সিটিসেল

বাংলাদেশের সাবেক টেলিযোগাযোগ সংস্থা

সিটিসেল বাংলাদেশের ছিলো প্রথম সিডিএমএ মোবাইল অপারেটর। ১৯৮৯ খ্রিষ্টাব্দে এটি বাংলাদেশে কার্যক্রম শুরু করে। এটি দক্ষিণ এশিয়ার প্রাচীনতম মোবাইল ফোন অপারেটর তিনটির একটি। এটিই বাংলাদেশের একমাত্র সিডিএমএ মোবাইল অপারেটর। আগস্ট ২০১১-এর হিসাব অনুযায়ী সিটিসেলের গ্রাহক সংখ্যা ১.৭৭৮ মিলিয়ন। সিটিসেলের ৪৫% সিংটেল-এর মালিকানায় এবং ৫৫% মালিকানায় ছিলো প্যাসিফিক গ্রুপ ও ফার ইস্ট টেলিকমের।

সিটিসেল (প্যাসিফিক বাংলাদেশ টেলিকম লিমিটেড)
লিমিটেড
শিল্পটেলিযোগাযোগ
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৮৯
বিলুপ্তিকাল২০ অক্টোবর ২০১৬
সদরদপ্তরবাংলাদেশ ৮ম তলা প্যাসিফিক সেন্টার। ১৪, মহাখালী সি/এ ঢাকা, বাংলাদেশ
বাণিজ্য অঞ্চল
৬১টি জেলা এবং ৪৭০টি থানা
প্রধান ব্যক্তি
মেহবুব চৌধুরী (সিইও)
ডেভিড লি(সিওও)
পণ্যসমূহটেলিফোন, সিডিএমএ
মূল প্রতিষ্ঠানপ্যাসিফিক মটর লিমিটেড
প্যাসিফিক ট্রেড লিমিটেড
প্যাসিফিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
ফার ইস্ট টেলিকম লিমিটেড
সিংটেল এশিয়া প্যাসিফিক ইনভেস্টম্যান্ট পিটিই লিমিটেড
সিংটেল কন্সালট্যান্সি পিটিই লিমিটেড
সিংগাপুর টেলিকম প্যাজিং পিটিই লিমিটেড
স্লোগানকারণ আমরা যত্নবান
ওয়েবসাইটwww.citycell.com

২০০৭ সালের শেষের দিকে সিটিসেল নতুন লোগো উন্মোচন করে। গ্রাহক সংখ্যার দিক থেকে এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম মোবাইল অপারেটর কোম্পানি। ২০১৬ সালের ২০ অক্টোবর বিটিআরসি কোম্পানিটির কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। এ সময় এর গ্রাহক সংখ্যা ছিল ৬ লাখের কিছু বেশি। ৩ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সিটিসেলের তরঙ্গ আবার খুলে দেওয়া হয়।যা ৬ নভেম্বর আবার বন্ধ করা হয়।[১]

ইতিহাসসম্পাদনা

চিত্র:CityCell Logo.jpg
পূর্বের লোগো।

সিটিসেল ১৯৮৯ খ্রিষ্টাব্দে বিটিআরসি থেকে মোবাইল ফোন প্রবর্তনার জন্য তরঙ্গ দৈর্ঘ্য বরাদ্দ লাভ করে। তখন থেকে সিটিসেল বাংলাদেশের একমাত্র সিডিএমএ-এর মোবাইল সেবা প্রধানকারী অপারেটর হিসেবে ২০১৬ পর্যন্ত সেবা দেয়।

নাম্বারের ধরণসম্পাদনা

সিটিসেল এর নাম্বার শুরু হয় "০১১" দিয়ে। যেমন ০১১-১২৩৪৫৬৭৮। আন্তর্জাতিক কোড সহ ডায়াল করতে হলে এভাবে ডায়াল করতে হবে- +৮৮০১১১২৩৪৫৬৭৮ যেখানে +৮৮০ হলো বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ডায়ালিং কোড

পণ্যসম্পাদনা

সিটিসেল তাদের গ্রাহকদের কে দুই ধরনের সেবা দিয়েছে:

সিটিসেল জুমসম্পাদনা

সিটিসেল জুম হলো ইন্টারনেট ডাটা প্ল্যান, যখন কেউ ইন্টারনেট ডাটা প্লান এর গ্রাহক হয় তখন সে একটি ইন্টারনেট ডংগল পায়, যা দিয়ে সে সিটিসেল নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে পারে। দুটি উপায়েই (পোষ্ট পেইড বা প্রিপেইড) সিটিসেল জুম এর ডাটা প্লান গ্রাহক পেতে পারে। সাধারণ গতির চেয়ে একটু বেশি গতির ইন্টারনেট নিয়ে সিটিসেল এর নুতন ইন্টারনেট সার্ভিসের নাম হলো জুম আল্ট্রা।

গ্রাহক সেবা কেন্দ্রসম্পাদনা

সিটিসেল এর অনেক গ্রাহক সেবা কেন্দ্র আছে পুরো বাংলাদেশ জুড়ে। আছে অনেক গ্রাহক সেবা কেন্দ্র পয়েন্ট।

২০১০ খ্রিস্টাব্দের রদবদলসম্পাদনা

২০১০ খ্রিষ্টাব্দের প্রথম দিকে সিটিসেল এর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পদে গুরুত্বপূর্ণ রদবদল করা হয়েছে। মেহবুব চৌধুরী কে বানানো হয়েছে প্রধান কার্য নির্বাহী বা CEO এবং ড্যাভিড লি কে বানানো হয়েছে COO । ফেব্রুয়ারি ২০১০ এ তারা নতুন পদে বসেন। ২০১৬’র অক্টোবরে যখন সরকার সিটিসেল-এর কার্যক্রম বন্ধ করে দেয় তখন মেহবুব চৌধুরী প্রধান কার্য নির্বাহী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আরোও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা