প্রধান মেনু খুলুন

খাজা ওয়াসিউদ্দিন

সামরিক কর্মকর্তা, কূটনীতিক

খাজা ওয়াসিউদ্দিন (জন্ম : ২০ মার্চ ১৯২০- ২২ সেপ্টেম্বর ১৯৯২) ছিলেন একজন সেনা জেনারেল এবং কূটনীতিক। তিনি ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনীতে তরুণ অফিসার হিসাবে কর্মজীবন শুরু করেছিলেন এবং পরে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সিনিয়র জেনারেল হন। তিনি জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ছিলেন।[১]

লেফট্যানেন্ট জেনারেল
খাজা ওয়াসিউদ্দিন
জন্ম২০ মার্চ ১৯২০(১৯২০-০৩-২০)
আহসান মঞ্জিল, ঢাকা, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু২২ সেপ্টেম্বর ১৯৯২(1992-09-22) (বয়স ৭২)
ঢাকা, বাংলাদেশ
আনুগত্যব্রিটিশ ভারত ব্রিটিশ ভারত (১৯৪০–১৯৪৭)
পাকিস্তান পাকিস্তান (১৯৪৭–১৯৭১)
বাংলাদেশ বাংলাদেশ (১৯৭২-১৯৭৩)
সার্ভিস/শাখা ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনী
 পাকিস্তান সেনাবাহিনী
 বাংলাদেশ সেনাবাহিনী
কার্যকাল১৯৪০-১৯৭৩
পদমর্যাদাOF-8 PakistanArmy.svg Lieutenant General
ইউনিটঅষ্টম পাঞ্জাব রেজিমেন্ট
নেতৃত্বসমূহ১৯৬০ সালে পূর্ব পাকিস্তানের ঢাকায় অবস্থিত ১৪ তম বিভাগের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি)
১৯৬৩ সালে তিনি পশ্চিম পাকিস্তানের লাহোরে অবস্থিত দশম বিভাগের কমান্ডার
১৯৬২ সালে প্রাদেশিক সামরিক আইন প্রশাসক
যুদ্ধ/সংগ্রাম

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

খাজা ওয়াসিউদ্দিন ১৯২০ সালের ২০ মার্চ আহসান মঞ্জিল, ঢাকা, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি (বর্তমান বাংলাদেশ) -এ জন্মগ্রহণ করেছিলেন। [২] তার পিতা খাজা শাহাবুদ্দিন ছিলেন পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের গভর্নর এবং ঢাকা নবাব পরিবারের সদস্য; তার বাবার বড় ভাই ছিলেন স্যার খাজা নাজিমুদ্দিন, পাকিস্তানের দ্বিতীয় গভর্নর-জেনারেল এবং পরবর্তীকালে এর দ্বিতীয় প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তার মা ছিলেন ফারহাত বানু, স্যার সলিমুল্লাহর ভাগ্নী এবং বেঙ্গল আইনসভার সদস্য। তিনি ঢাকা মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং পরে সেন্ট গ্রেগরির উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছেন। [২] ১৯৩৮ সালে তিনি প্রিন্স অফ ওয়েলস রয়েল মিলিটারি কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। [২][৩]

কর্মজীবনসম্পাদনা

খাজা ওয়াসি স্নাতক শেষে ভারতীয় সামরিক একাডেমিতে যোগদান করেন এবং ১৯৪০ সালের এপ্রিল মাসে ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনীর ৮ ম পাঞ্জাব রেজিমেন্টে সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট হিসাবে কমিশন লাভ করেন। তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বার্মা প্রচারে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। [২] ১৯৪৪ সালের মধ্যে তিনি মেজর হিসেবে পদোন্নতি পান এবং একটি আর্টিলারি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মনোনিত হন। ১৯৪৫ সালে তাকে লেফটেন্যান্ট কর্নেল পদে পদোন্নতি দেওয়া হয় এবং ব্রিটিশ ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর আন্তঃবাহিনী নির্বাচন বোর্ডের অতিরিক্ত উপ-রাষ্ট্রপতি পদে নিয়োগ দেয়া হয়। [২]

পাকিস্তানসম্পাদনা

ভারত বিভাগের পর তিনি পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পক্ষে নির্বাচন করেছিলেন। পাকিস্তানে তিনি পাকিস্তানি ইন্টার সার্ভিসেস সিলেকশন বোর্ডে কাজ চালিয়ে যান, অবশেষে এর সভাপতি হন। ১৯৫১ সালে তিনি যুক্তরাজ্যের ক্যামবারলে স্টাফ কলেজে আরও পড়াশোনা করতে যান এবং পরবর্তীকালে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল পদে পদোন্নতি পান। ১৯৬০ সালে তাকে পূর্ব পাকিস্তানের ঢাকায় অবস্থিত ১৪ তম বিভাগের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) করা হয় এবং ১৯৬৩ সালে তিনি পশ্চিম পাকিস্তানের লাহোরে অবস্থিত দশম বিভাগের কমান্ডার ছিলেন। [২] ১৯৬২ সালে তিনি প্রাদেশিক সামরিক আইন প্রশাসক ছিলেন। [৪] ১৯৬৪ সালে তিনি যুক্তরাজ্যের ইম্পেরিয়াল ডিফেন্স কলেজ থেকে তার উচ্চশিক্ষা লাভ করেন। [২] ১৯৬৮ সালে তাকে লেফটেন্যান্ট জেনারেল পদে পদোন্নতি দেওয়া হয় এবং দ্বিতীয় কর্পসের কমান্ডার নিযুক্ত করা হয়, সদর দফতর প্রথমে লাহোরে এবং পরে পাঞ্জাবের মুলতানে স্থানান্তরিত হন। [২]

বাংলাদেশসম্পাদনা

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি পশ্চিম পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডির জেনারেল সদর দফতরে মাস্টার জেনারেল অব অর্ডনেন্স (এমজিও) ছিলেন। [৫] ১৯৭৩ সালের অক্টোবরে তিনি পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে প্রত্যাবাসন করেন। [৬] বাংলাদেশে ফিরে আসার পর তিনি কুয়েত ও ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করবেন। [২][৭] তিনি ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশ সেনা থেকে অবসর গ্রহণ করেন এবং জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হয়েছিলেন,[৮] ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত তিনি এ পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। [২] প্রতিনিধি হিসাবে তিনি ইন্দোনেশিয়ার যুক্তরাষ্ট্রে পূর্ব তিমুরের অন্তর্ভুক্তিকে সমর্থন করেছিলেন। [৯]

মৃত্যুসম্পাদনা

খাজা ওয়াসি ২২ সেপ্টেম্বর ১৯৯২ সালে তিনি বাংলাদেশের ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। [২]{

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "লেফটেন্যান্ট জেনারেল খাজা ওয়াসিউদ্দিন"Daily Nayadiganta। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৯-২৩ 
  2. আলমগীর, মুহাম্মদ। "ওয়াসিউদ্দিন, লে. জেনারেল খাজা"বাংলাপিডিয়া। এশিয়াটিক সোসাইটি। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৬ 
  3. Mishra, editors, Bikram Singh, Sidharth (১৯৯৭)। Where gallantry is tradition : saga of Rashtriya Indian Military College : plantinum jubilee volume, 1997। Allied Publishers। পৃষ্ঠা 46। আইএসবিএন 9788170236498 
  4. Von Vorys, Karl (২০১৫)। Political Development in Pakistan। Princeton University Press। পৃষ্ঠা 55। আইএসবিএন 9781400876389। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৬ 
  5. Niazi, A.A.K. (২০০০)। The Betrayal of East Pakistan। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 168। আইএসবিএন 9780195792751 
  6. Roy, Asish Kumar (২০০২)। Praetorian politics in Bangladesh : 1975–1981। Progressive Publishers। পৃষ্ঠা 50। ওসিএলসি 491399557 
  7. Badrul Ahsan, Syed (২০১২-০৩-২৭)। "Old images from a long-ago war"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৬ 
  8. Hossain, Golam (১৯৯১)। Civil-military relations in Bangladesh: a comparative study। Academic Publishers, the University of Michigan। পৃষ্ঠা 227। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৬ 
  9. East Timor and the International Community: Basic Documents (1st paperback সংস্করণ)। Cambridge University Press। ১৯৯৭। পৃষ্ঠা 155। আইএসবিএন 978-0-521-58134-9