প্রধান মেনু খুলুন

দুমকা জেলা

ঝাড়খণ্ডের একটি জেলা

দুমকা জেলা পূর্ব ভারতে অবস্থিত ঝাড়খণ্ড রাজ্যের ২৪ টি জেলার একটি৷ ১৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৩৯০ বঙ্গাব্দে(১লা জুন ১৯৮৩ খ্রিস্টাব্দে) পুর্বতন সাঁওতাল পরগনা জেলা থেকে দুমকা জেলা গঠন করা হয়৷ ১২ই বৈশাখ ১৪০৮ বঙ্গাব্দে(২৬ এপ্রিল ২০০১ খ্রিস্টাব্দ) আবার দুমকা জেলা থেকে দক্ষিণাংশ বিচ্ছিন্ন করে নতুন দুমকা জেলাটি গঠিত হয়৷ জেলাটি ঝাড়খণ্ডের উত্তর-পূর্ব অবস্থিত সাঁওতাল পরগনা বিভাগের অন্তর্গত৷ জেলাটির জেলাসদর দুমকা শহরে অবস্থিত এবং একটি মাত্র দুমকা মহকুমা নিয়ে গঠিত৷

দুমকা জেলা
ঝাড়খণ্ডের জেলা
ঝাড়খণ্ডে দুমকার অবস্থান
ঝাড়খণ্ডে দুমকার অবস্থান
দেশভারত
রাজ্যঝাড়খণ্ড
প্রশাসনিক বিভাগসাঁওতাল পরগনা বিভাগ
সদরদপ্তরদুমকা
তহশিল১০
সরকার
 • বিধানসভা আসন
আয়তন
 • মোট৩৭৬১ কিমি (১৪৫২ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১৩,২১,৪৪২
 • জনঘনত্ব৩৫০/কিমি (৯১০/বর্গমাইল)
জনতাত্ত্বিক
 • সাক্ষরতা৬১.০২ শতাংশ
 • লিঙ্গানুপাত৯৭৭
ওয়েবসাইটদাপ্তরিক ওয়েবসাইট

নামকরণসম্পাদনা

সাঁওতাল পরগনা জেলার প্রথম শহর দুমকা৷ কিন্তু এর আয়তন অন্যান্য শহরগুলির থেকে ছোটো হওয়ার জন্য স্থানীয় সাঁওতালি ভাষাতে সুম্ক বা ছোটো জনপদ বলা হতো৷ এই সুম্ক থেকেই দুমকা নামটি এসেছে৷

অবস্থানসম্পাদনা

জেলাটির উত্তরে ঝাড়খণ্ড রাজ্যের গোড্ডা জেলা৷ জেলাটির উত্তর পূর্বে(ঈশান) ঝাড়খণ্ড রাজ্যের পাকুড় জেলা৷ জেলাটির পূর্বে ঝাড়খণ্ড রাজ্যের পাকুড় জেলা৷ জেলাটির দক্ষিণ পূর্বে(অগ্নি) পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বীরভূম জেলা৷ জেলাটির দক্ষিণে ঝাড়খণ্ড রাজ্যের জামতাড়া জেলা৷ জেলাটির দক্ষিণ পশ্চিমে(নৈঋত) ঝাড়খণ্ড রাজ্যের দেওঘর জেলা৷ জেলাটির পশ্চিমে ঝাড়খণ্ড রাজ্যের দেওঘর জেলা৷ জেলাটির উত্তর পশ্চিমে(বায়ু) বিহার রাজ্যের বাঁকা জেলা৷[১]

জেলাটির আয়তন ৩৭৬১ বর্গ কিমি৷ রাজ্যের জেলায়তনভিত্তিক ক্রমাঙ্ক ২৪ টি জেলার মধ্যে তম৷ জেলার আয়তনের অনুপাত ঝাড়খণ্ড রাজ্যের ৪.৭২%৷

ভাষাসম্পাদনা

দুমকা জেলায় প্রচলিত ভাষাসমূহের পাইচিত্র তালিকা নিম্নরূপ -

২০১১ অনুযায়ী দুমকা জেলার ভাষাসমূহ[২]

  সাঁওতালি (৩৯.৭১%)
  খোরঠা (৩৪.৪৪%)
  হিন্দী (১১.০৭%)
  বাংলা (৯.৫৯%)
  মালতো (২.৪০%)
  উর্দু (১.৮৬%)
  অন্যান্য (০.৯৩%)

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

মোট জনসংখ্যা ১১০৬৫২১(২০০১ জনগণনা) ও ১৩২১৪৪২(২০১১ জনগণনা)৷ রাজ্যে জনসংখ্যাভিত্তিক ক্রমাঙ্ক ২৪ টি জেলার মধ্যে ১১তম৷ ঝাড়খণ্ড রাজ্যের ৪.০১% লোক দুমকা জেলাতে বাস করেন৷ জেলার জনঘনত্ব ২০০১ সালে ২৯৪ ছিলো এবং ২০১১ সালে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৩৫১ হয়েছে।

জেলার জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ২০০১-২০১১ সালের মধ্যে জনসংখ্যা বৃৃদ্ধির হার ১৯.৪২% , যা ১৯৯১-২০১১ সালের ১৬.৩৭% বৃদ্ধির হারের থেকে বেশী৷ জেলাটিতে লিঙ্গানুপাত ২০১১ অনুযায়ী ৯৭৭(সমগ্র) এবং শিশু(০-৬ বৎ) লিঙ্গানুপাত ৯৬৬৷[৩]

শিক্ষাসম্পাদনা

জেলাটির স্বাক্ষরতা হার ৪৭.৯৪%(২০০১) তথা ৬১.০২%(২০১১)৷ পুরুষ স্বাক্ষরতার হার ৬২.৮৬%(২০০১) তথা ৭২.৯৬%(২০১১)৷ নারী স্বাক্ষরতার হার ৩২.৩৫%(২০০১) তথা ৪৮.৮২% (২০১১)৷ জেলাটিতে শিশুর অনুপাত সমগ্র জনসংখ্যার ১৬.৬১%৷[৩] জেলা তে সিধু কানহু মুর্মু বিশ্ববিদ্যালয় আছে । যেখানে মোটামুটি সব বিষয়ের উচ্চশিক্ষা আর ব্যাবস্থা আছে ।

নদনদীসম্পাদনা

ময়ূরাক্ষী এই জেলার প্রধান নদী । জেলার সদর শহর দুমকা এই নদীর তীরে অবস্থিত । দুমকা শহরের অদূরেই মাসেনজরে গড়ে উঠেছে মাসেনজর ড্যাম । দ্বারকা , বক্রেশ্বর , কুষকরানি , ব্রাম্ভোনি নদী উল্লেখযোগ্য ।

পর্যটন ও দর্শনীয় স্থানসম্পাদনা

মাসেঞ্জোর ড্যাম । এখানে প্রতিবছর শীতকালে ঝাড়খণ্ড সহ পশ্চিমবঙ্গ ও বিহার রাজ্য থেকে বহু পর্যটকদের আগমন ঘটে । এছাড়া আছে তাটলই উষ্ণ প্রস্রবণ , মন্দার পাহাড় উল্লেখযোগ্য ।

পরিবহন ও যোগাযোগসম্পাদনা

সরকপথসম্পাদনা

দুমকা ঝাড়খণ্ডের উপরাজধানী হওয়ায় এর যোগাযোগ প্রায় সব শহরের সাথে ভালো আছে । দুমকা শহর রাজধানী রাঁচি থেকে ২৭৮ কিমি দূরে অবস্থিত । এছাড়াও বিহারের ভাগলপুরের সঙ্গে এবং পশ্চিমবঙ্গের রামপুরহাট , সিউড়ি ও বহরমপুর শহরের সঙ্গে সরাসরি বাস যোগাযোগ আছে।

রেলপথসম্পাদনা

দুমকা রেল স্টেশন ২০১১ সালে চালু হয়। ১২ জুলাই ২০১১ সালে জাসিডিহ-দুমকা রেল পথ চালু হয়। এই লাইনে দিনে ৩ টে প্যাসেঞ্জার ট্রেন চলাচল করে । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে দুমকা ও রাঁচির মধ্যে প্রথম আন্তঃনগর এক্সপ্রেস চালু হয়। এটা বৃহস্পতিবার এবং রবিবার ছাড়া সপ্তাহে পাঁচ দিন চালানো হয় এই এক্সপ্রেস ট্রেনটিকে। ৪ জুন ২০১৫ তে যাত্রা শুরু করে দুমকা থেকে রামপুরহাট লাইনে । এই লাইনে একটি প্যাসেঞ্জার ও একটি এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল করে । দুমকা থেকে ভাগলপুরের লাইন ও চালু হয়েছে নিউ মদনপুর থেকে মন্দার হিল হয়ে । এর ফলে কলকাতা থেকে ভাগলপুরের দূরত্ব কমে হয়েচে ৩৯৮ কিমি। হাওড়া থেকে ভাগলপুর গামী কবিগুরু এক্সপ্রেস এই পথেই ভাগলপুর যায় ।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা