প্রধান মেনু খুলুন

অন্তর্মুদ্রাবাদ (ইংরেজি ভাষায়: Impressionism), প্রতিচ্ছায়াবাদ বা ইমপ্রেশনিজ্‌ম ঊনবিংশ শতকে শুরু হওয়া একটি চিত্রকলা আন্দোলন। ১৮৬০-এর দশকে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের কিছু তরুণ চিত্রশিল্পী নিজেরাই তাঁদের আঁকা ছবি প্রদর্শনীর জন্য ব্যবস্থা করেন। তাঁদের এই প্রচেষ্টার সাথে অন্তর্মুদ্রাবাদের বেশ খানিকটা সম্পর্ক আছে। আন্দোলনের নাম ক্লোদ মনের একটি ছবির নাম থেকে এসেছে। ছবিটির নাম আঁপ্রেসিওঁ, সোলেই লোভঁ (Impression, soleil levant)। চিত্র সমালোচক লুই ল্যরোয়া এই ছবির নেতিবাচক সমালোচনা করেছিলেন এবং ছবি আঁকার এই ধরণটিকে ব্যাঙ্গ করে "আঁপ্রেসিওঁ" নামে ডেকেছিলেন। Le Charivari পত্রিকাতে শব্দটি প্রকাশিত হওয়ার পর সবাই ধরণটিকে এ নামেই ডাকতে শুরু করে।

অন্তর্মুদ্রাবাদের মূল কথা হল বাস্তবতার নিরিখেই ছবি আঁকতে হবে এমন কোন কথা নেই। কারণ বাস্তব প্রাকৃতিক দৃশ্য বা এ ধরনের অনেক কিছু নিয়েই ছবি আঁকা হয়ে গেছে। কিন্তু বাস্তব দৃশ্য শিল্পীর মনে যে অণুরণন জাগায় তাকে তার নিজের কল্পনায় ফুটিয়ে তোলার মাধ্যমেও ছবি আঁকা যেতে পারে। এভাবেই সম্পূর্ণ ভিন্নধর্মী ছবি আঁকা শুরু করেন প্যারিসের গুটিকতক তরুণ চিত্রশিল্পী। তাঁদের ছবির মূল বৈশিষ্ট্য ছিল উজ্জ্বলভাবে তুলির ব্যবহার, উন্মুক্ত কম্পোজিশন, আলো এবং এর পরিবর্তনশীল মানের উপর গুরুত্ব প্রয়োগ, খুব সাধারণ বিষয়বস্তু, মানুষের অবধারণ ও অভিজ্ঞতা ফুটিয়ে তোলার জন্য চলনের ব্যবহার এবং ভিন্নরকম চাক্ষুষ দৃষ্টিকোণ।

চিত্রশিল্পে অন্তর্মুদ্রাবাদের উত্থান ঘটার পর শিল্পের অন্যান্য শাখায় একই ধরনের আন্দোলনের সূচনা ঘটে। এর মধ্যে আছে অন্তর্মুদ্রাবাদীয় সঙ্গীত এবং অন্তর্মুদ্রাবাদীয় সাহিত্য। শুধু ঊনবিংশ শতকের সেই সময়ের ছবিগুলোই নয়, বর্তমানে যেকোন সময়ে ঐ ভঙ্গিতে আঁকা ছবিকেই অন্তর্মুদ্রাবাদের কাতারে ফেলা হয়।

ইম্প্রেশনিজম আখ্যাটা প্রথমে গালাগাল হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল। তবে শিল্পীরা সেই পরিচয়কে আনন্দের সাথে মেনে নেয়। শিল্পীরা বিচ্ছিন্ন ছিল, যা যার মত ছবি আঁকত, এর পরেই শুরু হয় ইম্প্রেশনিজম আন্দোলন।

রোমান্টিসজমের আবেগকে বর্জন করে রিয়েলিজমের নিরেট বস্তুবাদকে এড়িয়ে উনবিংশ শতাব্দিতে সবচেয়ে উল্লেখ্যোগ্য যে শিল্পচর্চার শুরু হয় তাই ইম্প্রেশনিজম

- সময়ঃ- উনবিংশ শতাব্দির শেষ চার দশক অর্থাৎ ১৮৬০ সাল থেকে ১৯০০ সাল পর্যন্ত।

- স্থানঃ- চিত্রকলা ভিত্তিক এ শিল্প কলার বিকাশ ঘটে ফ্রান্সে।

- উদ্দেশ্যঃ- দৃশ্যমান জগতের তাৎক্ষনিক বস্তুকে ক্যানভাসে তুলে ধরা।

- বুৎপত্তিঃ- ইম্প্রেশনিজম শব্দটি মুলত ইম্প্রেশন হতে এসেছে, যার অর্থ ধারনা বা ভাবাবাদ, তাৎক্ষনিক ও স্বতঃস্ফুর্ত ভাবে প্রকাশিত। এই তাৎক্ষনিক ভাব বা অনুভূতির বহিপ্রকাশের ধারাই হল ইম্প্রেশনিজম।

-নামকরণঃ- ১৮৬৩ সালে প্যারিস। প্যারিসে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় আয়োজিত সল্যোঁ (এক বার্ষিক প্রদর্শনিতে) ইম্প্রেশনিজমের জন্ম, যখন মানুষ পেইন্টিং মানে বুঝত ধর্মগ্রন্থ থেকে উঠে আসা কোন ধটনা কিংবা পরিশিলীত ভাবে চিত্রশিল্পীর সামনে বসে আঁকা পোর্ট্রেট। ল্যান্ডস্কেপ আর স্টিল লাইফকে তখন নিম্ন মানের ভাবা হতো। শিল্পের বৈশিষ্ট এমন হওয়াতে কিছু ইম্প্রেশনিস্ট শিল্পীর চিত্রকর্ম এ প্রদর্শনীতে স্থান পায় না। তাদের নিসিদ্ধ করা হয় এবং আস্তে আস্তে বিভিন্ন প্রদর্শনী হতে বাদ পরতে থাকে।

১৮৭৪ সালে ১৫ই এপ্রিল ঐ কতিপয় বাদপড়া শিল্পীদের salon des Refuses(Eng: Salon of the Rejected) প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। এর ত্বত্তাবধানে ছিলেন সম্রাট ৩য় নেপেলিয়ন। এটিই প্যারিসে ইম্প্রেশনিস্ট শিল্পীদের প্রথম প্রদর্শনী।

অন্তর্মুদ্রাবাদের অগ্রপথিকেরাসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা