প্রধান মেনু খুলুন

রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ

(রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ থেকে পুনর্নির্দেশিত)

রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস)[১][২] ভারতের একটি দক্ষিণপন্থী হিন্দু জাতীয়তাবাদী, আধাসামরিক[৩] ও বেসরকারী স্বেচ্ছা-সেবক সংগঠন। আরএসএস সংঘ পরিবার নামে হিন্দু জাতীয়তাবাদী গোষ্ঠীর একটি অংশ।[৩] ১৯২৫ সালে নাগপুর-বাসী ডাক্তার কেশব বলিরাম হেডগেওয়ার একটি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন রূপে আরএসএস প্রতিষ্ঠা করেন।[৪] উদ্দেশ্য ছিল ভারতে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিকতা ও মুসলিম বিচ্ছিন্নতাবাদের বিরোধিতা।[৫]

রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ
সংক্ষেপেআরএসএস (রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ)
সভাপতিমোহন ভাগবত
প্রতিষ্ঠাতাকে বি হেডগেওয়ার
স্লোগান"জন্মভূমির প্রতি নিঃস্বার্থ সেবা"
সদর দপ্তরনাগপুর, মহারাষ্ট্র, ভারত
সদস্যপদ70-80 লক্ষ
৫১,৩৫৫টি শাখা
মতাদর্শহিন্দু জাতীয়তাবাদ
রাজনৈতিক অবস্থানডানপন্থা
ওয়েবসাইট
rss.org

আরএসএস স্বেচ্ছাসেবকেরা ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন-সহ[৪] বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক আন্দোলনে অংশ নিয়ে ভারতের একটি অগ্রণী হিন্দু জাতীয়তাবাদী সংগঠনে পরিণত হয়।[৫] ১৯৯০-এর দশকের মধ্যে এই সংগঠন অসংখ্য স্কুল, দাতব্য প্রতিষ্ঠান ও মতাদর্শ প্রচারের উদ্দেশ্যে ক্লাব প্রতিষ্ঠা করে।[৫] আরএসএস স্বেচ্ছাসেবকরা প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় ত্রাণ ও পুনর্বাসনের কাজও করে থাকে।[৬] আরএসএস এক লক্ষেরও বেশি শিক্ষা, স্বাস্থ্য, গ্রামোন্নয়ন, আদিবাসী উন্নয়ন, গ্রামীণ স্বনির্ভরতা, কৃষি কর্মসূচি পরিচালনা করে এবং কুষ্ঠ ও দুঃস্থ ছাত্রদের দেখাশোনা করে।[৭][৮][৯]

কোনো কোনো সমালোচক আরএসএস-কে হিন্দু জাতীয়তাবাদী সংগঠন বলে থাকেন।[১০][১১][১২][১৩] ব্রিটিশ আমলে এই সংগঠন নিষিদ্ধ ছিল।[৫] স্বাধীন ভারতে ১৯৪৮ সালে নাথুরাম গডসে নামে এক প্রাক্তন আরএসএস-সদস্য[১৪] মহাত্মা গান্ধীকে হত্যা করলে ভারত সরকার এই সংগঠনকে নিষিদ্ধ করে দেয় , পরে ১৯৪৯ খ্রীষ্টাব্দে প্রমাণিত হয় নাথুরাম গডসে আর এস এস এর সদস্য ছিল না এবং তৎকালীন গৃহমন্ত্রী সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল সংঘের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেন ।[৫][১৫][১৬] জরুরি অবস্থার সময় (১৯৭৫-৭৮) এবং ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পরও এই সংগঠন নিষিদ্ধ হয় এবং পরবর্তীতে আবার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়।

ইতিহাসসম্পাদনা

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধসম্পাদনা

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে আরএসএসের নেতারা প্রকাশ্যে আডলফ হিটলারের প্রশংসা করতেন। মাধব সদাশিব গোলবলকার যিনি হেডগেওয়ারের পরে আরএসএসের পরবর্তী সর্বোচ্চ প্রধান হয়েছিলেন, তিনি হিটলারের বর্ণ-বিশুদ্ধতা মতবাদে অনুপ্রাণীত ছিলেন। কিন্তু কিছু আরএসএস নেতারা ইসরায়েলপন্থীও ছিলেন, বস্তুত সাভারকর ইহুদি রাষ্ট্র ইসরায়েল গঠনের সময় পূর্ণ সমর্থন করেছিলেন। তবে গোলবলকার "ধর্ম, সংস্কৃতি ও ভাষা" সমুন্নত রাখার জন্য ইহুদিদের ভূয়সী প্রশংসাও করেছিলেন।

ভুল তথ্যে পরিপূর্ণ

সংগঠনটির প্রতিষ্ঠার পরে কে. বি. হেডগেওয়ার আরএসএসকে ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে দূরে সরিয়ে রাখার ঐতিহ্যের সূত্রপাত ঘটান। ব্রিটিশবিরোধী বলে পরিগণিত হতে পারে এরকম যেকোন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডকেই আরএসএস সযত্নে পরিহার করে চলত। আরএসএস এর জীবনীকার সি. পি. ভিশিকার এর কথায়, হেডগেওয়ার সরকার নিয়ে সরাসরি যেকোন মন্তব্য করা এড়িয়ে গিয়ে কেবল হিন্দু সংগঠন নিয়েই কথা বলতেন।[১৭] ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস ১৯৩০ সালের ২৬শে জানুয়ারিতে "স্বাধীনতা দিবস" ঘোষণা করেছিল। কেবল সেই বছরেই আরএসএস এই দিবস উদযাপন করেছিল, কিন্তু এর পরের বছরগুলোতে তারা এই দিবস উদযাপন থেকে বিরত থাকে। আরএসএস ভারতীয় জাতীয় আন্দোলনের তেরঙ্গাকেও পরিহার করেছিল। ১৯৩০ সালের এপ্রিলে গান্ধীর ডাকা সত্যাগ্রহ আন্দোলনে হেডগেওয়ার ব্যক্তিগতভাবে অংশগ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু তিনি আরএসএসকে এই আন্দোলনে জড়ান নি। তিনি সর্বত্র প্রচার করে দিয়েছিলেন যে, সংঘ সত্যাগ্রহে অংশগ্রহণ করবে না। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে সেখানে অংশগ্রহণ করা নিষেধ ছিল না। ১৯৩৪ সালে, কংগ্রেস রিজোল্যুশন পাশ করে। এটা অনুসারে কংগ্রেসের কোন সদস্যের উপর আরএসএস, হিন্দু মহাসভা অথবা মুসলিম লীগে যোগদান করায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।[১৮]

১৯৪০ সালে আরএসএস এর নেতা হন এম. এস. গোলবলকার। তিনি ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে আরএসএসকে আরও বেশি বিচ্ছিন্ন করে ফেলেন। তার দৃষ্টিভঙ্গিতে, আরএসএস ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে নয়, বরং "ধর্ম ও সংস্কৃতিকে রক্ষা করার মাধ্যমে" স্বাধীনতা অর্জন করার প্রতিজ্ঞা করেছে। এমনকি গোলবলকার ব্রিটিশবিরোধী জাতীয়তাবাদের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন, এবং একে "প্রতিক্রিয়াশীল দৃষ্টিভঙ্গি" বলে মত প্রকাশ করেছিলেন। তার মতে এই "প্রতিক্রিয়াশীল দৃষ্টিভঙ্গি স্বাধীনতা আন্দোলনের সমগ্র কার্যধারায় ধ্বংসাত্মক প্রভাব ফেলবে। বিশ্বাস করা হয় যে, গোলবলকার ব্রিটিশদেরকে আরএসএসকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করবার কোন সুযোগ দিতে চাইতেন না। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তিনি ব্রিটিশদের সকল কঠোর নীতিকে মেনে নেন। এমনকি সেসময় ব্রিটিশদের কথায় তিনি আরএসএস এর সামরিক বিভাগেরও পরিসমাপ্তি ঘটান। ব্রিটিশ সরকার বলেছিল, আরএসএস তাদের বিরুদ্ধে কোন নাগরিক অবাধ্যতাকে সমর্থন করে নি, আর তাই তাদের কোন রাজনৈতিক কার্যক্রমে দৃষ্টিপাত করার প্রয়োজন নেই। ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র বিভাগ এই বিষয়টির উপর ভিত্তি করে নোট গ্রহণ করে যে, সংঘের অধিবেশনের বক্তাগণ তাদের সদস্যদেরকে প্ররোচিত করেছিলেন যাতে তারা ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের প্রতি নির্লিপ্ত থাকেন। আরএসএস যথাযথভাবে সরকারের স্বরাষ্ট্র দপ্তরের আজ্ঞা মেনে আসছিল, আর তাই সরকারের মত ছিল যে, আরএসএস ব্রিটিশ ভারতের কোন আইন ও বিধির জন্য ভীতিজনক নয়। বোম্বে সরকার একটি রিপোর্টে আরএসএসকে প্রশংসা করেছিল, কারণ তারা কর্তব্যপরায়ণের সাথে নিজেদেরকে আইনের মধ্যে রেখেছিল এবং কোন ধরণের ঝামেলায় (ভারত ছাড় আন্দোলন) সংযুক্ত হওয়া থেকে বিরত ছিল। এটাও রিপোর্ট করা হয় যে, আরএসএস কখনই আইনকে অমান্য করে নি, এবং এরা সবসময়ই আইন মেনে এসেছে। সংগঠনটি থেকে উপদেশীয় কমিউনিস্ট নেতাদেরকে জানিয়ে দেয়া হয়, আরা যেন ব্রিটিশ সরকারের কাছে আপত্তিকর বলে মনে হয় এমন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকেন, আর এভাবেই পরিণামে আরএসএস ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের কাছে নিশ্চিত করেছিল যে, "সরকারের বিধিমালার বিরুদ্ধে যাবার মত কোন উদ্দেশ্য সংগঠনটির নেই"।[১৯] এম. এস. গোলবলকার পরবর্তীতে জনসম্মুখে স্বীকার করে নেন যে, আরএসএস ভারত ছাড় আন্দোলনে অংশগ্রহণ করে নি। গোলবলকার আরও বলেন যে, তাদের এরকম অবস্থানই সংঘকে একটি নিষ্ক্রীয় সংগঠন হিসেবে নেবার দিকে নিয়ে গিয়েছিল, বাস্তবে যাদের কথার কোন মূল্য ছিল না। আরএসএস ১৯৪৫ সালে হওয়া ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে হওয়া রাজকীয় ভারতীয় নৌবিদ্রোকে সমর্থন বা অংশগ্রহণ কিছুই করে নি।

১৯৬২ এর ভারত-চীন যুদ্ধে R.S.S এর অবদানসম্পাদনা

প্রতিটি বৃক্ষের মূল যেমন প্রতিটি বৃক্ষকে ধরে রাখে,যদিও বাইরে থেকে এটা দেখা যায় না, ঠিক তেমনই RSS স্বংসেবকেরা স্বার্থহীনভাবে কাজ করে যায় ! ওনাদের অবদান কখনো লেখায় প্রকাশিত করা সম্ভবনা,এর মধ্যে ১৯৬২ সালের ভারত চীন যুদ্ধে RSS এর অবদান অন্যতম ! ১৯৬২ সালে যখন ইন্দো-চায়না যুদ্ধ হয় সেই সময় আর এস এস ভারতীয় সেনা জাওয়ান দের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যুদ্ধ করেছেন। তারাও দেশের হয়ে নিজের রক্ত ঝড়িয়েছে। যে ইন্দো-চায়না যুদ্ধের সময় বামপন্থিরা ভারতীয় সেনার পাশে দাঁড়ানো তো দূর ব্লাড ব্যাঙ্কে রক্ত দান করতেও অস্বীকার করেছিল বহু বামপন্থী।ইন্দো-চায়না যুদ্ধ যেখানে হয়েছিল সেখানে প্রচণ্ড ঠান্ডা ছিল কিন্তু সেই সময় নেহেরু সরকার ঠান্ডার হাত থেকে বাঁচার জন্য সেনা জাওয়ান দের কোনো রকম গরম প্রসাক দিয়ে সাহায্য করেন নি। যুদ্ধের প্রয়োজনীয় অস্ত্র এর প্রয়োজন পর্যন্ত মেটাতে পারেনি কংগ্রেস। ফলে প্রান গিয়েছিল বহু সেনা জাওয়ানের। এই রকম পরিস্থিতিতে যখন সেনাদের সাহায্য করার জন্য কেউ এগিয়ে আসেন নি তখন আরএসএস তাদের সমস্ত শক্তি দিয়ে সেনা জাওয়ান দের সাহায্য করতে এগিয়ে গিয়েছিল।এর জন্য পরে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে আর এস এস প্রশংসাপ্রাপ্ত হয় এবং RSS কে জওহরলাল নেহেরু প্যারেড এর জন্য আমন্ত্রিত করেন ১৯৬২ এর প্রজাতন্ত্র দিবসে।

