বিশ্রবা (বা স্থানভেদে বিশ্বশ্রবা) ছিলে ঋষি পুলস্ত্যের পুত্র এবং প্রজাপতি ব্রহ্মার পৌত্র৷ হিন্দু ধর্মগ্রন্থ রামায়ণে উল্লিখিত বিশ্রবা ঋষি ছিলেন মুনিদের মধ্যে অতি গূরুত্বপূর্ণ৷ তার তপস্যা তাকে বিশেষ ক্ষমতার অধিকারী করে তোলে ও অন্যান্য বিদ্বজ্জন এবং পণ্ডিত মুনি-ঋষিদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য স্থান করে দেয়৷ ভরদ্বাজ মুনি তার প্রতি সন্তুষ্ট হয়ে তাকে তার স্ত্রীস্বরূপ নিজকন্যা দেববর্ণিনীকে অর্পণ করেন৷ বিশ্রবার ঔরসে ও দেববর্ণিনীর গর্ভে কুবের নামক এক পুত্রসন্তান জন্মলাভ করে৷ তিনিই ছিলেন স্বর্ণলঙ্কার আসল রাজা এবং দেবসম্পত্তি ও ধনৈশ্বর্যের দেবতা৷[১]

বিশ্রবা
সন্তানকুবের, রাবণ, কুম্ভকর্ণ, বিভীষণ, খর, দূষণ (পুত্র) এবং শূর্পণখা (কন্যা)
সঙ্গীদেববর্ণিনী, পুষ্পোৎকটা, নিকষা, রাকা
মাতাপিতা

ঋষি বিশ্রবার বুদ্ধিমত্তা, বৈদিক জ্ঞান ও যোগবলের কথা বহুদুর রাক্ষসদের রাজা সুমালীর কানে পৌঁছায় এবং তিনি তার পত্নী কেতুমতির সাথে পরামর্শ করেন৷ তারা উভয়ই পরাক্রমশালী রাজা ও ঋষিগণের সংস্পর্শে ও তাদের সাথে আঁতাত করে নিজেদের শক্তিবৃদ্ধির কথা চিন্তা করেন৷ তারা তাদের কন্যা নিকষাকে বাশ্রবার পত্নীহিসাবে প্রতিষ্ঠিত করে মুনিদের দিব্য সংস্পর্শে আসার ও তাদের মাত দেওয়ার পরিকল্পনা করেন৷ নিকষা মায়াবলে সুদর্শনা সজ্জিত হয়ে বিশ্রবার সামনে এলে তিনি তার রূপে মোহিত হয়ে তাকে বিবাহ করতে রাজি হন৷ ক্রমে তাদের চার সন্তান জন্ম নেয়৷ তাদের জ্যেষ্ঠপুত্র রাবণ বিশ্রবার জ্যেষ্ঠপুত্র কুবেরকে তার সাম্রাজ্য লঙ্কা থেকে উৎখাত করে ও তার রাজ্য দখল করে৷ রাবণ চরিত্রটি হিন্দু ধর্মগ্রন্থ রামায়ণের খলনায়কও বটে৷[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

রাবণ ছাড়াও বিশ্রবা ও নিকষার কুম্ভকর্ণবিভীষণ দুই পুত্র সন্তান এবং শূর্পণখা নামে এক কন্যা সন্তান ছিলো৷ রাবণ তার জ্যেষ্ঠভ্রাতা কুবেরের প্রতি বিরূপ মনোভাব পোষন করায় বিশ্রবা তার রাক্ষকুলজাত স্ত্রী ও তার পরিবার ছেলে তার প্রথম পত্নী দেববর্ণিনীর কাছে চলে আসেন৷

তার অপর দুই পত্নীর উল্লেখ ও পাওয়া যায়, তারা হলেন পুষ্পোৎকটা এবং রাকা৷ পুষ্পোৎকটার চারপুত্র তথা মহোদর, প্রহস্ত, মহাপাংশু ও খর এবং এক কন্যা কুম্ভিণাশী৷ আর রাকার তিনপুত্র ত্রিশিরস, দূষণ, বিদ্যুৎ জিহ্বা এবং এক কন্যা অসলিকা৷[২]

বার মহাভারত অনুসারে, বিশ্রবার সাথে তার জ্যেষ্ঠপুত্র কুদেরের সাথে মনোমালিন্য হলে কুবের পিতাকে তিন রাক্ষসী দান করে সন্তুষ্ট করতে চান৷ বিশ্রবা তাদের সকলেরই গর্ভাধান করলে পুষ্পোৎকটা রাবণ ও কুম্ভকর্ণের জন্ম দেয়, মালিনী বিভীষণে জন্ম দেয় এবং রাকা জন্ম দেয় শূর্পণখা ও খর-কে৷[৩]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Encyclopedia for Epics of Ancient India Quote: VISRAVAS. [Source: Dowson's Classical Dictionary of Hindu Mythology] Son of Prajapati Pulastya, or, according to a statement of the Mahabharata, a reproduction of half Pulastya himself. By a Brahmani wife, daughter of the sage Bharadwaja, named Idavida or Ilavida, he had a son, Kuvera, the god of wealth.
  2. https://www.wisdomlib.org/definition/vishrava
  3. The Mahabharata 3.259.1-12; translated by J. A. B. van Buitenen, University of Chicago Press, Chicago, 1975, pp. 728-9.