মাদারীপুর

মাদারীপুর জেলার প্রধান শহর

মাদারীপুর বাংলাদেশের ঢাকা বিভাগের মাদারীপুর জেলার সদরদপ্তর ও জেলা শহর। কুমার নদীর উত্তরপাড়ে অবস্থিত এ শহর। মাদারীপুর শহর মাদারীপুর সদর উপজেলারও প্রশাসনিক সদরদপ্তর। ১৪.২২ বর্গকিলোমিটার আয়তন এবং ৬২,৬৯০ জন জনসংখ্যা বিশিষ্ট শহরটি মাদারীপুর পৌরসভা দ্বারা শাসিত হয়।

মাদারীপুর
পূর্বনাম :ইদিলপুর
পৌরশহরজেলা সদর
শহরের জনপ্রিয় বিনোদন কেন্দ্র শকুনি দীঘি
শহরের জনপ্রিয় বিনোদন কেন্দ্র শকুনি দীঘি
মাদারীপুর বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
মাদারীপুর
মাদারীপুর
বাংলাদেশে মাদারীপুর শহরের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°১০′১৩″ উত্তর ৯০°১১′৪৮″ পূর্ব / ২৩.১৭০১৭০° উত্তর ৯০.১৯৬৭৩৬° পূর্ব / 23.170170; 90.196736
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগঢাকা বিভাগ
জেলামাদারীপুর জেলা
উপজেলামাদারীপুর সদর উপজেলা
সরকার
 • ধরনপৌরসভা
 • শাসকমাদারীপুর পৌরসভা
 • পৌরমেয়রমোঃ খালিদ হোসেন ইয়াদ[১]
আয়তন
 • মোট১৪.২২ বর্গকিমি (৫.৪৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা
 • মোট৬২,৬৯০
 • জনঘনত্ব৪,৪০০/বর্গকিমি (১১,০০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবাংলাদেশ সময় (ইউটিসি+৬)

উল্লেখযোগ্য চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান সম্পাদনা

  1. মাদারীপুর সদর হাসপাতাল[২]
  2. নিরাময় হাসপাতাল[৩]

নামকরণ সম্পাদনা

প্রখ্যাত সুফি সাধক কুতুব-ই-জাহান হযরত বদিউদ্দীন আহমেদ জিন্দা শাহ মাদার এর নাম অনুসারে মাদারীপুর অঞ্চলের নামকরণ করা হয়। শাহ মাদার (র.) ইসলাম ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে সিরিয়া হতে সুলতান ফিরোজ শাহ তুঘলকের শাসনকালে (১৩৫১-১৩৮৮খ্রি:) ভারতীয় উপমহাদেশে এসে এক পর্যায়ে বাংলায় আসেন। বঙ্গের নানা স্থানে ভ্রমণ করেন। চতুর্দশ শতাব্দীর কোনো এক সময়ে বঙ্গের বিভিন্ন স্থান ভ্রমনের এক পর্যায়ে তৎকালীন চন্দ্রদ্বীপের উত্তর সীমান্তে গভীর অরণ্যের যে স্থানটিতে তিনি ক্ষণিকের অতিথি হয়ে সহযাত্রীদের নিয়ে যাত্রা বিরতি বা বিশ্রাম গ্রহণ করেছিলেন সে স্থানটিতে তার নামানুসারে হযরত শাহ মাদার (র) এর দরগাহ শরীফ নামকরণ করে স্মৃতি স্তম্ভ নির্মিত হয়েছে। সপ্তদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে বিক্রমপুরের জমিদার ভূমিহীন প্রজাদের পূনর্বাসনের লক্ষে চন্দ্রদ্বীপের স্মৃতিবিজড়িত ঐ স্থানটিকে কেন্দ্র করে সরকার মাদারণ বা মাদারণ অঞ্চল নামে আখ্যায়িত করে ফসলি জমি ও আবাসন গড়ে তুলেন। যা পরবর্তীতে নগরায়নে রুপ নিতে থাকে, নাম হয় মাদারণ গ্রাম-ইউনিয়ন। পর্যায়ক্রমে নগর সভ্যতার বিবর্তনের ফলে মাদারণ নাম থেকে ক্রমাগত বিবর্তনের মাধ্যমে মাদারীপুর নামটির সৃষ্টি হয়।[৪]

