প্রধান মেনু খুলুন

ভায়োলা ডেভিস

মার্কিন অভিনেত্রী

ভায়োলা ডেভিস (ইংরেজি: Viola Davis, জন্ম: ১১ আগস্ট ১৯৬৫) হলেন একজন মার্কিন অভিনেত্রী ও প্রযোজক। তিনি একমাত্র কৃষ্ণাঙ্গ নারী যিনি তিনবার একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন এবং একবার একাডেমি পুরস্কার অর্জন করেন। এছাড়া তিনি একমাত্র কৃষ্ণাঙ্গ অভিনয়শিল্পী যিনি অভিনয়ের ত্রি-মুকুট লাভ করেন।[১][২][৩] ২০১২ সালে টাইম ম্যাগাজিনের করা ১০০ প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের তালিকায় স্থান অধিকার করেন।[৪]

ভায়োলা ডেভিস
স্থানীয় নাম
Viola Davis
জন্ম (1965-08-11) ১১ আগস্ট ১৯৬৫ (বয়স ৫৪)
জাতীয়তামার্কিন
জাতিসত্তাআফ্রিকান-মার্কিন
যেখানের শিক্ষার্থীরোড আইল্যান্ড কলেজ
পেশাঅভিনেত্রী, প্রযোজক
কার্যকাল১৯৯২-বর্তমান
আদি নিবাসসেন্ট্রাল ফলস্‌, রোড আইল্যান্ড
দাম্পত্য সঙ্গীজুলিয়াস টেনন (বি. ২০০৩)
সন্তান
পুরস্কারপুরস্কার তালিকা

১৯৯৩ সালে জুলিয়ার্ড স্কুল থেকে গ্র্যাজুয়েট হওয়ার পর তিনি মঞ্চ নাটক দিয়ে তার অভিনয় জীবন শুরু করেন। ১৯৯৯ সালে তিনি এভরিবডিস রুবিতে রুবি ম্যাককলাম চরিত্রে অভিনয় করে ওবি পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৯০ এর দশকের শেষের দিকে এবং ২০০০ এর দশকের প্রথম দিকে তিনি চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন সিরিজে পার্শ্ব ও ছোট চরিত্রে অভিনয় করেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল কেট অ্যান্ড লিওপোল্ড (২০০১) ও ফার ফ্রম দ্য হেভেন (২০০২) এবং ল অ্যান্ড অর্ডার: স্পেশাল ভিকটিমস্‌ ইউনিট। ২০০১ সালে ভায়োলা মৌলিক নাটক কিং হেডলি টু এ অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ মঞ্চ অভিনেত্রী হিসেবে টনি পুরস্কার লাভ করেন। ভায়োলার অভিনয় জীবনের ব্রেকথ্রু আসে ২০০৮ সালে ডাউট চলচ্চিত্র দিয়ে। এই ছবিতে অভিনয়ের জন্য তিনি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার, সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার এবং একাডেমি পুরস্কারে মনোনয়ন লাভ করেন। ২০১০ সালে অগাস্ট উইলসন নির্দেশিত ফেন্সেস নাটকে রোজ ম্যাক্সসন চরিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ মঞ্চ অভিনেত্রী হিসেবে টনি পুরস্কার লাভ করেন।[৫]

২০১১ সালে ভায়োলা দ্য হেল্প চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কার এর মনোনয়ন লাভ করেন এবং সেরা অভিনেত্রী বিভাগে স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার অর্জন করেন।[৬] ২০১৬ সালে ফেন্সেস নাটক অবলম্বনে নির্মিত ফেন্সেস চলচ্চিত্রে অ্যামান্ডা ওয়ালার চরিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রথম গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার, বাফটা পুরস্কার, ক্রিটিকস চয়েস চলচ্চিত্র পুরস্কার, স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার এবং একাডেমি পুরস্কার অর্জন করেন।[৭][৮]

চলচ্চিত্রের তালিকাসম্পাদনা

চলচ্চিত্রসম্পাদনা

চাবি
  আসন্ন মুক্তি
বছর চলচ্চিত্রের শিরোনাম চরিত্র পরিচালক টীকা
১৯৯৬ দ্য সাবস্টেন্স অফ ফায়ার নার্স
১৯৯৮ দ্য পেন্টাগন ওয়ার্স সার্জেন্ট ফ্যানিং
২০০০ ট্রাফিক সমাজকর্মী
২০০১ কেট অ্যান্ড লিওপোল্ড পুলিশ
২০০২ ফার ফ্রম দ্য হেভেন সিবিল
অ্যান্টওনি ফিশার ইভা মে ফিশার ডেনজেল ওয়াশিংটন
সোলারিস ডঃ গর্ডন
২০০৫ গেট রিচ অর ডাই ট্রায়িন্‌ দাদী
২০০৬ দ্য আর্কিটেক্ট টনিয়া নিলি
২০০৭ ডিস্টার্বিয়া ডিটেকটিভ পার্কার
২০০৮ নাইট ইন রোডেন্থ জিন
ডাউট মিসেস মিলার
২০০৯ মাদিয়া গোজ টু জেল এলেন ম্যাথিউস
২০১০ নাইট অ্যান্ড ডে ইসাবেল জর্জ
২০১১ দ্য হেল্প এইবিলেন ক্লার্ক টেট টেইলর
এক্সট্রিম্‌লি লাউড অ্যান্ড ইনক্রেডিব্‌লি ক্লোজ অ্যাবি ব্যাক
২০১২ ওন্ট ব্যাক ডাউন নোনা আলবার্টস
২০১৩ বিউটিফুল ক্রিয়েচার্স অ্যামারি ট্রিড্যু
প্রিজনার্স ন্যান্সি বির্চ
২০১৪ গেট অন আপ সুসি ব্রাউন
২০১৫ ব্ল্যাকহ্যাট ক্যারল বেরেট
লিলা অ্যান্ড ইভ লিলা ওয়ালকট
২০১৬ সুইসাইড স্কোয়াড অ্যামান্ডা ওয়ালার
ফেন্সেস রোজ ম্যাক্সসন

পুরস্কার ও সম্মাননাসম্পাদনা

ভায়োলা ডেভিস একাধিক চলচ্চিত্র, সমালোচক ও সংগঠনের পুরস্কার অর্জন করেছেন। তিনি তিনবার একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন এবং একবার এই পুরস্কার অর্জন করেন। তিনি ডাউট (২০০৮) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রীদ্য হেল্প (২০১১) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী এই পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন এবং ফেন্সেস (২০১৬) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী এই পুরস্কার অর্জন করেন। এছাড়া তিনি চারটি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার ও দুটি বাফটা পুরস্কারের মনোনয়ন থেকে একটি করে পুরস্কার অর্জন করেন।

মঞ্চে কাজের জন্য তিনি দুটি টনি পুরস্কার, তিনটি ড্রামা ডেস্ক পুরস্কার, একটি করে ওবিই পুরস্কার ও থিয়েটার ওয়ার্ল্ড পুরস্কার অর্জন করেন। তিনি প্রথম ও একমাত্র কৃষ্ণাঙ্গ অভিনেত্রী হিসেবে নাট্যধর্মী ধারাবাহিকে শ্রেষ্ঠ মুখ্য অভিনেত্রী বিভাগে প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার বিজয়ী এবং প্রথম আফ্রো-মার্কিন অভিনেত্রী হিসেবে পাঁচটি স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার বিজয়ী।[৯] ডেভিস প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ অভিনেত্রী হিসেবে অভিনয়ের ত্রি-মুকুট তথা প্রতিযোগিতামূলক অস্কার, এমিটনি পুরস্কার অর্জন করেন[১০] এবং মাত্র দুজন অভিনেত্রীর মধ্যে একজন যারা এই বিরল সম্মাননা অর্জন করেছেন, বাকি জন হলে অক্টাভিয়া স্পেন্সার[১১] ডেভিসকে তার স্নাতক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রোড আইল্যান্ড কলেজ থেকে ২০০২ সালে চারুকলায় সম্মানসূচক ডক্টরেট প্রদান করে।[১২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Oscars 2017: Viola Davis just became the first black actress to earn 3 Oscar nominations"। মাইক। 
  2. Maxwell Strachan (২০১৭-০২-২৬)। "Viola Davis Just Became The First Black Woman To Win An Oscar, Emmy And Tony For Acting"হাফিংটন পোস্ট 
  3. Lisa Ryan। "Viola Davis, First Black Actor to Win Oscar, Emmy, and Tony"। নিউ ইয়র্ক ম্যাগাজিন। 
  4. "The 100 Most Influential People In The World"টাইম। এপ্রিল ১৮, ২০১২। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  5. বরফ, ফিলিপ (১৪ জুন ২০১০)। "Denzel Washington, Viola Davis, 'Memphis,' Win Top Tony Awards"ব্লুমবার্গ এল.পি. 
  6. "SAG Awards 2012: Complete list of winners"নিউ ইয়র্ক ডেইলি নিউজঅ্যাসোসিয়েটেড প্রেস। ৩০ জানুয়ারি ২০১২। 
  7. "Viola Davis Wins First Golden Globe for 'Fences'"ভ্যারাইটি। ৮ জানুয়ারি ২০১৭। 
  8. "Critics Choice Awards 2016: Viola Davis wins best supporting actress"এন্টারটেইনমেন্ট উয়িকলি। ১২ ডিসেম্বর ২০১৬। 
  9. মিজোগুচি, কারেন। "SAG Awards 2017: Viola Davis Becomes First African American Actress to Score 5 Wins"পিপল। জানুয়ারি ৩০, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০১৯ 
  10. জ্যাক, ড্যান। "Only 22 people had ever accomplished this feat. Now, Viola Davis joins the club."দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট। মার্চ ১, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০১৯ 
  11. নলফি, জোয়ি (২৩ জানুয়ারি ২০১৮)। "Oscars: Octavia Spencer makes history with The Shape of Water nomination"এন্টারটেইনমেন্ট উয়িকলি। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০১৯ 
  12. "RIC to Award 1,300 Degrees at Commencement Exercises"রোড আইল্যান্ড কলেজ। নভেম্বর ১৬, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা