পশ্চিম প্রদেশ, শ্রীলঙ্কা

পশ্চিম প্রদেশ ( সিংহলি: බස්නාහිර පළාත বাসনির পলতা ; তামিল: மேல் மாகாணம் মাইল মাকাআনাম ) দেশের প্রথম স্তরের প্রশাসনিক বিভাগ, শ্রীলঙ্কার নয়টি প্রদেশের মধ্যে একটি । শ্রীলঙ্কা সংবিধানের ত্রয়োদশ সংশোধনী প্রাদেশিক কাউন্সিল প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত প্রদেশগুলি অস্তিত্ব নিয়েছে তবে ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত কোনও আইনগত অবস্থান ছিল না। [৪][৫] এই প্রদেশটি দেশের সর্বাধিক ঘনবসতিপূর্ণ প্রদেশ এবং এটি বিধিবদ্ধ রাজধানী শ্রী জয়াবর্ধনপুরা কোট্টির পাশাপাশি দেশটির প্রশাসনিক ও ব্যবসায়িক কেন্দ্র কলম্বোতে রয়েছে

পশ্চিম প্রদেশ
බස්නාහිර පළාත
மேல் மாகாணம்
প্রদেশ
কলম্বো
পশ্চিম প্রদেশের পতাকা
পতাকা
শ্রীলঙ্কার মধ্যে অবস্থান
শ্রীলঙ্কার মধ্যে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ০৬°৫০′ উত্তর ৮০°০৫′ পূর্ব / ৬.৮৩৩° উত্তর ৮০.০৮৩° পূর্ব / 6.833; 80.083
দেশশ্রীলঙ্কা
প্রতিষ্ঠা১ অক্টোবর ১৮৩৩
প্রাদেশিক কাউন্সিল১৪ নভেম্বর ১৯৮৭
রাজধানীকলম্বো
জেলা
সরকার
 • ধরনপ্রাদেশিক কাউন্সিল
 • শাসকপশ্চিম প্রাদেশিক পরিষদ
 • রাজ্যপালরওশন গোনাতিলকে
আয়তন[১]
 • মোট৩,৬৮৪ বর্গকিমি (১,৪২২ বর্গমাইল)
 • স্থলভাগ৩,৫৯৩ বর্গকিমি (১,৩৮৭ বর্গমাইল)
এলাকার ক্রম৯ম (৫.৬১% মোট ক্ষেত্রফল)
জনসংখ্যা (২০১২ আদমশুমারি অনুযায়ী)[২]
 • মোট৫৮,২১,৭১০
 • ক্রম১ম (২৮.৭৩% সর্বমোট জন.)
 • জনঘনত্ব১,৬০০/বর্গকিমি (৪,১০০/বর্গমাইল)
জাতিগততা(২০১২ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী)[২]
 • সিংহলি৪,৯০৫,৪২৫ (৮৪.২৬%)
ধর্ম(২০১২ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী)[৩]
 • বৌদ্ধধর্ম৪,২৮৮,৭৯৭ (৭৩.৬৭%)
সময় অঞ্চলশ্রীলঙ্কা (ইউটিসি+০৫:৩০)
পোস্টাল কোড০০০০০-১৯৯৯৯
টেলিফোন কোড০১১, ০৩১, ০৩৩, ০৩৪, ০৩৬, ০৩৮
আইএসও ৩১৬৬ কোডLK-1
যানবাহন নিবন্ধনWP
ওয়েবসাইটwww.wp.gov.lk

ইতিহাসসম্পাদনা

বর্তমান পশ্চিম প্রদেশের কিছু অংশ কোট্টের প্রাক-ঔপনিবেশিক রাজ্যের অংশ ছিল। প্রদেশটি তারপর পর্তুগীজ, ডাচ এবং ব্রিটিশ নিয়ন্ত্রণ অধীনে আসে। ১৮১৫ সালে ব্রিটিশ সমগ্র সিলোন দ্বীপ নিয়ন্ত্রণ লাভ করে। তারা দ্বীপটিকে তিনটি জাতিগত ভিত্তিক প্রশাসনিক কাঠামোতে বিভক্ত করেছে: নিম্ন দেশ সিংহলী, কান্দিয়ান সিংহলী এবং তামিল। ​পশ্চিম প্রদেশটি নিম্ন দেশ সিংহলী প্রশাসনের অংশ ছিল। ১৮৩৩ সালে, কোলব্রুক-ক্যামেরন কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী, জাতিগত ভিত্তিক প্রশাসনিক কাঠামো পাঁচটি ভৌগোলিক প্রদেশে বিভক্ত একটি একক প্রশাসনে একত্রিত করা হয়।[৬] চিলাউ, কলম্বো, কালুতারা, পুট্টালাম, সাতটি কোরালে (বর্তমান কুরুনেগালা জেলা), তিনটি কোরালস, চারটি কোরালেস এবং লোয়ার বুলাতগামা (বর্তমান কেগালে জেলা) জেলাগুলি একটি নতুন পশ্চিম প্রদেশ গঠন করে।[৭] চিলা জেলা, পুতললাম জেলা এবং সাতটি কোরালস ১৮৪৫ সালে নবগঠিত উত্তর পশ্চিম প্রদেশে স্থানান্তরকরা হয়।[৮] তিনটি কোরালস, চারটি কোরালস এবং লোয়ার বুলাতগামা ১৮৮৯ সালে নবগঠিত সাবারাগমুওয়া প্রদেশে স্থানান্তরিত হয়।[৯]

এটি সুরবানা দ্বারা নকশাকৃত করা পশ্চিম প্রদেশের পশ্চিম অঞ্চল মেগাপলিস পরিকল্পনার অধীনে একটি পরিকল্পিত মেগাসিটি তৈরির পরিকল্পনা করা হয়েছে। মূলত ২০০৪ সালে রনিল বিক্রমসিংহ তার নির্বাচনে পরাজয়ের পর এটি বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং ২০১৫ সালে ক্ষমতায় ফিরে আসার পর পুনরায় চালু করা হয়। প্রকল্পটি কলম্বো, গাম্পাহা এবং কালুতারা জেলাকে একত্রিত করার পরিকল্পনা করেছে এবং জোনিং প্রবর্তনের করার পরিকল্পনা করেছে।[১০][১১]

ভূগোল এবং জলবায়ুসম্পাদনা

পশ্চিম প্রদেশ শ্রীলংকার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত। এর আয়তন ৩,৬৮৪ বর্গকিলোমিটার (১,৪২২ মা) এলাকা আছে।[১] প্রদেশটি পশ্চিমে লক্ষদ্বীপ সাগর, উত্তরে উত্তর-পশ্চিম প্রদেশ, পূর্বে সাবারাগামুয়া প্রদেশ এবং দক্ষিণে দক্ষিণ প্রদেশ দ্বারা বেষ্টিত।

ভারী বৃষ্টিপাতের সাথে গড় বৃষ্টিপাতবৃদ্ধির ফলে পশ্চিম প্রদেশ বারবার বন্যার সম্মুখীন হচ্ছে, যার ফলে অবকাঠামো, কার্যকারিতা সরবরাহ এবং প্রদেশের নগর অর্থনীতিতে প্রভাব পড়েছে। শ্রীলঙ্কার সর্বাধিক নগরায়িত প্রদেশ হিসাবে, এই জলবায়ু ঘটনা এই প্রদেশের দ্রুত শহুরে প্রবৃদ্ধির কারণে বেশ কিছু সমস্যার সৃষ্টি করেছে।

প্রশাসনিক বিভাগসম্পাদনা

পশ্চিম প্রদেশ তিনটি প্রশাসনিক জেলা, ৪০টি বিভাগীয় সচিব বিভাগ (ডিএস বিভাগ) এবং ২,৫০৫ গ্রামীণ নীলাধারী বিভাগ (জিএন বিভাগ) বিভক্ত।

জেলা রাজধানী জেলা সচিব ডি এস বিভাগ জিএন বিভাগ[১২][১৩][১৪] মোট ক্ষেত্রফল(কিমি2) [১] জমি ক্ষেত্রফল(কিমি2) জনসংখ্যা (২০১২ আদমশুমারি) [২] জনসংখ্যা ঘনত্ব(/ কিমি 2 )
সিংহলী শ্রীলংকান মুরস শ্রীলঙ্কার তামিল ভারতীয় তামিল অন্যান্য মোট
কলম্বো কলম্বো সুনীল কান্নগার ১৩ ৫৬৬ ৬৯৯ ৬৭৬ ১,৭৭১,৩১৯ ২৪২,৭২৮ ২৩১,৩১৮ ২৭,৩৩৬ ৩৭,১০৮ ২,৩০৯,৮০৯ ৩,৩০৪
গম্পাহা গম্পাহা জে.জে রথনাসিরি ১৩ ১,১৭৭ ১,৩৮৭ ১,৩৪১ ২,০৭৯,১১৫ ৯৫,৫০১ ৮০,০৭১ ১০,৮৭৯ 29,075 ২,২৯৪,৬৪১ ১,৬৫৪
কালুতারা কালুতারা ইউডিসি জয়লাল ১৪ ৭৬২ ১,৫৯৪ ১,৫৭৬ ১,০৫৪,৯৯১ ১১২,২৭৬ ২৪,৩৬২ ২৩,৬১১ ২,০২০ ১,২১৭,২৬০ ৭৬২
মোট ৪০ ২,৫০৫ ৩,৬৮৪ ৩,৫৯৩ ৪,৯০৫,৪২৫ ৪৫০,৫০৫ ৩৩৫,৭৫১ ৬১,৮২৬ ৬৮,২০৩ ৫,৮২১,৭১০ ১,৫৮০

প্রধান শহর এবং শহরসম্পাদনা

 
কালুতারা দুর্গ
শহর / শহর জেলা জনসংখ্যা(২০০১ আদমশুমারি) [১৫]
কলম্বো কলম্বো ৬৪৭,১০০
দেহিওয়ালা-মাউন্ট লাভিনিয়া কলম্বো ২১০,৫৪৬
মোরাতুয়া কলম্বো ১৭৭,৫৬৩
নেগোম্বো গম্পাহা ১২১,৭০১
শ্রী জয়াবর্ধনপুরা কোট্টে কলম্বো ১১৬,৩৬৬
গম্পাহা গম্পাহা ৫৭,৪৬১
কালুতারা কালুতারা ৩৭,৪৫১

ডেমোগ্রাফিক্সসম্পাদনা

জনসংখ্যাসম্পাদনা

পশ্চিম প্রদেশের জনসংখ্যা ২০১২ সালে ৫,৮২১,৭১০ ছিল।[২] জনসংখ্যার সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিলো সিংহলি, এছাড়াও একটি সংখ্যালঘু শ্রীলংকান মুর এবং শ্রীলঙ্কার তামিল জনসংখ্যার লোকও ছিলো।

জাতিগততাসম্পাদনা

১৯৮১ থেকে ২০১২ পর্যন্ত জাতিগত গোষ্ঠী অনুসারে পশ্চিম প্রদেশের জনসংখ্যা [২][১৬]
বছর সিংহলী শ্রীলংকান মুর শ্রীলঙ্কার তামিল ভারতীয় তামিল অন্যান্য মোট
সংখ্যা
সংখ্যা % সংখ্যা % সংখ্যা % সংখ্যা % সংখ্যা %
১৯৮১ এর আদমশুমারি ৩,৩২১,৮৩০ ৮৪.৭৪% ২৩৮,৭২৮ ৬.০৯% ২২৮,৫১৬ ৫.৮৩% ৫৯,৪০২ ১.৫১% ৭১,৩৩১ ১.৮২% ৩,৯১৯,৮০৭
২০০১ এর আদমশুমারি ৪,৫৩০,৯১৮ ৮৪.২০% ৩৭৪,৭২৯ ৯.৯৬% ৩২৫,৭০৬ ৬.০৫% ৬১,৩৩৭ ১.১৪% ৮৮,৫০৭ ১.৬৪% ৫,৩৮১,১৯৭
২০১২ এর আদমশুমারি ৪,৯০৫,৪২৫ ৮৪.২৬% ৪৫০,৫০৫ ৭.৭৪% ৩৩৫,৭৫১ ৫.৭৭% ৬১,৮২৬ ১.০৬% ৬৪,২০৩ ১.১৭% ৫,৮২১,৭১০

