ব্রাজিলে বাংলাদেশী অভিবাসন

ব্রাজিলে বাংলাদেশী অভিবাসন একটি নতুন প্রবণতা, কেননা দক্ষিণ আমেরিকার এই দেশটিতে বাঙালিদের গ্রহণের কোনও অতীত ঐতিহ্য নেই।[২] ব্রাজিলে বেশিরভাগ বাংলাদেশী অভিবাসী ব্রাজিলিয়ান সরকারের কাছে রাজনৈতিক আশ্রয় এবং সুরক্ষা চেয়ে থাকেন।[৩] বেশিরভাগ দেশ বিদেশিদের শরণার্থী হিসাবে বিবেচনা করে, যদিও প্রথমবারের মতো ২০০০-এর দশকের শেষদিকে বাঙালিরা ব্রাজিল আসতে শুরু করে এবং ২০১০-এর দশকের শুরুর দিকে অভিবাসীদের ঢল নামে। অভিবাসীরা নতুন বাড়ি হিসাবে ব্রাজিলকে বেছে নেওয়ার অন্যতম কারণ হল তাদের কাছে দেশটি সুযোগে ভরপুর, যা তারা বাংলাদেশে দারিদ্র্য, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় নির্যাতনের জন্য পান না।[৪]

বাংলাদেশ বাংলাদেশী ব্রাজিলিয়ান ব্রাজিল
মোট জনসংখ্যা
১৮০০-এর বেশি আশ্রয়প্রার্থি (২০১৪)।[১]
উল্লেখযোগ্য জনসংখ্যার অঞ্চল
ভাষা
ধর্ম
ইসলাম
সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠী

অবৈধ অভিবাসনসম্পাদনা

ব্রাজিলিয়ান পুলিশ বাংলাদেশি নাগরিকদের সে দেশে মানব পাচারের সাথে সংযোগ খুঁজে পায়।[৫][৬] সাইফুল্লাহ আল-মামুন নামে এক বাংলাদেশিকে ব্রাজিলিয়ান ফেডারেল পুলিশ গ্রেপ্তার করে, যাকে বিশ্বের অন্যতম কুখ্যাত মানব পাচারকারী হিসেবে মনে করা হয়।[৭] ব্রাজিলের পুলিশের রিপোর্টে বলা হয়, 'সে আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, ভারত, নেপালপাকিস্তানের লোকজন পাচার করে প্রথমে ব্রাজিল এবং তারপরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পাঠায়।[৮]

কিছু অভিবাসী আন্তর্জাতিক মানব পাচারকারীদের দ্বারা প্রতারিত হয়ে শোষণের শিকার হন,[৯] তবে যারা সেদেশে বৈধভাবে কাজ করেন তারা এমন কারখানায় নিযুক্ত যেখানে হালাল পন্থায় জবাইকরণ (মাংস কাটার ইসলামী পদ্ধতি) করা হয়।[১০]

কেবল ভেনিজুয়েলা, হাইতিয়ান, কিউবান এবং চীনাদের পরেই শুধুমাত্র ২০১৮-এর জানুয়ারী থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যেই বাংলাদেশিরা লাতিন আমেরিকার দেশটিতে আশ্রয় প্রার্থনার জন্য পঞ্চম গ্রুপ ছিল।[১১]

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. BBC Brasil"Brasil vira rota de bengalis em busca de refúgio" (Portuguese ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 
  2. "Bangladesh in the Brazilian Amazon"Al Jazeera। ১১ জানু ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানু ২০২১ 
  3. "Bangladeshis in Latin America!"Prothom Alo। ৯ নভে ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানু ২০২১ 
  4. "Brasil vira rota de onda de imigrantes bengalis em busca de refúgio" (Portuguese ভাষায়)। ৫ ফেব্রু ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 
  5. "Trafficking gang 'smuggled Bangladeshis into Brazil'"BBC। ১৭ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানু ২০২১ 
  6. "Brasilia, immigrants from Bangladesh forced to work in slave-like conditions"AsiaNews। ২০ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানু ২০২১ 
  7. "8 years of perilous journey chasing the American dream"tbsnews.net। ২১ ডিসেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানু ২০২১ 
  8. "Brazil arrests Bangladeshi man, said to be world's most prolific human traffickers"The Daily Star (Bangladesh)। ২ নভেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানু ২০২১ 
  9. "Quadrilha explorava bengalis em obras do DF" (Portuguese ভাষায়)। ১৫ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 
  10. "Cresce número de bengalis refugiados no Brasil" (Portuguese ভাষায়)। ৭ ফেব্রু ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 
  11. "Número de estrangeiros que pediram refúgio no Brasil aumenta 161% em 2018; maioria é de venezuelanos" (Portuguese ভাষায়)। ৫ জুন ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০