সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়

যুক্তরাজ্যের সাউদাম্পটন শহরে অবস্থিত গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয়

সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয় (নামমাত্র অক্ষরে[৫] সোটন হিসাবে সংক্ষিপ্ত) ইংল্যান্ডের সাউদাম্পটনের একটি গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয়। সাউদাম্পটন যুক্তরাজ্যের গবেষণা-নিবিড় বিশ্ববিদ্যালয়ের রাসেল গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং বিশ্বের সেরা ১০০ টি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থান লাভ করেছে।[৬][৭]

সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়
The University of Southampton logo
লোগো
লাতিন: Universitas Sotoniensis
নীতিবাক্যলাতিন: Strenuis Ardua Cedunt
বাংলায় নীতিবাক্য
প্রচেষ্টা করার জন্য শীর্ষ ফলন[১]
ধরনগবেষণা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিত১৮৬২ – হার্টলি ইনস্টিটিউশন
১৯০২ – হার্টলি ইউনিভার্সিটি কলেজ
১৯৫২ – রাজকীয় সনদ দ্বারা বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা অর্জন করে
বৃত্তিদান£১২.৯ মিলিয়ন (২০২০)[২]
বাজেট£৫৭৮.৪ মিলিয়ন (২০১৯–২০)[২]
আচার্যরুবি ওঅ্যাক্স
উপাচার্যমার্ক ই স্মিথ
পরিদর্শকজ্যাকব রিস-মগ
(পদাধিকার বলে কাউন্সিলের লর্ড প্রেসিডেন্ট)
শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ
২,৭১৫ (২০২০) [৩]
প্রশাসনিক ব্যক্তিবর্গ
৫,০০১
শিক্ষার্থী22,715 (২০১৮/১৯)[৪]
স্নাতক15,790 (২০১৮/১৯)[৪]
স্নাতকোত্তর6,925 (২০১৮/১৯)[৪]
অবস্থান,
যুক্তরাজ্য
শিক্ষাঙ্গনশহুরে বিদ্যায়তন
রঙসমূহগাঢ় নীল রং, হালকা সমুদ্র সবুজ এবং গাঢ় লাল
অধিভুক্তিএসিইউ
ইইউএ
পোর্ট-সিটি ইউনিভার্সিটি লীগ
রাসেল গ্রুপ
এসইএস
সে স্কয়ার্ড
এএসিএসবি
এমবিএ সমিতি
ইউকে বিশ্ববিদ্যালয়
ডব্লিইউএন
ওয়েবসাইটwww.southampton.ac.uk

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাতটি ক্যাম্পাস বা বিদ্যায়তন রয়েছে। প্রধান বিদ্যায়তনটি সাউদাম্পটনের হাইফিল্ড এলাকায় অবস্থিত এবং শহরের মধ্যেকার আরও চারটি বিদ্যায়তন দ্বারা পরিপূরক: অ্যাভিনিউ ক্যাম্পাসে মানবিক বিদ্যালয়, ন্যাশনাল ওশানোগ্রাফি সেন্টারে মহাসাগর ও পৃথিবী বিজ্ঞানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বোলড্রুড ক্যাম্পাসে একটি প্রকৌশল ও সামুদ্রিক প্রযুক্তি ক্যাম্পাস এবং লয়েড'স রেজিস্টার রয়েছে এবং সাউদাম্পটন জেনারেল হসপিটালে মেডিসিন ও স্বাস্থ্য বিজ্ঞান বিষয়ে শিক্ষা প্রদান করে। উপরন্তু, বিশ্ববিদ্যালয় কাছাকাছি উইনচেস্টার ভিত্তিক একটি স্কুল অব আর্ট পরিচালনা করে এবং মালয়েশিয়ায় একটি আন্তর্জাতিক শাখা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স প্রদান করে। প্রতিটি ক্যাম্পাস তার নিজস্ব গ্রন্থাগার সুবিধা দিয়ে সজ্জিত।

সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ১৪,৭০৫ জন স্নাতক ও ৭,৯৬০ জন স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থী রয়েছে, যা এটিকে দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলের উচ্চশিক্ষার শিক্ষার্থীদের দ্বারা বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করে। ইউনিভার্সিটি অব সাউদাম্পটন স্টুডেন্টস ইউনিয়ন, ইউনিয়নের চারটি মিডিয়া আউটলেটে জড়িত থেকে শুরু করে ২০০ টি অনুমোদিত সোসাইটি ও ৮০ টি খেলাধুলার জন্য শিক্ষার্থীদের সমর্থন, প্রতিনিধিত্ব ও সামাজিক কার্যক্রম প্রদান করে।[৮] বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ব্যবহারের জন্য মালিকার সাথে একটি ক্রীড়া মাঠের পরিচালনা করে এবং প্রধান বিদ্যায়তননে একটি ক্রীড়া কেন্দ্র পরিচালনা করে।[৯]

ইতিহাসসম্পাদনা

হার্টলি ইনস্টিটিউশনসম্পাদনা

সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়ের উৎপত্তি হার্টলি ইনস্টিটিউশন হিসাবে, যা ১৮৬২ সালে হেনরি রবিনসন হার্টলির (১৭৭৭-১৮৫০) একটি লোকহিতার্থ দান থেকে গঠিত হয়। হেনরি রবিনসন হার্টলি দুই প্রজন্মের সফল ওয়াইন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রচুর ধন-সম্পদ উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছিলেন।[১০] ১৮৫০ সালে তাঁর মৃত্যুতে, তিনি সাউদাম্পটন কর্পোরেশনের কাছে শহরের কেন্দ্রে সাউদাম্পটনের হাই স্ট্রিটে তার সম্পত্তিতে অধ্যয়ন ও উন্নয়নের জন্য ১,৩০,০০০ ইউরোর উইল রেখে যান।

হার্টলি ইনস্টিটিউটটি প্রধানমন্ত্রী লর্ড পামারস্টন ১৮৬২ সালের ১৫ অক্টোবর একটি প্রধান নাগরিক অনুষ্ঠানে উদ্বোধন করেন, যা এতটাই জাঁকজমকপূর্ণ ছিল, যে শহরের যে কেউ ঘটনাটি স্মরণ করতে পারেন।[১১] আর্থিক সংগ্রামের প্রাথমিক বছরগুলির পরে, হার্টলি ইনস্টিটিউট ১৮৮৩ সালে হার্টলি কলেজ হয়ে ওঠে। এই পদক্ষেপ শিক্ষার্থী, শিক্ষকমণ্ডলীর সংখ্যা বৃদ্ধি, শিক্ষার্থীদের জন্য সুযোগ-সুবিধা ও রেজিস্টার্ড আবাসনের সম্প্রসারণ দ্বারা নেওয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় কলেজসম্পাদনা

হার্টলি কলেজ ১৯০২ সালে লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ডিগ্রি প্রদানকারী শাখা হিসাবে হার্টলি ইউনিভার্সিটি কলেজে পরিণত হয়।[১২] এটি ইউনিভার্সিটি কলেজ মঞ্জুরি কমিটি[১৩] কর্তৃক শিক্ষাদান ও আর্থিক পরিদর্শন এবং কাউন্সিল সদস্যদের অনুদান (তৎকালীন কোষাধ্যক্ষ উইলিয়াম ডারউইন সহ) পর হয়। পরবর্তী বছরগুলিতে শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বৃদ্ধি সাউদাম্পটনের হাইফিল্ড এলাকায় ব্যাক লেনের (বর্তমানে ইউনিভার্সিটি রোড) আশেপাশে কলেজকে গ্রিনফিল্ড জমিতে স্থানান্তরিত করার প্রচেষ্টাকে অনুপ্রাণিত করে। ভিসকাউন্ট হালডেন ১৯১৪ সালের ২০ই জুন নতুন নামকরণ করা সাউদাম্পটন ইউনিভার্সিটি কলেজের নতুন বিদ্যায়তন খোলেন। যাইহোক, ছয় সপ্তাহ পরে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের প্রাদুর্ভাবের কারণে সেখানে কোন বক্তৃতা অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠিত করা সম্ভব হয়নি, কারণ কলেজ কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ভবনসমূহ সামরিক হাসপাতাল হিসাবে ব্যবহারের জন্য হস্তান্তর করা হয়। অধিক সংখ্যায় হতাহতের চিকিৎসার করার জন্য, ভবনের পিছনে কাঠের কুঁড়েঘর তৈরি করা হয়। এগুলি যুদ্ধ শেষ হওয়ার পর হাই স্ট্রিট চত্বর থেকে ১৯২০ সালে স্থানান্তরের সময় যুদ্ধ কার্যালয়ের দ্বারা বিশ্ববিদ্যালয়কে দান করা হয়। সাউথ হিল, যা এখন গ্লেন আইয়ার হল কমপ্লেক্স, তাও দক্ষিণ স্টোনহ্যাম হাউস সহ পুরুষ ছাত্রদের থাকার জন্য অধিগ্রহণ করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়সম্পাদনা

রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ ১৯৫২ সালের ২৯শে এপ্রিল সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি রাজকীয় সনদ প্রদান করেন, যা তার শাসনামলে প্রথম কোনো বিশ্ববিদ্যালয়কে দেওয়া হয়, সনদটি বিশ্ববিদ্যালয়কে ডিগ্রি প্রদান করতে সক্ষম করে।[১৪] ছয়টি অনুষদ তৈরি করা হয়, অনুষদগুলি হল- কলা, বিজ্ঞান, প্রকৌশল, অর্থনীতি, শিক্ষা ও আইন। বিশ্ববিদ্যালয়টির চ্যান্সেলর হিসেবে ডিউক অব ওয়েলিংটন নিয়োগের পর ১৯৫৩ সালের ৪ই জুলাই সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রথম ডিগ্রি প্রদান করা হয়। রবিনস রিপোর্টের প্রতিক্রিয়া হিসাবে পরবর্তী কয়েক দশক ধরে ছাত্র শিক্ষার্থী ও কর্মীদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। বিদ্যায়তনটিও উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পায়, যখন বিশ্ববিদ্যালয়কে বরো কাউন্সিল কর্তৃক ১৯৬১ সালের জুলাই মাসে বিদ্যায়তন বা তার কাছাকাছি প্রায় ২০০ টি বাড়ি অধিগ্রহণের অনুমোদন দেওয়া হয়।[১৫] উপরন্তু, মেডিসিন ও সমুদ্রবিজ্ঞান সহ আরও অনুষদ ও বিভাগসমূহ প্রতিষ্ঠিত হয় (স্যার জন উলফেন্ডেনের নিরুৎসাহ সত্ত্বেও, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিটির চেয়ারম্যান)।[১৫] গ্লেন আইয়ার ও মন্টেফিয়োর কমপ্লেক্সে চিলওয়ার্থ ম্যানর ও নতুন ভবন অধিগ্রহণের মাধ্যমে ১৯৬০-এর ও ১৯৭০-এর দশকে শিক্ষার্থীদের আবাসন সম্প্রসারিত হয়।

যখন ১৯৮৭ সালে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিটি ঘোষিত হয়, তখন দেশব্যাপী কাটব্যাকের অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিলে অর্থায়ন ধারাবাহিকভাবে হ্রাসের সংকট তৈরি হয়।[১৬] প্রত্যাশিত ক্ষতি দূর করতে, বাজেট ও ঘাটতি উপকমিটি কর্মীদের সংখ্যা কমানোর প্রস্তাব করে। এই প্রস্তাবটি বিদ্যায়তনে বিক্ষোভের সম্মুখীন হয় এবং পরে বিশ্ববিদ্যালয় সিনেট কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পর পুনর্নির্মাণ করা হয় (অপ্রয়োজনীয়তা কমাতে ও অনুষদের তহবিলের হ্রাস পুনর্নির্মাণের জন্য)।[১৬]

গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয়সম্পাদনা

 
হাইফিল্ড ক্যাম্পাসের পশ্চিম অর্ধাংশের উদ্যানসমূহে বেসিল স্পেন্স কর্তৃক ল্যান্ডস্কেপ বা প্রাকৃতিক দৃশ্য ও বারবারা হেপওয়ার্থ কর্তৃক শিল্পকর্মের বৈশিষ্ট্য তৈরি করা হয়।

তৎকালীন উপাচার্য, স্যার হাওয়ার্ড নিউবির নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয় আরো বেশি উন্নত মানের গবেষণায় উৎসাহিত ও বিনিয়োগের দিকে মনোনিবেশ করে।[১৭] ১৯৯০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে, উইনচেস্টার স্কুল অব আর্ট এবং লা সাঁইত ইউনিয়ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশ হয়ে ওঠার ফলে বিশ্ববিদ্যালয়টি দুটি নতুন ক্যাম্পাস অর্জন করে।[১৮] নার্সিং ও ধাত্রীবিদ্যার জন্য একটি নতুন বিদ্যালয় তৈরি করা হয় এবং মধ্য-দক্ষিণ ইংল্যান্ডে এনএইচএস পেশাদারদের জন্য প্রশিক্ষণ প্রদান করে। এটি শিক্ষার্থীসংখ্যার ব্যাপক বৃদ্ধি এবং বেসিংস্টোক, উইনচেস্টার, পোর্টসমাউথআইল অব উইটের নিউপোর্টে সাব-ক্যাম্পাস বা উপ-বিদ্যায়তন প্রতিষ্ঠার সাথে জড়িত।[১৭]

বিশ্ববিদ্যালয়টি ১৯৯৭ সালের শরৎ কালে ব্রিটেনের মেনিনজাইটিসের সবচেয়ে খারাপ প্রাদুর্ভাবের সম্মুখীন হয়, যেখানে তিনজন ছাত্র মারা গিয়েছিল।[১৯] বিশ্ববিদ্যালয় একটি গণ টিকাদান কর্মসূচির আয়োজন করার মাধ্যমে এই সংকট মোকাবিলা করে, এবং পরবর্তীতে সকল নতুন শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার জন্য যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।[১৭]

বিশ্ববিদ্যালয় ২০০২ সালের ২২শে জানুয়ারি তার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করে। এই সময়ের মধ্যে, সাউদাম্পটনের গবেষণা আয় মোট আয়ের অর্ধেকেরও বেশি ছিল।[১৭] সাম্প্রতিক বছরগুলিতে এস্টেট উন্নয়নের অংশ হিসাবে বেশ কয়েকটি নতুন ল্যান্ডমার্ক ভবন যুক্ত করা হয়।

উল্লেখযোগ্য প্রাক্তন শিক্ষার্থীসম্পাদনা

শিক্ষাবিদসম্পাদনা

বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষাবিদদের মধ্যে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের আবিষ্কারক স্যার টিম বার্নার্স-লি;[২০] ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের পূর্বসূরী মাইক্রোকসমের আবিষ্কারক এবং সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয় ও এমআইটির মধ্যে ওয়েব সায়েন্স ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ওয়েন্ডি হল;[২১] গাউচার কলেজের সভাপতি এবং রয়েল সোসাইটি অব আর্টসের ফেলো জোসে আন্তোনিও বোয়েন; রেডিও রিসিভার উন্নয়নে অগ্রণী অবদানকারী এরিখ জেপলার;[২২] ফাইবার অপটিক্স কেবল ব্যবহার করার জন্য ইডিএফএ-এর আবিষ্কারক ডেভিড পেইন;[২৩] আধুনিক ব্রিটিশ প্রত্নতত্ত্বের পথিকৃৎ স্যার ব্যারি কুনলিফ;[২৪] লুডভিগ ভিটগেনস্টাইনের জীবনীকার রে মঙ্ক; দক্ষিণ আফ্রিকার সাংবিধানিক আদালতের প্রাক্তন বিচারক অ্যালবি স্যাকস;[২৫] এবং রয়েল স্ট্যাটিস্টিক্যাল সোসাইটিজাতীয় পরিসংখ্যান কার্যালয়ের প্রাক্তন সভাপতি টিম হল্ট অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।[২৬]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "University of Southampton Calendar 2013/14 – Preface"। University of Southampton। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  2. "Southampton Financial Statement 2020" (PDF)। University of Southampton। পৃষ্ঠা 27। 
  3. https://www.hesa.ac.uk/data-and-analysis/staff/working-in-he টেমপ্লেট:Bare URL inline
  4. "Where do HE students study?"উচ্চ শিক্ষা পরিসংখ্যান এজেন্সি। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০২০ 
  5. None (২০ জুন ২০১৩)। Independent Schools Yearbook 2012–2013আইএসবিএন 9781408181188 
  6. "QS Top Universities"QS World Rankings 2021। QS। সংগ্রহের তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০২১ 
  7. "U.S. News & World Report"US News Best Global Universities। US News। সংগ্রহের তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০২১ 
  8. "Opportunities"SUSU। University of Southampton Students' Union। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০২০ 
  9. "Facilities"Sport and Wellbeing। University of Southampton। সংগ্রহের তারিখ ২৬ অক্টোবর ২০২০ 
  10. Mann, John Edgar & Ashton, Peter (1998). Highfield, A Village Remembered. Halsgrove. আইএসবিএন ১-৮৭৪৪৪৮-৯১-৪.
  11. Nash, Sally; Martin Sherwood (২০০২)। "Growing Pains"। University of Southampton : An Illustrated History। London: James and James। পৃষ্ঠা 13–17। আইএসবিএন 0-907383-94-7 
  12. "Student lists"। Senate House Library। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ আগস্ট ২০২১ 
  13. Patterson, A. Temple (১৯৬২)। "Reorganization and Achievement: 1892–1902"। The University of Southampton : A Centenary History of the Evolution and Development of the University of Southampton, 1862–1962। Southampton: The Camelot Press Ltd। পৃষ্ঠা 89–107। 
  14. "Becoming a University"। University of Southampton। ২৯ নভেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ আগস্ট ২০২১ 
  15. Nash, Sally; Martin Sherwood (২০০২)। "The Pre-Robbins Years, 1952–1965"। University of Southampton : An Illustrated History। London: James and James। পৃষ্ঠা 57–68। আইএসবিএন 0-907383-94-7 
  16. Nash, Sally; Martin Sherwood (২০০২)। "Who Pays the Piper, 1979–1985"। University of Southampton : An Illustrated History। London: James and James। পৃষ্ঠা 92–104। আইএসবিএন 0-907383-94-7 
  17. Nash, Sally; Martin Sherwood (২০০২)। "Into the Premier League"। University of Southampton : An Illustrated History। লন্ডন: James and James। পৃষ্ঠা 116–130। আইএসবিএন 0-907383-94-7  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "nash11" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  18. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Uos SC 80s নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  19. Laurance, Jeremy (৮ জুন ১৯৯৮)। "University offers students jab to fight meningitis"The Independent। লন্ডন। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০২১ 
  20. "World Wide Web Consortium People: Tim Berners-Lee"। w3.org। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০২১ 
  21. "The Microcosm Link Service and its Application to the World Wide Web"। মে ১৯৯৪। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০২১ 
  22. "ECS Profile: Eric Zepler"। zepler.net। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০২১ 
  23. "Meet the innovators: David Payne"। BBC। ৮ এপ্রিল ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০২১ 
  24. "Professor Barry Cunliffe CBE and Jane Kennedy are appointed English Commissioners" (PDF)। মার্চ ২০০৬। ৯ জুন ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০২১ 
  25. "Justice Albie Sachs Lecture 'Why I was not Despised and Rejected'."। UCL, England: academic-refugees.org। ২৩ জানুয়ারি ২০০৮। ১৮ জুন ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০২১ 
  26. Walker, David (২২ মার্চ ১৯৯৬)। "Single office to run Whitehall statistics"Times Higher Education Supplement। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০২১ 

আরও পড়ুনসম্পাদনা

  • প্যাটারসন, এ টেম্পল (১৯৬২)। দ্য ইউনিভার্সিটি অব সাউদাম্পটন : সাউদাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবর্তন ও বিকাশের শতবর্ষী ইতিহাস, ১৮৬২-১৯৬২। সাউদাম্পটন: ক্যামেলট প্রেস লিমিটেড।
  • ন্যাশ, স্যালি এবং মার্টিন শেরউড (২০০২)। ইউনিভার্সিটি অফ সাউথাম্পটন: অ্যান ইলাস্ট্রেটেড হিস্ট্রি। লন্ডন: জেমস অ্যান্ড জেমস
  • বি এল ক্লার্কসন (১৯৭১)। "The Institute of Sound and Vibration Research, University of Southampton"। রিভিউ অব ফিসিক্স ইন টেকনোলজি (১): ১–২৪। ডিওআই:10.1088/0034-6683/2/1/301বিবকোড:1971RvPT....2....1C 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা