মুস্তাফা নূরউল ইসলাম

বাংলাদেশী শিক্ষাবিদ এবং জাতীয় অধ্যাপক
(মুস্তফা নুরুল ইসলাম থেকে পুনর্নির্দেশিত)

মুস্তাফা নূরউল ইসলাম (১ মে, ১৯২৭ - ৯ মে, ২০১৮) হলেন বাংলাদেশী লেখক, গবেষক, ভাষাসৈনিক ও বাংলাদেশের জাতীয় অধ্যাপক। তিনি সুন্দরম সাহিত্য পত্রিকার সম্পাদক।[১] তিনি বাংলাদেশ শিল্পকলা একডেমির প্রতিষ্ঠাতা মহাপরিচালক, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ও বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। সাহিত্য ও শিল্পকলায় অবদানের জন্য তিনি ২০১০ সালে স্বাধীনতা পুরস্কার  অর্জন করেন। ২০১১ সালে তাকে জাতীয় অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। তিনি ‘সুন্দরম’ নামে একটি সাহিত্য পত্রিকা সম্পাদনা করতেন। [২]

মুস্তাফা নূরউল ইসলাম
মুস্তাফা নূরউল ইসলাম, হোটের সোনারগাঁও, ঢাকা, ২০১০
মুস্তাফা নূরউল ইসলাম, হোটের সোনারগাঁও, ঢাকা, ২০১০
জন্ম(১৯২৭-০৫-০১)১ মে ১৯২৭
বগুড়া
মৃত্যু৯ মে ২০১৮(2018-05-09) (বয়স ৯১)
ঢাকা
পেশাশিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক
জাতীয়তাবাংলাদেশী
নাগরিকত্ববাংলাদেশ Flag of Bangladesh.svg
উল্লেখযোগ্য পুরস্কারএকুশে পদক
স্বাধীনতা পুরস্কার (২০১০)

জন্ম ও শিক্ষাজীবনসম্পাদনা

মুস্তাফা নূরউল ইসলাম ১৯২৭ সালের ১ মে বগুড়ার মহাস্থানগড় সংলগ্ন চিঙ্গাশপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। [৩] তার বাবার নাম সা’দত আলি আখন্দ, তিনি স্বনামখ্যাত লেখক ছিলেন। তাঁর মায়ের নাম রাবেয়া খাতুন। তিনি ছিলেন মা-বাবার জ্যেষ্ঠ সন্তান। [৪]

কর্মজীবনসম্পাদনা

নূরউল ইসলাম কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যায় থেকে স্নাতকোত্তর ও লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি নিয়েছেন। শৈশব থেকেই সাহিত্য-সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যোগাযোগ, ছাত্রজীবনে বাম ধারার রাজনীতির সঙ্গে সংযোগ ও ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণ তাঁর চিন্তা ও কর্মে সুদূরপ্রসারী প্রভাব রেখেছে। তাঁর কর্মজীবন বিচিত্র, বর্ণাঢ্য। সাংবাদিকতা করেছেন। দৈনিক সংবাদ-এর প্রথম সংখ্যা থেকে যুক্ত ছিলেন সহকারী সম্পাদক হিসেবে। কাজ করেছেন মিল্লাত-এ। শিক্ষকতা করেছেন সেন্ট গ্রেগরিজ কলেজ, পাবনা এডওয়ার্ড কলেজ, করাচি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ও লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে (খণ্ডকালীন)। দায়িত্ব পালন করেছেন শিল্পকলা একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা মহাপরিচালক, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক, জাতীয় জাদুঘরের সভাপতি হিসেবে। ১৯৫১ সালে সাংবাদিকতা দিয়ে কর্মজীবন শুরু করেন মুস্তাফা নূরউল ইসলাম। ১৯৫৩-৫৪ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনায় যুক্ত হন তিনি। [৩]

প্রকাশিত গ্রন্থসম্পাদনা

প্রবন্ধ, আত্মজীবনী, অনুবাদ, সম্পাদনা মিলিয়ে মুস্তাফা নূরুউল ইসলামের প্রকাশিত গ্রন্থসংখ্যা প্রায় অর্ধশত। সম্পাদনায় যুক্ত থেকেছেন পূর্বমেঘ, অগত্যা, সুন্দরম নামের তিনটি বিখ্যাত পত্রিকার। ১৯৫০-এর দশকে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার সময় আলাউদ্দিন আল আজাদের সঙ্গে যৌথভাবে সম্পাদিত দাঙ্গার পাঁচটি গল্প তাঁর একটি সাড়া জাগানো প্রকাশনা। অধ্যাপনা ও গবেষণার পাশাপাশি টেলিভিশনের অনুষ্ঠান উপস্থাপনাতেও বিশেষ মাত্রা যোগ করেছেন তিনি। দেশ, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য, সাহিত্য নিয়ে বিচিত্র বিষয়ে তিনি দীর্ঘকাল ধরে মুক্তধারা, কথামালা, বাঙালির বাংলা নামে অনুষ্ঠান করে আসছেন।[৫]

পুরস্কার ও সম্মাননাসম্পাদনা

সাহিত্য ও শিল্পকলায় অসাধারণ অবদানের জন্য ২০১০ সালে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার “স্বাধীনতা পুরস্কার” প্রদান করা হয় তাকে।[৬] এছাড়াও তিনি একুশে পদকও লাভ করেছেন। [৭]

মৃত্যুসম্পাদনা

২০১৮ সালের ৯ মে রাত সাড়ে ৯ টার দিকে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় নিজ বাসভবনে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।[৮]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. দৈনিক প্রথম আলো
  2. "চলে গেলেন জাতীয় অধ্যাপক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-১০ 
  3. http://opinion.bdnews24.com/bangla/মুস্তফা-নুরুল-ইসলাম
  4. "বিশিষ্ট-লেখক-গবেষক-ভাষাসৈনিক-ও-জাতীয়-অধ্যাপক-ড-মুস্তাফা-নূরউল-ইসলামের-মৃত্যুতে-মন্"www.cabinet.gov.bd (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-০৩ 
  5. "সময়ের মুখ তিনি"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-১০ 
  6. "স্বাধীনতা পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের তালিকা"মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। ১ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  7. "জাতীয় অধ্যাপক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম আর নেই | banglatribune.com"Bangla Tribune। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-১০ 
  8. "জাতীয় অধ্যাপক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম নেই"bangla.bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-০৯ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা