ধর্মলোককথায় নরক একটি পরলৌকিক স্থান যা কোথাও যন্ত্রণাদায়ক শাস্তির যায়গা হিসেবে বর্ণিত। যেসব ধর্মের ঐশ্বরিক ইতিবৃত্ত রৈখিক (যেমন ইব্রাহিমীয় ধর্মসমূহ) সেসব ধর্মমতে প্রায়ই নরককে চিরস্থায়ী ঠিকানা হিসেবে বর্ণা করা হয়। আবর্তনশীল ইতিবৃত্ত বিশিষ্ট ধর্মমতে (যেমন ভারতীয় ধর্মসমুহে) প্রায়ই নরককে দুই জন্ম বা অবতারত্বের অন্তর্বর্তী সময় হিসেবে বর্ণা করা হয়। সাধারণত এসব ধর্মসংস্কৃতিতে নরকের অবস্থান অপর মাত্রায় কিংবা মাটির নিচে।

নরক – বুলগেরিয়ার সেইন্ট নিকোলাসের মধ্যযুগীয় গির্জার একটি দেয়ালচিত্রের বিবরণ

কিছু ধর্মসংস্কৃতি যেসব পরকালকে পুরস্কার বা শাস্তির যায়গা হিসেবে বিবেচনা করে না সেসব ধর্মসংস্কৃতি নরককে কেবল প্রেতলোক (মৃতদের আবাসস্থল), কবর বা একটি অনির্ণেয় যায়গা হিসেবে বর্ণা করে থাকে।

শব্দের উৎপত্তিসম্পাদনা

"নরক" শব্দটি এসেছে সংস্কৃত থেকে, যার আক্ষরিক অর্থ "নর (অর্থাৎ মানব বা মানুষ) সম্পর্কিত"। ইংরেজি ও বিভিন্ন ইউরোপীয় ভাষায় "হেল" শব্দটির দ্বারা মৌলিকভাবে মৃতদের পাতাললোক বুঝাত যার পরবর্তীকালে বিশেষকরে খ্রিষ্টান বাইবেলের অনুবাদে পরকালীন শাস্তির যায়গা লাতিন 'জেহেনা'-র অর্থে ব্যবহারের ফলে পুনর্ব্যাখ্যা হয়।

বহু-ঈশ্বরবাদী সভ্যতাসমূহসম্পাদনা

প্রাচীন মেসোপটেমিয়াসম্পাদনা

প্রাচীন মিশরসম্পাদনা

গ্রীক ধর্মমতসম্পাদনা

ইব্রাহিমীয় ধর্মসমূহসম্পাদনা

ইহুদি ধর্মসম্পাদনা

খ্রিষ্টধর্মসম্পাদনা

ইসলামসম্পাদনা

প্রাচ্যের ধর্মসমূহসম্পাদনা

হিন্দুধর্মসম্পাদনা

বৌদ্ধধর্মসম্পাদনা

===শিখধর্ম=== হল

তাওবাদসম্পাদনা

অন্যান্য ধর্মসংস্কৃতিসম্পাদনা

জরাথুস্ত্রবাদসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা