প্রধান মেনু খুলুন

জোড়পূর্বক শ্রম, যৌন দাসত্ব অথবা পাচারকৃত মানুষদেরকে ব্যবসায়িক যৌনশোষণমূলক কাজে নিয়োজিত করার জন্য সংঘটিত অবৈধ মানব বাণিজ্যকে মানব পাচার বলা হয়। [১][১] এ বিষয়টি জোড়পূর্বক বিবাহের মাধ্যমে পত্নী জোগাড়,[১][১][১] অঙ্গহানি বা টিস্যু/কলাহানি[১][১] বা ভ্রূণকোষ ধ্বংস[১] করাকেও পরিবেষ্টন করতে পারে। মানব পাচার একটি দেশের অভ্যন্তরে বা এক দেশ থেকে অন্য দেশে সংঘটিত হয়। মানব পাচার বল প্রয়োগের মাধ্যমে সংঘটিত একটি অপরাধ যা মানুষের মুক্ত চলাচলের অধিকারকে হরণ করে। [১] মানব পাচার মূলত নারী এবং শিশু পাচারকেই ইঙ্গিত করে থাকে।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংঘটন (আইএলও)-র মতে, শুধুমাত্র বলপূর্বক শ্রম দ্বারাই ২০১৪ সাল পর্যন্ত প্রতি বছরে ১৫০বিলিয়ন মার্কিন ডলার লাভ করা হয়েছে।[১] ২০১২ সালে আইএলও অনুমান করেছে যে প্রায় ২কোটি ১০লক্ষ মানুষ বর্তমান যুগে দাসত্বের শিকার। তাদের মধ্যে ১কোটি ৪২লক্ষ (৬৮%) জন শ্রম-শোষিত, ৪৫লক্ষ (২২%) জন যৌনভাবে শোষিত এবং ২২লক্ষ (১০%) জন রাষ্ট্রের চাপিয়ে দেয়া বলপূর্বক শ্রম দ্বারা শোষিত।[১]

আন্তর্জাতিক শ্রম সংঘটনের মতে শিশু শ্রমিক, সংখ্যালঘু এবং বেআইনি অভিবাসীরা প্রচন্ডভাবে শোষিত হওয়ার সর্বোচ্চ ঝুকিতে আছে। পরিসংখ্যান মতে, পৃথিবীর ২১কোটি ৫০লক্ষ যুব শ্রমিকদের অর্ধেককে জোড়পূর্বক যৌন কর্ম এবং বলপূর্বক ভিক্ষাবৃত্তিসহ ক্ষতিকর ক্ষেত্রগুলোতে দেখতে পাওয়া যায়। [১] লেদার ট্যানিং, পাথর খননসহ ইত্যাদি সর্বোচ্চ শোষণমূলক এবং বিপজ্জনক ক্ষেত্রগুলোতেই বেশিরভাগ জাতিগত সংখ্যালঘু এবং প্রান্তিক শ্রেণীর মানুষেরা কাজ করে বলে অনুমিত হয়েছে। [১]

বহুজাতিক অপরাধ সংঘটনগুলোর সংঘটিত অপরাধকর্মগুলোর মধ্যে মানবপাচারকে অন্যতম দ্রুত অপরাধকর্ম হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে। [১]

আন্তর্জাতিক কনভেনশন মতে, মানবপাচার হচ্ছে মানুষের অধিকারের লঙ্ঘন। সেই সাথে এটি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের একটি নির্দেশনার বিষয়বস্তু। [১]

মার্কিন যুক্তরাষ্টের রাজ্যবিভাগের মতে, মানবপাচার এবং জোড়পূর্বক শ্রম থেকে সুরক্ষা দেবার ক্ষেত্রে বেলারুশ, ইরান, রাশিয়া, তুর্কি হচ্ছে জঘন্যতম রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে অন্যতম।[১]


সংজ্ঞাসম্পাদনা

জাতিসংঘ মানব পাচারকে তাদের প্রোটোকলে স্বীকৃতি দিয়েছে। একে প্রতিহত, দমন, শাস্তির আওতায় আনার জন্য, বিশেষতঃ নারী ও শিশুদের বিষয়ে, (যা পালেরমো পাচার প্রোটোকল নামে খ্যাত)। ২৫ডিসেম্বর ২০০৩ সালে জাতিসংঘ বহুজাতীয় সংঘবদ্ধ অপরাধসমূহের বিরুদ্ধে গঠন করা কনভেনশন কার্যকর করে।

পালেরমো পাচার প্রোটোকল এই কনভেনশনের তিনটি সম্পূরক অংশের মধ্যে একটি ।[১] উক্ত প্রোটোকলটি হচ্ছে গত অর্ধশত বছরের মধ্যে প্রথমবারের মত আইনগতভাবে বাধ্য এবং একমাত্র সম্মতসিদ্ধ চুক্তি যা মানব পাচারের সংজ্ঞা দেয়। মানব পাচার সম্পর্কিত অপরাধের বিচার এবং অনুসন্ধানের জন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সহজতর করা এর অন্যতম উদ্দেশ্য। পাচারের শিকার ব্যক্তিদেরকে মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণায় দেয়া অধিকার অনুসারে সুরক্ষা প্রদান ও সহায়তা করাও এর একটি উদ্দেশ্য।

নভেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত পাচার প্রোটোকলটিতে স্বাক্ষরকারী দেশের সংখ্যা ১৭৩।[১]

প্রোটোকলের মতে মানব পাচার হচ্ছে-

ক) [...] শোষণ করার উদ্দেশ্যে ভয় দেখিয়ে বা বল প্রয়োগ করে বা অন্য কোন জোড়পূর্বক উপায়ে অপহরণ, প্রতারণা, প্রবঞ্চনা, ক্ষমতার অপব্যবহার বা দুর্বল অবস্থা কাজে লাগিয়ে অর্থ প্রদান/গ্রহণ করে বা অন্যভাবে লাভ করে কোন মানুষের সম্মতি নিয়ে মানুষ সংগ্রহ, পরিবহন, হস্তান্তর, আশ্রয় প্রদান বা গ্রহণ করা। খ)

  1. "Human trafficking"Wikipedia (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০৭-১১।