ম্যাকলিন পার্ক নেপিয়ারে অবস্থিত নিউজিল্যান্ডের খেলাধূলার মাঠ। এ মাঠে ক্রিকেটরাগবি ইউনিয়ন - উভয় ধরনের খেলাই অনুষ্ঠিত হয়। নিউজিল্যান্ডের ১০টি সঠিকমানের ক্রিকেট মাঠের মধ্যে এটিও অন্যতম।

ম্যাকলিন পার্ক
স্টেডিয়ামের তথ্যাবলী
অবস্থাননেপিয়ার, নিউজিল্যান্ড
স্থানাঙ্ক৩৯°৩০′৭″ দক্ষিণ ১৭৬°৫৪′৪৬″ পূর্ব / ৩৯.৫০১৯৪° দক্ষিণ ১৭৬.৯১২৭৮° পূর্ব / -39.50194; 176.91278স্থানাঙ্ক: ৩৯°৩০′৭″ দক্ষিণ ১৭৬°৫৪′৪৬″ পূর্ব / ৩৯.৫০১৯৪° দক্ষিণ ১৭৬.৯১২৭৮° পূর্ব / -39.50194; 176.91278
প্রতিষ্ঠাকাল১৯১১[১]
ধারন ক্ষমতা২২,৫০০
স্বত্ত্বাধিকারীনেপিয়ার সিটি কাউন্সিল
পরিচালনায়নেপিয়ার সিটি কাউন্সিল
অন্যান্যহারিকেন্স, (সুপার রাগবি)
হক’স বে রাগবি ইউনিয়ন (আইটিএম কাপ)
সেন্ট্রাল স্ট্যাগস (স্টেট চ্যাম্পিয়নশীপ/স্টেট শীল্ড/স্টেট টুয়েন্টি২০)
প্রান্ত
সেন্টেনিয়াল স্ট্যান্ড এন্ড
এমব্যাংকমেন্ট এন্ড
প্রথম টেস্ট১৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৯: নিউজিল্যান্ড বনাম পাকিস্তান
শেষ টেস্ট২৬ জানুয়ারি ২০১২: নিউজিল্যান্ড বনাম জিম্বাবুয়ে
প্রথম ওডিআই১৯ মার্চ ১৯৮২: নিউজিল্যান্ড বনাম শ্রীলঙ্কা
শেষ ওডিআই৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৩: নিউজিল্যান্ড বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস (১৯৫২)
১২ ফেব্রুয়ারি ২০১২ অনুযায়ী
উৎস: Cricinfo

এ মাঠের স্বাগতিক দল হিসেবে রয়েছে হক’স বে রাগবি ইউনিয়ন ও সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন। স্টেডিয়ামের উভয় প্রান্তের নাম রাখা হয়েছে সেন্টেনিয়াল স্ট্যান্ড এন্ডএমব্যাংকমেন্ট এন্ড

বিবরণসম্পাদনা

মূলতঃ বর্গাকৃতির মাঠটি একদিনের ক্রিকেটের উপযোগী করে নির্মিত হয়েছে। ফলে আগ্রাসী ব্যাটসম্যানগণ খুব সহজেই শুরুর দিকের ওভারগুলোয় স্বচ্ছন্দে রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হন। ১৯৫২ সাল থেকে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট ও ১৯৭৯ সাল থেকে অদ্যাবধি ছয়টি টেস্ট খেলার আয়োজন করেছে। তন্মধ্যে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল চার টেস্ট ড্র করে ও বাকী দুই টেস্টে পরাজিত হয়েছিল। ১৯৯০ সাল থেকে প্রত্যেক মৌসুমেই কমপক্ষে একটি একদিনের আন্তর্জাতিক খেলার আয়োজন করে আসছে। মাঠের দর্শক ধারন সক্ষমতা ২১,০০০ ও পীচ টার্ফ সহযোগে নির্মিত।

ব্যবহারসম্পাদনা

এ মাঠে একদিনের আন্তর্জাতিক ও টেস্ট খেলায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ১৯৮২-৮৩ মৌসুমে অনুষ্ঠিত রথম্যান্স কাপের খেলায় নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার খেলাটি প্রথম ওডিআইরূপে স্বীকৃত। ৭ উইকেটের ব্যবধানে নিউজিল্যান্ড দল জয় পেয়েছিল। ২০১৬ সালের শুরুর দিকে পাকিস্তান দলের টেস্ট খেলায় অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

পুণঃউন্নয়নসম্পাদনা

পার্কের পুণঃগঠনের কার্যক্রম শেষ হবার পর ১ আগস্ট, ২০০৯ তারিখে নতুন গ্রাহাম লো স্ট্যান্ডের উদ্বোধন করা হয়। এ স্ট্যান্ডটি ২০১১ সালের রাগবি বিশ্বকাপ উপলক্ষে নির্মাণ করা হয় ও ২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতার খেলা এ মাঠে হবে।

পরিসংখ্যানসম্পাদনা

ম্যাকলিন পার্ক বিশ্বের অন্যতম ব্যাটিংবান্ধব উইকেট নামে বিবেচিত হয়ে আসছে।[২] সর্বমোট ৪১১ রান করে ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম এবং ১৫ টেস্ট উইকেট নিয়ে আয়ান ও’ব্রায়ান শীর্ষস্থানে রয়েছেন।[৩]

অন্যদিকে, একদিনের ক্রিকেটে এক ইনিংসে অপরাজিত ১৪১ রান করে ব্যক্তিগত পর্যায়ে শীর্ষে রয়েছেন রিকি পন্টিং। দলীয় সর্বোচ্চ রান হচ্ছে ৩৪৭/৫। স্টিফেন ফ্লেমিংনাথান অ্যাসলে যৌথভাবে সর্বমোট ৭৪৩ রান করে শীর্ষস্থান দখল করেছেন।[৪] ২৩ উইকেট নিয়ে ড্যানিয়েল ভেট্টোরি শীর্ষে রয়েছেন।[৫]

একদিবসীয় কীর্তিসম্পাদনা

এখনো অব্দি ৩ এশীয় দেশ নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে এই মাঠে জয় পেয়েছে ।

দেশ প্রথম জয়(সেরা খেলোয়াড়) সর্বশেষ জয়(সেরা খেলোয়াড়)
ভারত ১৯৯৯ (শচীন তেন্ডুলকর) ২০০৯ (মহেন্দ্র সিং ধোনি)
শ্রীলংকা ২০০১ (মুত্তিয়া মুরালিধরন) ২০০৬ (সনাথ জয়াসুরিয়া)
পাকিস্তান ২০১১ (মিসবাহ-উল-হক) এখনো অব্দি একমাত্র জয়

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা