প্রধান মেনু খুলুন

কাকা (ফুটবলার)

ব্রাজিলীয় ফুটবলার

রিকার্দো আইজেকসন দস সাঁন্তুস লেইতি (পর্তুগিজ: Ricardo Izecson dos Santos Leite, আ-ধ্ব-ব: [xi'kaʁdu ˌizɛ'ksõ dusɐ̃tus lɛitʃi] পর্তুগিজ: [kaˈka] (এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন)) (জন্ম ২২শে এপ্রিল, ১৯৮২, ব্রাজিলিয়া) যিনি কাকা নামেই সমধিক পরিচিত, হলেন ব্রাজিলীয় ফুটবল দলের মধ্যভাগের খেলোয়াড় এবং বর্তমানে তিনি ওরলান্ডো সিটি সকার ক্লাবে খেলেন।

কাকা
Kaká Postgame In Houston, March 2015 (cropped).jpg
মার্চ ২০১৫ তে ওরলান্ডো সিটির হয়ে কাকা
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম রিকার্দো আইজেকসন দস সাঁন্তুস লেইতি
জন্ম (1982-04-22) ২২ এপ্রিল ১৯৮২ (বয়স ৩৭)[১]
জন্ম স্থান গামা, ফেডারেল ডিসট্রিক্ট, ব্রাজিল
উচ্চতা ১.৮৬ মি (৬ ফু ১ ইঞ্চি)[২]
ক্লাবের তথ্য
বর্তমান ক্লাব ওরলান্ডো সিটি
জার্সি নম্বর ১০
যুব পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন
১৯৯৪–২০০০ সাও পাওলো
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর দল উপস্থিতি (গোল)
২০০১–২০০৩ সাও পাওলো ৫৯ (২৩)
২০০৩–২০০৯ মিলান ১৯৩ (৭০)
২০০৯–২০১৩ রিয়াল মাদ্রিদ ৮৫ (২৩)
২০১৩-২০১৪ মিলান ৩০ (৭)
২০১৪–২০১৭ ওরলান্ডো সিটি ৭৫ (২৪)
২০১৪–২০১৫সাও পাওলো (লোন) ১৯ (২)
জাতীয় দল
২০০১ ব্রাজিল অনূর্ধ ২০ ফুটবল দল (১)
২০০২–২০১৬ ব্রাজিল ৯২ (২৯)
  • পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে এবং ২৮ এপ্রিল ২০১৮ (UTC) তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

‡ জাতীয় দলের হয়ে খেলার সংখ্যা এবং গোল ১৪ অক্টোবর ২০১৬ তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

তিনি আট বছর বয়সে একটি স্থানীয় ক্লাবের হয়ে তার ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু করেন। সে সময়ে তিনি টেনিসও খেলতেন[৩] এবং পনেরো বছর বয়সে সাও পাওলো এফ সির সাথে পেশাদারী চুক্তি করার পরই তিনি ফুটবল খেলাকে ক্যারিয়ার হিসাবে বেছে নেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেন। ২০০৩ সালে তিনি €৮.৫ মিলিয়নে ট্রান্সফার ফির বিনিময়ে এ সি মিলানে যোগদান করেন এবং মিলানে অবস্থানকালেই তিনি ব্যালন ডি' অর এবং ২০০৭ সালের ফিফা ওয়ার্ল্ড প্লেয়ার অফ দ্য ইয়ার পুরস্কার লাভ করেন। মিলানের হয়ে এই সাফল্যের পর ২০০৯ সালে ট্রান্সফার ফির তৃতীয় সর্বোচ্চ রেকর্ড €৬৫ মিলিয়নের বিনিময়ে রিয়াল মাদ্রিদ ফুটবল ক্লাবে যোগ দেন। খেলাধুলার পাশাপাশি তিনি তার মানবসেবামূলক কাজের জন্যেও পরিচিত। ২০০৪ সালে তিনি সর্বকনিষ্ঠ মানুষ হিসাবে জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির দূত হিসেবে মনোনীত হন। খেলাধূলার পাশাপাশি তিনি তার মানবসেবামূলক কাজে অবদান রাখায় ২০০৮ ও ২০০৯ সালে বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের তালিকায় টাইম ১০০ তে জায়গা করে নেন.[৪] তিনি প্রথম অ্যাথলেট , যার টুইটার এ ফলোয়ার এর সংখ্যা ১০ মিলিয়নের চেয়ে বেশি।.[৫]

প্রাথমিক জীবনসম্পাদনা

কাকা ব্রাজিলের গামার একটি ধনী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।তার বাবা একজন সিভিল ইঞ্জিনিয়ার ও মা শিক্ষিকা ছিলেন।[৬]।তার ভাই ও একজন ফুটবল খেলোয়াড়।তার ভাই রিকার্ডো উচ্চারণ করতে পারতো।তাকে শুধু কাকা বলে সম্বোধন করতো।সেখান থেকেই মূলত তার নাম হয়ে যায় কাকা।[৭] ৭ বছর বয়সে সে সাও পাওলো তে বসবাস শুরু করে।সেখানকার স্কুল থেকে একটি যুব ক্লাবে ভর্তি হয় এবং একটি টুর্নামেন্ট জিতে।[৮] তখন সাও পাওলো ফুটবল ক্লাব তাদের যুব দলে তাকে খেলার সুযোগ করে দেয়।[৯]

তবে ১৮ বয়সে সাতার কাটার সময় তার মেরুদন্ডে ব্যাথা পান।তখন প্যারালাইসিসের আশঙ্কাও দেখা যায়।[১০]।তবে অতি তাড়াতাড়ি সেটা থেকে তিনি সেরে উঠেন

আন্তর্জাতিক কর্মজীবনসম্পাদনা

 
ব্রাজিলের জার্সি গায়ে কাকা

২০০১ ফিফা বিশ্ব যুব চ্যাম্পিয়নশিপ টুর্নামেন্ট কাকা ব্রাজিল যুব দলের হয়ে খেলেন।কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিল ঘানার সাথে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বাদ পড়ে যায়।টুর্নামেন্টটিতে কাকা ১ টি গোল করেন।কয়েক মাস পরে,৩১ জানুয়ারি ২০০২ সালে   বলিভিয়া এর সাথে একটি প্রীতি ম্যাচে জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক করেন।তিনি ২০০২ ফিফা বিশ্বকাপজয়ী দলের একজন সম্মানিত সদস্য ছিলেন।তবে পুরো টুর্নামেন্ট এ মাত্র ২৫ মিনিট খেলার সুযোগ পান,যার পুরোটাই ছিলো   কোস্টা রিকা এর সাথে।[১১]

২০০৩ কনকাকাফ গোল্ড কাপ এ কাকা ব্রাজিল অনুর্ধ্ব-২৩ দলের অধিনায়কত্ব করেন।

ক্লাব কর্মজীবনসম্পাদনা

সাও পাওলোসম্পাদনা

৮ বছর বয়স থেকে তিনি সাও পাওলো তে খেলেন।১৫ বছর বয়সে ক্লাবটির সাথে চুক্তিবদ্ধ হন এবং ঐ বছরই ক্লাবটির যুবদল কে Copa de Juvenil জেতান।১ ফেব্রুয়ারি ২০০১ এ তার মূল দলে অভিষেক হয়।ঐ মৌসুমে ২৭ ম্যাচে ১২ গোল এবং পরের মৌসুমে ২২ ম্যাচে ১০ গোল করেন।[১২] তখনই ইউরোপের দলগুলোর তার প্রতি দৃষ্টি পড়ে।

মিলানসম্পাদনা

২০০৩ মৌসুমে ৮.৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে তাকে দলে ভিড়িয়ে নেয় এসি মিলান।একমাস পরে রুই কস্তার পরিবর্তে অ্যটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবে মিলানের হয়ে অভিষেক হয়।ঐ মৌসুমে ১০ টি গোল করেন ৩০ ম্যাচ খেলে এবং অনেক গুরুত্বপূর্ণ এসিস্ট।ভালো খেলার সুবাদে প্রথম মৌসুমেই তিনি ২০০৪ সালে সিরিয়া প্লেয়ার অফ দ্যা সিজন হিসেবে ঘোষিত হন।ব্যালন ডিওর(১৫ তম) ও ফিফা প্লেয়ার অফ দ্যা ইয়ার(৯ম) হিসেবে মনোনীত হয়েছিলেন। পরের মৌসুমে গাটুসো,সিডর্ফ, মেসিমো,রুই কস্তার সাথে মিলে একটি শক্তিশালী মিডফিল্ড গঠিত হয়।ঐ মৌসুমে মিলান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির রানার্স-আপ হয় লিভারপুল এর কাছে পেনাল্টি হেরে।ফাইনালটি মিরাকল অফ ইস্তাম্বুল বলা হয়,ম্যাচটিতে কাকা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।যেখানে প্রথম গোলটি তার এসিস্টেই হয়।ঐ টুর্নামেন্টে ৫ টি এসিস্ট ও ২টি গোল করেন।আবারো ব্যালন ডিওর(৯ম) ও ফিফা বেস্ট প্লেয়ার(৮ম) এর জন্য মনোনীত হন।[১৩][১৪] তবে ২০০৫ উয়েফা সেরা ক্লাব ফুটবলার হিসেবে মনোনীত হন। ২০০৬ মৌসুমে প্রথমবারের মতো হ্যাট্রিক করেন।এবারেও মনোনীত হলেও জিততে পারেন নি ব্যালন ডিওর।উয়েফা টিম অফ দ্যা ইয়ারের জন্য নির্বাচিত হন।[১৫]

