হযরত ইয়াকুব ইংরেজি ভাষায়: Jacob; হিব্রু ভাষায়: יַעֲקֹב‎ ; আধুনিক: Yaʿakov; সেপ্তুয়াগিন্ত গ্রিক ভাষায়: Ἰακώβ Iakōb; আরবি ভাষায়: يَعْقُوب), ইসরাঈল নামেও পরিচিত (হিব্রু ভাষায়: יִשְׂרָאֵל; আধুনিক: Yiśrāʾēl; সেপ্তুয়াগিন্ত গ্রিক ভাষায়: Ἰσραήλ Israēl; আরবি ভাষায়: إِسْرَائِيل), হিব্রু বাইবেল এবং কোরআনের বর্ণনা অনুসারে, তিনি ছিলেন একজন নবী[১] তার গোত্রের নাম ছিল বনী-ইসরাঈল। এই নামে কোরআনে একটি সূরা নাযিল হয়েছে।

হযরত ইয়াকুব
উত্তরসূরিহযরত ইউসুফ
ইয়াকুব
Jacob (Israel).jpg
ইয়াকবু রাশিয়ান অর্থডক্স আইকনে ১৮তম শতকে
নবী, কুলপতি
সম্মানিতইহুদি ধর্ম
খ্রিস্ট ধর্ম
ইসলাম
বাহাই ধর্ম
প্রধান মঠগুহার অধিষ্ঠাতা, হেবরন

জীবনীসম্পাদনা

পারিবারিক জীবনসম্পাদনা

ইয়াকুব এর বার জন পুত্র-সন্তানের কথা কোরাআনে উল্লেখ করা হয়েছে এবং হিব্রু বাইবেলে বার জন পুত্র-সন্তান ও কয়েক জন কন্যা সন্তানের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। মেয়েদের মধ্যে শুধু একজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। তাদের প্রত্যেকেরই সন্তান-সম্ভতি হয় এবং বংশ বিস্তার লাভ করে। হিব্রু বাইবেল অনুসারে তাদের নাম হলঃ রেউবেন, সিমোন, লেভি, জুদাহ(ইয়াহুদা), দান, নাফতালি, গাদ, আশের, ইসসাচার, জেবুলুন, মেয়ে দিনাহ, জোসেফ বা ইউসুফ, এবং বেনজামিন বা বেনিয়ামিন। তার উপাধি ছিল ইসরাঈল । তাই বারটি পরিবার সবাই বনী-ইসরাঈল নামে খ্যাত হয়। বারপুত্রের মধ্যে দশ জন জ্যেষ্ঠপুত্র ইয়াকুব এর প্রথমা স্ত্রী "লাইয়্যা বিন্‌তে লাইয়্যানের" গর্ভে জন্মলাভ করে। তার মৃত্যুর পর ইয়াকুব লাইয়্যার ভগিনী "রাহীলকে" বিবাহ করেন। রাহীলের গর্ভে দু'পুত্র ইউসুফ ও বেনিয়ামিন জন্মগ্রহণ করেন। তাই ইউসুফ এর একমাত্র সহোদর ভাই ছিলেন বেনিয়ামিন এবং অবশিষ্ট দশ জন বৈমাত্রেয় ভাই ও কয়েক জন বোন। ইউসুফ জননী রাহীলও বেনিয়ামিনের জন্মের পর মৃত্যুমুখে পতিত হন।[২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Wells, John C. (১৯৯০)। Longman pronunciation dictionary। Harlow, England: Longman। পৃষ্ঠা 381। আইএসবিএন 0-582-05383-8  entry "Jacob"
  2. মারেফুল কোরআন ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৮ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে, হযরত মাওলানা মুফতী মুহাম্মাদ শাফী' , অনুবাদঃ মাওলানা মুহিউদ্দন খান, সূরা ইউসুফ পৃষ্ঠা- ৬৫৪।

বহিঃসংযোগসম্পাদনা