ইতিহাস সম্পাদনা

প্রাচীনকাল সম্পাদনা

পঞ্চদশ শতাব্দীর সুফি সাধক বদিউদ্দীন আহমেদ জিন্দা শাহ মাদারের নামানুসারে মাদারীপুর নামকরণ করা হয়। ঐতিহাসিকদের মতে, প্রাচীনকালে মাদারীপুরের পূর্বাংশ ইদিলপুর এবং পশ্চিম অংশ কোটালীপাড়া নামে পরিচিত ছিল। যা অতিপ্রাচীনকালে চন্দ্রদ্বীপের উত্তরাঞ্চলের ঘন জঙ্গলপূর্ন অঞ্চল ছিল।[৫] একসময় এ অঞ্চলের প্রশাসনিক নাম ছিল নাব্যমন্ডল। খ্রিস্টীয় চতুর্থ শতকে ইদিলপুর ও কোটালীপাড়া ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য বিখ্যাত ছিল। গ্রিকবীর আলেকজান্ডারের ভারত আক্রমণের সময় ৩২৭ খ্রিস্টপূর্বে কোটালীপাড়া অঞ্চলে গঙ্গারিডাই জাতি স্বাধীনভাবে রাজত্ব করত। তারপর এ অঞ্চল (৩২০-৪৯৬ খ্রিঃ) গুপ্ত সম্রাটদের অধীনে ছিল। ৫০৭-৮ খ্রীষ্টাব্দের কিছু আগে রাজত্ব করেছেন দ্বাদশাদিত্য - মহারাজাধিরাজ বৈন্যগুপ্ত নামক এক রাজা। ৫৪০ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ৬০০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত রাজত্ব করছেন গোপচন্দ্র, ধর্মাদিত্য এবং নরেন্দ্রাদিত্য সমাচারদেব।[৫] বাংলার স্বাধীন শাসক শশাঙ্কের মৃত্যুর পর খড়গ বংশ ও দেব রাজবংশ এ অঞ্চল শাসন করে। পাল রাজবংশের (৭৫০-১১৬২ খ্রিঃ) রাজা দ্বিতীয় বিগ্রহপালের রাজত্বকালে (৯৬৯–৯৯৫ খ্রিঃ) হরিকেলের (পূর্ব ও দক্ষিণ বাংলা) কান্তিদেব ‘মহারাধিরাজ’ উপাধি গ্রহণ করে একটি পৃথক রাজ্য স্থাপন করেন এবং এই অঞ্চল শাসন করে। পরবর্তীকালে চন্দ্র রাজবংশ দশম ও এগার শতকে স্বাধীনভাবে এই অঞ্চল শাসন করে।[৬] সেন রাজবংশের (১০৯৮-১২৩০ খ্রিঃ) পতনের পর চন্দ্রদ্বীপ রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হয়, মাদারীপুর চন্দ্রদ্বীপ রাজ্যের অধীনে ছিল।

সুলতান জালাল উদ্দিন ফতেহ শাহ (১৪৮১-১৪৮৫ খ্রিঃ) ফরিদপুর ও চন্দ্রদ্বীপের একাংশ দখল করে ফতেহাবাদ পরগনা গঠন করেন। সুলতান হুসেন শাহ (১৪৯৩-১৫১৯ খ্রিঃ) ফতেহাবাদের জনপ্রিয় শাসক ছিলেন। ১৫৩৮ হতে ১৫৬৩ সাল পর্যন্ত শেরশাহ ও তার বংশধরগণ বাংলা শাসন করেন। ১৫৬৪ হতে ১৫৭৬ সালে পর্যন্ত কররানি বংশ বাংলার রাজত্ব করে, তারপর ১৫৭৬ হতে ১৬১১ সাল পর্যন্ত বারোভূঁইয়ার অন্যতম বিক্রমপুরের চাঁদ রায়, কেদার রায় এবং বাকলার কন্দর্প রায়, রামচন্দ্র রায়ের অধীনে ছিল এ অঞ্চল।[৫] মুঘল সাম্রাজ্যনবাবী শাসন চলে ১৭৬৫ সাল পর্যন্ত।[৭] মুঘল আমলে সম্রাজ্যকে ১২টি সুবায় বিভক্ত করা হয়। সুবা বাংলাকে ১৬টি সরকারে ভাগ করা হয়। ফতেহাবাদ সরকার ছিল সুবা বাংলার তৃতীয় সারকার। ফতেহাবাদ সরকারের অধীনে ৩১টি মহাল বা পরগনার মধ্যে ১৯তম মহাল বা পরগনার নাম ছিল জালালপুর, যা বর্তমান মাদারীপুর সদর উপজেলা।[৮]

ব্রিটিশ আমল সম্পাদনা

ব্রিটিশ শাসনামলে এ অঞ্চল ১৭৯৭ সালে সৃষ্ট বাকেরগঞ্জ জেলার অন্তর্ভুক্ত হয়। ব্রিটিশদের অধীন ১৮৫৪ সালের ২রা নভেম্বর মাদারীপুর মহকুমা প্রতিষ্ঠা করা হয়। ১৮৫৯ সালে ফরিদপুর জেলা সৃষ্টি হলে মাদারীপুর মহকুমাকে বাকেরগঞ্জ জেলা থকে আলাদা করে ১৮৭৫ সালের ৮ই সেপ্টেম্বর ফরিদপুর জেলার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ১৮৭৫ সালে মাদারীপুর মিউনিসিপ্যাল কমিটি স্থাপিত হয়।[৪]

ইংরেজ আমলে মাদারীপুর অনেক আন্দোলন সংগ্রামের তীর্থভূমি ছিল। বিখ্যাত ফরায়েজি আন্দোলনের নেতা হাজি শরিয়ত উল্লাহ’র (১৭৮১-১৮৪০) জন্ম মাদারীপুরে। তিনি ১৮২০ সাল থেকে ১৮৫০ সাল পর্যন্ত ধর্মীয় কুসংস্কার, নীলকর ও জমিদারদের অত্যাচারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেন। শরিয়ত উল্লাহর মৃত্যুর পর তাঁরই সুযোগ্য পুত্র দুদু মিয়া (১৮১৯-১৯৬২) ফরায়েজি আন্দোনের নেতৃত্ব গ্রহণ করেন।

ইংরেজ আমলে উপমহাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে মাদারীপুরের বিপ্লবীরা ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেন। এ জেলার কৃতী সন্তান চিত্তপ্রিয় রায় চৌধুরী ১৯১৫ সালে বালেশ্বর যুদ্ধে ইংরেজ বাহিনীর সাথে সম্মুখ সমরে মৃত্যুবরণ করেন। বালেশ্বর যুদ্ধে নীরেন্দ্র নাথ দাশগুপ্ত ও মনোরঞ্চন সেনগুপ্ত বন্দী হন। বালেশ্বর জেলে তাদের ফাঁসি দিয়ে হত্যা করা হয়।

পাকিস্তান আমল সম্পাদনা

১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টির পর পূর্ব বাংলার জনগণের আশা আকাঙ্ক্ষা ও স্বপ্ন ধীরে ধীরে ভাঙ্গতে শুরু করে। পাকিস্তানের প্রতিক্রিয়াশীল শাসকগোষ্ঠী পূর্ব বাংলার জনগণকে ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করে নিজেদের ক্ষমতা সংহত করার চেষ্টা চালায়। এ অঞ্চলের জনগণ সমস্ত শোষণ বঞ্চনার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন এবং উনসত্তরের গণঅভ্যূত্থান এবং সর্বোপরি ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধসহ সকল আন্দোলন সংগ্রামে মাদারীপুরের অধিবাসীরা বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে।

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পাদনা

 ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত হয় মাদারীপুর শহর। এর আগে এ অঞ্চলের অন্যান্য স্থান শত্রু মুক্ত করেন মুক্তিযোদ্ধারা।

১০ ডিসেম্বর সম্মুখযুদ্ধে পরাজিত হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে পাকিস্তানি সেনা বাহিনী। সেই থেকে দিবসটি মাদারীপুর মুক্ত দিবস হিসেবে পরিচিত। মুক্তিযোদ্ধারা জানান, পাকিস্তানি বাহিনী ১৯৭১ সালের ২২ এপ্রিল প্রথম বিমান থেকে মাদারীপুরে গুলি বর্ষণ করে। ২৪ এপ্রিল সড়ক পথে শহরে এসে এ. আর. হাওলাদার জুট মিলে হানাদার ক্যাম্প স্থাপন করে। শুরু হয় মাদারীপুরে পাকিস্তানি বাহিনীর অত্যাচার। রাজাকার-আলবদরদের সহযোগিতায় মুক্তিকামী মানুষদের ধরে ধরে হত্যাযজ্ঞ চালায় হানাদার বাহিনী। অসংখ্য মানুষকে হত্যা করে গণকবর দেয় হানাদাররা। জানা গেছে, ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে জেলার সবক’টি থানা মুক্তিযোদ্ধাদের দখলে চলে আসে। এ কারণে পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা জেলার এ. আর হাওলাদার জুট মিলের ভেতর এবং সরকারি নাজিম উদ্দিন কলেজে অবস্থান নেয়। মুক্তিযোদ্ধারা তাদের চারদিকে থেকে ঘিরে রাখে। ৯ ডিসেম্বর পাক হানাদার বাহিনী মাদারীপুর ছেড়ে ফরিদপুর চলে যাবে- এমন সংবাদ পেয়ে মুক্তিবাহিনীর সদস্যরা ব্যাপক প্রস্তুতি নিতে থাকেন। ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ঘটকচর থেকে সমাদ্দার ব্রিজের পশ্চিমপাড় পর্যন্ত সড়কের চার কিলোমিটার জুড়ে অবস্থান নের মুক্তিযোদ্ধারা। ৯ ডিসেম্বর ভোর ৫টার দিকে পাক হানাদার বাহিনী গোলাবারুদ, অস্ত্র ও কনভয়সহ রাজাকার, আলবদর, আলসামস ও মুজাহিদ বাহিনী নিয়ে ফরিদপুরের উদ্দেশে রওনা দেয়। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঘটকচর ব্রিজ পার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধারা তাদের ওপর আক্রমণ শুরু করেন। গ্রেনেড হামলা করতে গিয়ে হানাদার বাহিনীর গুলিতে শহীদ হয় সর্বকনিষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধা ১৪ বছর বয়সী সরোয়ার হোসেন বাচ্চু। তুমুলযুদ্ধ শেষে ১০ ডিসেম্বর বিকেলের সূর্য যখন পশ্চিম দিগন্তে হেলে পরে ঠিক সে সময় আত্মসমর্পণ করে পাক হানাদার বাহিনী। বিজয় পতাকা ওড়ে মাদারীপুর শহরে। এ যুদ্ধে ২০ পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়।মুক্তিযোদ্ধারা আত্মসমর্পণকারীদের অস্ত্র-শস্ত্র জব্দ করে ১০ ডিসেম্বর সারা রাত সমাদ্দার ব্রিজ অবরোধ করে রাখেন। পরদিন ১১ ডিসেম্বর সকালে তাদের নিয়ে যাওয়া হয় কলাগাছিয়ায় মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে। ১২ ডিসেম্বর তাদের মাদারীপুরে এনে সাব-জেলে বন্দি করে রাখা হয়।  

স্বাধীন বাংলাদেশ সম্পাদনা

একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের লাখো শহিদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ পেয়েছি। স্বাধীনতার পর থেকে নানা ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে আজ আমরা এখানে এসে পৌঁছেছি। মাদারীপুর ১৮৫৪ সালে মহকুমা হিসেবে ঘোষিত হলে এ শহর মহকুমা শহর হয়। সর্বপ্রথম ১৮৭৫ সালে এবং পরবর্তীতে ১৯৭২ সালে মাদারীপুর পৌরসভা গঠিত হলে এই শহরটি পৌর শহরের মর্যাদা পায়। দীর্ঘদিন পর ১৯৮৪ সালে জেলা হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার পর মাদারীপুর জেলা শহর এবং জেলার সদর দপ্তর হিসেবে স্বীকৃতি পায়। [৯]

ভূপ্রকৃতি ও জীববৈচিত্র্য সম্পাদনা

এ অঞ্চলে নারিকেল, সুপারি, খেজুরতালগাছ প্রচুর জন্মে। মাদারীপুরের খেঁজুরের গুড় খুবই বিখ্যাত।বন্য প্রানীদের মধ্যে রয়েছে-খেঁকশিয়াল, বাগডাসা, খাটাস, বেজি, গুইসাপ, রক্তচোষা, বাদুর ইত্যাদি। পাখিগুলো হচ্ছে- শঙ্খচিল, দাড়কাক, তিলাঘুঘু, কাঠঠোকরা, লক্ষ্মীপেঁচা, কানাকুয়া, ডাহুক, পানকৌড়ী, ভাতশালিক ইত্যাদি।এছাড়া চিতল, বোয়াল, পাবদা ও মাগুর সহ প্রায় ২০ প্রজাতির মাছ পাওয়া যায়। [১০]

ভৌগোলিক উপাত্ত সম্পাদনা

শহরটির অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হল ২২°৪১′০৯″ উত্তর ৯০°৩৮′৪৬″ পূর্ব / ২২.৬৮৫৯০০° উত্তর ৯০.৬৪৬১১৯° পূর্ব / 22.685900; 90.646119। যেহেতু শহরটি মূলত একটি দ্বীপে অবস্থিত তাই সমুদ্র সমতল থেকে শহরটির গড় উচ্চতা ১ মিটার

জনসংখ্যা সম্পাদনা

বাংলাদেশের আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১ অনুযায়ী মাদারীপুর শহরের মোট জনসংখ্যা ৬২,৬৯০ জন যার মধ্যে ৩১,০৭০ জন পুরুষ এবং ৩১,৬২০ জন নারী। এ শহরের পুরুষ এবং নারী অনুপাত ১০০:৯৮। [১১]

প্রশাসন সম্পাদনা

এ শহরটি মাদারীপুর পৌরসভা নামক একটি স্থানীয় সরকার সংস্থা(পৌরসভা) দ্বারা পরিচালিত হয় যা ৯টি ওয়ার্ড এবং ৩৩টি মহল্লায় বিভক্ত । ১৪.২২ বর্গ কি.মি. আয়তনের মাদারীপুর শহরের পুরোটাই মাদারীপুর পৌরসভা দ্বারা শাসিত হয়। এ পৌর শহরের নাগরিকদের পৌরসেবা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা প্রদান করাই এ সংস্থার কাজ। [১২]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "মাদারীপুর পৌরসভার মেয়র"। ৯ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-০৪ 
  2. https://dghs.gov.bd/index.php/bd/
  3. http://facilityregistry.dghs.gov.bd/org_profile.php?org_code=10021916
  4. বাশার, মাহমুদ (২১ জুলাই ২০১৯)। "যাঁর নামে মাদারিপুর"। দৈনিক সুবর্ণগ্রাম (প্রকাশিত হয় ৭ ডিসেম্বর ২০১৭)। 
  5. মাহমুদ, লিখন (১০ ডিসেম্বর ২০১২)। মাদারিপুর ইতিবৃত্ত। বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র মাদারিপুর। পৃষ্ঠা ১৪। আইএসবিএন 978-984-35-3208-4 
  6. Sailendra Nath Sen (১৯৯৯)। Ancient Indian History and Civilization। New Age International। পৃষ্ঠা 277–287। আইএসবিএন 978-81-224-1198-0 
  7. "মাদারীপুর জেলা"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২৪ 
  8. খান, শামসুজ্জামান (জুন ২০১৬)। বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতি গ্রন্থমালা : মাদারীপুর। ঢাকা: বাংলা একাডেমি। পৃষ্ঠা ২৩। আইএসবিএন 984-07-5532-3 
  9. "পটভূমি"। ৯ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-০৯ 
  10. "ভৌগোলিক পরিচিতি- জীববৈচিত্র্য"। ৯ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-০৯ 
  11. "Urban Centers in Bangladesh"। Population & Housing Census-2011 [আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১] (পিডিএফ) (প্রতিবেদন)। জাতীয় প্রতিবেদন (ইংরেজি ভাষায়)। ভলিউম ৫: Urban Area Rport, 2011। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। মার্চ ২০১৪। পৃষ্ঠা ২১৪। ২০১৯-০৪-১১ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-০৩ 
  12. "এক নজরে পৌরসভা"। ৯ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-০৪