ফ্রেডরিক বার্টন

অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার

ফ্রেডরিক জন বার্টন (ইংরেজি: Frederick Burton; জন্ম: ২ নভেম্বর, ১৮৬৫ - মৃত্যু: ২৫ আগস্ট, ১৯২৯) ভিক্টোরিয়ার কলিংউড এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১] অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৮৮৭ থেকে ১৮৮৮ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ফ্রেডরিক বার্টন
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামফ্রেডরিক জন বার্টন
জন্ম২ নভেম্বর, ১৮৬৫
কলিংউড, ভিক্টোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু২৫ আগস্ট, ১৯২৯
ওয়াঙ্গানুই, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক, আম্পায়ার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৪৮)
২৫ ফেব্রুয়ারি ১৮৮৭ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১০ ফেব্রুয়ারি ১৮৮৮ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২২
রানের সংখ্যা ৩৭৬
ব্যাটিং গড় ২.০০ ১৩.৪২
১০০/৫০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ২* ৪৭
বল করেছে
উইকেট
বোলিং গড় - -
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং - -
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/১ ২৫/৭
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২২ আগস্ট ২০১৯

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে ভিক্টোরিয়ানিউ সাউথ ওয়েলস দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে কার্যকরী ব্যাটিংশৈলী উপস্থাপন করে গেছেন ফ্রেড বার্টন নামে পরিচিত ফ্রেডরিক বার্টন

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটসম্পাদনা

তার জন্মস্থান নিয়ে ক্ষাণিকটা বিভ্রান্তি রয়েছে। ১৮৮৫-৮৬ মৌসুম থেকে ১৮৯৫-৯৬ মৌসুম পর্যন্ত ফ্রেডরিক বার্টনের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল।

১৮৮৭-৮৮ মৌসুমে ভিক্টোরিয়ার বিপক্ষে নিউ সাউথ ওয়েলসের সদস্যরূপে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৪৭ রান তুলেন। এ পর্যায়ে তিন ঘণ্টা হ্যারি মোজেসের সাথে ১৮৫ রানের জুটি গড়তে সহায়তা করেন। মোজেস পরবর্তীতে ২৯৭ রান করে আউট হন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটসম্পাদনা

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে দুইটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন ফ্রেডরিক বার্টন। ২৫ ফেব্রুয়ারি, ১৮৮৭ তারিখে সিডনিতে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এরপর ১০ ফেব্রুয়ারি, ১৮৮৮ তারিখে একই মাঠে একই দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

২৫ ফেব্রুয়ারি, ১৮৮৭ তারিখে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার আরসি অ্যালেন, এফজে বার্টন, জেটি কটাম, ডব্লিউএফ গিফেনজেজে লিওন্সের এবং ইংল্যান্ডের আর উডের একযোগে টেস্ট অভিষেক ঘটেছিল।[২] ঐ খেলায় তার দল ৭১ রানে পরাভূত হয়। এরপর আর তাকে কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

১৮৮৬-৮৭ মৌসুমে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে নিয়মিত উইকেট-রক্ষক জ্যাক ব্ল্যাকহামের অনুপস্থিতির কারণে খেলার সুযোগ পান। তবে, পরবর্তী মৌসুমের একমাত্র টেস্টে ব্ল্যাকহাম পুনরায় অংশ নিলেও ফ্রেডরিক বার্টনকে ব্যাটসম্যান হিসেবে দলে রাখা হয়। উভয় ইনিংসে তিনি মাত্র এক রান তুলে বিদেয় নিয়েছিলেন। সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে তার ব্যাটিং গড় ছিল মাত্র ১৫।

ব্যক্তিগত জীবনসম্পাদনা

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর নিউজিল্যান্ডে চলে যান ও সেখানে বসবাস করতে থাকেন। এ সময়ে তিনি ক্রিকেট আম্পায়ারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন তিনি।[৩]

২৫ আগস্ট, ১৯২৯ তারিখে ৬৩ বছর বয়সে নিউজিল্যান্ডের ওয়াঙ্গানুই এলাকায় ফ্রেডরিক বার্টনের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Australia – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুলাই ২০১৯ 
  2. "England in Australia (1886 – 1887): Scorecard of second Test"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৩১, ২০১৯ 
  3. "Cricketer Dead: Mr. F. J. Burton, of Wanganui"Auckland Star: 8। ২৬ আগস্ট ১৯২৯। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১৮ 

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা