অ্যালাসডেয়ার ইভান্স

স্কটল্যান্ডীয় ক্রিকেটার
(অ্যালাসদার ইভান্স থেকে পুনর্নির্দেশিত)

অ্যালাসডেয়ার ক্যাম্পবেল ইভান্স (জন্ম: ১২ জানুয়ারি, ১৯৮৯) ইংল্যান্ডের কেন্টের টানব্রিজ ওয়েলস এলাকায় জন্মগ্রহণকারী স্কটিশ ক্রিকেটার। ডানহাতি ব্যাটসম্যান অ্যালাসডেয়ার ইভান্স স্কটল্যান্ড ক্রিকেট দলে খেলছেন। এছাড়াও তিনি ডানহাতে মিডিয়াম-ফাস্ট বোলিংয়েও পারদর্শী।

অ্যালাসডেয়ার ইভান্স
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামঅ্যালাসডেয়ার ক্যাম্পবেল ইভান্স
জন্ম (1989-01-12) ১২ জানুয়ারি ১৯৮৯ (বয়স ৩১)
টানব্রিজ ওয়েলস, কেন্ট, ইংল্যান্ড
উচ্চতা৬ ফুট ৫ ইঞ্চি (১.৯৬ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ওডিআই অভিষেক৭ জুলাই ২০০৯ বনাম কানাডা
শেষ ওডিআই২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ বনাম আফগানিস্তান
ওডিআই শার্ট নং৪৫
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৯লাফবোরা ইউসিসিই
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১০ ১৬
রানের সংখ্যা ৬৯ ৩৪ ৮২
ব্যাটিং গড় ২৩.০০ ১১.৩৩ ১১.৭১
১০০/৫০ –/– –/– –/–
সর্বোচ্চ রান ২৮ ১৪* ২৮
বল করেছে ৪২৭ ৮১৯ ৯১০
উইকেট ১৫ ১৯
বোলিং গড় ৩৬.৮৭ ৩৭.৮০ ৪১.৫৭
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/৩০ ৬/৩০ ২/৩০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/– ১/– ৩/–
উৎস: Cricinfo, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

খেলোয়াড়ী জীবনসম্পাদনা

লাফবোরা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক শ্রেণীতে অধ্যয়নকালীন লাফবোরা ইউসিসিই দলের পক্ষে ২০০৯ সালে লিচেস্টারশায়ারের বিপক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষিক্ত হন।[১] একই সালে কেন্টের বিপক্ষেও তিনি খেলেছিলেন।[২] ঐ মৌসুমেই স্কটল্যান্ড দলের সদস্যরূপে অন্তর্ভুক্ত হন ও কানাডার বিপক্ষে দুই খেলায় অংশ নেন।[৩] সুনীল ধনিরামের উইকেট লাভ করেন তিনি।[৪]

পরবর্তীতে আগস্ট, ২০০৯ সালে আইসিসি আন্তঃমহাদেশীয় কাপে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষিক্ত হন। ২০১০ সালে লিস্ট এ ক্রিকেটে ভারত এ-দলের বিরুদ্ধে খেলেন। কিন্তু ১৫২ রানের ব্যবধানে তার দল পরাজিত হয়।[৫] এছাড়াও, ২০১১-১৩ আইসিসি আন্তঃমহাদেশীয় কাপে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে খেলেন তিনি।[২]

ক্রিকেট বিশ্বকাপসম্পাদনা

৯ জানুয়ারি, ২০১৫ তারিখে ক্রিকেট স্কটল্যান্ড কর্তৃপক্ষ কাইল কোয়েতজারকে অধিনায়কত্ব করে তাদের ১৫-সদস্যের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে।[৬] খেলায় তিনিও সদস্য মনোনীত হন। ২৬ ফেব্রুয়ারি তারিখে অণুষ্ঠিত গ্রুপ-পর্বের ৩য় খেলায় আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৯ম উইকেটে মজিদ হককে সাথে নিয়ে স্কটল্যান্ডের একদিনের ইতিহাসে ৬২ রানের সেরা জুটি গড়েন।[৭] এরফলে প্রথমবারের মতো স্কটল্যান্ড দল বিশ্বকাপে দুই শতাধিক রানের কোটা অতিক্রম করলেও[৭] তার দল মাত্র ১ উইকেটের ব্যবধানে পরাজিত হয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Player profile: Alasdair Evans"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১১ 
  2. "First-Class Matches played by Alasdair Evans"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১১ 
  3. "One-Day International Matches played by Alasdair Evans"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১১ 
  4. "Scotland v Canada, 2009"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১১ 
  5. "Scotland v India A, 2010"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১১ 
  6. "SCOTLAND NAME FINAL 15 MAN SQUAD FOR THE ICC CRICKET WORLD CUP 2015"। ৯ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ জানুয়ারি ২০১৫ 
  7. McGlashan, Andrew (২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "History for Afghanistan, heartbreak for Scotland"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা