প্রবেশদ্বার:চিত্রকর্ম

প্রবেশদ্বারসংস্কৃতিদৃশ্যকলাচিত্রকর্ম

চিত্রকর্ম প্রবেশদ্বারে স্বাগতম

চিত্রাঙ্কন (স্পষ্টতর অর্থে রংচিত্র অঙ্কন) বলতে কোনও সমতল পৃষ্ঠের উপর সাধারণত তুলি বা আঙুলের মাধ্যমে এক বা একাধিক রঙ (বিশেষ পদার্থে মিশ্রিত রঞ্জক পদার্থ) লেপন করে কোনও চিত্র অঙ্কন করাকে বোঝায়। চিত্রাঙ্কন প্রক্রিয়ার শেষে যে শিল্পকর্ম সৃষ্টি হয়, তাকে চিত্রকর্ম বলে। একজন শিল্পী যিনি পেশাগত কাজ অথবা শখের বশে চিত্রাঙ্কনের কাজ করেন তাকে চিত্রকর বা চিত্রশিল্পী বলা হয়। রংচিত্র অঙ্কন একটি গুরুত্বপূর্ণ দৃশ্যকলা, যা অঙ্কন, অঙ্গভঙ্গি (অঙ্গভঙ্গি চিত্রকর্ম হিসেবে) কিংবা যে কোনো রচনা বিমূর্ত করে তোলে। চিত্রকর্ম হতে পারে স্বতঃস্ফূর্ত এবং প্রতিনিধিত্বমূলক (যেমনটি পাওয়া যায় স্থিরচিত্রে(Still Life) কিংবা প্রাকৃতিক চিত্রকর্মে, বিমূর্ত, বর্ণনামূলক, প্রতীকী কিংবা আবেগপুর্ণ। প্রাচ্য এবং পাশ্চাত্য উভয়ের চিত্রাঙ্কনের ইতিহাসের একটি অংশ ধর্মীয় চিত্রকলা দ্বারা প্রভাবিত। এই ধরনের চিত্রকর্মের নিদর্শন পাওয়া যায় মৃৎশিল্পের ওপর আঁকা পৌরাণিক চরিত্রের, বাইবেলে উল্লেখিত চরিত্রের, বুদ্ধের জীবন নিয়ে আঁকা দৃশ্যপটে কিংবা অন্যান্য ধর্মীয় চিত্রক্রমে যা পূর্বাঞ্চলের দেশগুলো থেকে জন্ম নিয়েছে।

যে জিনিসের উপর চিত্রাঙ্কন করা যায়, তাকে অবলম্বন বলে। অবলম্বনগুলির মধ্যে আছে দেয়াল, কাগজ, ক্যানভাস, কাঠ, কাঁচ, বার্নিশ, মৃৎশিল্প, পাতা, তামা এবং কংক্রিট। আবার যেসব ব্যবহার করে চিত্রকর্ম করা যায় তার মধ্যে আছে বালি, কাদা, কাগজ, চুন, শুকনো পাতাসহ আরও অনেক কিছু। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

সূচীপত্র

বিশেষ নিবন্ধ

অঙ্কন বা রেখাঙ্কন বলতে এক ধরনের দৃশ্যকলাকে বোঝায় যেখানে শিল্পী বিবিধ উপকরণ ব্যবহার করে কাগজ বা অন্য কোনো দ্বিমাত্রিক মাধ্যমে রেখা বা দাগ টেনে চিত্র অঙ্কন করেন। অঙ্কন সামগ্রীর অন্তর্ভুক্ত উপকরণগুলি হল সিসার পেনসিল, কালি ও কলম, রং তুলি, মোম রংপেনসিল, রঙিন খড়ি, কাঠকয়লা, চক্ খড়ি, রংপেনসিল এবং নানা প্রকার রবার, মার্কার, লেখনী, নানাবিধ ধাতু (যেমন - সিলভারপয়েন্ট) ও বৈদ্যুতিন অঙ্কন। একটি অঙ্কন সামগ্রী অতি সামান্য পরিমাণ উপাদান নিঃসরণের মাধ্যমে কোনো তলে একটি দৃশ্যমান দাগের সৃষ্টি করে।অতি সাধারণভাবে ব্যবহৃত মাধ্যমটি হল কাগজ, যদিও অন্যান্য নানা বস্তু যেমন কার্ডবোর্ড, প্লাস্টিক, চামড়া, ক্যানভাস, এবং বোর্ড ব্যবহার করা হয়ে থাকে।অস্থায়ী অঙ্কন ব্ল্যাকবোর্ড, হোয়াইট বোর্ড অথবা যে কোনো কিছুর উপর করা হয়ে থাকতে পারে। এটি মানবসভ্যতার ইতিহাসের আদ্যোপান্ত থেকেই গণ অভিব্যক্তি প্রকাশের একটি জনপ্রিয় ও মৌলিক মাধ্যম। এটি ধারণাকে দৃশ্যের দ্বারা স্ংযোগের একটি অতিসরল অথচ অত্যন্ত কার্যকরী মাধ্যম। অঙ্কন সামগ্রীর বিস্তৃত লভ্যতা একে অতিসাধারণ শৈল্পিক কার্যকলাপে পরিণত করেছে। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)
নির্বাচিত ভুক্তির তালিকা

চিত্রকর

১৯৫২ সালে আজিম
মোবিনুল আজিম (২৪ নভেম্বর ১৯৩৪ - ১ নভেম্বর ১৯৭৫) ছিলেন একজন বাংলাদেশী চিত্রশিল্পী। তাকে ১৯৫০ থেকে ১৯৭০-এর দশকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা পূর্ব ও পরবর্তী সময়ে তাকে ভারত উপমহাদেশের অন্যতম চিত্রশিল্পী হিসেবে গণ্য করা হত। ১৯৬১ সালে তার প্রথম দ্বৈত চিত্রকলা প্রদর্শনীর পর তিনি পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ১৭টি একক ও ৩৭টি দলগত প্রদর্শনী করেছেন। তিনি ১৯৬৩, ১৯৬৪ ও ১৯৬৭ সালে করাচি আর্ট কাউন্সিলের বার্ষিক চিত্র প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করে প্রথম পুরস্কার লাভ করেন। আজিম শিল্প জীবনে শিখরে থাকাকালীন ১৯৭৫ সালে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর পর ১৯৭৬ সালে ঢাকা ক্লাবে ও ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে তার চিত্রকলার প্রদর্শনী হয়। বাংলাদেশ সরকার সম্মানের প্রতীক হিসাবে তার একটি বিশ্বমানের চিত্রকর্ম যুক্তরাজ্যের লন্ডনের সোনালী ব্যাংক শাখায় এবং একটি বাংলাদেশ জাতীয় যাদুঘরে টাঙ্গিয়ে রেখেছে। চিত্রকলায় তার অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার ২০১২ সালে তাকে মরণোত্তর দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত করে। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

আপনি জানেন কি

উল্লিখিত তথ্যগুলি উইকিপিডিয়া:আপনি জানেন কি প্রকল্পের অংশ হিসেবে প্রধান পাতায় প্রদর্শিত হয়েছে।

স্বীকৃত ভুক্তি

ভাল নিবন্ধ

এটি একটি ভালো নিবন্ধ, যা উচ্চ সম্পাদকীয় মানদণ্ডের মূল শর্তগুলো পূরণ করে।

রশিদ চৌধুরীর আলোকচিত্র

রশিদ হোসেন চৌধুরী, যিনি রশিদ চৌধুরী নামে পরিচিত, (১ এপ্রিল ১৯৩২–১২ ডিসেম্বর ১৯৮৬) ছিলেন বাংলাদেশী চিত্রশিল্পী, ভাস্কর, লেখক এবং অধ্যাপক। বাংলাদেশে শিল্পচর্চার ক্ষেত্রে জয়নুল আবেদীন প্রবর্তিত উত্তর-উপনিবেশিক পর্বে সৃজনশীল ও মৌলিকত্বে তিনি ছিলেন সর্বজন প্রশংসিত ব্যক্তিত্ব। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের দ্বিতীয় প্রজন্মের শিল্পীদের মধ্যেও অন্যতম এবং পঞ্চাশের দশকে বাংলাদেশের আধুনিক শিল্প-আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃৎ হিসেবে স্বকীয় শিল্পচর্চার সূচনা করেছিলেন।

ভারত উপমহাদেশে, বিংশ শতাব্দীর তাপিশ্রী শিল্পী হিসেবে তিনি অন্যতম অগ্রগামী। এ-মাধ্যমেই তিনি সর্বাধিক মৌলিক এবং আধুনিক শিল্পধারার চর্চাকারী হিসেবে অগ্রগণ্য। তাপিশ্রীর পাশাপাশি প্রচলিত তেলরঙ ছাড়াও তিনি কাজ করেছেন টেম্পেরা, গুয়াশ এবং জলরঙ ইত্যাদি অপ্রচলিত মাধ্যমসমূহে। দেশে এবং বিদেশে বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি এবং রাষ্ট্রীয় ও সাধারণ ভবনসমূহে তাপিশ্রী মাধ্যমে বহুসংখ্যক কাজ করেছেন তিনি। এই তাপিশ্রী শিল্পে বিশেষ অবদানের জন্য ১৯৭৭ সালে তাকে বাংলাদেশের জাতীয় এবং সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদক এবং ১৯৮০ সালে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি পুরস্কার প্রদান করা হয়। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)
ভাল নিবন্ধের তালিকা

নির্বাচিত চিত্র- নতুন চিত্র দেখুন

চিত্রকলা সম্পর্কিত বিভিন্ন নিবন্ধে ব্যবহৃত চিত্র

আপনি যা করতে পারেন

  • চিত্রকর্ম সংক্রান্ত মৌলিক বিষয়, চিত্রকরদের জীবনী ও বিভিন্ন চিত্র নিয়ে নতুন নিবন্ধ তৈরি অথবা অন্য উইকিপ্রকল্প হতে অনুবাদ করতে পারেন।
  • বর্তমান নিবন্ধ অথবা চিত্রকর্ম বিষয়ক টেমপ্লেট হতে লাল লিঙ্ক থাকা বিষয় নিয়ে নতুন নিবন্ধ রচনা করতে পারেন।
  • বিদ্যমান নিবন্ধসমূহ তথ্য দিয়ে সমৃদ্ধ, সম্প্রসারণ, রচনাশৈলীর উন্নয়ন ও তথ্যছক না থাকলে যুক্ত করতে পারেন।
  • নিবন্ধগুলিতে উইকিমিডিয়া কমন্স হতে দরকারী ও প্রাসঙ্গিক মুক্ত চিত্র যুক্ত করতে পারেন।
  • চিত্রকর্ম সংক্রান্ত নিবন্ধসমূহে বিষয়শ্রেণী না থাকলে যুক্ত করতে পারেন।
  • নিবন্ধসমূহে তথ্যসূত্রের ঘাটতি থাকলে, পর্যাপ্ত সূত্র যোগ করতে পারেন।
  • সম্পর্কিত নিবন্ধসমূহের শেষে {{প্রবেশদ্বার দণ্ড|চিত্রকর্ম}} যুক্ত করতে পারেন।

বিষয়শ্রেণী

উপবিষয়শ্রেণী দেখার জন্য [►] ক্লিক করুন

উইকিমিডিয়া


উইকিসংবাদে চিত্রকর্ম
উন্মুক্ত সংবাদ উৎস


উইকিউক্তিতে চিত্রকর্ম
উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন


উইকিসংকলনে চিত্রকর্ম
উন্মুক্ত পাঠাগার


উইকিবইয়ে চিত্রকর্ম
উন্মুক্ত পাঠ্যপুস্তক ও ম্যানুয়াল


উইকিবিশ্ববিদ্যালয়ে চিত্রকর্ম
উন্মুক্ত শিক্ষা মাধ্যম


উইকিমিডিয়া কমন্সে চিত্রকর্ম
মুক্ত মিডিয়া ভাণ্ডার


উইকিঅভিধানে চিত্রকর্ম
অভিধান ও সমার্থশব্দকোষ


উইকিউপাত্তে চিত্রকর্ম
উন্মুক্ত জ্ঞানভান্ডার


উইকিভ্রমণে চিত্রকর্ম
উন্মুক্ত ভ্রমণ নির্দেশিকা

সার্ভার ক্যাশ খালি করুন