২০০৬-০৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি তে তিনি সবচেয়ে বেশি গোল এবং দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫ টি এসিস্ট করেন এবং মিলান শিরোপা জয় করে।একটি অনলাইন পোল দ্বারা তিনি ভোডাফোন ফ্যানস প্লেয়ার অফ সিজন হিসেবে নির্বাচিত হন।উয়েফা প্লেয়ার অফ সিজন হিসেবেও ঘোষিত হন।একাধারে দ্বিতীয় বারের মত উয়েফা টিম অফ দ্যা সিজন এর একজন সদস্য হন।[১৬][১৭]।তিনি ২০০৭ ফিফা বেস্ট প্লেয়ার এওয়ার্ড জয় করেন।৮ম মিলান প্লেয়ার ব্যালন ডিওর জিতেন।২০০৭ উয়েফা সুপার কাপে সেভিয়ার বিপক্ষে জয়ে ৩য় গোলটি তিনি করেন।৩০ সেপ্টেম্বর মিলানের হয়ে ২০০ তম ম্যাচ খেলেন কাতানিয়ার বিপক্ষে যেটি ১-১ গোলে ড্র হয়।২০০৮ ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ জয় করেন মিলানের হয়ে।সেই ম্যাচে ৩য় গোলটি তার পা থেকে আসে।টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে গোল্ডেন বলটিও তিনি লাভ করেন।[১৮]

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

 
কাকা তার স্ত্রী ক্যারোলাইনের সাথে

কাকা ২০০৫ সালের ২৩ ডিসেম্বর সাও পাওলোর একটি খ্রিস্টান চার্চে তার শৈশবের পছন্দ ক্যরোলাইনকে বিয়ে করেন।[১৯] এই দম্পতির ২ জন সন্তান:ছেলে লুকা (জন্ম ১০ জুন ২০০৮)[২০] ও মেয়ে ইসাবেলা (জন্ম ২৩ এপ্রিল ২০১১)[২১] আছে।তবে ২০১৫ সালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তারা নিজেদের বিবাহ বিচ্ছেদ এর সংবাদ প্রকাশ করেন।কাকা বর্তমানে ব্রাজিলিয়ান মডেল ক্যারোলিনা দিয়াস এর সঙ্গে প্রণয়ে আবদ্ধ আছেন ।[২২]

 
কাকার ব্যবহার করা বুট

ক্যারিয়ার পরিসংখ্যানসম্পাদনা

ক্লাবসম্পাদনা

ক্লাব মৌসুম লীগ কাপ মহাদেশীয় আসর1 অন্যান্য2 সর্বমোট
উপস্থিতি গোল অ্যাসিস্ট উপস্থিতি গোল অ্যাসিস্ট উপস্থিতি গোল অ্যাসিস্ট উপস্থিতি গোল অ্যাসিস্ট উপস্থিতি গোল অ্যাসিস্ট
সাও পাওলো ২০০১ ২৭ ১২ ১৬ ৫৫ ১৭
২০০২ ২২ ১৭ ৪৮ ২২
২০০৩ ১০ ২২
মোট ৫৯ ২৩ ২১ ৪০ ১৭ ১২৫ ৪৬
মিলান ২০০৩-০৪ ৩০ ১০ ১০ ৪৪ ১৪
২০০৪–০৫ ৩৬ ১৩ ৫১
২০০৫–০৬ ৩৫ ১৪ ১২ ৪৯ ১৯
২০০৬–০৭ ৩১ ১৫ ১০ ৪৮ ১৮
২০০৭–০৮ ৩০ ১৫ ১০ ৪১ ১৯ ১২
২০০৮–০৯ ৩১ ১৬ ৩৬ ১৬ ১০
মোট ১৯৩ ৭০ ৩৭ ১০ ৬৩ ২৪ ১৫ ২৭০ ৯৫ ৪৬
রিয়াল মাদ্রিদ ২০০৯–১০ ২৫ ৩৩
২০১০–১১ ১৪ ২০
২০১১–১২ ২৭ ৪০ ১৪
২০১২–১৩
মোট ৬৯ ২০ ২১ ১৯ ১০ ৯৭ ২৪ ৩০
সর্বমোট ৩২১ ১১৩ ৫৭ ৩৯ ৮৬ ২৮ ২৪ ৪৬ ১৯ ৪৯২ ১৬৫ ৭৮

পরিসংখ্যানটি নির্ভূলভাবে তুলা হল ২১ অক্টোবর ২০১২[২৩]
1মহাদেশীয় আসর হিসাবে যুক্ত হল কোপা মার্কোসাল, উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ and উয়েফা কাপ
2অন্যান্য টুর্নামেন্ট হিসাবে যুক্ত হল ক্যাম্পিওনাতো পউলিস্তা, টার্নিও রিও – সাও পাওলো, সুপারকোপা ইটালিয়ানা, সুপারকোপা দে ইস্পানা, উয়েফা সুপার কাপ, আন্তঃমহাদেশীয় কাপ এবং ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ

মাধ্যম: Realmadrid.com – Kaká

আন্তর্জাতিক গোলসম্পাদনা

# তারিখ ভেন্যু বিপক্ষ দল স্কোর ফলাফল প্রতিযোগিতা
১. ৭ মার্চ ২০০২ কুইবা, ব্রাজিল   ৬–১ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
২. ১৯ জুলাই ২০০৩ মায়ামি, ফ্লোরিডা, যুক্তরাষ্ট্র   ২–০ জয়ী ২০০৩ কনকাকাফ গোল্ডকাপ
৩. ১৯ জুলাই ২০০৩ মায়ামি, ফ্লোরিডা, যুক্তরাষ্ট্র   ২–০ জয়ী ২০০৩ কনকাকাফ গোল্ডকাপ
৪. ২৩ জুলাই ২০০৩ মায়ামি, ফ্লোরিডা, যুক্তরাষ্ট্র   ২–১ জয়ী ২০০৩ কনকাকাফ গোল্ডকাপ
৫. ৭ সেপ্টেম্বর ২০০৩ বারেনকিলা, কলম্বিয়া   ১–২ জয়ী ২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
৬. ১১ অক্টোবর ২০০৩ কুরিটিবা, ব্রাজিল   ৩-৩ ড্র ২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
৭. ২৮ এপ্রিল ২০০৪ বুদাপেস্ট, হাঙ্গেরি   ১–৪ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
৮. ১০ অক্টোবর ২০০৪ মারাকাইবো, ভেনেজুয়েলা   ২–৫ জয়ী ২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
৯. ১০ অক্টোবর ২০০৪ মারাকাইবো, ভেনেজুয়েলা   ২–৫ জয়ী ২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
১০. ২৭ মার্চ ২০০৫ গয়ানিয়া, ব্রাজিল   ১–০ জয়ী ২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
১১. ২৯ জুন ২০০৫ ফ্রাঙ্কফুর্ট, জার্মানি   ৪–১ জয়ী ২০০৫ ফিফা কনফেডারেশনস কাপ
১২. ১০ নভেম্বর ২০০৫ আবু দাবি, সংযুক্ত আরব আমিরাত   ০–৪ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
১৩. ৪ জুন ২০০৬ জেনোভা, সুইজারল্যান্ড   ৪–০ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
১৪. ১৩ জুন ২০০৬ বার্লিন, জার্মানি   ১–০ জয়ী ২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপ
১৫. ৩ সেপ্টেম্বর ২০০৬ লন্ডন, ইংল্যান্ড   ৩–০ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
১৬. ১০ অক্টোবর ২০০৬ স্টকহোম, সুইডেন   ২–১ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
১৭. ১৫ নভেম্বর ২০০৬ বাসেল, সুইজারল্যান্ড   ১–২ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
১৮. ২৪ মার্চ ২০০৭ জোথানবার্গ, সুইডেন   ৪–০ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
১৯. ১২ সেপ্টেম্বর ২০০৭ ফক্সবরাউ, মাসাসুসেটস, যুক্তরাষ্ট   ৩–১ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
২০. ১৭ অক্টোবর ২০০৭ রিও দে জেনেরিও, ব্রাজিল   ৫–০ জয়ী ২০১০ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
২১. ১৭ অক্টোবর ২০০৭ রিও দে জেনেরিও, ব্রাজিল   ৫–০ জয়ী ২০১০ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
২২. ১৮ নভেম্বর ২০০৭ লিমা, পেরু   ১–১ ড্র ২০১০ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
২৩. ১১ অক্টোবর ২০০৮ সান ক্রিস্টোবাল, ভেনেজুয়েলা   ৪–০ জয়ী ২০১০ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
২৪. ৬ জুন ২০০৯ মন্টিভিডিও, উরুগুয়ে   ৪–০ জয়ী ২০১০ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
২৫. ১৫ জুন ২০০৯ ব্লমফন্টেইন, দক্ষিণ আফ্রিকা   ৪–৩ জয়ী ২০০৯ ফিফা কনফেডারেশনস কাপ
২৬. ১৫ জুন ২০০৯ ব্লমফন্টেইন, দক্ষিণ আফ্রিকা   ৪–৩ জয়ী ২০০৯ ফিফা কনফেডারেশনস কাপ
২৭. ৭ জুন ২০১০ দারুস সালাম, তানজানিয়া   ১–৫ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
২৮. ১১ অক্টোবর ২০১২ মালমো, সুইডেন   ৬–০ জয়ী প্রীতি ম্যাচ
২৯. ১৬ অক্টোবর ২০১২ রোক্লাও, পোলান্ড   ৪-০ জয়ী প্রীতি ম্যাচ

অর্জনসম্পাদনা

ক্লাবসম্পাদনা

সাও পাওলো
মিলান
রিয়াল মাদ্রিদ
ওরলান্ডো সিটি

দেশসম্পাদনা

ব্যক্তিগতসম্পাদনা

 
সাম্বা ডি’অর ২০০৮ হাতে কাকা
Award Year(s) Won
রেভিস্তা প্লাসার বোলা দে অউরো ২০০২
ক্যাম্পিওনাতো ব্রাসিলিরো বোলা দে প্রাতা (পজিশনে সেরা খেলোয়াড়) ২০০২
কনকাকাফ গোল্ডকাপ সেরা একাদশ ২০০৩
সিরি আ বর্ষসেরা বিদেশি ফুটবলার ২০০৪, ২০০৬, ২০০৭
সিরি আ বর্ষসেরা ফুটবলার ২০০৪, ২০০৭
উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ টপ অ্যাসিস্টার ২০০৪–০৫,[২৪] 2011–12[২৫]
উয়েফা ক্লাব বর্ষসেরা মিডফিল্ডার ২০০৪–০৫
উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ টপ স্কোরার ব্রোঞ্জ ২০০৫–০৬[২৬]
উয়েফা বর্ষসেরা দল ২০০৬, ২০০৭,২০০৯
ফিফপ্রো বিশ্ব একাদশ ২০০৬, ২০০৭, ২০০৮
প্যালন ডি'আর্জেন্টা ২০০৬–০৭[২৭]
উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ টপ স্কোরার ২০০৬–০৭[২৮]
উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ সেরা ফরোয়ার্ড ২০০৬–০৭
উয়েফা ক্লাব বর্ষসেরা ফুটবলার ২০০৬–০৭
ফিফপ্রো বর্ষসেরা ফুটবলার ২০০৭[২৯]
ব্যালন ডি'অর ২০০৭[৩০][৩১]
ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার ২০০৭[৩২][৩৩]
ওয়ার্ল্ড সকার বর্ষসেরা ফুটবলার ২০০৭[৩৪]
আইএফএফএইচএস বিশ্ব সেরা প্লেমেকার ২০০৭[৩৫]
আইএএএফ লাতিন বর্ষসেরা খেলোয়াড় ২০০৭[৩৬]
ওনজে ডি'অর ২০০৭
ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ গোল্ডেন বল ২০০৭
ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ ফাইনালে মোস্ট ভ্যালুয়েবল খেলোয়াড় ২০০৭[৩৭]
টাইম ১০০ ২০০৮,[৩৮] ২০০৯[৩৯]
মারাকানা হল অফ ফেইম ২০০৮[৪০]
সাম্বা ডি'অর ২০০৮
মার্কা লেয়েন্দা ২০০৯
ফিফা কনফেডারেশনস কাপ গোল্ডেন বল ২০০৯
ফিফা কনফেডারেশনস কাপ সেরা একাদশ ২০০৯
ফিফা বিশ্বকাপ টপ অ্যাসিস্টার ২০১০[৪১]
এসি মিলান হল অফ ফেম ২০১০[৪২]
এমএলএস অল-স্টার ২০১৫[৪৩]
এমএলএস অল-স্টার এমভিপি ২০১৫[৪৪]
ঊয়েফা আল্টিমেট বর্ষসেরা দল (substitute) ২০১৫[৪৫]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Biografia de Kaká"। Quadro de Medalhas। ডিসেম্বর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০১২ 
  2. "Kaká: Player Profile"। Orlando City SC। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। 
  3. "Kaká:in Profile"FIFA। ২৬ জুন ২০০৯। 
  4. "Kaka profile". Goal.com. Retrieved 28 June 2014
  5. "Kaka tops 10M Twitter followers"ESPN। ২৬ এপ্রিল ২০১২। 
  6. http://www.terra.com.br/istoegente/168/reportagens/capa_kaka_01.htm
  7. https://www.independent.co.uk/sport/football/world-cup/the-golden-boy-of-a-golden-team-481010.html
  8. http://kakamania.br.tripod.com/Kaka/id7.html
  9. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২২ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১৭ 
  10. http://www.v-brazil.com/culture/sports/football/player/kaka.html
  11. https://web.archive.org/web/20071016154138/http://kakafans.net/kakablog.php
  12. http://www1.skysports.com/football/news/11891/2256638/sao-paulo-to-sell-kaka
  13. http://sports.espn.go.com/espn/page2/story%3Fpage%3Dgames/decade/2005liverpoolmilan
  14. https://www.theguardian.com/football/2005/may/26/match.acmilan
  15. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জানুয়ারি ২০১৯ 
  16. http://uk.reuters.com/article/2007/08/30/uk-soccer-champions-awards-idUKL3086976420070830
  17. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জানুয়ারি ২০১৯ 
  18. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২২ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৭ 
  19. https://www.telegraph.co.uk/news/worldnews/southamerica/brazil/4286613/Seven-dead-and-dozens-injured-after-Kakas-church-collapses-during-service.html
  20. http://www.thedailystar.net/2005/12/24/d51224041745.htm
  21. https://twitter.com/RealKaka/status/12517125235146752
  22. https://instagram.com/p/50SJ_Oy3yZ/
  23. "Kaká"। ESPN soccernet। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১০ 
  24. "Statistics — Tournament phase — Assists (2004–05)"UEFA.COM। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১৫ 
  25. "Statistics — Tournament phase — Assists (2011–12)"UEFA.COM। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১৫ 
  26. "Statistics — Tournament phase — Assists (2005-06)"UEFA.COM। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০১৫ 
  27. "PALLONE D'ARGENTO A EL SHAARAWY: L'ALBO D'ORO"acmilan.com (Italian ভাষায়)। A.C. Milan। ১২ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৩ এপ্রিল ২০১৫ 
  28. "Statistics — Tournament phase — Assists (2006-07)"UEFA.COM। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০১৫ 
  29. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :4 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  30. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :0 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  31. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :1 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  32. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :2 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  33. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :3 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  34. Jamie Rainbow (১৪ ডিসেম্বর ২০১২)। "World Soccer Awards – previous winners"। World Soccer। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০১৫ 
  35. "FORMER RESULTS"। IFFHS.de। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  36. "JEFFERSON PÉREZ IS VOTED BEST LATIN AMERICAN SPORTSMAN OF THE YEAR"। International Association of Athletics Federations (IAAF)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  37. "2007 FIFA Club World Cup awards"Fédération Internationale de Football Association। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০১৩ 
  38. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :5 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  39. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :7 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  40. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :6 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  41. 2010 FIFA World Cup statistics
  42. "A.C. Milan Hall of Fame: Ricardo Izecson dos Santos Leite (Kakà)"acmilan.com। A.C. Milan। ১ মে ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০১৫ 
  43. "Sebastian Giovinco, Kei Kamara among 22 players named to 2015 AT&T MLS All-Star Game roster"। Major League Soccer। ২০ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৫ 
  44. Arielle Castillo (৩০ জুলাই ২০১৫)। "All-Star: The post-game celebration turned into a love fest for 2015 MVP Kaká"MLSsoccer.com। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০১৫ 
  45. "Ultimate Team of the Year: The All-Time XI"। UEFA। ২২ নভেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৫ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা