পীতসাগর বলতে পূর্ব চীন সাগরের উত্তর অংশটিকে বোঝায়। এটি প্রশান্ত মহাসাগরের একটি প্রান্তিক সাগর। সাগরটি চীনের মূল ভূখণ্ড এবং কোরীয় উপদ্বীপের মাঝখানে অবস্থিত। গোবি মরুভূমির ধূলিঝড় থেকে উড়ে আসা বালুর কণাগুলি সাগরটির পানিকে হলুদ রঙে রাঙিয়ে তোলে বলে এর নাম দেওয়া হয়েছে পীত সাগর (অর্থাৎ হলুদ সাগর)।

পীতসাগর
Bohaiseamap2.png
চীনা নাম
সরলীকৃত চীনা
ঐতিহ্যবাহী চীনা
আক্ষরিক অর্থyellow sea
কোরীয় নাম
হাঙ্গুল or
হাঞ্জা or 西
বাংলায় অনুবাদyellow sea or west sea
পীতসাগর
স্থানাঙ্ক৩৫°০′ উত্তর ১২৩°০′ পূর্ব / ৩৫.০০০° উত্তর ১২৩.০০০° পূর্ব / 35.000; 123.000
নদীর উৎসপীত নদী, হাই নদী, ইয়ালু নদী, তাইদোং নদী, হান নদী
অববাহিকার দেশসমূহচীন
উত্তর কোরিয়া
দক্ষিণ কোরিয়া
পৃষ্ঠতল অঞ্চল৩,৮০,০০০ কিমি (১,৫০,০০০ মা)
গড় গভীরতাগড়ে ৪৪ মি (১৪৪ ফু) Max. ১৫২ মি (৪৯৯ ফু)

পীত সাগরের সবচেয়ে ভেতরের দিকের উপসাগরটিকে পোহাই সাগর নামে ডাকা হয় (অতীত নাম পেচিলি বা চিলি উপসাগর)। চীনের শানতুং প্রদেশ ও এর রাজধানী চিনানের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত পীত নদী এবং বেইজিংথিয়েনচিন শহরের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত হাই হো নদী এই উপসাগরে পড়েছে। এই নদীগুলি যে বালি ও পলিমাটি বহন করে নিয়ে আসে, সেগুলিও সাগরটির রঙ গঠনে ভূমিকা রেখেছে।

পীতসাগরের উত্তরের অংশটি কোরিয়া উপসাগর নামে পরিচিত। বিশ্বের যে চারটি সাগরকে সাধারণ রঙের নামে নামকরণ করা হয়েছে, তার মধ্যে পীতসাগর একটি। বাকি তিনটি হল কৃষ্ণ সাগর, লোহিত সাগর এবং শুভ্র সাগর

ভূগোলসম্পাদনা

ব্যাপ্তিসম্পাদনা

আন্তর্জাতিক জললেখবিজ্ঞান সংস্থা পীতসাগরের সীমা নির্ধারণ করে (যা এটি "হোয়াং হাই" নামেও পরিচিত):[১]

পীতসাগর জাপান সাগর থেকে বিভক্ত হচ্ছে হেনাম উপদ্বীপের দক্ষিণ প্রান্ত থেকে জিওলানামডো থেকে চেজু দ্বীপ সীমানা দ্বারা এবং পূর্ব চীন সাগর থেকে বিভক্ত হচ্ছে জেজু দ্বীপ এর পশ্চিম প্রান্ত থেকে ছাং চিয়াং নদী মোহনা পর্যন্ত সীমানা।

জলবায়ু এবং জলবিদ্যাসম্পাদনা

 
২ মার্চ ২০০৮-এ পূর্ব এশিয়ায় একটি ধুলো ঝড়ের স্যাটেলাইট চিত্র[২]

এই অঞ্চলে ঠান্ডা, শুষ্ক শীত রয়েছে এবং নভেম্বরের শেষ থেকে মার্চ পর্যন্ত শক্তিশালী উত্তর দিকে মৌসুমি বায়ু প্রবাহিত হয়।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Limits of Oceans and Seas" (PDF) (3rd সংস্করণ)। International Hydrographic Organization। ১৯৫৩। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ডিসেম্বর ২০২০ 
  2. Sand storm over Yellow Sea, nasa.gov