প্রধান মেনু খুলুন
বিজ্ঞানের ইতিহাস
Libr0310.jpg
পটভূমি
সমাজ তত্ত্ব
Historiography
Pseudoscience
যুগ অনুসারে
প্রাক পরীক্ষামূলক
প্রাচীন সংস্কৃতিতে
মধ্যযুগে
রেনেসাঁর যুগে
বৈজ্ঞানিক বিপ্লব
বিষয় অনুসারে
প্রাকৃতিক বিজ্ঞান
গণিত
জ্যোতির্বিজ্ঞান
জীববিজ্ঞান
রসায়ন
বাস্তব্যবিজ্ঞান
ভূগোল
পদার্থবিজ্ঞান
সামাজিক বিজ্ঞানসমূহ
অর্থনীতি
ভাষাতত্ত্ব
রাষ্ট্রবিজ্ঞান
মনোবিজ্ঞান
সমাজ বিজ্ঞান
প্রযুক্তি
কৃষিবিজ্ঞান
কম্পিউটার বিজ্ঞান
Materials science
চিকিৎসা শাস্ত্র
বিচরণ সহযোগী পৃষ্ঠাসমূহ
তারিখ
প্রবেশদ্বার
বিষয়শ্রেণীসমূহ

বিজ্ঞানের ইতিহাস বলতে আমরা এখানে বুঝব এমন ধরণের ঐতিহাসিক নিদর্শন বা ঘটনাসমষ্টি যা যুগে যুগে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে বিস্তার লাভ করেছে এবং যার ধারাবাহিকতায় বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থেকেছে সবসময়। মূলত বিজ্ঞান কখনোও থেমে থাকেনি, বরং বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রার মাধ্যমেই পৃথিবী এগিয়েছে এবং বিভিন্ন যুগ অতিক্রম করে বর্তমান অবস্থায় উপনীত হয়েছে। সত্যিকার অর্থে বিজ্ঞানের সূচনা মানব জন্মের শুরু থেকেই, পার্থক্য এই যে সে সময় মানুষ জানত না যে সে কি করেছে বা কোন সভ্যতার সূচনা ঘটতে চলেছে তার দ্বারা। প্রথম যে মানুষটি পাথরে পাথর ঘষে আগুন সৃষ্টি করেছিল সে কষ্মিনকালেও ভাবেনি যে সে একটি নব সভ্যতার জন্ম দিলো। এভাবেই চলেছিল অনেকটা কাল। তারপর একসময় যখন মানুষ তার কর্ম দেখে তার কাজের অর্থ ও গুরুত্ব বুঝতে পারল তখন সে তার কাজগুলোকে গুছিয়ে আনার চেষ্টা করল। আর এভাবেই জন্ম নিলো বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি। তারপরের ইতিহাস হল বিপ্লবের ইতিহাস যার পরে আর মানব সভ্যতাকে আর কখনও পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি।

ষোড়শ ও সপ্তদশ শতাব্দীতে যখন বৈজ্ঞানিক বিপ্লবের সূচনা হয় তখন মানুষ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির মাধ্যমে জ্ঞানের বিবর্তনকেও পরিচালনা ও প্রত্যক্ষ করার যোগ্যতা অর্জন করে। এধরণের জ্ঞান এতটাই মৌলিক ছিল যে অনেকে (বিশেষত বিজ্ঞানের দার্শনিকরা) মনে করেন এই পরিবর্তনটি প্রাক বৈজ্ঞানিকতাকে নির্দেশ করে। অর্থাৎ যখন মানব মন বিকশিতই হয়নি তখনকার সময়কেও এটি অন্তর্ভুক্ত করে এবং নিগূঢ় অনুসন্ধান করে।

পরিচ্ছেদসমূহ

বিজ্ঞানের ইতিহাস তত্ত্বসম্পাদনা

বিজ্ঞানের ইতিহাস নিয়ে যত গবেষণা হয়েছে তার অধিকংশই ছিল কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দেয়ার মধ্যে আবর্তিত। প্রশ্নগুলোর মধ্যে রয়েছে- বিজ্ঞান কি, বিজ্ঞান কিভাবে কাজ করে, এর মধ্যে কি কি বিষয় অন্তর্ভুক্ত হয় ইত্যাদি।

প্রাচীন মানবের আগুন নিয়ন্ত্রণসম্পাদনা

প্রাচীন ধাতুকর্মসম্পাদনা

চাকার উদ্ভাবনসম্পাদনা

পদার্থের ধর্ম : প্রাচীন ধারণাসম্পাদনা

প্রাচীন চিকিৎসা ও শল্যচিকিৎসাসম্পাদনা

প্রাচীন জ্যোতির্বিজ্ঞানসম্পাদনা

প্রাচীন সংখ্যা পদ্ধতিসমূহসম্পাদনা

গ্রিক গণিত ও জ্যামিতিসম্পাদনা

সরল যন্ত্রসম্পাদনা

প্রাচীন ভূগোলসম্পাদনা

গিয়ারসম্পাদনা

নিমজ্জন ও ভাসনসম্পাদনা

বীজগণিতসম্পাদনা

পানি ও পানিশক্তিসম্পাদনা

মধ্যযুগীয় রসায়নসম্পাদনা

বারুদ ও আগ্নেয়াস্ত্রসম্পাদনা

মুদ্রণশিল্পসম্পাদনা

আরব বিজ্ঞানসম্পাদনা

চীনা বিজ্ঞানসম্পাদনা

ভারতীয় বিজ্ঞানসম্পাদনা

পরীক্ষামূলক বিজ্ঞানসম্পাদনা

রনেসঁস চিকিৎসা ও শল্যচিকিৎসাসম্পাদনা

অঙ্গব্যবচ্ছেবিদ্যাসম্পাদনা

সৌরকেন্দ্রিক বিশ্বসম্পাদনা

গ্রহদের গতিসম্পাদনা

চৌম্বকত্বসম্পাদনা

মহাকাশ বীক্ষণসম্পাদনা

গতি, জড়তা ও ঘর্ষণসম্পাদনা

গণনার পদ্ধতিসমূহসম্পাদনা

রক্ত সংবহনসম্পাদনা

অণুজীব বীক্ষণসম্পাদনা

শূন্যস্থানসম্পাদনা

বায়বীয় পদার্থের আচরণসম্পাদনা

লেখচিত্র ও স্থানাঙ্ক ব্যবস্থাসম্পাদনা

নিউটনের গতিসূত্রসমূহসম্পাদনা

মহাকর্ষসম্পাদনা

দ্রুতি ও বেগসম্পাদনা

আলোর ধর্মসম্পাদনা

আলোর বিশ্লেষণ ও প্রতিসরণসম্পাদনা

ধূমকেতু ও উল্কাসম্পাদনা

সময়ের পরিমাপসম্পাদনা

জীবপ্রজাতির শ্রেণীকরণসম্পাদনা

নিউকোমেন ইঞ্জিনসম্পাদনা

বাষ্পীয় শক্তি ও বাষ্পীয় ইঞ্জিনসম্পাদনা

সমুদ্রে অভিযানসম্পাদনা

পদার্থের ধর্ম : আধুনিক ধারণাসম্পাদনা

পদার্থের অবস্থাসম্পাদনা

তরল পদার্থ ও চাপসম্পাদনা

বায়বীয় পদার্থসমূহের আবিষ্কারসম্পাদনা

জৈব রসায়নসম্পাদনা

উদ্ভিদদের জীবনচক্রসম্পাদনা

উদ্ভিদের কর্মপদ্ধতিসম্পাদনা

স্থিরবিদ্যুৎ ও তড়িৎকোষসম্পাদনা

বিদ্যুৎপ্রবাহসম্পাদনা

তড়িচ্চুম্বকত্বসম্পাদনা

বৈদ্যুতিক মোটরসম্পাদনা

সঠিক পরিমাপসম্পাদনা

গণনা ও গণনসম্পাদনা

শক্তির রূপান্তরসম্পাদনা

তাপের ধর্মসম্পাদনা

তাপগতিবিজ্ঞানের বিধিসমূহসম্পাদনা

সৌরজগৎসম্পাদনা

শিলার সৃষ্টিসম্পাদনা

জীবাশ্ম প্রমাণসম্পাদনা

পৃথিবীর বয়স নির্ণয়সম্পাদনা

ভূমিরূপ গঠনের প্রক্রিয়াসম্পাদনা

সম্ভাব্যতা ও পরিসংখ্যানসম্পাদনা

বিবর্তনসম্পাদনা

বংশগতি সূত্রসমূহসম্পাদনা

আবহমণ্ডলীয় পরিবর্তনসম্পাদনা

আবহাওয়ার পূর্বাভাসসম্পাদনা

বায়ুমণ্ডলের গঠনসম্পাদনা

সমুদ্রের গবেষণাসম্পাদনা

প্রাণী ও উদ্ভিদকোষের গঠনসম্পাদনা

পরিপাকসম্পাদনা

খাদ্য ও স্বাস্থ্যসম্পাদনা

স্নায়ুতন্ত্রসম্পাদনা

মস্তিষ্কসম্পাদনা

পেশী ও কঙ্কালসম্পাদনা

মানব প্রজননসম্পাদনা

নিরাপদ শল্যচিকিৎসাসম্পাদনা

পর্যায় সারণীসম্পাদনা

রাসায়নিক বিক্রিয়াসম্পাদনা

রাসায়নিক বিক্রিয়া দ্রুতকরণসম্পাদনা

ক্ষার ও অম্লসম্পাদনা

রাসায়নিক দ্রব্যের বড় মাপের উৎপাদনসম্পাদনা

রোগব্যধির বিস্তরণসম্পাদনা

ব্যাক্টেরিয়া ও ভাইরাসসম্পাদনা

রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাসম্পাদনা

টীকাদানসম্পাদনা

কৃত্রিম আলোসম্পাদনা

বিদ্যুৎ উৎপাদনসম্পাদনা

অন্তর্দহন ইঞ্জিনসম্পাদনা

শব্দের ধর্মসম্পাদনা

তড়িচ্চুম্বকীয় বর্ণালীসম্পাদনা

টেলিগ্রাফ ও টেলিফোনসম্পাদনা

আলোকচিত্রসম্পাদনা

শব্দধারণসম্পাদনা

বেতার ও বেতার তরঙ্গসম্পাদনা

শ্বসনসম্পাদনা

পঞ্চ ইন্দ্রিয়সম্পাদনা

হরমোনসম্পাদনা

প্রাণীদের আচরণসম্পাদনা

জীবমণ্ডলীয় চক্রসমূহসম্পাদনা

পরমাণুর কাঠামোসম্পাদনা

রাসায়নিক বন্ধনসম্পাদনা

উড্ডয়নসম্পাদনা

শূন্যস্থান টিউবসম্পাদনা

রঞ্জন রশ্মিসম্পাদনা

বিকিরণ ও তেজস্ক্রিয়তাসম্পাদনা

আইনস্টাইন সমীকরণসম্পাদনা

আপেক্ষিকতা তত্ত্বসম্পাদনা

কোষ বিভাজনসম্পাদনা

ক্রোমোজোম ও বংশগতিসম্পাদনা

ঔষধ উদ্ভাবনসম্পাদনা

কোয়ান্টাম বলবিজ্ঞানসম্পাদনা

মহাবিস্ফোরণ ও মহাবিশ্বের সম্প্রসারণসম্পাদনা

পারমাণবিক বোমাসম্পাদনা

নিউক্লীয় বিদারণ ও একীভবনসম্পাদনা

তারার জীবনচক্রসম্পাদনা

বাস্তুসংস্থানসম্পাদনা

পরিবেশবাদসম্পাদনা

রবার ও প্লাস্টিকসম্পাদনা

রকেট উৎক্ষেপণসম্পাদনা

ছায়াপথ, তারাগুচ্ছ ও মহাতারাগুচ্ছসম্পাদনা

সংকেত ও তথ্যগোপনসম্পাদনা

ডি এন এ-র কাঠামোসম্পাদনা

জিনগত কোডসম্পাদনা

বিশৃঙ্খলা তত্ত্বসম্পাদনা

পৃথিবীর কাঠামোসম্পাদনা

মহাদেশীয় পাততত্ত্ব ও মহাদেশের সরণসম্পাদনা

সক্রিয় পৃথিবীসম্পাদনা

আধুনিক কৃষিসম্পাদনা

লেজারসম্পাদনা

মাইক্রোচিপসম্পাদনা

কৃত্রিম উপগ্রহসম্পাদনা

মনুষ্যবাহী মহাকাশ ভ্রমণসম্পাদনা

ইন্টারনেটসম্পাদনা

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও রোবটসম্পাদনা

অতিপারমাণবিক কণাসম্পাদনা

জিন প্রযুক্তিসম্পাদনা

_টেস্ট টিউব নিষেক_

অযৌন প্রজনন (ক্লোনকরণ)সম্পাদনা

ন্যানোপ্রযুক্তিসম্পাদনা

সৌরজগতের গঠনসম্পাদনা

মহাকাশ বীক্ষণ (আধুনিক) ও মহাকাশ অনুসন্ধানসম্পাদনা

অন্ধকার মহাবিশ্বসম্পাদনা

বৃহৎ একীভূত তত্ত্বসম্পাদনা

স্ট্রিং তত্ত্বসম্পাদনা

মানবদেহ চিত্রণসম্পাদনা

আধুনিক শল্যচিকিৎসা পদ্ধতিসম্পাদনা

==নতুন রোগব্যাধির গবেষণা

মনুষ্য জিনোমসম্পাদনা

ভূমণ্ডলীয় উষ্ণতা বৃদ্ধিসম্পাদনা

পুনর্নবায়নযোগ্য শক্তিসম্পাদনা

জলবায়ু পরিবর্তনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা