ক্রিস অ্যাডামস

ইংরেজ ক্রিকেটার

ক্রিস্টোফার জন অ্যাডামস (ইংরেজি: Chris Adams; জন্ম: ৬ মে, ১৯৭০) ডার্বিশায়ারের হুইটওয়েল এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক ও বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলে সংক্ষিপ্তকালের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেন তিনি। বর্তমানে তিনি ওলন্দাজ জাতীয় দলের অন্তর্বর্তীকালীন কোচের দায়িত্বে রয়েছেন।[১]

ক্রিস অ্যাডামস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামক্রিস্টোফার জন অ্যাডামস
জন্ম (1970-05-06) ৬ মে ১৯৭০ (বয়স ৫০)
হুইটওয়েল, ডার্বিশায়ার, ইংল্যান্ড, যুক্তরাজ্য
ডাকনামগ্রিজলি, গ্রিজওল্ড
উচ্চতা৬ ফুট ০ ইঞ্চি (১.৮৩ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকামাঝারিসারির ব্যাটসম্যান, কোচ
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৫৯৮)
২৫ নভেম্বর ১৯৯৯ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ টেস্ট১৮ জানুয়ারি ২০০০ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৪৯)
২১ মে ১৯৯৮ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ ওডিআই২৮ জানুয়ারি ২০০০ বনাম জিম্বাবুয়ে
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৮৮ - ১৯৯৭ডার্বিশায়ার
১৯৯৮ - ২০০৮সাসেক্স (দল নং ১)
১৯৯৮ - ১৯৯৯অস্ট্রেলিয়ান ক্যাপিটাল টেরিটরি
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৩৩৬ ৩৬৭
রানের সংখ্যা ১০৪ ৭১ ১৯৫৩৫ ১১৪৮১
ব্যাটিং গড় ১৩.০০ ১৭.৭৫ ৩৮.৬৮ ৩৯.৭২
১০০/৫০ –/– –/– ৪৮/৯৩ ২১/৬৯
সর্বোচ্চ রান ৩১ ৪২ ২৩৯ ১৬৩
বল করেছে ১২০ ৩২৮৮ ১২১৭
উইকেট ৪১ ৩২
বোলিং গড় ৫৯.০০ ৪৭.১৯ ৩৮.০৩
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/৪২ ৪/২৮ ৫/১৬
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৬/– ৩/– ৪০৪/– ১৬৫/–

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ডার্বিশায়ারসাসেক্সের প্রতিনিধিত্ব করেন। এছাড়াও, অস্ট্রেলিয়ান ক্যাপিটাল টেরিটরি দলের পক্ষেও খেলেছেন ‘গ্রিজলি’, ‘গ্রিজওল্ড’ ডাকনামে পরিচিত ক্রিস অ্যাডামস। দলে তিনি মূলতঃ মাঝারিসারির আক্রমণধর্মী ব্যাটসম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন। ডানহাতে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি মাঝে-মধ্যে ডানহাতে অফ ব্রেক বোলিংয়ে দক্ষতা দেখিয়েছেন। এছাড়াও, স্লিপ অঞ্চলে দারুণ ফিল্ডিং করতেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯৮৮ মৌসুমে আঠারো বছর বয়সে ডার্বিশায়ারের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এ দলে তিনি ১৯৯৭ মৌসুম পর্যন্ত ছিলেন। এরপর সাসেক্সে দলনেতা হিসেবে যোগ দেন। সাসেক্সের ইতিহাসে দীর্ঘকালব্যাপী অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করার গৌরব অর্জন করেন তিনি। তার নেতৃত্বে ২০০৩, ২০০৬ ও ২০০৭ সালের কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা অর্জন করে সাসেক্স দল।

২০০৬ সালের শেষদিকে ইয়র্কশায়ারের অধিনায়ক ও পেশাদার ক্রিকেট পরিচালক - উভয় দায়িত্বে থাকার জন্য চার বছর মেয়াদী চুক্তিতে রাজী হন। কিন্তু অত্যন্ত নাটকীয়ভাবে ১৪ নভেম্বর স্বীয় সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন। তার খেলোয়াড়ী জীবনের এ মুহূর্তে তিনি এ দায়িত্ব পালনে আগ্রহী নন। এ সিদ্ধান্তের ফলে ইয়র্কশায়ারের মনোবল ভেঙ্গে পড়ে ও সাসেক্স বিস্ময়াভূত হয়ে পড়ে।[২]

টেস্ট ক্রিকেটসম্পাদনা

ইংল্যান্ডের পক্ষে সংক্ষিপ্তকাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটাঙ্গনে অংশ নেন। মে, ১৯৯৮ থেকে জানুয়ারি, ২০০০ সাল পর্যন্ত পাঁচটি টেস্ট ও পাঁচটি একদিনের আন্তর্জাতিক খেলেন। জোহেন্সবার্গের ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে পাঁচ টেস্টের সিরিজের প্রথম টেস্টে অভিষেক ঘটে তার। ২৫ নভেম্বর, ১৯৯৯ তারিখে অনুষ্ঠিত ঐ টেস্টে তিনি যখন ক্রিজে নামেন তখন অ্যালান ডোনাল্ড হ্যাট্রিকের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এ সময় দলের রান ছিল ২/৪। তিনি সফলতার সাথে বল মোকাবেলা করে হ্যাট্রিক ব্যর্থ করে দেন। ঐ টেস্টে ১৬ ও ১ রান তুলেন[৩] এবং উভয়ক্ষেত্রেই ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার লাভকারী ডোনাল্ডের বলে মার্ক বাউচারের হাতে কট বিহাইন্ডে পরিণত হন। খেলায় তার দল ইনিংস ও ২১ রানের বিরাট ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিল। ঘরোয়া ক্রিকেটের তুলনায় টেস্টের ব্যাটিং গড় ছিল খুবই নিম্নগামী। টেস্টে মাত্র ১৩ ও ওডিআইয়ে ১৭.৭৫ গড় ছিল তার।

পূর্ববর্তী বছরে দারুণ সফলতা অর্জন করায় উইজডেন কর্তৃপক্ষ ২০০৪ সালে তাকে অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে ঘোষণা করে।

অবসরসম্পাদনা

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০০৮ তারিখে তাকে সাসেক্স অধিনায়কের পদ থেকে অপসারণ করা হয়। ঐদিনই তিনি সাসেক্সকে প্রো৪০ ডিভিশন ওয়ান টাইটেলের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। ফলশ্রুতিতে তিনি প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট থেকে অবসরের কথা ঘোষণা করেন। এরপর সাসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাবের ক্রিকেট ম্যানেজার হিসেবে মনোনীত হন।

১৭ জুন, ২০১৩ তারিখে অ্যাডামসকে পদচ্যুত করা হয়। একইসঙ্গে প্রথম একাদশ দলের কোচ ইয়ান সলসবারিকেও অপসারণ করা হয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

ক্রীড়া অবস্থান
পূর্বসূরী
পিটার মুরেজ
সাসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট অধিনায়ক
১৯৯৮-২০০৮
উত্তরসূরী
মাইকেল ইয়ার্ডি