প্রধান মেনু খুলুন

পল মুনি (ইংরেজি: Paul Muni, জন্ম: ফ্রেডেরিখ মেশিলেম মেইয়ার ভেইসেনফ্রেউন্ড; ২২ সেপ্টেম্বর ১৮৯৫২৫ আগস্ট ১৯৬৭) ছিলেন একজন মার্কিন মঞ্চ ও চলচ্চিত্র অভিনেতা। তিনি পাঁচটি একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন এবং শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে একটি পুরস্কার জয়লাভ করেন।

পল মুনি
Paul Muni - Zola - 1936.jpg
১৯৩৬ সালে পল মুনি
স্থানীয় নাম
Paul Muni
জন্ম
ফ্রেডেরিখ মেশিলেম মেইয়ার ভেইসেনফ্রেউন্ড

(১৮৯৫-০৯-২২)২২ সেপ্টেম্বর ১৮৯৫
মৃত্যু২৫ আগস্ট ১৯৬৭(1967-08-25) (বয়স ৭১)
অন্য নামমুনি ভেইসেনফ্রেউন্ড
পেশাঅভিনেতা
কার্যকাল১৯০৮–১৯৬২
দাম্পত্য সঙ্গীবেলা ফিঙ্কেল (বি. ১৯২১; মৃ. ১৯৬৭)

শিকাগোতে বেড়ে ওঠা মুনি ইদ্দিশ থিয়েটারে অভিনয় জীবন শুরু করেন। ১৯৩০-এর দশকে তাকে ওয়ার্নার ব্রসের অন্যতম সম্মানিত অভিনেতা বলে গণ্য করা হত এবং তাকে যে কোন চরিত্রে অভিনয়ের করার সুযোগ দেওয়া হত। তার অভিনয় দক্ষতা তার অত্যাধিক প্রস্তুতির অংশবিশেষ এবং তিনি প্রায়শই তার অভিনীত চরিত্রের মূল চরিত্রের বৈশিষ্ট ও আচরণ নিয়ে পড়াশোনা করতেন। তাকে সাধারণত ক্ষমতাধর চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যেত, যেমন স্কারফেস (১৯৩২)-এর মুখ্য চরিত্র। এছাড়া তিনি রুপসজ্জার ব্যাপারে উচ্চ দক্ষতাসম্পন্ন ছিলেন, যা তিনি তার অভিনয়শিল্পী পিতামাতা কাছ থেকে এবং ইদ্দিশ থিয়েটারে প্রারম্ভিক মঞ্চ কর্মের সময় শিখেছিলেন। ১২ বছর বয়সে তিনি মঞ্চে ৮০ বছর বয়সী বৃদ্ধের চরিত্রে অভিনয় করেন এবং সেভেন ফেসেস চলচ্চিত্রে তিনি সাতটি ভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন।

তিনি ২২টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন এবং দ্য স্টোরি অব লুই পাস্তুর ছবিতে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে অস্কার লাভ করেন। এছাড়া তিনি দ্য ভ্যালিয়েন্ট (১৯২৯), আই অ্যাম আ ফিউজিটিভ ফ্রম আ চেইন গ্যাং (১৯৩৩), ব্ল্যাক ফিউরি (১৯৩৫), দ্য লাইফ অব এমিল জোলা (১৯৩৭) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য আরও চারটি একাডেমি পুরস্কারে মনোনীত হন। তিনি বহুসংখ্যক ব্রডওয়ে মঞ্চনাটকে অভিনয় করেন এবং ১৯৫৫ সালের ইনহেরিট দ্য উইন্ড-এ অভিনয় করে মঞ্চনাটকে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে টনি পুরস্কার অর্জন করেন।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

পল মুনি ১৮৯৫ সালের ২২ সেপ্টেম্বর অস্ট্রো-হাঙ্গেরীয় সাম্রাজ্যের গালিসিয়া লেমবের্গ প্রদেশে এক ইহুদি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার হিব্রু নাম মেশিলেম, তাকে ফ্রেডেরিখ মেইয়ার ভেইসেনফ্রেউন্ড নামেও ডাকা হত। তার পিতা ফিলিপ ভেইসেনফ্রেউন্ড ও মাতা সালি ভেইসেনফ্রেউন্ড।[১] তারা দুজনেই অভিনয়শিল্পী ছিলেন। মুনির মাতৃভাষা ইদ্দিশ। সাত বছর বয়সে তিনি স্বপরিবারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান এবং শিকাগো শহরে বসবাস শুরু করেন।

বাল্যকালে তিনি মুনি (Moony) নামে পরিচিত ছিলেন।[২] তিনি তার পিতামাতার সাথে শিকাগোর ইদ্দিশ থিয়েটারে অভিনয় জীবন শুরু করেন। কৌশরে তিনি রুপসজ্জার কৌশল আয়ত্ত্ব করেন, যার ফলে তিনি অনেক বয়স্ক চরিত্রেও অভিনয় করতে সক্ষম ছিলেন।[৩] চলচ্চিত্র ইতিহাসবেত্তা রবার্ট অসবর্ন উল্লেখ করেন মুনির রুপসজ্জার দক্ষতা তার যে কোন চরিত্রের জন্যই খুবই সৃজনশীল ছিল।[৪] ১২ বছর বয়সে তার প্রথম মঞ্চ অভিনয়ে তিনি ৮০ বছর বয়সী ব্যক্তির চরিত্রে অভিনয় করেন।[৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "On The Screen"উইসকনসিন জিউইশ ক্রনিকল। অক্টোবর ২৭, ১৯৬৭। (সদস্যতা নেয়া প্রয়োজন (সাহায্য)) 
  2. Adler, Jacob, A Life on the Stage: A Memoir, translated and with commentary by Lulla Rosenfeld, Knopf, New York, 1999, আইএসবিএন ০-৬৭৯-৪১৩৫১-০. Note on p 377: "... Muni Weisenfreund, now Paul Muni".
  3. International Dictionary of Actors and Actresses - Actors and Actresses, 3rd Ed., St. James Press, 1997, pp. 858-859
  4. Osborne, Robert; Miller, Frank. Leading Men: The 50 Most Unforgettable Actors of the Studio Era, Chronicle Books, 2006, pp. 153-155

বহিঃসংযোগসম্পাদনা