একচক্র

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের গ্রাম

একাচক্র একটি ছোট্ট গ্রাম। এটি পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার রামপুরহাট শহর থেকে ২০ কিমি দূরে অবস্থিত।[১] হিন্দুদের ঐতিহ্যের মধ্যেই, মহাকাব্য মহাভারতে পাঁচ পাণ্ডবদের নির্বাসনের সময় তাদের একচক্রে থাকার কথা বলা হয়েছে।[২] এটি গৌড়ীয় বৈষ্ণবতিহ্যের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব নিত্যানন্দ রামের জন্মস্থান (১৪৭৪ খ্রিষ্টাব্দ) হিসাবেও বিখ্যাত।

একচক্র
গ্রাম
একচক্র পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
একচক্র
একচক্র
পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৪°০৩′৪১″ উত্তর ৮৭°৫০′৫২″ পূর্ব / ২৪.০৬১৪৩৪° উত্তর ৮৭.৮৪৭৭৮৯° পূর্ব / 24.061434; 87.847789স্থানাঙ্ক: ২৪°০৩′৪১″ উত্তর ৮৭°৫০′৫২″ পূর্ব / ২৪.০৬১৪৩৪° উত্তর ৮৭.৮৪৭৭৮৯° পূর্ব / 24.061434; 87.847789
দেশ ভারত
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
জেলাবীরভূম
ভাষা
 • সরকারিবাংলা, ইংরেজি
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
ওয়েবসাইটbirbhum.nic.in

গ্রামটি প্রায় আট মাইল এলাকা জুড়ে উত্তর এবং দক্ষিণে প্রসারিত।

কিংবদন্তীসম্পাদনা

একচক্র নামের উৎপত্তি পান্ডবদের কিংবদন্তীর সাথে জড়িত। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে যখন কৃষ্ণ তার ভক্ত অর্জুনকে বাঁচাতে যুদ্ধে কোনও পক্ষ না নেওয়ার প্রতিজ্ঞা ভঙ্গ করেছিলেন, তখন তিনি অর্জুনের সাথে লড়াই করে আসা ভীষ্মদেবকে আঘাত করার জন্য চাকা নিয়ে ছুটে এসেছিলেন। ভীষ্মদেব যখন তাকে অনেক সুন্দর প্রার্থনা দিয়ে সন্তুষ্ট করেছিলেন, তখন কৃষ্ণ তার ক্রোধ হারিয়ে চাকাটিকে একপাশে ফেলে দেন। চাকাটি এই একচক্র গ্রামের জমির উপর পড়ে এবং তাই একচক্র নামটি পায় এই গ্রামএক-এর অর্থ একটি, এবং চক্র অর্থ চাকা।

মহাভারতে এটিও সেই জায়গা বলে বিশ্বাস করা হয় যেখানে বকাসুর থাকতেন, যাকে পরে ভীমের দ্বারা হত্যা করা হয়। তবে পুরো ভারত জুড়ে বেশ কয়েকটি জায়গা রয়েছে যা প্রাচীন একচক্র হিসাবে পরিচিত।

ভূগোলসম্পাদনা

অবস্থানসম্পাদনা

একচক্রের অবস্থান ২৪°০৩′৪১″ উত্তর ৮৭°৫০′৫২″ পূর্ব / ২৪.০৬১৪৩৪° উত্তর ৮৭.৮৪৭৭৮৯° পূর্ব / 24.061434; 87.847789

গর্ভাভাসসম্পাদনা

বলা হয় এটি নিত্যানন্দের আসল জন্মস্থান। জন্মস্থানের মন্দিরে স্থানীয় ব্রাহ্মণ পরিবার দ্বারা পূজিত নিতাই (নিত্যানন্দ) এর মূর্তি রয়েছে। নিত্যানন্দের বাবার আসল বাড়ির স্থান হদাই পণ্ডিতা ভবনে। নিতাই কুণ্ডের পাশের ছোট সাদা মন্দিরটি নিত্যানন্দের জন্মের স্থান হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। এই মন্দিরের দুটি বটবৃক্ষ রয়েছে যেগুলি নিত্যানন্দের সময় থেকেই ছিল বলে জানা যায়।

মন্দিরের মূল বেদীর মাঝখানে নিত্যানন্দের মূর্তি রয়েছে। তার বাম দিকে, হাত তুলে চৈতন্য মহাপ্রভু । নিত্যানন্দের ডানদিকে অদ্বৈত আচার্য্য। পাশের বেদীতে হয়েছে রাধা -রাধাকান্ত এবং রাধা-কৃষ্ণ, মাঝে বৃহৎ নৃত্যরত গৌরাঙ্গ। মন্দিরটি নির্মাণ করেছিলেন প্রসন্নাকুমার করফর্ম।

বঙ্কিমা রায় মন্দিরসম্পাদনা

বঙ্কিমা রায় মন্দিরের মধ্যে বর্তমান দেবতা মূর্তি একচক্রের যমুনা নদীর মধ্যে নিত্যানন্দ নিজেই পেয়েছিলেন। মূর্তিটি তখন একটি মন্দিরে স্থাপন করা হয়েছিল, যা এখন জাহ্নু কুন্ডায় নিমজ্জিত। নিত্যানন্দ তার অন্তর্ধানের সময় এই দেবতার সাথে একীভূত হয়েছিলেন বলে বিশ্বাস করা হয়। বঙ্কিমা রায়ের বর্তমান মন্দিরটিও প্রাচীন। জাহ্নব মাতার (নিত্যানন্দের স্ত্রী) মূর্তি তার পাশে রাখা হয়েছিল। এই মন্দিরে বীরচন্দ্র গোস্বামীর একটি ছোট সমাধিও রয়েছে ।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Chaitanya Charitamrita Adi-lila,13.61, purport"। ৩ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ 
  2. O’Malley, L.S.S., ICS, Birbhum, Bengal District Gazetteers, p. 128, first published 1910, 1996 reprint, Government of West Bengal