তুমি যেখানে আমি সেখানে

বাংলা চলচ্চিত্র সঙ্গীত

তুমি যেখানে আমি সেখানে ১৯৮৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত বাংলাদেশের ছায়াছবি নাগ পূর্ণিমা-এর একটি সঙ্গীতরক ধাচের নিরীক্ষাধর্মী এই গানের সুর ও সঙ্গীতায়োজন করেছিলেন আলম খানগীতিকার মনিরুজ্জামান মনিরের গীতিতে গানটি গেয়েছিলেন এন্ড্রু কিশোর[১][২] চলচ্চিত্রে সোহেল রানা এই গানের সাথে ঠোঁট মিলিয়েছিলেন।[৩] সোহেল রানা ও ববিতাকে নিয়ে এই গানের চিত্রায়ণ করা হয়েছিল।[৪] গানটি সঙ্গীত পরিচালক আলম খানের সুরারোপিত এবং এন্ড্রূ কিশোরের গাওয়া অন্যতম জনপ্রিয় গান হিসেবে বিবেচিত।[৩][৫]

"তুমি যেখানে আমি সেখানে"
নাগ পূর্ণিমা অ্যালবাম থেকে
এন্ড্রু কিশোর কর্তৃক একক সঙ্গীত
ভাষাবাংলা
মুক্তিপ্রাপ্ত১৯৮৩
রেকর্ডকৃত১৯৮৩
স্থানঢাকা, বাংলাদেশ
ধারারক সঙ্গীত
লেবেলঅনুপম রেকর্ডিং মিডিয়া
গান লেখকমনিরুজ্জামান মনির
সুরকারআলম খান
প্রযোজকআলম খান

পটভূমিসম্পাদনা

সোহেল রানা বললেন, ‘আমি একটা রক গান করতে চাই এ ছবিতে।’ সিকোয়েন্স শুনে বললাম, রক গান ছবির সঙ্গে ম্যাচ করবে না। তিনি বললেন, ‘আপনি ম্যাচ করাতে পারবেন বলেই তো গানটা করতে চেয়েছি।’

কবীর বকুলের প্রতি আলম খান[১]

নাগ পূর্ণিমা ছিল লোককাহিনী ভিত্তিক চলচ্চিত্র। চলচ্চিত্রটি মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা'র মূলনাম) প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছিলেন। এই চলচ্চিত্রের জন্য লোকসঙ্গীত বেশি জুতসই হলেও লোকগানের পাশাপাশি সোহেল রানা একটি রক সঙ্গীত রাখতে চেয়েছিলেন। সঙ্গীত পরিচালক আলম খান এই ছায়াছবির লৈকিক গল্পকে প্রাধাণ্য দিয়ে অন্যান্য গানের সুরারোপ করছিলেন। আলম খানের মতে লোককাহিনির চলচ্চিত্রে একটি রক গান বেমানান ছিল। তবে সোহেল রানা তার ছায়াছবিতে রক গান ব্যবহারের ধারণায় অটল ছিলেন। কাহিনীর বর্ণনাক্রমবিন্যাস অনুযায়ী মনিরুজ্জামান মনির 'তুমি যেখানে আমি সেখানে' রচনা করেছিলেন।[১] গীত অনুযায়ী আলম খান নিরীক্ষাধর্মী সঙ্গীত রচনা করেছিলেন।[২]

সঙ্গীত ধারণসম্পাদনা

তুমি যেখানে আমি সেখানে এন্ড্রু কিশোরের কন্ঠে ধারণ করা হয়। এই গানটির সুর উঁচু অকটেভের সঙ্গীত স্কেলে রচিত। এন্ড্রু কিশোর সাধারণত উঁচু স্কেলের সঙ্গীতে কন্ঠ দিতেন না। গানে কন্ঠ দিতে এন্ড্রু কিশোরের সমস্যা হচ্ছিল। সঙ্গীত ধারণের সময় তিনি আলম খানকে স্কেল নামিয়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। সোহেল রানার অনুপ্রেরণায় এন্ড্রু কিশোর উঁচু অকটেভে কন্ঠ দিয়েছিলেন। ৩০ বারের প্রচেষ্টায় সম্পূর্ণ গান ধারণ করা হয়েছিল। এতবার গাওয়ার ফলে এন্ড্রু কিশোরের গলা ব্যথা হয়ে যায়। এই গান ধারণের পরের এক সপ্তাহ তিনি কোন গান গাইতে পারেননি।[২]

পুনরুৎপাদনসম্পাদনা

তুমি যেখানে আমি সেখানে গানটি ২০১৯ সালে অনুপম রেকর্ডিং মিডিয়া'র ব্যানারে মাহাতিব শাকিবের কন্ঠে পুনরুৎপাদন করা হয়। এই সংস্করণটি ২০১৯ সালের ৩ জুন হতে ইউটিউবে উম্মুক্ত রয়েছে।[৬]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "আলম খানের গান ও গল্প"প্রথম আলো। ২০১৫-১০-২৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০১-০১ 
  2. "ভালোবাসার গান নেপথ্যের গল্প"দৈনিক ভোরের কাগজ। ২০১৮-০২-১০। ২০১৯-০৯-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০১-০১ 
  3. "ঢাকাই ছবির নায়কদের মুখে এন্ড্রু কিশোরের গান"দৈনিক যুগান্তর। ২০২০-০৭-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০১-০১ 
  4. "'পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনি'তে ববিতা ও সোহেল রানা"প্রথম আলো। ২০১৩-০৫-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০১-০১ 
  5. "সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব আলম খানের জন্মদিন আজ"একুশে টিভি। ২০১৮-১০-২২। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০১-০১ 
  6. "তুমি যেখানে আমি সেখানে - মাহাতিব শাকিব"অনুপম মিউজিক। ২০১৯-০৬-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০১-০১ইউটিউব-এর মাধ্যমে। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

  1. ইউটিউবে 'তুমি যেখানে আমি সেখানে' গান নিয়ে সুরকার আলম খানের সাক্ষাতকার