বিশিষ্ট স্বয়ংসেবক সদস্যগণসম্পাদনা

পাদটীকাসম্পাদনা

  1. "Rashtriya Swayamsevak Sangh (RSS)"(Hindi: “National Volunteer Organization”) also called Rashtriya Seva Sang 
  2. Lutz, James M.; Lutz, Brenda J. (২০০৮)। Global Terrorism। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 303। আইএসবিএন 9780415772464। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১০ 
  3. McLeod, John (২০০২)। The history of India। Greenwood Publishing Group। পৃষ্ঠা 209–। আইএসবিএন 9780313314599। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১০ 
  4. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Andersen 1987 111 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  5. Atkins, Stephen E. (২০০৪)। Encyclopedia of modern worldwide extremists and extremist groups। Greenwood Publishing Group। পৃষ্ঠা 264। আইএসবিএন 9780313324857। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মে ২০১০ 
  6. Outlook, Feb 12, 2001
  7. "Who says RSS is a dying institution?"। Rediff.com। ২০০৯-০৭-২৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০১-২৬ 
  8. "RSS service projects multiply ten-fold"। Times of India। ২০০৯-১১-০৪। 
  9. "Ekal Launches Sustainable Farming Program in Rural India | Indo American News"। ৪ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১১ 
  10. Bhatt, Chetan (২০০১)। Hindu Nationalism: Origins, Ideologies and Modern Myths। New York: Berg Publishers। পৃষ্ঠা 113। আইএসবিএন 1859733484 
  11. "South Asia | Analysis: RSS aims for a Hindu nation"। BBC News। ২০০৩-০৩-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০১-২৬ 
  12. Jaffrelot, Christophe (১৯৯৮)। The Hindu Nationalist Movement in India। New York: Columbia University Press। পৃষ্ঠা 35। আইএসবিএন 0-231-10334-4 
  13. Dossani, Rafiq (২০০৫)। Prospects for peace in South Asia। Stanford: Stanford University Press। পৃষ্ঠা 186। আইএসবিএন 0-8047-5085-8  অজানা প্যারামিটার |coauthor= উপেক্ষা করা হয়েছে (|author= ব্যবহারের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে) (সাহায্য)
  14. Dr.'Krant'M.L.Verma Swadhinta Sangram Ke Krantikari Sahitya Ka Itihas (Part-3) p.766
  15. "RSS releases `proof' of its innocence"। Chennai, India: The Hindu। ২০০৪-০৮-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০১-২৬ 
  16. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; IAR নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  17. Islam, Shamsul (২০০৬)। Religious Dimensions of Indian Nationalism: A Study of RSS। Media House। পৃষ্ঠা 188। আইএসবিএন ISBN 978-81-7495-236-3 |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid character (সাহায্য) 
  18. Chitkara, M. G. (২০০৪)। Rashtriya Swayamsevak Sangh: National Upsurge। APH Publishing। পৃষ্ঠা 251–254। আইএসবিএন ISBN 8176484652 |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid character (সাহায্য) 
  19. Gupta, Partha Sarathi (১৯৯৭)। Towards Freedom 1943-44,Part III। New Delhi: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 3058–9। আইএসবিএন ISBN 978-0195638684 |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid character (সাহায্য) 

২২. RSS contribution in the India-China War in 1962 । Indiarag.com । ১৯৬২ সালের ভারত চীন যুদ্ধে RSS এর অবদান !