মাধব মন্ত্রী

ভারতীয় ক্রিকেটার

মাধব কৃষ্ণজী মন্ত্রী (এই শব্দ সম্পর্কেpronunciation ; হিন্দি: माधव मंत्री; জন্ম: ১ সেপ্টেম্বর, ১৯২১ - মৃত্যু: ২৩ মে, ২০১৪) মহারাষ্ট্রের নাশিক এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১][২] ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫১ থেকে ১৯৫৫ সময়কালে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

এম. কে. মন্ত্রী
মাধব মন্ত্রী.jpg
২০০৯ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে মাধব মন্ত্রী
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামমাধব কৃষ্ণজী মন্ত্রী
জন্ম(১৯২১-০৯-০১)১ সেপ্টেম্বর ১৯২১
নাশিক, মহারাষ্ট্র, ভারত
মৃত্যু২৩ মে ২০১৪(2014-05-23) (বয়স ৯২)
মুম্বই, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক-ব্যাটসম্যান
সম্পর্কএসএম গাভাস্কার (ভ্রাতৃস্পুত্র)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৫৬)
১৪ ডিসেম্বর ১৯৫১ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট৪ জানুয়ারি ১৯৫৫ বনাম পাকিস্তান
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
মহারাষ্ট্র
মুম্বই
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৯৫
রানের সংখ্যা ৬৭ ৪৪০৩
ব্যাটিং গড় ৯.৫৭ ৩৩.৮৬
১০০/৫০ -/- ৭/২৬
সর্বোচ্চ রান ৩৯ ২০০
বল করেছে ১৮৭
উইকেট
বোলিং গড় ৪০.৩৩
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/৩৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৮/১ ১৩৬/৫৬
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৯ জুলাই ২০১৯

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ভারতীয় ক্রিকেটে মহারাষ্ট্র ও মুম্বই দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতেন মাধব মন্ত্রী

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯৪১-৪২ মৌসুম থেকে ১৯৬৭-৬৮ মৌসুম পর্যন্ত মাধব মন্ত্রীর প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। মুম্বই দলের অধিনায়কত্ব করেছেন। তার নেতৃত্বে ১৯৫১-৫২, ১৯৫৫-৫৬ ও ? মৌসুমে তিনবার রঞ্জী ট্রফির শিরোপা জয় করে মুম্বই দল। ১৯৬২-৬৩ মৌসুমে অ্যাসোসিয়েটেড সিমেন্ট কোম্পানিকে নেতৃত্ব দিয়ে মঈন-উদ-দৌলা গোল্ড কাপের শিরোপা জয় করেন তিনি।

১৯৪৮-৪৯ মৌসুমে রঞ্জী ট্রফির সেমি-ফাইনালে মহারাষ্ট্রের বিপক্ষে দূর্দান্ত খেলার উপহার দেন। ঐ খেলায় তিনি ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ২০০ রানের ইনিংস খেলে দলকে জয় এনে দেন।[৩] এ ইনিংসটি খেলায় সর্বমোট সংগৃহীত ২৩৭৬ রানের নয়টি সেঞ্চুরি মধ্যে সর্বোচ্চ ও প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে রেকর্ডবিশেষ।[৪]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে চারটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন মাধব মন্ত্রী। ১৪ ডিসেম্বর, ১৯৫১ তারিখে মুম্বইয়ে সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ১ জানুয়ারি, ১৯৫৫ তারিখে ঢাকায় তৎকালীন স্বাগতিক পাকিস্তানের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

১৯৫১-৫২ মৌসুমে ইংল্যান্ড দল ভারত গমন করে। সফরকারী দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে মাধব মন্ত্রীর। ১৯৫২ সালে ফিরতি সফরে ইংল্যান্ড যান ও দুই টেস্টে অংশ নেন। ইংল্যান্ড সফরে ২২.৯১ গড়ে ৫৫০ রান তুলেছিলেন ও ৩৯টি ডিসমিসাল ঘটিয়েছিলেন। প্রথম টেস্টে ৩৯ রান করেছিলেন। পঙ্কজ রায়ের সাথে ৭৫ রান তুলেন তিনি। লর্ডসে তিন কট ও এক স্ট্যাম্পিং করেছিলেন। হেডিংলিতে দ্বিতীয় ইনিংসে ফ্রেড ট্রুম্যানের বোলিং তোপে ভারতের সংগ্রহ এক পর্যায়ে ০/৪ হয়। পঙ্কজ রায়, দত্তজীরাও গায়কোয়াড় ও বিজয় মাঞ্জরেকারের সাথে তিনিও সংশ্লিষ্ট ছিলেন। ১৯৫৪-৫৫ মৌসুমে পাকিস্তান সফরে এক টেস্ট খেলেছিলেন।

খেলার ধরনসম্পাদনা

উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে মাধব মন্ত্রীর যথেষ্ট সুনাম ছিল ও উইকেট-রক্ষক ছিলেন তিনি। তবে, পঞ্চাশের দশকে অধিকতর সেরা খেলোয়াড়ে পরিপূর্ণ ভারত দল অবস্থান করায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেননি। ভারতের পক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে মাঝারিমানের সফলতা পেলেও রঞ্জী ট্রফিতে একচ্ছত্র প্রভাববিস্তার ঘটিয়েছেন। ২৫ বছরের অধিক সময় প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে সংশ্লিষ্ট থেকে জাতীয় প্রতিযোগিতায় ৫০.৬৭ গড়ে ২৭৮৭ রান তুলেন। এ পর্যায়ে উপর্যুপরি তিন খেলায় সেঞ্চুরির সন্ধান পেয়েছিলেন তিনি। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ১৯৩টি ডিসমিসালের মধ্যে ১৩৭টি কট ছিল।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ভারতের বিশ্বখ্যাত সাবেক ক্রিকেটার ও অধিনায়ক সুনীল গাভাস্কারের কাকা তিনি। মৃত্যু পূর্ব-পর্যন্ত মুম্বইয়ের দাদরের হিন্দু কলোনিতে বসবাস করতেন। এ পর্যায়ে ভারতের বয়োঃজ্যেষ্ঠ জীবিত টেস্ট ক্রিকেটারের সম্মাননায় অধিষ্ঠিত হয়েছিলেন। তারিখে হৃদযন্ত্রক্রীয়ায় আক্রান্ত হন ও প্রাইভেট ক্লিনিকে স্থানান্তরিত হন। অতঃপর, ২৩ মে, ২০১৪ তারিখে ৯২ বছর বয়সে মুম্বইয়ে মাধব মন্ত্রীর দেহাবসান ঘটে।[৫]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. List of India Test Cricketers
  2. "India – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুলাই ২০১৯ 
  3. Maharashtra v Mumbai 1948–49
  4. Wisden 2013, p. 1284.
  5. "Madhav Mantri dies aged 92", "ESPNCricinfo", 23 May 2014

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা