রিচার্ড কলিঞ্জ

নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটার

রিচার্ড ওয়েন কলিঞ্জ (ইংরেজি: Richard Collinge; জন্ম: ২ এপ্রিল, ১৯৪৬) ওয়েলিংটনে জন্মগ্রহণকারী সাবেক নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৬৫ থেকে ১৯৭৮ সময়কালে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

রিচার্ড কলিঞ্জ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামরিচার্ড ওয়েন কলিঞ্জ
জন্ম (1946-04-02) ২ এপ্রিল ১৯৪৬ (বয়স ৭৪)
ওয়েলিংটন, নিউজিল্যান্ড
উচ্চতা৬ ফুট ৫ ইঞ্চি (১.৯৬ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনবামহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১০২)
২২ জানুয়ারি ১৯৬৫ বনাম পাকিস্তান
শেষ টেস্ট২৪ আগস্ট ১৯৭৮ বনাম ইংল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ )
১১ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৩ বনাম পাকিস্তান
শেষ ওডিআই১৭ জুলাই ১৯৭৮ বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৬৩/৬৪ – ১৯৬৯/৭০সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস
১৯৬৭/৬৮ - ১৯৭৪/৭৫ওয়েলিংটন
১৯৭৫/৭৬ - ১৯৭৭/৭৮নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টস নাইটস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৩৫ ১৫ ১৬৩ ৩৭
রানের সংখ্যা ৫৩৩ ৩৪ ১,৮৪৮ ১১৬
ব্যাটিং গড় ১৪.৪০ ৫.৬৬ ১৪.৪৩ ৯.৬৬
১০০/৫০ ০/২ ০/০ ০/৪ ০/০
সর্বোচ্চ রান ৬৮* ৬৮* ৩৮*
বল করেছে ৭,৬৮৯ ৮৫৯ ৩১,৩৮৮ ২,০৩৮
উইকেট ১১৬ ১৮ ৫২৪ ৫২
বোলিং গড় ২৯.২৫ ২৬.৬১ ২৪.৪১ ২০.১৫
ইনিংসে ৫ উইকেট ২২
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৬/৬৩ ৫/২৩ ৮/৬৪ ৫/২৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১০/– ১/– ৫৭/– ৬/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৯ মে ২০১৯

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস, নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টস ও ওয়েলিংটন দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিংয়ে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন রিচার্ড কলিঞ্জ

ঘরোয়া ক্রিকেটসম্পাদনা

তিনটি ভিন্ন দলের পক্ষে ঘরোয়া ক্রিকেটে অংশ নিয়েছিলেন রিচার্ড কলিঞ্জ। ১৯৬৩-৬৪ মৌসুমে সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টসের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটেছিল রিচার্ড কলিঞ্জের। ঐ দলে ১৯৬৯-৭০ মৌসুম পর্যন্ত খেলেন। এরপূর্বে ১৯৬৭-৬৮ মৌসুমে ওয়েলিংটনে খেলেন ও ১৯৭৪-৭৫ মৌসুমে দল ত্যাগ করেন। সর্বশেষ পর্যায়ে ১৯৭৭-৭৮ মৌসুমে নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টস থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

সর্বমোট ১৬৩টি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়ে ২৪.৪১ গড়ে ৫২৪ উইকেট দখল করেছিলেন। ব্যক্তিগত সেরা বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন ৮/৬৪। ঘরোয়া ক্রিকেটে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৭১ সালে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট অ্যালমেনাক কর্তৃক বর্ষসেরা ক্রিকেটারের সম্মাননায় ভূষিত হয়েছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

১৯৬৫ সালে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হয়েছিল রিচার্ড কলিঞ্জের। ১৯৭৮ সালে লর্ডসে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।[১][২] সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ৩৫ টেস্ট ও ১৫টি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছিলেন রিচার্ড কলিঞ্জ। ২২ জানুয়ারি, ১৯৬৫ তারিখে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে রিচার্ড কলিঞ্জের।

কার্যকরী ব্যাটসম্যান হিসেবে সুনাম ছিল তার। ১৯৭২-৭৩ মৌসুমে অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে সফরকারী পাকিস্তানের বিপক্ষে অপরাজিত ৬৮ রান তুলেছিলেন। এটিই ঐ সময়ে টেস্ট খেলায় ১১ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামা যে-কোন ব্যাটসম্যানের সর্বোচ্চ সংগ্রহ ছিল। এছাড়াও, এ পর্যায়ে শেষ উইকেট জুটিতে ব্রায়ান হ্যাস্টিংসের সাথে ১৫৫ মিনিটে ১৫১ রানের রেকর্ড গড়েন তিনি।[৩]

১৯৭৫-৭৬ মৌসুমে টেস্ট ও একদিনের আন্তর্জাতিকে সেরা বোলিং পরিসংখ্যান দাঁড় করিয়েছিলেন তিনি। উভয়ে ক্ষেত্রেই প্রতিপক্ষীয় দল ছিল ভারত। টেস্টে ৬/৬৩ ও ওডিআইয়ে ৫/২৩ পেয়েছিলেন। অবসর গ্রহণকালীন তিনি নিউজিল্যান্ডের সেরা উইকেট শিকারীতে পরিণত হয়েছিলেন। ২৯.২৫ গড়ে ১১৬ উইকেট পেয়েছিলেন তিনি। ১৯৭৭-৭৮ মৌসুমে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলকে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে স্মারক জয়লাভে রিচার্ড হ্যাডলি’র সাথে বিরাট ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। খেলায় তিনি ৩/৪২ ও ৩/৪৫ পেয়েছিলেন।[৪] ওয়েলিংটনের ব্যাসিন রিজার্ভে তার দ্রুতগতিসম্পন্ন ইন-সুইঙ্গারে জিওফ বয়কট বোল্ড হন। ৬৪ রানে দলকে গুটিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে এটিই দলের প্রথম সাফল্য ছিল।

খেলার ধরনসম্পাদনা

দীর্ঘদেহী, শক্ত মজবুত গড়নের অধিকারী রিচার্ড কলিঞ্জ বামহাতে ফাস্ট-মিডিয়াম বোলিংয়ে পারঙ্গমতা প্রদর্শন করেছেন। দীর্ঘ দূরত্ব নিয়ে বল হাত থেকে ছাড়ার পূর্ব-মুহূর্তে উভয় হাত উপরে তুলতেন।[৫] তিনি পিচে বলকে উপরে তুলে ধরতেন ও শেষমুহুর্তে গতিসঞ্চার করাতেন। প্রায়শই তৎকালের তরুণ রিচার্ড হ্যাডলির সাথে উইকেট শিকারে উন্মত্ততার পরিচয় দিতেন।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ছিলেন তিনি। ১৯৭২ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন করেন। সফরের এক পর্যায়ে তিনি নবজাতকের মৃত্যুসংবাদ সম্পর্কে জানতে পারেন ও দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। ফলশ্রুতিতে, রস মর্গ্যানকে তার স্থলাভিষিক্ত করা হয়েছিল।[৬]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Lynch, Stephen (১৯ জানুয়ারি ২০০৪)। "The worst bowling average, and mystery injuries"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০১-১৬ 
  2. "New Zealand v Pakistan in 1972/73"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০১-১৬ 
  3. Wisden 1974, p. 942.
  4. Wisden 1979, p. 917.
  5. Kieza, Grantlee. FAST and FURIOUS: A celebration of Cricket's pace bowlers, 1st ed, Lester-Townsend Publishing Pty Ltd. 1990. আইএসবিএন ০-৯৪৯৮৫৩-৪১-০ (Australia)
  6. "Test Cricket Tours - New Zealand to West Indies 1971-72"Test-cricket-tours.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানুয়ারি ২০১৯ 

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা