পাকিস্তানে সংখ্যালঘু মেয়েদের জোরপূর্বক ধর্মান্তরিতকরণ

পাকিস্তানে মানবাধিকার হরণ

প্রায়ই পাকিস্তানে সংখ্যালঘু হিন্দু, খ্রিস্টান এবং শিখ সম্প্রদায়ের অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের অপহরণ, ধর্ষণ, জোর করে বিয়ে এবং ইসলামে ধর্মান্তরিত করার অভিযোগ পাওয়া যায়।[১] [২] মানবাধিকার সংস্থার মতে প্রতি বছর শত শত হিন্দু, শিখ, খ্রিস্টান মেয়েকে অপহরণ করে ধর্মান্তরিত করা হয়। পাকিস্তানের ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ চার্চেস (এনসিসিপি) জানিয়েছে যে প্রতি বছর খ্রিস্টান মেয়েদের অপহরণের সংখ্যা বাড়ছে।[৩] কালাশ সম্প্রদায়ের মেয়েদের জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত করার অভিযোগও গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।[৪] বেশিরভাগ লক্ষ্যবস্তু নিম্নবর্ণের এবং দরিদ্র পরিবারের হিন্দু এবং খ্রিস্টান মেয়েরা।[৫] এই তালিকায় কিছু ১২ বছরের কম বয়সী মেয়েও রয়েছে।[৬] এই ধরনের জোরপূর্বক ধর্মান্তরের ঘটনাগুলি দক্ষিণ সিন্ধুর জেলা থারপারকার , উমেরকোট এবং মিরপুর খাস এবং দক্ষিণ পাঞ্জাব[৭] বিশেষ করে রহিম ইয়ার খান জেলা এবং সংলগ্ন এলাকায় ক্রমবর্ধমানভাবে রিপোর্ট করা হচ্ছে।[৮]

পাকিস্তান হিন্দু কাউন্সিল পরিচালিত হিন্দু মেয়েদের জোরপূর্বক ধর্মান্তরের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ
NCJP দ্বারা আয়োজিত পাকিস্তানে খ্রিস্টান মেয়েদের জোর করে ধর্মান্তরিত করার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ

ঘটনাসম্পাদনা

  • ২০০৩ সালে, একটি ছয় বছর বয়সী শিখ মেয়েকে উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের আফ্রিদি উপজাতির সদস্যরা অপহরণ করেছিল, অভিযুক্ত অপহরণকারী দাবি করেছিল যে মেয়েটির বয়স আসলে ১২ বছর এবং সে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিল তাই তার অমুসলিম পরিবারে ফিরিয়ে দেওয়া যায়নি।[৯]
  • ৪ জানুয়ারী, ২০০৫, ১৬ বছর বয়সী হেমি এবং ১৮ বছর বয়সী মারভিকে উমেরকোট জেলার কুনরি গ্রাম থেকে অপহরণ করা হয়।[১০]
  • ২০০৫ সালের ৩ মার্চ, ১৪ বছর বয়সী রাজীকে মিরপুরখাস জেলার আসলাম টাউন ঘুড্ডো থেকে অপহরণ করা হয়।[১০]
  • ২০০৫ সালের ২২শে ডিসেম্বর, মিরপুর খাস জেলার ঢালুরী গ্রাম থেকে ১৩ বছর বয়সী মাশুকে অপহরণ করা হয়।[১০]
  • ২০০৬-এ ২৩ জুলাই, করাচি জেলার লিয়ারি শহর থেকে ১৫ বছর বয়সী পূজাকে অপহরণ করা হয়। একজন বিচারক রায় দিয়েছিলেন যে তাকে মুক্তি দেওয়া উচিত এবং যদিও দেওয়ার পর, তাকে আবার অপহরণ করা হয়েছিল এবং তারপর থেকে সে এখনো নিখোঁজ।[১০]
  • ২০০৬ সালের ২ আগস্ট, ১৬ বছর বয়সী কোমলকে করাচি জেলার হকস বে থেকে অপহরণ করা হয়।[১০]
  • ২০০৬-এ ৩১ ডিসেম্বর, ১৭ বছর বয়সী দীপাকে সিন্ধু প্রদেশের থারপারকার জেলা থেকে অপহরণ করা হয়।[১০]
  • ২০০৭ সালের মে মাসে, আফগানিস্তানের সীমান্তের কাছে পাকিস্তানের উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের চরসাদ্দার খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সদস্যরা জানায় যে তারা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ না করলে বোমা হামলার হুমকি দিয়ে চিঠি পেয়েছে এবং পুলিশ তাদের অভিযোগ নিচ্ছে না। তাদের ভয় দেখানো হচ্ছে গুরুতরভাবে।[১১]
  • ২০০৯-এ জুনে, ইন্টারন্যাশনাল খ্রিস্টান কনসার্ন (ICC) ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে অস্বীকার করার জন্য পাকিস্তানে একজন খ্রিস্টান ব্যক্তিকে ধর্ষণ ও হত্যার করা হয়।[১২]
  • রিঙ্কল কুমারী, ১৯-বছরের পাকিস্তানি ছাত্রী, লতা কুমারী এবং একটি বিউটি পার্লারে কর্মরত হিন্দু আশা কুমারীকে হিন্দুধর্ম থেকে ইসলামে ধর্মান্তরিত করতে বাধ্য করা হয়।[১৩][১৪] তাদের মামলা পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টে আপিল করা হয়েছিল । আপিলটি গৃহীত হয়েছিল কিন্তু পরে তা ধামাচাপা দেওয়া হয়।[১৫]
  • ২০১৪ সালের ২৩শে সেপ্টেম্বর, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্রী জোতি কুমারীকে সিন্ধু জেলার লারকানা শহর থেকে অপহরণ করা হয়।[১৬]
  • ১৪-১৯ মে মাসরুরে মোট ৫৭ জন হিন্দু ধর্মান্তরিত হয়েছেন । ১৪ মে একই পরিবারের ৩৫ জন হিন্দুকে তাদের নিয়োগকর্তার দ্বারা ধর্মান্তরিত করতে বাধ্য করা হয়েছিল কারণ মুসলমানরা তার খাওয়ার জিনিসগুলি হিন্দুদের দ্বারা প্রস্তুত করায় এবং সেইসাথে তাদের আত্মীয়দের মতে প্রতিবেশী দোকানের মুসলিম কর্মচারীদের দ্বারা তাদের নিপীড়ন শুরু করার পর তার বিক্রি কমে যায়। যেহেতু দরিদ্র হিন্দুদের উপার্জনের আর কোনো উপায় ছিল না এবং বেঁচে থাকার জন্য চাকরি রাখার প্রয়োজন ছিল, তাই তারা ধর্মান্তরিত হয়েছিল। ১৭ মে অন্য পরিবারের ১৪ জন সদস্য ধর্মান্তরিত হতে বাধ্য করা হয়, কারণ হিন্দু হওয়ার জন্য তাদের কেউ নিয়োগ দেয়নি। পরে অন্য একজন হিন্দু ব্যক্তি এবং তার আট সদস্যের পরিবার মুসলমানদের চাপে তাদের জমি দখল এড়াতে ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়।[১৭]
  • ২০১৭ সালে, পাকিস্তানের খাইবার-পাখতুনখোয়া প্রদেশের হাঙ্গু জেলার শিখ সম্প্রদায় অভিযোগ করেছিল যে তাদের একজন সরকারী কর্মকর্তা দ্বারা "ইসলামে ধর্মান্তরিত করতে বাধ্য করা হচ্ছে"। ফরিদ চাঁদ সিং, যিনি অভিযোগ দায়ের করেছেন, দাবি করেছেন যে সহকারী কমিশনার তহসিল টাল ইয়াকুব খান শিখদের ইসলামে ধর্মান্তরিত করতে বাধ্য করছেন এবং দোয়াবা এলাকার বাসিন্দাদের ধর্মীয়ভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে।[১৮]
  • ২০১৭ সালের ২৯ এপ্রিল, বুনের জেলা থেকে ১৭ বছর বয়সী প্রিয়া কৌর নামে একজন শিখ মেয়েকে অপহরণ করা হয়েছিল।[১০]
  • ২০১৭ সালের জুনে, ১৬ বছর বয়সী রবিতা মেঘওয়ারকে সিন্ধুতে অপহরণ করা হয়।[১৬]
  • ২০১৯ সালে হিন্দু দুইবোন রীনা এবং রাভিনা পাকিস্তানে জোরপূর্বক ধর্মান্তরিতকরণের চেষ্টা করা হয় ।[১৯] এ ঘটনায় ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পাকিস্তানকে এ সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছিল।[১৬]
  • ২০১৯ সালের জানুয়ারী, ১৬ বছর বয়সী আনুশা কুমারীকে অপহরণ করা হয়েছিল এবং ভারতীয় হাইকমিশন বিষয়টি জেনেছিল, কিন্তু পরে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।[১০]
  • ২০১৯ সালে, একজন শিখ মেয়েকে অপহরণ করে বিয়ে করে ধর্মান্তর করা হয়। পাঞ্জাবের গভর্নর তাকে তার বাবা-মায়ের কাছে ফেরত পাঠানোর আশ্বাস দিলেও এখনও বাড়ি ফিরতে পারেনি।[২০]
  • ২০২০ সালে, ১৫ বছর বয়সী হিন্দু মেয়ে মেহক কুমারীকে অপহরণ করা হয়েছিল, জোর করে ধর্মান্তরিত করা হয়েছিল এবং একজন মুসলিম পুরুষের সাথে জোরপূর্বক বিয়ে করানো হয়েছিল। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে।[২১] [২২]  আদালত তাকে একটি নারী সুরক্ষা কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ দেন।[২৩] আদালতে তিনি বলেছিলেন যে তিনি ধর্মান্তরিত হতে চান না এবং তার পিতামাতার কাছে ফেরত যেতে চান।[২৪] এর পরেই, পাকিস্তানের ইসলাম ধর্মগুরুরা ধর্মান্তরিত হওয়ার পর ইসলাম ত্যাগ করার জন্য মেহক কুমারীর শিরশ্ছেদ করার দাবি জানান।[২৫]
  • ২০২০ সালের জানুয়ারিতে পুলিশের সহায়তায় এক নববধূকে তার বিয়ে থেকে অপহরণ করে জোরপূর্বক একজন মুসলিমকে বিয়ে করানো হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।[২৬]
  • ২০২০ সালে, একটি ১৪ বছর বয়সী খ্রিস্টান মেয়েকে অপহরণ করা হয়েছিল, ইসলামে ধর্মান্তরিত করা হয়েছিল এবং করাচিতে একজন মুসলিম ব্যক্তির সাথে বিয়ে হয়েছিল। আদালতে বিচারকরা বলে যে মেয়েটির ইতিমধ্যেই তার প্রথম মাসিক হয়েছে এবং ইসলামিক শরিয়া আইন অনুসারে তাকে প্রাপ্তবয়স্ক হিসাবে বিবেচনা করা উচিত এবং তার অপহরণকারীর সাথে তার বিয়ে বৈধ এবং ন্যায়সঙ্গত।[২৭]

আরো পড়ুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Stories of forced conversion to Islam in Pakistan"BBC News 
  2. KATHY GANNON (২৮ ডিসেম্বর ২০২০)। "Each year, 1,000 Pakistani girls forcibly converted to Islam"abc news। ৪ নভেম্বর ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  3. "Abducted, shackled and forced to marry at 12"BBC News। ১০ মার্চ ২০২১। 
  4. "Express Tribune"Clash in Chitral over Kalash girl's ‘forced’ conversion to Islam। ১৬ জুন ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  5. Siobhan Heanue (২৬ জুলাই ২০১৯)। "Hindu sisters Reena and Raveena become face of forced religious conversion in Pakistan"ABC news। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  6. Kunwar Khuldune Shahid (১১ জানুয়ারি ২০২০)। "Pakistan's forced conversions shame Imran Khan"The Spectator। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০২১ 
  7. Quratulain, Fatima (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭), "Forced conversions of Pakistani Hindu girls", Daily Times (Pakistan), সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  8. Zahid Gishkori (৩ সেপ্টেম্বর ২০১২)। "Intolerance growing in South Punjab: Report"। সংগ্রহের তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  9. "Pakistan"Annual Report on International Religious Freedom, 2004United States Commission on International Religious Freedom, State Dept (US), Senate Committee on Foreign Relations (US)। ২০০৫। পৃষ্ঠা 667। আইএসবিএন 978-0-16072-552-4 
  10. "Brides of Despair"। The New Indian Express। ৩১ মার্চ ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০২০ 
  11. "Taliban Tells Pakistani Christians: Convert or Die"Fox News। মে ১৫, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ৫, ২০১৫ 
  12. Zimmett, Nora (জুন ১৩, ২০০৯)। "Christian Man Raped, Murdered for Refusing to Convert to Islam, Family Says"। FOX News। মে ১৪, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ১১, ২০১১ 
  13. "Opinion: Rinkle Kumari – the new Marvi of Sindh by Marvi Sirmed"। Thefridaytimes.com। ২০১৩-০২-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-১৫ 
  14. "SC orders release of Rinkle Kumari, others"Pakistan Observer। এপ্রিল ১৯, ২০১২। ২০১৪-০২-২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৬-০৫ 
  15. "Curbs on forced conversion"The Express Tribune। ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। 
  16. "Brides of Despair"। The New Indian Express। ৩১ মার্চ ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০২০ 
  17. Manan, Abdul (২৫ মে ২০১০)। "57 Hindus convert to Islam in 10 days"The Express Tribune। ২৩ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  18. "Sikh community in Hangu 'being forced to convert' | The Express Tribune"। ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭। ২০১৮-০১-২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-২৯ 
  19. "Hindu sisters Reena and Raveena become face of forced religious conversion in Pakistan"। ABC News। ২৫ জুলাই ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  20. "Pakistan: Sikh girl, kidnapped and married to Muslim, yet to return home"। India Today। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  21. "Pak Hindu girl rescued, yet to return to family"। Bennett, Coleman and Co. Ltd.। ২১ জানুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০২০ 
  22. "Pak police recover minor Hindu girl"। Bennett, Coleman and Co. Ltd.। ২১ জানুয়ারি ২০২০। ২২ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০২০ 
  23. "Pak court sends 15-yr-old Hindu girl to women protection centre after forced conversion, marriage"The Tribune। ২৩ জানুয়ারি ২০২০। ২৫ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০২০ 
  24. "Don't want to convert, will stay with parents: Minor Pakistan Hindu girl"। Bennett, Coleman and Co. Ltd.। ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  25. "Hindu minor girl who was forcefully converted renounces Islam; Pakistani mullahs demand death penalty"। Times Now News। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মার্চ ২০২০ 
  26. "Pak Hindu bride abducted, converted to Islam, forcibly married to Muslim man"। Bennett, Coleman and Co. Ltd.। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০২০ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  27. "She's an adult as she has had her 1st period: Pak judges on minor Catholic girl's forced conversion, marriage"। Bennett, Coleman and Co. Ltd.। ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০