ইম্ফল

ভারতের মণিপুর রাজ্যেরর রাজধানী

ইম্ফল (ইংরেজি: Imphal) ভারতের মণিপুর রাজ্যের পশ্চিম ইম্ফল জেলার একটি শহর। শহরটির কেন্দ্রে পুরান মণিপুর রাজ্যের রাজা হাউলি কাংলা মহলের ভগ্নাবশেষ চারদিকে ছড়িয়ে আছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধর সময়ে ১৯৪৪ সালের মার্চ থেকে জুলাই পর্যন্ত এখানে ইম্ফল যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল।[২] ইম্ফল মহানগরীর বৰ্তমান মেয়র হলেন এল. লোকেশ্বর সিং।

ইম্ফল
ইম্ফল
মণিপুরের রাজধানী শহর
ইম্ফল মণিপুর-এ অবস্থিত
ইম্ফল
ইম্ফল
স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৯′ উত্তর ৯৩°৫৭′ পূর্ব / ২৪.৮২° উত্তর ৯৩.৯৫° পূর্ব / 24.82; 93.95স্থানাঙ্ক: ২৪°৪৯′ উত্তর ৯৩°৫৭′ পূর্ব / ২৪.৮২° উত্তর ৯৩.৯৫° পূর্ব / 24.82; 93.95
দেশ India
রাজ্যমণিপুর
জেলাপশ্চিম ইম্ফল, পূর্ব ইম্ফল
উচ্চতা৭৮৬ মিটার (২,৫৭৯ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১১ আদম শুমারি)
 • মোট২,৬৪,৯৮৬ (City) ৪,১৪,২৮৮ (Metropolitan area)[১]
ভাষাসমূহ
 • সরকারীMeiteilon (মণিপুরি)
সময় অঞ্চলIST (ইউটিসি+5:30)
PIN৭৯৫xxx
Telephone code৩৮৫২
যানবাহন নিবন্ধনMN01
ওয়েবসাইটwww.imphalwest.nic.in

ভৌগোলিক উপাত্তসম্পাদনা

শহরটির অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হল ২৪°৪৯′ উত্তর ৯৩°৫৭′ পূর্ব / ২৪.৮২° উত্তর ৯৩.৯৫° পূর্ব / 24.82; 93.95[৩] সমূদ্র সমতল হতে এর গড় উচ্চতা হল ৭৮৬ মিটার (২৫৭৮ ফুট)।

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

ভারতের ২০০১ সালের আদম শুমারি অনুসারে ইম্ফল শহরের জনসংখ্যা হল ২১৭,২৭৫ জন।[৪] এর মধ্যে পুরুষ ৫০% এবং নারী ৫০%।

এখানে সাক্ষরতার হার ৭৯%। পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ৮৪% এবং নারীদের মধ্যে এই হার ৭৪%। সারা ভারতের সাক্ষরতার হার ৫৯.৫%, তার চাইতে ইম্ফল এর সাক্ষরতার হার বেশি।

এই শহরের জনসংখ্যার ১০% হল ৬ বছর বা তার কম বয়সী।

পরিবহণসম্পাদনা

আকাশপথেসম্পাদনা

বীর তিকেন্দ্রজিৎ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর রাজ্যের প্রধান , উত্তর-পূর্ব ভারতের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক এবং গুয়াহাটিআগরতলা-র পর তৃতীয় ব্যাস্ততম বিমানবন্দর। এটি সরাসরি ফ্লাইটে মায়ানমারের মান্দালয় শহরের সাথে যুক্ত।

রেলপথসম্পাদনা

২০১২ সালে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের কেবিনেট জিরিবাম শিলচর রেলপথ ইম্ফলে প্রসারিত করার জন্য ঘোষণা করেছিলেন।[৫][৬]

স্থলপথসম্পাদনা

 
ইম্ফল দিয়ে যাওয়া ১৫০ নং জাতীয় সড়ক

ইম্ফলের মধ্য দিয়ে ১৫০ নং জাতীয় সড়ক পার হয়ে গেছে। এটি স্থলপথে উত্তর পূর্বাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ নগর গুয়াহাটী, কোহিমা, আগরতলা, শিলং, ডিমাপুর, আইজল, শিলচর ইত্যাদির সঙ্গে সংযোজিত।

পর্যটনসম্পাদনা

কাংলাসম্পাদনা

 
কাংলা গড়ে একজোড়া কাংলা শা
 
কাংলা গড়ের ভগ্নায়শেষ
 
কাংলা যাদুঘর

কাংলা গড় ইম্ফল নদীর পারে অবস্থিত। একে কাংলা মহলও বলা হয়। মেইতেই ভাষাতে কাংলা মানে শুকান স্থান। এই মহল মণিপুর রাজ্যের রাজা পাখাংবার রাজ হাউলি ছিলেন। ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকেও এটি গুরুত্বপূর্ণ। গড়ের ভিতর কয়েকটি মন্দির এবং এর চারদিকে দ খায়ৈ আছে।

বিহু লৌকনসম্পাদনা

বিহু লৌকন বোকা মাটির প্রাচীন তারা আকারের গড়। এটি পশ্চিম ইম্ফল জেলার মাকলাঙে অবস্থিত।

 
আকাশ থেকে বিহু লৌকন

হিয়ানথাং লাইরেম্বি মন্দিরসম্পাদনা

হিয়ানথাং লাইরেম্বি মন্দির অঞ্চলে কয়েকটি পুরানো মন্দির আছে। এখানে প্রতি বছর দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়।

ভারত শান্তি স্মৃতিসৌধসম্পাদনা

ইম্ফল নগর থেকে ১৭ কিঃমিঃ দূরে চিদ্দিম পথে অবস্থিত রঙা পাহাড়ে ভারত শান্তি স্মৃতিসৌধ আছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে মিত্র বাহিনী ও জাপানী সৈন্যের মধ্যে ঘটা যুদ্ধের স্মৃতিস্বরূপ এটি নির্মাণ করানো হয়েছিল।

ইম্ফল যুদ্ধ কবরস্থানসম্পাদনা

 
ইম্ফল যুদ্ধ কবরস্থান

১৯৪৪ ইম্ফল যুদ্ধে প্রাণ হারানো ব্রিটিশ ভারতীয় সৈন্যদের স্মৃতিতে ইম্ফল যুদ্ধ কবরস্থান নির্মান করা হয়েছিল।

ইমা কেইথেলসম্পাদনা

ইমা কেইথেল বা মহিলার বাজার ইম্ফলের অন্যতম আকর্ষণ। কেবল মহিলা দ্বারা পরিচালনা করা এবং সবগুলি মহিলার দোকান থাকা এটি পৃথিবীর একমাত্র মহিলাদের বাজার।[৭]

 
ইমা কেইথেল

ত্রি-মাতৃ চিত্র বিথীকাসম্পাদনা

ত্রি-মাতৃ চিত্র বিথীকা ইম্ফল শহরের উল্লেখযোগ্য চিত্র কলা সংগ্রহালয় এবং বিথীকা। এটি ইম্ফল থেকে ৪ কিঃমিঃ দূরে ঠাঙাপাত পথে অবস্থিত।

ক্রীড়াসম্পাদনা

ইম্ফলে খুমন লামপাক মুখ্য স্টেডিয়াম নামক একটি বহুমুখী স্টেডিয়াম আছে। এখানে বৃহৎভাবে ফুটবল ও এথলেটিক্স অনুষ্ঠিত হয়। ৩০,০০০ মানুষের আসনের এই স্টেডিয়াম১৯৯৯ সালে নির্মাণ করা হয়েছিল। ফুটবলের আই লীগ খেকা এনইআরঅসিএ এফসির এটি ঘরের খেলা।

শিক্ষাসম্পাদনা

বিশ্ববিদ্যালয়সম্পাদনা

 
মণিপুর বিশ্ববিদ্যালয়র প্রবেশদ্বার
  • মণিপুর বিশ্ববিদ্যালয়[৮]
  • কেন্দ্রীয় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
  • জাতীয় ক্রীড়া বিশ্ববিদ্যালয়
  • মণিপুর সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয়

প্রযুক্তিবিদ্যা প্রতিষ্ঠানসম্পাদনা

  • ভারতীয় তথ্য প্রযুক্তিবিদ্যা প্রতিষ্ঠান, মণিপুর
  • মণিপুর প্রযুক্তিবিদ্যা প্রতিষ্ঠান
  • জাতীয় প্রযুক্তিবিদ্যা প্রতিষ্ঠান, মণিপুর[৯]
  • মণিপুর প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়[১০]

চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়সম্পাদনা

  • আঞ্চলিক চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান[১১]
  • জওহরলাল নেহরু চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান[১২]
 
সিটি কনভেনশন কেন্দ্র

বিদ্যালয়সম্পাদনা

ইম্ফলে কয়েকটি সিবিএসই, আইসিএসই এবং রাজ্যিক বোর্ডের অন্তর্গত বিদ্যালয় আছে। সেইসমূহের ভিতর উল্লেখযোগ্য হল:

  • এরিকা স্কুল, রাগাইলং
  • কমেট স্কুল, চাংঙেই
  • ডাভ পাব্লিক স্কুল, চিংমেইরং
  • ডন বস্ক' স্কুল ইম্ফল
  • গুরু নানক পাব্লিক স্কুল
  • হারবার্ট স্কুল
  • জওহর নবোদয় বিদ্যালয়
  • জনস্টন পাব্লিক স্কুল ইত্যাদি

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Census2011.co.in. 2011. Retrieved 2011-09-30.
  2. "Imphal and Kohima"Britain's Greatest BattlesNational Army Museum। ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ জানুয়ারি ২০১৬ 
  3. "Imphal"Falling Rain Genomics, Inc। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৬, ২০০৬ 
  4. "ভারতের ২০০১ সালের আদম শুমারি"। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৬, ২০০৬ 
  5. "Govt approves rail link to Imphal"The Indian Express। ২৬ অক্টোবর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১২ 
  6. "NFR – Jiribam-Imphal Rail Line – Manipur"। Construction Intelligence Centre। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  7. "Ima Keithel – A market by women"She। msn। ১৫ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১২ 
  8. "Manipur University"। ১ জুন ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১৫ 
  9. "Welcome To NIT Manipur"। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১৫ 
  10. (ইংরেজি ভাষায়) http://mtu.ac.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০২-২৫  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  11. "Regional Institute of Medical Sciences"। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানুয়ারি ২০১৪ 
  12. "JNIMS"। ২২ নভেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানুয়ারি ২০১৪