মহাখালী বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা।[১]

মহাখালী
এলাকা
মহাখালীর স্কাইলাইন
মহাখালীর স্কাইলাইন
স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৬′৪৬″ উত্তর ৯০°২৪′১৭″ পূর্ব / ২৩.৭৭৯৫° উত্তর ৯০.৪০৪৬° পূর্ব / 23.7795; 90.4046
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগঢাকা
জেলাঢাকা
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+০৬:০০)

ভৌগোলিক অবস্থানসম্পাদনা

মহাখালী ২৩°৪৬′৪৬″ উত্তর ৯০°২৪′১৭″ পূর্ব / ২৩.৭৭৯৫° উত্তর ৯০.৪০৪৬° পূর্ব / 23.7795; 90.4046 এ অবস্থিত। এর উত্তরে বনানী, দক্ষিণে মগবাজার এবং পূর্বে গুলশান অবস্থিত।

যোগাযোগ ব্যবস্থাসম্পাদনা

মহাখালী বাস টার্মিনাল ঢাকা শহরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বাস টার্মিনাল।[২] বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের বাসগুলো এখান থেকে ছেড়ে যায়।

মহাখালীতে বাংলাদেশের প্রথম উড়ালসড়ক নির্মিত হয়, যা মহাখালী ফ্লাইওভার নামে পরিচিত।[৩] এর নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০০১ সালে। ২০০৪ সালে এর একটি অংশ সাধারণের যাতায়াতের জন্য খুলে দেওয়া হয়।

অর্থনীতিসম্পাদনা

মহাখালীর অর্থনীতি মূলত শহরকেন্দ্রিক। মহাখালী জেনারেল মার্কেট উড়ালসড়কের নিকটে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে অবস্থিত। এটি পূর্বে একটি অস্থায়ী বাজার ছিল। ১৯৮৩ সালে সর্বপ্রথম ঢাকা সিটি কর্পোরেশন দ্বিতল আধুনিক ভবন নির্মাণ করে। এই ভবনটিতে প্রায় ২১৬টি দোকান রয়েছে।

নগরায়নের পাশাপাশি এখানে বস্তিও গড়ে উঠেছে। করাইল ও সাততলা বস্তি মহাখালীর নিকটেই অবস্থিত।[৪][৫]

গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. প্রতিবেদক, নিজস্ব (৮ নভেম্বর ২০১৬)। "অস্বাস্থ্যকর সড়ক মহাখালীর 'স্বাস্থ্য জোনে'"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০২১ 
  2. "মহাখালী বাস টার্মিনাল"দৈনিক প্রথম আলো। ২২ আগস্ট ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৪ 
  3. "Dhaka braces for traffic snarl-up"দ্য ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ২০ অক্টোবর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৭ 
  4. "কড়াইল বস্তি তুলে দিয়ে হবে তথ্যপ্রযুক্তি গ্রাম"প্রিয়.কম। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০২১ 
  5. "সাততলা বস্তিতে আগুন: স্বপ্ন পুড়ে গেছে অনেকের"বিবিসি বাংলা। ৭ জুন ২০২১। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা