মাহবুব আনাম

(মহবুব আনাম থেকে পুনর্নির্দেশিত)

মহবুব আনাম (২৮ মার্চ ১৯৩১–৯ জুলাই ২০০১) বাংলাদেশের রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক ও কলাম লেখক যিনি ময়মনসিংহ-৭ আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন।[১] ভাষা আন্দোলনে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি ‘ভাষা আন্দোলনের বীর সৈনিক’ ও তমদ্দুন মজলিস থেকে মাতৃভাষা পদক (মরণোত্তর) পান। এছাড়াও তিনি সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ স্বাধীনতা পদক অর্জন করেন।[২]

মহবুব আনাম
মাহবুব আনাম.png
ময়মনসিংহ-৭ আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৬ – ১২ জুন ১৯৯৬
পূর্বসূরীআবদুল খালেক
উত্তরসূরীরুহুল আমিন মাদানী
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম২৮ মার্চ ১৯৩১
ময়মনসিংহ
মৃত্যু৯ জুলাই ২০০১
মিলেনিয়াম হাসপাতাল, ঢাকা
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
সম্পর্কমাহফুজ আনাম
পিতাআবুল মনসুর আহমেদ
প্রাক্তন শিক্ষার্থীলন্ডন স্কুল অব জার্নালিজম
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ
আনন্দ মোহন কলেজ
জীবিকাসাংবাদিক ও কলাম লেখক
পুরস্কারস্বাধীনতা পদক
‘ভাষা আন্দোলনের বীর সৈনিক’
মাতৃভাষা পদক

প্রাথমিক ও পারিবারিক জীবনসম্পাদনা

মাহবুব আনাম ২৮ মার্চ ১৯৩১ সালে ময়মনসিংহে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা বিখ্যাত সাংবাদিক, সাহিত্যিক ও রাজনীতিবিদ আবুল মনসুর আহমদ। ভাই মাহফুজ আনাম ইংরেজি ভাষার দৈনিক সংবাদপত্র দি ডেইলি স্টারের প্রকাশক ও সম্পাদক।[২][৩]

তিনি কলকাতা মাদ্রাসা-ই-আলিয়া ইংরেজি বিভাগ, কলকাতা ইসলামিয়া কলেজময়মনসিংহ আনন্দমোহন কলেজে লেখাপড়া করেন। ১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগ থেকে এমএ পাস করে যুক্তরাজ্যে বার-এট-ল অধ্যয়ন করেন। লন্ডন স্কুল অব জার্নালিজমে তিনি সাংবাদিকতায় প্রশিক্ষণ লাভ করেন।

কর্মজীবনসম্পাদনা

মাহবুব আনাম সাংবাদিক জীবনে তৎকালীন পাকিস্তান অবজারভারের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী, বাংলাদেশ টাইমসের সম্পাদক, বাংলাদেশ সম্পাদক পরিষদের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ সংবাদপত্র পরিষদ, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল, বাসস পরিচালনা বোর্ড, চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড, বাংলাদেশ পাবলিক লাইব্রেরি বিশেষ কমিটি, শিল্পকলা একাডেমী প্রকাশনা কমিটি এবং বাংলাদেশ এডিটরস্ কাউন্সিলের সিনিয়র সহসভাপতি ও নির্বাহী সদস্য হিসেবে দীর্ঘকাল দায়িত্ব পালন করেছেন।[২]

তিনি যমুনা অয়েল কোম্পানির মহাব্যবস্থাপক এবং বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ব্রিটেনে সাংবাদিকতায় প্রশিক্ষণ লাভের পর দেশে ফিরে তিনি ইংরেজি দৈনিক পাকিস্তান অবজারভার পত্রিকার সিনিয়র এক্সিকিউটিভ হিসেবে যোগ দেন।

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের একজন কর্মী। সে সময় তিনি ময়মনসিংহ জেলা তমদ্দুন মজলিসের সাধারণ সম্পাদক ও রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক হিসেবে কারাবরণ করেন। একই কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের সাধারণ সম্পাদক থাকার সময় আবার কারাবরণ করেন।

রাজনৈতিক জীবনসম্পাদনা

মাহবুব আনাম কলকাতা মাদ্রাসা-ই-আলিয়ার ছাত্র সংসদের সহকারী সেক্রেটারি ও মুসলিম ছাত্রলীগের ইউনিট সেক্রেটারি ছিলেন। ১৯৫৪ সালে আওয়ামী লীগের পক্ষে যুক্তফ্রন্টের প্রচার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। তমদ্দুন মজলিসের ময়মনসিংহ শাখার সাধারণ সম্পাদক, রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক এবং তদানীন্তন সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে একাধিকবার কারাবরণ করেন।[২]

১৯৫০-৫১ সালে কলকাতার ইসলামিয়া কলেজের- ছাত্র সংসদ সম্পাদক ও পত্রিকা সম্পাদক ছিলেন। ১৯৫২-৫৩ সালে তিনি ময়মনসিংহ আনন্দমোহন কলেজ ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক এবং জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৫৪-৫৫ সালে নির্বাচিত হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক।

১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৬ সালের ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের প্রার্থী হিসেবে তিনি ময়মনসিংহ-৭ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[১]

পুরস্কারসম্পাদনা

মাহবুব আনাম সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি স্বাধীনতা পদক, শেরেবাংলা স্বর্ণপদক, মওলানা আকরাম খাঁ স্বর্ণপদক, কালধ্বনি পদক এবং ত্রিভুজ স্বর্ণপদকে ভূষিত হন। ভাষা আন্দোলনে বিশেষ অবদানস্বরূপ তিনি ‘ভাষা আন্দোলনের বীর সৈনিক’ ও তমদ্দুন মজলিস থেকে মাতৃভাষা পদক (মরণোত্তর) পান। ১৯৮০ সালে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি শহীদ জিয়াউর রহমান তাকে "ভাষা আন্দোলনের বীর সৈনিক" পুরস্কারে ভূষিত করেন।

সাল নাম বিভাগ
স্বাধীনতা পুরস্কার
১৯৮০ ‘ভাষা আন্দোলনের বীর সৈনিক’ ভাষা আন্দোলন
মাতৃভাষা পদক ভাষা আন্দোলন
শেরেবাংলা স্বর্ণপদক
মাওলানা আকরম খাঁ স্বর্ণপদক

মৃত্যুসম্পাদনা

মাহবুব আনাম ৯ জুলাই ২০০১ সালে ঢাকার মিলেনিয়াম হাসপাতালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।[২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. নিজস্ব প্রতিবেদক (৯ জুলাই ২০১৪)। "মাহবুব আনামের মৃত্যুবার্ষিকী আজ"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১১ নভেম্বর ২০২০ 
  3. "13th death anniversary of Mahbub Anam today"ডেইলি স্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ৯ জুলাই ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১১ নভেম্বর ২০২০