ধর্মসম্পাদনা

১৯৮১ থেকে ২০১২ পর্যন্ত ধর্ম অনুসারে পশ্চিম প্রদেশের জনসংখ্যা [৩][১৭]
বছর বৌদ্ধ খ্রিস্টান [ক] মুসলিম হিন্দু অন্যান্য মোট
সংখ্যা
সংখ্যা % সংখ্যা % সংখ্যা % সংখ্যা % সংখ্যা %
১৯৮১ এর আদমশুমারি ২,৮৮৫,৭৮৯ ৭৩.৬২% ৫৫৬,৫৮১ ১৪.২০% ২৭৯,৬৩৯ ৭.১৩% ১৯৪,০০০ ৪.৯৫% ৩,৭৯৮ ০.১০% ৩,৯১৯,৮০৭
২০০১ এর আদমশুমারি ৩,৯৪২,১৭১ ৭৩.২৬% ৭২১,১১৫ ১৩.৪০% ৪৪১,৩৯৭ ৮.২০% ২৭১,৭৭৭ ৫.০৫% ৪,৭৩৭ ০.০৯% ৫,৩৮১,১৯৭
২০১২ এর আদমশুমারি ৪,২৮৮,৭৯৭ ৭৩.৬৭% ৭৫২,৯৯৩ ১২.৯৩% ৫০০,৯৯২ ৮.৬১% ২৭৪,৩৩৬ ৪.৭১% ৪,৫৯২ ০.০৮% ৫,৮২১,৭১০

অর্থনীতিসম্পাদনা

 
শ্রীলঙ্কার বাণিজ্যিক রাজধানী কলম্বো

পশ্চিম প্রদেশ প্রদেশের মোট দেশীয় উৎপাদনের (পিজিডিপি) ৪১.২% অবদান রেখে মোট দেশজ উৎপাদনে সর্বাধিক অবদান রাখে এবং ২০১৫ সালের হিসাবে নামমাত্র পিজিডিপি বৃদ্ধির হার ৫.৮% রয়েছে। নয়টি প্রদেশের মধ্যে কৃষিক্ষেত্রে জিডিপির মাত্র ১.৭% ছিল এবং শিল্প খাত দেশের সর্বোচ্চ ৩৪.৬% এবং পরিষেবা খাত ৫৬.৫% উপস্থাপন করেছে। [১৮]

প্রদেশটি কলম্বো কলম্বো ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্সিয়াল সিটি (সিআইএফসি) এর মতো প্রদেশের বেশ কয়েকটি বৃহত্তম অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের সাথে দ্রুত উন্নয়ন করছে, যা একটি আন্তর্জাতিক আর্থিক অঞ্চল এবং পশ্চিমাঞ্চল মেগাপলিস পরিকল্পনা প্রকল্প (ডব্লিউআরএমপিপি)।[১৯][১৯][১৯][২০][২১][২২]

পশ্চিম প্রদেশে আবাসিক এবং বাণিজ্যিক ভবন এবং আকাশচুম্বী কলম্বো এবং রাজাগিরিয়ার মতো শহরগুলির স্কাইলাইনগুলি পরিবর্তন করে একটি বড় আবাসন এবং নির্মাণের বৃদ্ধি চলছে। বেশ কিছু প্রধান আবাসিক, অফিস এবং হোটেল ভবন এবং রিসোর্ট এবং শপিং মল হয় প্রস্তাবিত বা নির্মাণাধীন হয়।[২৩][২৪][২৫]

কলম্বো বন্দর একটি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির একটি প্রধান চালক দক্ষিণ এশিয়ার ব্যস্ততম বন্দরের একটি। এটা ব্যক্তিগতভাবে পরিচালিত এবং রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন টার্মিনাল উভয় আছে এবং সম্প্রসারিত করা হচ্ছে।[২৬][২৭]

শিক্ষাসম্পাদনা

দ্বীপের প্রায় সব প্রধান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পশ্চিম প্রদেশে অবস্থিত। এই প্রদেশে বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে কলম্বো বিশ্ববিদ্যালয়, কেলানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, মোরাতুয়া বিশ্ববিদ্যালয়, শ্রী জয়বর্ধনপুর বিশ্ববিদ্যালয়, শ্রীলঙ্কা ওপেন ইউনিভার্সিটি, শ্রীলংকার বৌদ্ধ ও পালি বিশ্ববিদ্যালয়, জেনারেল স্যার জন কোটেলাওয়ালা প্রতিরক্ষা বিশ্ববিদ্যালয়, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ বিজনেস ম্যানেজমেন্ট এবং শ্রীলঙ্কা ইনস্টিটিউট অফ ইনফরমেশন টেকনোলজি অন্তর্ভুক্ত। সব প্রদেশে সর্বোচ্চ জনসংখ্যা থাকায়, পশ্চিম প্রদেশের দেশের সর্বাধিক সংখ্যক বিদ্যালয় আছে, যার মধ্যে জাতীয়, প্রাদেশিক, বেসরকারী এবং আন্তর্জাতিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

আরো দেখুনসম্পাদনা

মন্তব্যসম্পাদনা

  1. Roman Catholic and Other Christian.

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Area of Sri Lanka by province and district" (PDF)Statistical Abstract 2011। Department of Census & Statistics, Sri Lanka। 
  2. "A2 : Population by ethnic group according to districts, 2012"Census of Population & Housing, 2011। Department of Census & Statistics, Sri Lanka। 
  3. "A3 : Population by religion according to districts, 2012"Census of Population & Housing, 2011। Department of Census & Statistics, Sri Lanka। 
  4. "Provinces of Sri Lanka"। Statoids। 
  5. "Provincial Councils"Government of Sri Lanka। ৭ জুলাই ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০২০ 
  6. Mills, Lennox A. (১৯৩৩)। Ceylon Under British Rule (1795 - 1932)Oxford University Press। পৃষ্ঠা 67–68। 
  7. Mendis, G. C. (১৯৪৬)। Ceylon Under the British (2nd (revised) সংস্করণ)। The Colombo Apothecaries Co.। পৃষ্ঠা 39–40। 
  8. Medis, G. C. (১৯৪৬)। Ceylon Under the British (2nd (revised) সংস্করণ)। The Colombo Apothecaries Co.। পৃষ্ঠা 51। 
  9. Medis, G. C. (১৯৪৬)। Ceylon Under the British (2nd (revised) সংস্করণ)। The Colombo Apothecaries Co.। পৃষ্ঠা 85। 
  10. "What is the Singapore-styled Western Region Megapolis plan for Colombo? | Adaderana Biz English | Sri Lanka Business News"bizenglish.adaderana.lk। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-৩০ 
  11. "Project Megapolis explained - Colombo, Gampaha, Kalutara to merge - Newsfirst"Sri Lanka News - Newsfirst | News1st | newsfirst.lk | Breaking (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০১-৩০ 
  12. "Grama Niladhari Divisions"। Colombo District Secretariat। ১২ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০২০ 
  13. "Grama Niladhari Divisions"। Gampaha District Secretariat। ১২ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০২০ 
  14. "Grama Niladhari Divisions"। Kalutara District Secretariat। ১২ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০২০ 
  15. "Population of principal towns by sex, census years" (PDF)Statistical Abstract 2011। Department of Census & Statistics, Sri Lanka। 
  16. "Population by ethnic group and district, Census 1981, 2001" (PDF)Statistical Abstract 2011। Department of Census & Statistics, Sri Lanka। 
  17. "Population by religion and district, Census 1981, 2001" (PDF)Statistical Abstract 2011। Department of Census & Statistics, Sri Lanka। 
  18. "Provincial Gross Domestic Product – 2015" (PDF)cbsl.gov.lk। ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০২০ 
  19. "Government Signs Tripartite Agreement for Colombo International Financial City"। ২২ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ ডিসেম্বর ২০২০ 
  20. "Sri Lanka to create international financial zone where people can also park their money" 
  21. "Megapolis: Part 1 ‒ What To Expect" 
  22. "The Western Region Megapolis Master Plan and the Megapolis Authority" 
  23. Nizar, Ahamed। "The Colombo Skyline - Roar.lk"roar.lk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-২৯ 
  24. Haniff, Hakiem। "Colombo's Changing Skyline (Part II) - Roar.lk"roar.lk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-২৯ 
  25. "Real Estate Market Update: Roaring Rajagiriya | The Sunday Times Sri Lanka"www.sundaytimes.lk। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-২৯ 
  26. "Colombo breaks through as South Asia's next big transshipment port"www.joc.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-৩১ 
  27. "Sri Lanka: An Emerging Logistics Hub in South Asia | Hong Kong Means Business"Hong Kong Means Business (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-৩১ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা