প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তর

বাংলাদেশের প্রধান সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা

প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তর[২] বা ডিরেক্টরেট জেনারেল অব ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্স (সংক্ষেপে ডিজিএফআই) হচ্ছে বাংলাদেশের প্রধান সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা। এনএসআইবিশেষ শাখার সাথে এই সংস্থা বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা কার্যক্রম চালাতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তর
প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের লোগো.svg
প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের সীল
প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের পতাকা.svg
প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের পতাকা
সংস্থার রূপরেখা
গঠিত১৯৭৭
সদর দপ্তরঢাকা সেনানিবাস, বাংলাদেশ
নীতিবাক্যজাতীয় নিরাপত্তা রক্ষার জন্য, জাতির জন্য দেখা ও শোনা
কর্মীআনুমানিক ১২,০০০[১]
বার্ষিক বাজেটঅজানা
সংস্থা নির্বাহী
মূল সংস্থাবাংলাদেশ সরকার
অধিভূক্ত সংস্থা

ইতিহাস

আনুষ্ঠানিকভাবে ডিজিএফআই স্থাপিত হয় ১৯৭২ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমানের অধীনে। তখন এর নাম ছিল ডিরেক্টরেট অব ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্স (ডিএফআই)।[৩] ১৯৭৭ সালে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এই সংস্থার কাঠামোগত পরিবর্তন করেন ও এর নামকরণ করা হয় প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তর বা ডিরেক্টরেট জেনারেল অব ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্স (ডিজিএফআই)। বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর গ্রুপ ক্যাপ্টেন কে এম আমিনুল ইসলাম খান ছিলেন ডিএফআইয়ের প্রথম পরিচালক। ১৯৯৪ সালের ৮ মার্চ এ সংস্থার নতুন অগ্রানোগ্রাম করা হয়।[৩][৩]

পরিচালক

ডিজিএফআইয়ের নেতৃত্বে একজন মহাপরিচালক থাকেন, যিনি ঐতিহ্যগতভাবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে একজন মেজর-জেনারেল (দ্বি-তারকা জেনারেল) পদে নিয়োজিত। সাত জন উপ-মহাপরিচালক প্রত্যক্ষ মহাপরিচালককে প্রতিবেদন করেন যার সাথে প্রতিটি উপ-পরিচালক তাদের যথাযথ শাখাগুলি পরিচালনা করে:

পরিচালনা অধিদফতর

বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীকে অন্যান্য দেশের সশস্ত্র বাহিনীর উপর বিদেশী গোয়েন্দা তথ্য সরবরাহ করে।

যৌথ গোয়েন্দা অধিদপ্তর

গোয়েন্দা ও রাষ্ট্রবিরোধী গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের জন্য জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা (এনএসআই), বিশেষ শাখা, গোয়েন্দা শাখা এবং র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের সাথে কাজ করে।

কাউন্টার-ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো

তথ্য শ্রেণিবদ্ধ।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট

কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো (সিটিআইবি), ডিজিএফআইয়ের একটি অভিজাত সন্ত্রাসবাদ বিরোধী গোয়েন্দা ইউনিট। ২০০৬ সালে এবং ডিজিএফআইয়ের কাউন্টার টেরোরিজম শাখা থেকে ব্যুরোটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, যে শাখাটি ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এবং জাতীয় সুরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এর কাউন্টার টেরোরিজম সেলের সাথে এই ব্যুরো প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। অভ্যন্তরীণ হুমকি এবং পাল্টা আক্রমণ সম্পর্কিত বুদ্ধি সংগ্রহ ও বিশ্লেষণের জন্য সিটিআইবি দায়বদ্ধ সিটিআইবির এজেন্টদের সশস্ত্র বাহিনী থেকে নিয়োগ দেওয়া হয় এবং গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ ও বিশেষ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দায়বদ্ধ।

প্রধান কার্যালয়

প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তর (ডিজিএফআই)-এর প্রধান কার্যালয় ঢাকা সেনানিবাসে অবস্থিত।

মহাপরিচালক

তথ্যসূত্র

  1. Ignoring Execution and Tortures (ইংরেজি ভাষায়)। Human Rights Watch। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৪ 
  2. "প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন সংস্থা ও দপ্তরসমূহ"আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর 
  3. "History of DGFI" (ইংরেজি ভাষায়)। ১৪ জুলাই ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০১৪