সরলা দাস

ওড়িয়া ভাষার কবি

সরলা দাস ছিলেন মধ্যযুগের একজন বিখ্যাত ওড়িয়া ভাষার কবি ও পণ্ডিত । তিনি তার ওড়িয়া ভাষায় রচিত মহাভারত, বিলঙ্ক রামায়ণ এবং চণ্ডী পুরাণ গ্রন্থের জন্য অধিক পরিচিত। তিনি ছিলেন প্রথম ওড়়িয়া ভাষার পণ্ডিত । ওড়িয়া সাহিত্যের জনক হওয়ায় তার সাহিত্যকর্ম , পরবর্তী প্রজন্মের কাছে তথ্যের এক স্থায়ী উৎসের আকার নিয়েছে ।[১].

সরলা দাস
Sārala Dāsa.jpg
জন্ম
সিদ্ধেশ্বর পরিদা

পঞ্চদশ শতাব্দী
তেঁতুলিয়াপাড়া, জগৎসিংহপুর
মৃত্যুমাঘ শুক্ল সপ্তমী
পেশাকবি
উল্লেখযোগ্য কর্ম
সরল মহাভারত

জীবনসম্পাদনা

সরলা দাসের প্রারম্ভিক জীবন সম্পর্কে সঠিকভাবে জানা যায় না । তিনি গজপতি রাজা কপিলেন্দ্র দেবের সমসাময়িক ছিলেন বলে ধারণা করা হয়। যদিও তার জন্ম তারিখ সঠিকভাবে জানা যায় নি, কিন্তু এটা নিশ্চিতভাবে বলা যায় যে তিনি পঞ্চদশ শতাব্দীর মানুষ।[২] তিনি কনকাবতী পাটনা নামক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। গ্রামটি কনকাপুর নামেও পরিচিত ছিল যা জগৎসিংহপুরে অবস্থিত ছিল।[৩]

সরলা দাস কোনো প্রথাগত শিক্ষা গ্রহণ করেননি এবং তিনি আত্মশিক্ষার দ্বারা যা অর্জন করতে পেরেছিলেন তা তিনি উৎসর্গ করেন, উৎসর্গ ও অনুপ্রেরণার দেবী সরলাকে । যদিও তাঁর জন্মনাম ছিল সিদ্ধেশ্বর পরিদা , তিনি পরবর্তীকালে সরলা দাস অথবা 'সরলা দেবীর আশীর্বাদ' 'নামেই পরিচিতি লাভ করেন । (দাস পদবী বলতে বোঝানো হয়েছে নির্দিষ্ট একজন ভগবানের অনুদাস অথবা চাকরকে । সরলা দাসের পরবর্তী ও পূর্ববর্তী বহু কবিদের নামের শেষে এই দাস পদবী যুক্ত রয়েছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় - বত্র দাস, মার্কন্ডেয় দাস, সরলা দাস, জগন্নাথ দাস,বলরাা দাস এবং যশোবন্ত দাস) ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌।

একটি গল্প অন্যান্য ভারতীয় কবিদের গল্পের সাথে সদৃশ ,যেমন- দেবী সরস্বতীর সাহায্যের পূর্বে কালিদাস তাঁর প্রাথমিক জীবনে সম্পূর্ণ নিরক্ষর ছিলেন । বলা হয় , বালক সিদ্ধেশ্বর যখন তাঁর পিতার সাথে মাঠে চাষ করছিলেন , তখন তিনি এত সুন্দর একটি সুরেলা গান করছিলেন যে স্বয়ং দেবী সরলা তাঁকে গান থামিয়ে দিয়ে সুন্দর গান - কবিতা লেখার দক্ষতার জন্য তার ভূয়সী প্রশংসা করলেন ।

তার লেখা মহাভারতে তিনি একাধিকবার ইঙ্গিত করেছেন যে তিনি একসময় ওড়িশার গজপতি রাজাদের সৈন্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন ।

সরলা দাস তার শেষ জীবন অতিবাহিত করেছিলেন বিলা সরলা তে । কিন্তু তার দেশের বাড়ি তেঁতুলিয়াপাড়ার কনকাবতী পাটনা বা কনকাপুরে একটি ধর্মীয় সংগঠন ছিল যা মুনীগোস্বাইন নামে পরিচিত ছিল , সেটি একটি ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে যেখানে সরলা দাস তার সমস্ত কবিতা রচনা করেন । তার জীবনের পর্বকে মধ্যযুগ হিসেবে ধরা হয় ।

সাহিত্যকর্মসম্পাদনা

পাশাপাশি তিনি যে তিনটি বইয়ের জন্য সর্বাধিক পরিচিত - মহাভারত, বিলঙ্কা রামায়ণ এবং চণ্ডী পুরাণ সরলা দাস লক্ষ্মী নারায়ণ বচনিকা গ্রন্থটিও রচনা করেছিলেন। আদি পর্ব মহাভারতে তিনি পুরীর ভগবান জগন্নাথকে সম্বোধন করে দীর্ঘ প্রার্থনা শুরু করেন, যা থেকে জানা যায় যে সরলা দাস কপিলেশ্বরের রাজত্বকালে তার মহাভারত রচনা শুরু করেছিলেন, অন্যথায় ওড়িশার বিখ্যাত গজপতি রাজা কপিলেন্দ্র দেব নামে পরিচিত (১৪৩৩ খ্রি –১৪৬৭খ্রি)। তিনি আমাদের বলেছিলেন যে মহারাজা কপিলেশ্বর অগণিত নৈবেদ্য এবং বহু অভিবাদন সহ এই মহান দেবতার সেবা করেছিলেন এবং এর দ্বারা কলিযুগের পাপকে ধ্বংস করেছিলেন। যদিও সরলা দাস ওড়িয়া মহাভারত রচনায় সস্কৃত মহাভারতের মূল রূপরেখাকে অনুসরণ করেছিলেন, তবে তিনি বহু বিচ্যুতি ঘটিয়েছিলেন এবং এর সাথে তার নিজের সৃষ্টির গল্প এবং তার কাছে পরিচিত অন্যান্য বিভিন্ন বিষয়কে প্রচুর পরিমাণে যুক্ত করেছিলেন। চূড়ান্ত রূপে সরলা দাসের মহাভারত, রামায়ণের উপর ভিত্তি করে কালিদাসের রঘুবংশমের সাথে সাদৃশ্যযুক্ত একটি নতুন সৃষ্টি।[৪]

সরলা দাসের মহাভারত পার্বত্যপুরাণ সম্পর্কে আলোকপাত করেছিল। চণ্ডী পুরাণ সংস্কৃত সাহিত্যে প্রদত্ত মহিষাসুর (মহিষরূপধারী বিষমাকৃতি রাক্ষস) বধের দেবী দুর্গার সুপরিচিত গল্পের উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছিল তবে এখানে ওড়িয়া কবিও বিভিন্ন বিষয়ে মূল কাহিনী থেকে সরে গিয়েছিলেন । তার প্রথম রচনা, বিলঙ্কা রামায়ণে সংরক্ষিত গল্প ছিল।

সরলা দাসের শ্লোকটি কৃত্রিমতা ছাড়াই সহজ, জোরালো এবং উপযুক্ত । তার লেখার কাব্যিক উদ্দেশ্য ছিল কথাবার্তা শব্দ প্রয়োগ করে জটিল সংস্কৃতকরণ থেকে মুক্ত করা । তার কাজটি পূর্বের ওড়িয়া জনপ্রিয় লোকগানের মৌখিক সম্মেলনগুলির ( ঘোড়া-নাচা,দ্বন্দ্বনাচ এবং সখীনাচ (পুতুল নৃত্য) এর মতো লোক নৃত্যে ব্যবহৃত হত ।এই গানের একটি মেট্রিকাল বিশেষত্ব হল উভয় লাইনের শেষ বর্ণগুলি একই শব্দ উৎপন্ন করলেও একটি আয়াতের উভয় লাইনেই সমান সংখ্যক অক্ষর নেই। সরলা দাসের সমস্ত লেখা এই মেট্রিকাল অদ্ভুততার সাথে রচিত হয়েছিল এবং তাই তার ব্যবহৃত মিটারটি লোক গানে ব্যবহৃত একটি সরাসরি উত্তরসূরী হিসাবে গণ্য হতে পারে। পঞ্চদশ শতাব্দীর মধ্যে ওড়িয়া ভাষা প্রায় আধুনিক রূপ ধারণ করেছিল এবং সাহিত্যিক রচনার জন্য পাকা হয়ে গিয়েছিল।

সরলা দাসের কবিতায় মূল অনুভূতি শুধু প্রেম নয় তিনি সকলের কাছে স্বল্প ভাষায় ধর্মীয় বই রচনা করার জন্য এবং ওড়িশায় সাধারণ মানুষের কাছে উপলব্ধ করার জন্য দৃঢ় ধর্মীয় উদ্যোগের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন। তিনি কোনও অনিশ্চিত কথায় বলেননি যে তিনি তার কবিতাগুলি মানুষের উপকারের জন্য রচনা করেছিলেন। তার মহাভারতে বেশ কয়েকটি ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে তিনি ওড়িশার গজপতি রাজার সেনাবাহিনীতে সৈনিক হিসাবে কাজ করেছিলেন এবং সেনাবাহিনীর সাথে তার সংযোগ তার কাছে বিভিন্ন অভিজ্ঞতা নিয়ে এসেছিল। তিনি যে কাহিনীগুলি যুদ্ধের দৃশ্য হিসেবে প্রত্যক্ষ করেছিলেন, সেনাবাহিনীর সাথে তিনি যে জায়গাগুলি পরিদর্শন করেছিলেন সেই ঐতিহাসিক ঘটনাবলী এবং নামগুলি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তার লেখায় সংরক্ষিত হয়েছিল ।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "In Conversation With: Paramita S Tripathy"Purple Pencil Project (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৭-০৬। ২০২০-০৭-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১০ 
  2. Bryant, E.F. (২০০৭)। Krishna: A Sourcebook। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 141। আইএসবিএন 978-0-19-972431-4। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৩His exact dates are not established ; it is only known that he as contemporary of King Kapilendra dev.Sarala Dasa was born as Siddheshwara Parida in a farming family, in a village about forty miles from Puri. 
  3. Orissa Review (ওড়িয়া ভাষায়)। Published and issued by Home (Public Relations) Department, Government of Orissa। ২০০৪। পৃষ্ঠা 57। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৩He was born at Kanakavati Patana ' is known as Kanakapura , one of the șidhikshetras in Jagatsinghpur District . His early name was Siddheswar Parida , 
  4. This contribution is a nearly verbatim reproduction of "Sarala Dasa, the Originator of the Oriya Literature" by Debendra Nath Bhoi and Priyadarshini Bakshi in the Orissa Review ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৭ সেপ্টেম্বর ২০০৭ তারিখে of October 2004

বহিঃসংযোগসম্পাদনা