পদ্মা সেতু দুর্নীতি কেলেঙ্কারি

পদ্মাসেতুর অর্থ দুর্নীতি প্রসঙ্গে

পদ্মা সেতু দুর্নীতি কেলেঙ্কারি ২০১৬ এবং ২০১৭ সালে সংগঠিত বাংলাদেশের একটি রাজনৈতিক কেলেঙ্কারি , যার মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং পদ্মা সেতু ওতপ্রোতভাবে জড়িত হওয়ার অভিযোগ রয়েছে। পদ্মা সেতু বাংলাদেশের বৃহত্তম নদী পদ্মার উপর নব-নির্মিত একটি বৃহত্তম রেলযোগ সড়কসেতু, যার দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার (৩.৮২ মাইল) ।[১]

নির্মানাধীন পদ্মা সেতু


বিশ্বব্যাংকের ৳১১,৩৬৭ কোটি (US$১.২ বিলিয়ন) ঋণ দিয়ে এই প্রকল্পে অর্থায়ন করার কথা ছিল, কিন্তু তারা দুর্নীতির উদ্বেগের কথা উল্লেখ করে উক্ত প্রকল্প হতে প্রত্যাহার করে নেয়। বিশেষ করে, কানাডিয়ান নির্মাণ কোম্পানি এসএনসি-লাভালিনের একটি নির্মাণ চুক্তির বিনিময়ে একজন বাংলাদেশি কর্মকর্তাকে ঘুষ দেওয়ার অভিযোগকে আমলে নিয়ে তারা এই সিদ্ধান্ত নেয়। তবে আদালতে দুর্নীতির অভিযোগগুলি মিথ্যা প্রমাণিত হলে কানাডীয় আদালত সংশ্লিষ্ট মামলাটি খারিজ করে দেয়।[২]

বিশ্ব ব্যাংকের অভিযোগ সম্পাদনা

অভিযোগ সম্পাদনা

২০১২ সালের ২৯ই জুন, বিশ্বব্যাংক 'বাংলাদেশের বহুমুখী পদ্মাসেতু প্রকল্প' নিয়ে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে বলে[৩]:-

বিশ্বব্যাংকের কাছে বিভিন্ন সূত্রের দ্বারা প্রমাণিত বিশ্বাসযোগ্য কিছু প্রমাণ রয়েছে, যা পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের সাথে বাংলাদেশের সরকারি কর্মকর্তা, এসএনসি লাভালিন নির্বাহী এবং ব্যক্তিগত ব্যক্তিদের মধ্যে সংযুক্ত একটি উচ্চ-পর্যায়ের দুর্নীতির ষড়যন্ত্রকে নির্দেশ করে।

এছাড়াও তারা তাদের অবস্থান এবং কার্যক্রমকে আরো ভালোভাবে ব্যাখ্যা করার জন্য একটি "প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী" (FAQ) প্রকাশ করেছে।[৪] প্রাপ্ত দুর্নীতির প্রমাণাদী বাংলাদেশ সরকারকে প্রদান করে তারা এবং অনুরোধক্রমে বলে:

বিকল্প টার্নকি-স্টাইল পদ্ধতির সাথে এগিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হওয়ার জন্য, আমরা নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি চেয়েছিলাম: *(i) তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত দুর্নীতি প্রকল্পে জড়িত থাকার সন্দেহে সমস্ত সরকারি কর্মকর্তাদের সরকারি চাকরি থেকে ছুটিতে রাখুন; *(ii) তদন্ত পরিচালনার জন্য দুদকের মধ্যে একটি বিশেষ তদন্ত দল নিয়োগ করুন এবং *(iii) আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে গঠিত বিশ্বব্যাংক কর্তৃক নিযুক্ত একটি প্যানেলে সমস্ত তদন্তমূলক তথ্যের সম্পূর্ণ এবং পর্যাপ্ত অ্যাক্সেস প্রদান করতে সম্মত হন যাতে প্যানেলটি দিতে পারে। তদন্তের অগ্রগতি, পর্যাপ্ততা এবং ন্যায্যতা সম্পর্কে ঋণদাতাদের নির্দেশিকা। আমরা সরকার এবং এসিসি- এর সাথে ব্যাপকভাবে কাজ করেছি যাতে অনুরোধ করা সমস্ত পদক্ষেপ বাংলাদেশী আইন ও পদ্ধতির সাথে সম্পূর্ণভাবে মিলিত হয় ।

অসন্তোষ সম্পাদনা

প্রতিক্রিয়া জানতে বাংলাদেশ সরকারের কাছে একটি প্রতিনিধি দল পাঠিয়েও যখন তারা সন্তোষজনক প্রতিক্রিয়ার অভাব লক্ষ্য করে তখন তারা তার বিবৃতি প্রকাশ করে বলে:-

আমরা ব্যাংকের অবস্থান ব্যাখ্যা করতে এবং সরকারের প্রতিক্রিয়া প্রাপ্তির জন্য ঢাকায় একটি উচ্চ পর্যায়ের দল পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু প্রাপ্ত প্রতিক্রিয়া অসন্তোষজনক হয়েছে।

ঋণপত্র বাতিল সম্পাদনা

বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনুরোধক্রমেও যখন তারা দুর্নীতির বিরুদ্ধে অসন্তোষজনক প্রতিক্রিয়া লাভ করে, তখন তারা চুক্তিকৃত ঋণপত্র বাতিল ঘোষনা করে বিবৃতি দেয়[৫]:-

বিশ্বব্যাংক দুর্নীতির প্রমাণের দিকে চোখ বন্ধ করে থাকতে পারে না, করা উচিত নয় এবং করবেও না। আমাদের শেয়ারহোল্ডার এবং IDA দাতা দেশগুলির প্রতি আমাদের একটি নৈতিক বাধ্যবাধকতা এবং একটি বিশ্বস্ত দায়িত্ব রয়েছে। এটা নিশ্চিত করা আমাদের দায়িত্ব যে IDA সংস্থানগুলি তাদের উদ্দিষ্ট উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয় এবং আমরা শুধুমাত্র একটি প্রকল্পের অর্থায়ন করি, যখন আমাদের পর্যাপ্ত আশ্বাস থাকে যে আমরা এটি একটি পরিষ্কার এবং স্বচ্ছ উপায়ে করতে পারি। বাংলাদেশ সরকারের অপর্যাপ্ত প্রতিক্রিয়ার আলোকে, বিশ্বব্যাংক অবিলম্বে কার্যকর পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের সমর্থনে তার $১.২ বিলিয়ন IDA ক্রেডিট বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তদন্ত সম্পাদনা

অনুরোধপত্র সম্পাদনা

বিশ্বব্যাংক সেপ্টেম্বর ২০১১ এবং এপ্রিল ২০১২ সালে, প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি অর্থমন্ত্রী এবং বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)- এর চেয়ারম্যানের কাছে দুটি তদন্তের প্রমাণ সরবরাহ করে এবং অনুরোধপত্র পাঠায়। বাংলাদেশের কাছে পাঠানো অনুরোধপত্রে তারা বলে[৬]:-

'আমরা বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষকে এটি তদন্ত করার জন্য অনুরোধ করেছি। বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে এবং যেখানে ন্যায়সঙ্গত, দুর্নীতির জন্য দায়ীদের বিচার করুন। আমরা এটা করেছি কারণ আমরা আশা করেছিলাম যে সরকার বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে গুরুত্ব দেবে।'

কানাডার আদালত সম্পাদনা

এসএনসি-লাভালিনের কর্মকর্তা রমেশ সাহার ডায়েরিতে বাংলাদেশি নাগরিকদের তালিকা ছিল, যারা এসএনসি- লাভালিনকে পদ্মা সেতুর চুক্তি প্রদানের জন্য ১০-১২% কমিশন পেতেন। তার ডায়েরি অনুসারে[৭][৮]:-

"পদ্মা পিসিসি, ৪% মিন, ২% কায়সার, ২% নিক্সন, ১% সচিব এবং ১% মশি রহমান।" নথি অনুযায়ী, "মিন" উল্লেখ করেছেন সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ; "কায়সার" সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরী ; "নিক্সন" হলেন প্রধানমন্ত্রীর ভাতিজা মুজিবুর রহমান চৌধুরী; ‘সচিব’ সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া; এবং ‘মশি রহমান’ প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা মশিউর রহমান

সিবিসি টিভি সম্পাদনা

কানাডার সিবিসি টিভি অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা করেছে, এবং তারা অনুমান করেছে যে এই প্রকল্পে দুর্নীতির ব্যাপক চক্রান্ত ছিল।[৯]

পরবর্তীকাল সম্পাদনা

বিশ্বব্যাংক কানাডিয়ান ফার্ম, এসএনসি-লাভালিন ইনকর্পোরেটেডকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে এবং পদ্মা সেতু প্রকল্প দুর্নীতি কেলেঙ্কারিতে ফার্মের জড়িত থাকার কারণে এটিকে ১০ বছরের জন্য যেকোনো ব্যবসা থেকে নিষিদ্ধ করেছে।[১০] বিশ্বব্যাংক তার সম্পৃক্ততা প্রত্যাহার করার পর থেকে, সেতুটির আনুমানিক ব্যয় ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি বেড়েছে [১১] এবং প্রত্যাশিত সমাপ্তির তারিখ চার বছর পিছিয়ে ২০২২ সালে করা হচ্ছে।[১২] ২৪ তারিখ জানুয়ারী ২০১৭, সংসদে তার বক্তৃতায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বব্যাংকের প্রকল্প থেকে প্রত্যাহার করার জন্য মুহাম্মদ ইউনূসকে দায়ী করেন।[১৩] তার মতে, ইউনূস সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের সাথে লবিং করেছিলেন। ঋণ বন্ধ করতে বিশ্বব্যাংককে রাজি করানো।[১৪] বাংলাদেশে নিজস্ব সম্পদে সেতুটি ২০২২ সালে সম্পন্ন ও উদ্বোধন করা হয়েছে।[১৫]

অভিযোগ খারিজ সম্পাদনা

২০১৫ সালে, বিশ্বব্যাংক অভিযুক্ত অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকারকে ক্রমাগত চাপ দেওয়ার পরে বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) মামলাটি তদন্ত করে । ৫৩ দিন তদন্তের পরেও কাউকে দোষী সাব্যস্ত করতে পারেনি তারা। দুদকের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রে জড়িত থাকার অভিযোগে সাত সরকারি কর্মকর্তাকে খালাস দেন ঢাকার জেলা জজ আদালত[১৬] এর আগে দুদক সৈয়দ আবুল হোসেন ও সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীকে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রে জড়িত থাকার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়। [১৭]

১১ই ফেব্রুয়ারী, ২০১৭-এ, একটি কানাডার আদালত মামলাটি খারিজ করে, এসএনসি-লাভালিনের প্রাক্তন নির্বাহীদের খালাস দেয়। [১৮][১৯] দ্য ওয়্যার ট্যাপের প্রমাণ অগ্রহণযোগ্য বলে রায় দেওয়া হয়েছিল। [২০]

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

  1. "World Bank cancels Bangladesh bridge loan over corruption"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। ৩০ জুন ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  2. "canada court finds no proof padma bridge graft conspiracy" 
  3. "World Bank Statement on Padma Bridge"World Bank (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১৭ 
  4. "Frequently Asked Questions Related to the Cancellation of the World Bank Credit for the Padma Multipurpose Bridge Project"World Bank (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১৭ 
  5. "World Bank Statement on Padma Bridge"World Bank (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০২ 
  6. "World Bank Statement on Padma Bridge"World Bank (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০২ 
  7. "PM rejects her family's involvement in Padma graft"Dhaka Tribune। ২০১৩-০৫-১৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  8. "পদ্মা সেতু দুর্নীতি | Padma Bridge Corruption | প্রথম আলো"Prothomalo। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  9. "পদ্মা সেতু দুর্নীতি | Padma Bridge Corruption | প্রথম আলো"Prothomalo। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  10. "News Home | Thomson Reuters Foundation News"news.trust.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  11. "PADMA MULTIPURPOSE BRIDGE PROJECT"www.padmabridge.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  12. "Padma Bridge likely to open to traffic by June 2022"Dhaka Tribune। ২০২০-১২-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  13. "PM blames Yunus for cancellation of WB's Padma financing"web.archive.org। ২০১৭-০১-২৫। ২০১৭-০১-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  14. Correspondent, Senior। "Nobel laureate Yunus got Hillary Clinton to stop WB funding for Padma Bridge, says Hasina"bdnews24.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  15. "By self-funding the Padma bridge, Dhaka has got the West off its back"The Economic Times। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  16. Report, Star Online (২০১৪-১০-২৬)। "All Padma bridge graft accused acquitted"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  17. "The Financialexpress-bd"web.archive.org। ২০১৭-০২-০২। ২০১৭-০২-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  18. Report, Star Online (২০১৭-০২-১১)। "Canada court finds no proof of Padma bridge bribery conspiracy"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  19. "Court throws out Padma Bridge case"Dhaka Tribune। ২০১৭-০২-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১ 
  20. "Did a Canada Court Really Clear Bangladesh Officials of Corruption?"thewire.in (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১২-০১