিতে পারবেন না। এরা সর্বজনীন প্রাপক হিসাবে পরিচিত।
  • A রক্তগ্রুপের ব্যক্তিদের লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠে A অ্যান্টিজেন থাকে এবং B অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে IgM অ্যান্টিবডি ধারণকারী রক্তের সিরাম থাকে। অতএব, একজন A গ্রুপ ব্যক্তি শুধুমাত্র A বা O গ্রুপের ব্যক্তিদের কাছ থেকে রক্ত গ্রহণ করতে পারে (A প্রাধান্যযোগ্য) এবং A বা AB টাইপের ব্যক্তিদের রক্ত দিতে পারে।
  • B রক্তগ্রুপের ব্যক্তিদের লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠে B অ্যান্টিজেন থাকে এবং A অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে IgM অ্যান্টিবডি ধারণকারী রক্তের সিরাম থাকে। তাই, B গ্রুপের একজন ব্যক্তি শুধুমাত্র B বা O গ্রুপের ব্যক্তিদের কাছ থেকে রক্ত গ্রহণ করতে পারেন (B প্রাধান্যযোগ্য) এবং B বা AB টাইপযুক্ত ব্যক্তিদের রক্ত দিতে পারেন।
  • O রক্তগ্রুপের (অথবা কিছু দেশে শূন্য রক্তগ্রুপ) ব্যক্তিদের লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠে A বা B অ্যান্টিজেন থাকে না এবং তাদের রক্তের সিরামে IgM অ্যান্টি-এ এবং অ্যান্টি-বি অ্যান্টিবডি থাকে। তাই, O গ্রুপের একজন ব্যক্তি শুধুমাত্র O গ্রুপের ব্যক্তির কাছ থেকে রক্ত গ্রহণ করতে পারে, তবে যে কোনো ABO রক্তের গ্রুপের (যেমন, A, B, O বা AB) ব্যক্তিদের রক্ত দিতে পারে। যদি একজন রোগীর জরুরি রক্ত সঞ্চালনের প্রয়োজন হয়, এবং যদি প্রাপকের রক্ত প্রক্রিয়াকরণে সময় নেওয়া ক্ষতিকর বিলম্বের কারণ হয়, তাহলে O নেগেটিভ রক্ত ইস্যু করা যেতে পারে। O নেগেটিভ রক্ত প্রায়শই অতিরিক্ত ব্যবহার করা হয় এবং ফলস্বরূপ সর্বদা স্বল্প সরবরাহে থাকে, কারণ এটি যে কারও সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।[২৮] আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অফ ব্লাড ব্যাঙ্কস এবং ব্রিটিশ চিফ মেডিক্যাল অফিসারের ন্যাশনাল ব্লাড ট্রান্সফিউশন কমিটির মতে, গ্রুপ O RhD নেগেটিভ লোহিত কণিকার ব্যবহার O নেগেটিভ রক্তের ধারক ব্যক্তি, গর্ভবতী মহিলা এবং জরুরী ক্ষেত্রে যাদের রক্ত-গ্রুপ পরীক্ষা সত্যিকার অর্থে অকার্যকর তাদের জন্য ব্যবহারকে সীমাবদ্ধ করা উচিত।[২৮]
 
লোহিত রক্ত কণিকার সামঞ্জস্যতা চার্টএকই গ্রুপের রক্ত দেয়া ছাড়া অন্যক্ষেত্রে O রক্তগ্রুপধারী ব্যক্তি A, B ও AB গ্রুপধারীকে এবং A ও B রক্তগ্রুপধারী ব্যক্তি AB গ্রুপধারীকে রক্ত দিতে পারবে।
লোহিত রক্ত কণিকার সামঞ্জস্যতা টেবিল[২৯][৩০]
গ্রহীতা[১] দাতা[১]
ও− ও+ এ− এ+ বি− বি+ এবি− এবি+
ও+  Y  Y  N  N  N  N  N  N
এ−  Y  N  Y  N  N  N  N  N
এ+  Y  Y  Y  Y  N  N  N  N
বি−  Y  N  N  N  Y  N  N  N
বি+  Y  Y  N  N  Y  Y  N  N
এবি−  Y  N  Y  N  Y  N  Y  N
এবি+  Y  Y  Y  Y  Y  Y  Y  Y

ছক টীকা
১.
অনুমান করা হয় অস্বাভাবিক অ্যান্টিবডির অনুপস্থিতি যা দাতা এবং গ্রহীতার রক্তের মধ্যে অসামঞ্জস্য সৃষ্টি করবে, যেমন ক্রস ম্যাচিং দ্বারা নির্বাচিত রক্তের ক্ষেত্রে স্বাভাবিক।

একজন Rh D-নেগেটিভ রোগী যার কোনো অ্যান্টি-D অ্যান্টিবডি নেই (আগে কখনও D-পজিটিভ লোহিত রক্তকণিকায় সংবেদনশীল হয়নি) একবার D-পজিটিভ রক্ত সঞ্চালন গ্রহণ করতে পারে, তবে এটি D অ্যান্টিজেনের সংবেদনশীলতা সৃষ্টি করবে এবং একজন মহিলা রোগী নবজাতকের হেমোলাইটিক রোগের ঝুঁকিতে পড়বে। যদি একজন D-নেগেটিভ রোগীর অ্যান্টি-D অ্যান্টিবডি তৈরি হয়, তাহলে পরবর্তীকালে D-পজিটিভ রক্তের সংস্পর্শে একটি সম্ভাব্য বিপজ্জনক সঞ্চালন প্রতিক্রিয়া হতে পারে। Rh D-পজিটিভ রক্ত কখনই সন্তান জন্মদানের বয়সের D-নেগেটিভ মহিলাদের বা D অ্যান্টিবডিযুক্ত রোগীদের দেওয়া উচিত নয়, তাই ব্লাড ব্যাঙ্কগুলিকে অবশ্যই এই রোগীদের জন্য Rh-নেগেটিভ রক্ত সংরক্ষণ করতে হবে। চরম পরিস্থিতিতে, যেমন: গুরুতর রক্তপাতের জন্য যখন ব্লাড ব্যাঙ্কে D-নেগেটিভ ব্লাড ইউনিটের স্টক খুব কম থাকে, তখন ব্লাড ব্যাঙ্কে ডি-নেগেটিভ রক্তের স্টক সংরক্ষণ করতে সন্তান জন্মদানের বেশি বয়সের D-নেগেটিভ মহিলাদের বা Rh-নেগেটিভ পুরুষদের কোন অ্যান্টি-D অ্যান্টিবডি না থাকা সাপেক্ষে D-পজিটিভ রক্ত দেওয়া যেতে পারে। আরএইচ ডি-পজিটিভ রোগীরা ডি নেগেটিভ রক্তে প্রতিক্রিয়া দেখায় না; কথাটা সত্য নয়।

Rh পদ্ধতির অন্যান্য অ্যান্টিজেন যেমন C, c, E এবং e এবং অন্যান্য ব্লাড গ্রুপ পদ্ধতির ক্ষেত্রেও এই একই মিল করা হয় যেখানে ইমিউনাইজেশনের জন্য পরিচিত ঝুঁকি রয়েছে; যেমনঃ কেল সিস্টেম বিশেষ করে সন্তান জন্মদানের বয়সের মহিলাদের জন্য বা প্রচুর রক্ত সঞ্চালনের প্রয়োজন এমন পরিচিত রোগীদের জন্য।

রক্তরসের সামঞ্জস্যসম্পাদনা

 
প্লাজমা সামঞ্জস্যের চার্ট
একই রক্তের গ্রুপ দান ছাড়াও; A, B এবং O কে AB গ্রুপ থেকে প্লাজমা দেওয়া যেতে পারে; A, B এবং AB প্রকারের প্লাজমা O কে দেওয়া যেতে পারে।

রক্তের রক্তরসের সামঞ্জস্য হল লোহিত রক্তকণিকার সামঞ্জস্যের বিপরীত।[৩১] AB গ্রুপের রক্তরস অ্যান্টি-A বা অ্যান্টি-B অ্যান্টিবডি বহন করে না এবং যে কোনও ব্লাড গ্রুপের ব্যক্তিদের মধ্যে স্থানান্তর করা যেতে পারে; কিন্তু AB গ্রুপের রোগীরা শুধুমাত্র AB গ্রুপের প্লাজমা পেতে পারেন। টাইপ O উভয় অ্যান্টিবডিই বহন করে, তাই O রক্তের গ্রুপ-এর ব্যক্তিরা যে কোনও রক্তের গ্রুপ থেকে প্লাজমা গ্রহণ করতে পারে, তবে টাইপ O প্লাজমা শুধুমাত্র O টাইপ গ্রহীতাদের দ্বারা ব্যবহার করা যেতে পারে।

রক্তরসের সামঞ্জস্যতার ছক
দাতা গ্রহীতা
O A B AB
O  Y  Y  Y  Y
A  N  Y  N  Y
B  N  N  Y  Y
AB  N  N  N  Y

ছক টীকা

১. দাতা প্লাজমাতে শক্তিশালী অ্যাটিপিকাল অ্যান্টিবডির অনুপস্থিতি অনুমান করে

Rh D অ্যান্টিবডিগুলি বিরল, তাই সাধারণত D নেগেটিভ বা D পজিটিভ রক্তে অ্যান্টি-D অ্যান্টিবডি থাকে না। ব্লাড ব্যাঙ্কে অ্যান্টিবডি স্ক্রিনিং করে যদি কোনও সম্ভাব্য দাতার কাছে অ্যান্টি-ডি অ্যান্টিবডি বা কোনও শক্তিশালী অ্যাটিপিকাল ব্লাড গ্রুপ অ্যান্টিবডি পাওয়া যায়, তবে তাকে দাতা হিসাবে গ্রহণ করা হবে না (বা কিছু ব্লাড ব্যাঙ্কে রক্ত নেওয়া হবে কিন্তু পণ্যটি যথাযথভাবে লেবেল করা প্রয়োজন হবে।); তাই, ব্লাড ব্যাঙ্কের দ্বারা ইস্যু করা দাতার রক্তের প্লাজমা D অ্যান্টিবডি মুক্ত এবং অন্যান্য অ্যাটিপিকাল অ্যান্টিবডি মুক্ত হওয়ার জন্য নির্বাচন করা যেতে পারে যতক্ষণ রক্তের প্লাজমা এবং গ্রহীতা ABO সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়, এবং ব্লাড ব্যাঙ্ক থেকে ইস্যু করা এই ধরনের দাতার প্লাজমা গ্রহীতার জন্য উপযুক্ত হবে যিনি D পজিটিভ বা D নেগেটিভ।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

সার্বজনীন দাতা এবং সার্বজনীন গ্রহীতাসম্পাদনা

 
হাসপাতালের একজন কর্মী পরীক্ষার জন্য একজন দাতার কাছ থেকে রক্তের নমুনা নিচ্ছেন

প্যাক করা লোহিত রক্তকণিকার সঞ্চালনের ক্ষেত্রে, O Rh D নেগেটিভ রক্তের গ্রুপের ব্যক্তিদের প্রায়শই সর্বজনীন দাতা বলা হয়। যাদের টাইপ AB Rh D পজিটিভ রক্ত তাদের সর্বজনীন গ্রহীতা বলা হয়। তবে, এই শর্তগুলি শুধুমাত্র গ্রহীতার অ্যান্টি-A এবং অ্যান্টি-B অ্যান্টিবডিগুলির লোহিত রক্তকণিকার প্রতি সম্ভাব্য প্রতিক্রিয়া এবং Rh D অ্যান্টিজেনগুলির সম্ভাব্য সংবেদনশীলতার ক্ষেত্রে সত্য। একটি ব্যতিক্রম হল এইচএইচ অ্যান্টিজেন সিস্টেমসহ ব্যক্তিরা (যা বোম্বে ফেনোটাইপ নামেও পরিচিত) যারা শুধুমাত্র অন্যান্য এইচএইচ দাতাদের কাছ থেকে নিরাপদে রক্ত গ্রহণ করতে পারে, কারণ তারা সমস্ত লোহিত রক্তকণিকায় উপস্থিত এইচ অ্যান্টিজেনের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি করে।[৩২][৩৩]

শক্তিশালী অ্যান্টি-এ, অ্যান্টি-বি বা অ্যাটিপিকাল ব্লাড গ্রুপ অ্যান্টিবডিসহ রক্তদাতাদের রক্তদান থেকে বিশেষভাবে বাদ দেওয়া যেতে পারে। সাধারণভাবে, রক্ত সঞ্চালনের রক্তরসের ভগ্নাংশ দাতা অ্যান্টিবডি বহন করতে পারে যা প্রাপকের মধ্যে পাওয়া যায় না, তবে তরলীকরণের কারণে একটি উল্লেখযোগ্য প্রতিক্রিয়া অসম্ভাব্য।

উপরন্তু, A, B এবং Rh D ব্যতীত লোহিত রক্তকণিকার পৃষ্ঠের অন্যান্য অ্যান্টিজেনগুলি প্রতিকূল প্রতিক্রিয়া এবং সংবেদনশীলতার কারণ হতে পারে, যদি তারা একটি ইমিউন প্রতিক্রিয়া তৈরি করতে সংশ্লিষ্ট অ্যান্টিবডিগুলির সাথে আবদ্ধ হতে পারে। সঞ্চালনসমূহ আরও জটিল কারণ অণুচক্রিকা এবং শ্বেত রক্তকণিকা (WBC) এর পৃষ্ঠের অ্যান্টিজেনগুলির নিজস্ব পদ্ধতি রয়েছে এবং সঞ্চালনের ফলে অণুচক্রিকা বা WBC অ্যান্টিজেনগুলির সংবেদনশীলতা ঘটতে পারে।

রক্তরস সঞ্চালনের জন্য, এই পরিস্থিতির বিপরীত হয়। টাইপ O প্লাজমা, অ্যান্টি-A এবং অ্যান্টি-B উভয় অ্যান্টিবডি সমন্বিত বলে শুধুমাত্র O গ্রুপের গ্রহীতাদের দেওয়া যেতে পারে। অ্যান্টিবডি অন্য যেকোনো রক্তের গ্রুপের অ্যান্টিজেনকে আক্রমণ করবে। বিপরীতভাবে, AB প্লাজমা যেকোনো ABO রক্তের গ্রুপের রোগীদের দেওয়া যেতে পারে, কারণ এতে কোনো অ্যান্টি-A বা অ্যান্টি-B অ্যান্টিবডি থাকে না।

রক্তের শ্রেণীকরণসম্পাদনা

সাধারণত, প্রতিটি অ্যান্টিজেনের সাথে সম্পর্কিত অ্যান্টিবডি ধারণকারী দ্রবণে রক্তের নমুনা যোগ করার মাধ্যমে রক্তের প্রকার পরীক্ষা করা হয়। রক্তকণিকার পৃষ্ঠে একটি অ্যান্টিজেনের উপস্থিতি জমাট বাঁধার দ্বারা নির্দেশিত হয়। এই পরীক্ষাগুলিতে, অ্যাগ্লুটিনেশনের পরিবর্তে, কারণ ন্যানোপার্টিকেলগুলির সাথে আবদ্ধ থাকা লোহিত রক্তকণিকা একটি চুম্বকের দিকে টানা হয় এবং দ্রবণ থেকে সরানো হয় যার কারণে বিবর্ণকরণ দ্বারা ফলাফল পজেটিভ নির্দেশিত হয়।

রক্তের গ্রুপের জিনোটাইপিংসম্পাদনা

রক্তের গ্রুপগুলোর সেরোলজিক পরীক্ষার বর্তমান অনুশীলনের পাশাপাশি, আণবিক ডায়াগনস্টিকসের অগ্রগতি রক্তের গ্রুপ জিনোটাইপিংয়ের ক্রমবর্ধমান ব্যবহারের সুযোগ এনে দেয়। সরাসরি রক্তের গ্রুপের ফেনোটাইপ রিপোর্ট করার সেরোলজিক পরীক্ষার বিপরীতে, জিনোটাইপিং বর্তমানে পরিচিত অ্যান্টিজেনের আণবিক ভিত্তির জ্ঞানের উপর ভিত্তি করে একটি ফিনোটাইপের পূর্বাভাস দেয়। এটি রক্তের প্রকারের আরও বিশদ নির্ণয়ের সুযোগ দেয় এবং তাই সঞ্চালনের জন্য আরও ভাল মিল, যা বিশেষত সেসব রোগীদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে যাদের অ্যালো-ইমিউনাইজেশন প্রতিরোধ করার জন্য অধিক সঞ্চালনের প্রয়োজন রয়েছে।[৩৪][৩৫]

ইতিহাসসম্পাদনা

রক্তের গ্রুপ প্রথম আবিষ্কার করেন একজন অস্ট্রিয়ান চিকিত্সক, কার্ল ল্যান্ডস্টেইনার, যিনি ভিয়েনা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাথলজিকাল-অ্যানাটমিক্যাল ইনস্টিটিউটে কাজ করেন (বর্তমানে ভিয়েনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়)। ১৯০০ সালে, তিনি দেখতে পান যে টেস্ট টিউবে মিশ্রিত হলে বিভিন্ন ব্যক্তির রক্তের সেরাম একত্রে জড়ো হয় (এগ্লুটিনেট) এবং শুধু তাই নয়, মানুষের কিছু রক্তও পশুর রক্তের সাথে জমাট বাঁধে।[৩৬] তিনি একটি দুই-বাক্যের পাদটীকায় লিখেছেন:

সুস্থ মানুষের সিরাম শুধুমাত্র প্রাণীর লোহিত কণিকাকেই জমাট বাঁধায় না, বরং প্রায়শই অন্যান্য ব্যক্তিদের বা মানুষ থেকে উৎপন্ন সেরামকেও জমাট বাঁধায়। এই অবস্থাটি ব্যক্তিদের মধ্যে জন্মগত পার্থক্যের সাথে সম্পর্কিত নাকি এটি ব্যাকটেরিয়া ধরণের কিছু ক্ষতির ফলস্বরূপ তা দেখার বিষয়।[৩৭]

মানুষের মধ্যে রক্তের যে ভিন্নতা বিদ্যমান এটিই তার প্রথম প্রমাণ । পরের বছর, ১৯০১ সালে, তিনি একটি সুনির্দিষ্ট পর্যবেক্ষণ করেছিলেন যে, একজন ব্যক্তির রক্তের সিরাম শুধুমাত্র নির্দিষ্ট ব্যক্তির সাথে একত্রিত হবে। এর উপর ভিত্তি করে তিনি মানুষের রক্তকে তিনটি গ্রুপে শ্রেণীবদ্ধ করেন, যেমন গ্রুপ A, গ্রুপ B এবং C গ্রুপ। তিনি সংজ্ঞায়িত করেছিলেন যে A গ্রুপ B গ্রুপের সাথে জমাট বাঁধে, কিন্তু তার নিজস্ব প্রকারের সাথে কখনোই নয়। একইভাবে, গ্রুপ B এর রক্ত A গ্রুপের সাথে জমাট বাঁধে। C গ্রুপের রক্ত ভিন্ন যে এটি A এবং B উভয়ের সাথে জমাট বাঁধে।[৩৮] রক্তের গ্রুপের আবিষ্কারের জন্য ল্যান্ডস্টেইনার ১৯৩০ সালে ফিজিওলজি বা মেডিসিনে নোবেল পুরস্কার পান। (এর পরে C কে জার্মান Ohne থেকে O নামকরণ করা হয়, যার অর্থ ছাড়া, বা শূন্য, বা খালি।[৩৯] ) আরেকটি গ্রুপ (পরে AB নামকরণ করা হয়েছে) এক বছর পরে ল্যান্ডস্টেইনারের ছাত্র আদ্রিয়ানো স্টার্লি এবং আলফ্রেড ফন ডেকাস্টেলো নামটি নির্দিষ্ট না করেই আবিষ্কার করেছিলেন (এটিকে শুধু "কোন বিশেষ প্রকার" হিসাবে উল্লেখ না করে)।[৪০][৪১] এইভাবে, ল্যান্ডস্টেইনারের পরে, তিনটি রক্তের গ্রুপ প্রাথমিকভাবে স্বীকৃত হয়েছিল, যথাঃ A, B, এবং C।[৪১]

চেক সেরোলজিস্ট জান জানস্কিই প্রথম ব্যক্তি যিনি ১৯০৭ সালে চারটি রক্তের ধরন শনাক্ত করেন এবং নামকরণ করেন; যা তিনি একটি স্থানীয় জার্নালে রোমান সংখ্যাসূচক I, II, III, এবং IV ব্যবহার করে প্রকাশ করেছিলেন,[৪২] (যথাক্রমে আধুনিক O, A, B, এবং AB এর সাথে সম্পর্কিত।)।[৪৩] জানস্কির কথা না জেনে, একজন আমেরিকান চিকিত্সক উইলিয়াম এল. মস ১৯১০ সালে প্রায় অভিন্ন শ্রেণিবিন্যাস প্রবর্তন করেছিলেন;[৪৪] কিন্তু তার I এবং IV জানস্কির যথাক্রমে IV এবং I এর অনুরূপ।[৪৫] মস জানস্কির পেপার পেয়েছিলেন যখন তার পেপার ছাপা হচ্ছিল, এটি একটি ফুটনোটে উল্লেখ করা হয়।[৪১] এইভাবে দুটি পদ্ধতির অস্তিত্ব অবিলম্বে চিকিৎসা অনুশীলনে বিভ্রান্তি এবং সম্ভাব্য বিপদ তৈরি করে। ব্রিটেন, ফ্রান্স এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মস-এর পদ্ধতি গৃহীত হয়েছিল, যেখানে অন্যান্য ইউরোপীয় দেশ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কিছু অংশে জ্যান্সকির পদ্ধতিটি প্রাধান্য পেয়েছিল। বর্ণনা করা হয় যে, "সেই সময়ে মস শ্রেণীবিভাগের কার্যত সর্বজনীন ব্যবহার সম্পূর্ণভাবে এবং উদ্দেশ্যমূলকভাবে পরিত্যাগ করা হয়েছিল। তাই বিশৃঙ্খলা থেকে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার পরিবর্তে বড় শহরগুলিতে বিশৃঙ্খলা বৃদ্ধি পেয়েছিল।"[৪৬] বিভ্রান্তি দূর করার জন্য, আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অফ ইমিউনোলজিস্ট, সোসাইটি অব আমেরিকান ব্যাকটিরিওলজিস্ট এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ প্যাথলজিস্ট অ্যান্ড ব্যাকটিরিওলজিস্ট ১৯২১ সালে একটি যৌথ সুপারিশ করে যে, জানস্কি শ্রেণীবিভাগ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গৃহীত হবে।[৪৭] কিন্তু এটি বিশেষভাবে অনুসরণ করা হয়নি যেখানে মস পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছিল।[৪৮]

১৯২৭ সালে, ল্যান্ডস্টেইনার, যিনি নিউইয়র্কের রকফেলার ইনস্টিটিউট ফর মেডিক্যাল রিসার্চ -এ চলে গিয়েছিলেন এবং রক্তের গ্রুপিং সম্পর্কিত জাতীয় গবেষণা কাউন্সিলের একটি কমিটির সদস্য হিসাবে জ্যান্সকি এবং মস পদ্ধতিকে O, A, B এবং AB অক্ষর দিয়ে প্রতিস্থাপন করার পরামর্শ দেন। O ব্যবহার নিয়ে আরেকটি বিভ্রান্তি ছিল যা পোলিশ চিকিত্সক লুডউইক হিরসফেল্ড এবং জার্মান চিকিত্সক এমিল ফন ডঙ্গার্ন ১৯১০ সালে উপস্থাপন করেছিলেন।[৪৯] এটা কখনই পরিষ্কার ছিল না যে, এটি শূন্য সংখ্যাটির জন্য, নাকি জার্মান শূন্যের ohne- এর বড় হাতের অক্ষর O এর জন্য, যার অর্থ ছাড়া; ল্যান্ডস্টেইনার পরবর্তীটি বেছে নিয়েছিলেন।[৫০]

১৯২৮ সালে পার্মানেন্ট কমিশন অন বায়োলজিক্যাল স্ট্যান্ডার্ডাইজেশন ল্যান্ডস্টেইনারের প্রস্তাব গ্রহণ করে এবং বলে:

কমিশন সন্তুষ্টির সাথে অবগত হয়েছে যে, লীগ অফ নেশনস এর স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্যোগে, রক্তের গ্রুপগুলির শ্রেণীবিভাগের জন্য ভন ডাঙ্গার্ন এবং হিরজফেল্ডের প্রস্তাবিত নামকরণটি সাধারণভাবে গৃহীত হয়েছে এবং সুপারিশ করছে যে, এই নামকরণটি আন্তর্জাতিক ব্যবহারের জন্য গৃহীত হবে এভাবে: 0 A B AB। নামকরণ থেকে পরিবর্তন সহজতর করার জন্য এখন পর্যন্ত প্রবর্তিত নিম্নলিখিতগুলি সুপারিশ করা হয়েছে:

  • জানস্কি ....0(I) A(II) B(III) AB(IV)
  • মস . . O(IV) A(II) B(III) AB(I)[৫১]

এই শ্রেণীবিভাগ ব্যাপকভাবে গৃহীত হয়েছে; তবে, ১৯৪০ এর দশকের শেষের দিকেও সমস্ত হাসপাতাল এবং ডাক্তাররা ট্রান্সফিউশনের জন্য রক্তের শ্রেণীকরণ ব্যবহার করেননি। নতুন পদ্ধতিটি ধীরে ধীরে গৃহীত হয়েছিল এবং ১৯৫০ এর দশকের প্রথম দিকে এটি সর্বজনীনভাবে অনুসরণ করা হয়েছিল।[৫২]

হিরসফেল্ড এবং ডাঙ্গার্ন ১৯১০ সালে মেন্ডেলীয় বংশগতি হিসাবে রক্তের প্রকারের বংশগতি এবং ১৯১১ সালে A-এর উপ-প্রকারের অস্তিত্ব আবিষ্কার করেছিলেন।[৪৯][৫৩] ১৯২৭ সালে, ল্যান্ডস্টেইনার, ফিলিপ লেভিনের সাথে, MN রক্তগ্রুপ পদ্ধতি,[৫৪] এবং পি সিস্টেম আবিষ্কার করেন।[৫৫] ১৯৪৫ সালে কুম্বস পরীক্ষার বিকাশ,[৫৬] সঞ্চালন ঔষধের আবির্ভাব, এবং নবজাতকের ABO হেমোলাইটিক রোগ বোঝার ফলে আরও রক্তের গ্রুপ আবিষ্কার হয়। ২০২০-এর হিসাব অনুযায়ী, ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি অফ ব্লাড ট্রান্সফিউশন (ISBT) ৪১ টি রক্তের গ্রুপকে স্বীকৃতি দেয়।[২]

সমাজ ও সংস্কৃতিসম্পাদনা

পূর্ব এশিয়ার দেশগুলিতে একটি জনপ্রিয় অপবিজ্ঞান বিশ্বাস (বিশেষ করে জাপান এবং কোরিয়াতে;[৫৭] 血液型ketsuekigata / hyeoraekhyeong নামে পরিচিত) হল যে, একজন ব্যক্তির ABO রক্তের ধরন তার ব্যক্তিত্ব, চরিত্র এবং অন্যদের সাথে সামঞ্জস্যের পূর্বাভাস দেয়।[৫৮] গবেষকরা রক্তের প্রকারের ব্যক্তিত্বের শ্রেণীকরণের জন্য কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি বিদ্যমান নেই এবং গবেষণায় "ব্যক্তিত্ব এবং রক্তের প্রকারের মধ্যে কোন উল্লেখযোগ্য সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া যায়নি, যা তত্ত্বটিকে "অপ্রচলিত" হিসেবে উপস্থাপন করে এবং এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয় যে, ব্যক্তিত্বের সাথে রক্তের গ্রপ যথেচ্ছভাবে যুক্ত হওয়ার চেয়ে বেশি কিছু বলে অনুমান করার কোন ভিত্তি নেই।"[৫৭]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Maton, Anthea; Jean Hopkins (১৯৯৩)। Human Biology and Health। Prentice Hall। আইএসবিএন 0-13-981176-1 
  2. "Red Cell Immunogenetics and Blood Group Terminology"International Society of Blood Transfusion। ২০২১। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  3. Dean 2005
  4. Stayboldt C, Rearden A, Lane TA (১৯৮৭)। "B antigen acquired by normal A1 red cells exposed to a patient's serum": 41–4। ডিওআই:10.1046/j.1537-2995.1987.27187121471.xপিএমআইডি 3810822 
  5. Matsushita S, Imamura T, Mizuta T, Hanada M (নভেম্বর ১৯৮৩)। "Acquired B antigen and polyagglutination in a patient with gastric cancer": 540–2। ডিওআই:10.1007/BF02469500পিএমআইডি 6672386 
  6. Kremer Hovinga I, Koopmans M, de Heer E, Bruijn J, Bajema I (২০০৭)। "Change in blood group in systemic lupus erythematosus": 186–7; author reply 187। ডিওআই:10.1016/S0140-6736(07)60099-3পিএমআইডি 17240276 
  7. Chown B.; Lewis M. (অক্টোবর ১৯৫৭)। "A new Kell blood-group phenotype": 711। ডিওআই:10.1038/180711a0 পিএমআইডি 13477267 
  8. Miller LH, Mason SJ, Clyde DF, McGinniss MH (আগস্ট ১৯৭৬)। "The resistance factor to Plasmodium vivax in blacks. The Duffy-blood-group genotype, FyFy": 302–4। ডিওআই:10.1056/NEJM197608052950602পিএমআইডি 778616 
  9. Kwiatkowski DP (আগস্ট ২০০৫)। "How Malaria Has Affected the Human Genome and What Human Genetics Can Teach Us about Malaria": 171–92। ডিওআই:10.1086/432519পিএমআইডি 16001361পিএমসি 1224522  
  10. "Position statement: Red blood cell transfusion in newborn infants"। Canadian Pediatric Society। এপ্রিল ১৪, ২০১৪। ১৯ মে ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  11. Schmidt, P; Okroi, M (২০০১), "Also sprach Landsteiner – Blood Group 'O' or Blood Group 'NULL'", Infus Ther Transfus Med, 28 (4): 206–8, এসটুসিআইডি 57677644, ডিওআই:10.1159/000050239 
  12. উদ্ধৃতি খালি (সাহায্য) 
  13. "Your blood – a textbook about blood and blood donation" (PDF)। পৃষ্ঠা 63। জুন ২৬, ২০০৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৭-১৫ 
  14. Talaro, Kathleen P. (২০০৫)। Foundations in microbiology (5th সংস্করণ)। McGraw-Hill। পৃষ্ঠা 510–1আইএসবিএন 0-07-111203-0 
  15. Moise KJ (জুলাই ২০০৮)। "Management of rhesus alloimmunization in pregnancy": 164–76। ডিওআই:10.1097/AOG.0b013e31817d453cপিএমআইডি 18591322 
  16. "Rh血型的由來"। Hospital.kingnet.com.tw। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-০১ 
  17. Goodell, Pamela P.; Uhl, Lynne (২০১০)। "Risk of Hemolytic Transfusion Reactions Following Emergency-Release RBC Transfusion": 202–206। আইএসএসএন 0002-9173ডিওআই:10.1309/AJCP9OFJN7FLTXDB পিএমআইডি 20660321 
  18. Mais, Daniel (২০১৪)। Quick compendium of clinical pathology। United States: American Society for Clinical Pathology Press। আইএসবিএন 978-0-89189-615-9ওসিএলসি 895712380 
  19. Possible Risks of Blood Product Transfusions from American Cancer Society. Last Medical Review: 03/08/2008. Last Revised: 01/13/2009
  20. 7 adverse reactions to transfusion Pathology Department at University of Michigan. Version July 2004, Revised 11/5/08
  21. Nickel RG; Willadsen SA (আগস্ট ১৯৯৯)। "Determination of Duffy genotypes in three populations of African descent using PCR and sequence-specific oligonucleotides": 738–42। ডিওআই:10.1016/S0198-8859(99)00039-7পিএমআইডি 10439320 
  22. Bruce, MG (মে ২০০২)। "BCF – Members – Chairman's Annual Report"। The Blood Care Foundation। এপ্রিল ১০, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৭-১৫As Rhesus Negative blood is rare amongst local nationals, this Agreement will be of particular value to Rhesus Negative expatriates and travellers 
  23. Freeborn, Donna। "Hemolytic Disease of the Newborn (HDN)"University of Rochester Medical Center। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০২০ 
  24. E.A. Letsky; I. Leck (২০০০)। "Chapter 12: Rhesus and other haemolytic diseases"। Antenatal & neonatal screening (2nd সংস্করণ)। Oxford University Press। আইএসবিএন 978-0-19-262826-8 
  25. Daniels G, Finning K, Martin P, Summers J (সেপ্টেম্বর ২০০৬)। "Fetal blood group genotyping: present and future": 88–95। ডিওআই:10.1196/annals.1368.011পিএমআইডি 17108196 
  26. "Use of Anti-D Immunoglobulin for Rh Prophylaxis"Royal College of Obstetricians and Gynaecologists। মে ২০০২। ডিসেম্বর ৩০, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  27. "Pregnancy – routine anti-D prophylaxis for D-negative women"NICE। মে ২০০২। 
  28. American Association of Blood Banks (২৪ এপ্রিল ২০১৪), "Five Things Physicians and Patients Should Question", Choosing Wisely: an initiative of the ABIM Foundation, American Association of Blood Banks, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা, সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৪ , which cites
  29. "RBC compatibility table"। American National Red Cross। ডিসেম্বর ২০০৬। ২০০৮-০৯-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৭-১৫ 
  30. Blood types and compatibility ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১০-০৪-১৯ তারিখে bloodbook.com
  31. "Blood Component ABO Compatibility Chart Red Blood Cells and Plasma"Blood Bank Labsite। University of Michigan। ১৬ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  32. Fauci, Anthony S.; Eugene Braunwald (১৯৯৮)। Harrison's Principals of Internal Medicine। McGraw-Hill। পৃষ্ঠা 719আইএসবিএন 0-07-020291-5 
  33. "Universal acceptor and donor groups"। Webmd.com। ২০০৮-০৬-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-০১ 
  34. Anstee DJ (২০০৯)। "Red cell genotyping and the future of pretransfusion testing": 248–56। ডিওআই:10.1182/blood-2008-11-146860পিএমআইডি 19411635 
  35. Avent ND (২০০৯)। "Large-scale blood group genotyping: clinical implications": 3–13। ডিওআই:10.1111/j.1365-2141.2008.07285.x পিএমআইডি 19016734 
  36. Landsteiner K (১৯০০)। "Zur Kenntnis der antifermentativen, lytischen und agglutinierenden Wirkungen des Blutserums und der Lymphe": 357–362। 
  37. Kantha, S.S. (১৯৯৫)। "The blood revolution initiated by the famous footnote of Karl Landsteiner's 1900 paper" (PDF)The Ceylon Medical Journal40 (3): 123–125। পিএমআইডি 8536328 
  38. Landsteiner, Karl (১৯৬১)। "On Agglutination of Normal Human Blood": 5–8। ডিওআই:10.1111/j.1537-2995.1961.tb00005.xপিএমআইডি 13758692 
  39. Farhud, D.D.; Zarif Yeganeh, M. (২০১৩)। "A brief history of human blood groups": 1–6। পিএমআইডি 23514954পিএমসি 3595629  
  40. Von Decastello, A.; Sturli, A. (১৯০২)। "Concerning isoagglutinins in serum of healthy and sick humans": 1090–1095। 
  41. Farr AD (এপ্রিল ১৯৭৯)। "Blood group serology—the first four decades (1900–1939)": 215–26। ডিওআই:10.1017/s0025727300051383পিএমআইডি 381816পিএমসি 1082436  
  42. Janský J. (১৯০৭)। "Haematologick studie u. psychotiku" (চেক ভাষায়): 85–139। 
  43. Garratty, G.; Dzik, W. (২০০০)। "Terminology for blood group antigens and genes-historical origins and guidelines in the new millennium" (ইংরেজি ভাষায়): 477–489। ডিওআই:10.1046/j.1537-2995.2000.40040477.xপিএমআইডি 10773062 
  44. Moss W.L. (১৯১০)। "Studies on isoagglutinins and isohemolysins": 63–70। 
  45. Farr AD (এপ্রিল ১৯৭৯)। "Blood group serology—the first four decades (1900–1939)": 215–26। আইএসএসএন 0025-7273ডিওআই:10.1017/S0025727300051383পিএমআইডি 381816পিএমসি 1082436  
  46. Kennedy, James A. (১৯২৯-০২-২৩)। "Blood group classifications used in hospitals in the United States and Canada: Final Report" (ইংরেজি ভাষায়): 610। ডিওআই:10.1001/jama.1929.02700340010005 
  47. Garratty, G.; Dzik, W. (২০০০)। "Terminology for blood group antigens and genes-historical origins and guidelines in the new millennium": 477–489। ডিওআই:10.1046/j.1537-2995.2000.40040477.xপিএমআইডি 10773062 
  48. Doan, C.A. (১৯২৭)। "The Transfusion problem": 1–84। আইএসএসএন 0031-9333ডিওআই:10.1152/physrev.1927.7.1.1 
  49. Okroi, Mathias; McCarthy, Leo J. (জুলাই ২০১০)। "The original blood group pioneers: the Hirszfelds": 244–246। আইএসএসএন 1532-9496ডিওআই:10.1016/j.tmrv.2010.03.006পিএমআইডি 20656191 
  50. Schmidt, P.; Okroi, M. (২০০১)। "Also sprach Landsteiner – Blood Group 'O' or Blood Group 'NULL'": 206–208। আইএসএসএন 1660-3796ডিওআই:10.1159/000050239 
  51. Goodman, Neville M. (১৯৪০)। "Nomenclature of Blood Groups": 73। ডিওআই:10.1136/bmj.1.4123.73-aপিএমসি 2176232  
  52. Garratty, G.; Dzik, W. (২০০০)। "Terminology for blood group antigens and genes-historical origins and guidelines in the new millennium": 477–489। আইএসএসএন 0041-1132ডিওআই:10.1046/j.1537-2995.2000.40040477.xপিএমআইডি 10773062 
  53. Dungern, E.; Hirschfeld, L. (১৯১১)। "Über Vererbung gruppenspezifischer Strukturen des Blutes" (জার্মান ভাষায়): 196–197। ডিওআই:10.1007/BF01798027 
  54. Landsteiner, K.; Levine, P. (১৯২৭)। "A New Agglutinable Factor Differentiating Individual Human Bloods.": 600–602। ডিওআই:10.3181/00379727-24-3483 
  55. Landsteiner, K.; Levine, P. (১৯২৭)। "Further Observations on Individual Differences of Human Blood.": 941–942। ডিওআই:10.3181/00379727-24-3649 
  56. Coombs RR, Mourant AE, Race RR (১৯৪৫)। "A new test for the detection of weak and incomplete Rh agglutinins": 255–66। পিএমআইডি 21006651পিএমসি 2065689  
  57. "Despite scientific debunking, in Japan you are what your blood type is"। MediResource Inc.। Associated Press। ২০০৯-০২-০১। সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৮-১৩ 
  58. Nuwer, Rachel। http://blogs.scientificamerican.com/guest-blog/2011/02/15/you-are-what-you-bleed-in-japan-and-other-east-asian-countries-some-believe-blood-type-dictates-personality/। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রু ২০১১  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)

আরও পড়ুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

  • BGMUT Blood Group Antigen Gene Mutation Database at NCBI, NIH has details of genes and proteins, and variations thereof, that are responsible for blood types
  • "Blood group test"। Gentest.ch GmbH। ২০১৭-০৩-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-২৩ 
  • "Blood Facts – Rare Traits"। LifeShare Blood Centers। সেপ্টেম্বর ২৬, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৫, ২০০৬ 
  • "Modern Human Variation: Distribution of Blood Types"। Dr. Dennis O'Neil, Behavioral Sciences Department, Palomar College, San Marcos, California। ২০০১-০৬-০৬। ২০০১-০৬-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৩, ২০০৬ 
  • "Racial and Ethnic Distribution of ABO Blood Types – BloodBook.com, Blood Information for Life"। bloodbook.com। ২০১০-০৩-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৫, ২০০৬ 
  • "Molecular Genetic Basis of ABO"। ডিসেম্বর ৭, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৩১, ২০০৮