দারুল উলুম বাশকান্দি

দারুল উলুম বাঁশকান্দি (উর্দু: دار العلوم بانسکنڈی) এটি ভারতের আসামের কাছাড় জেলায় অবস্থিত একটি ইসলামী শিক্ষালয়। এটি উত্তর-পূর্ব ভারতের বৃহত্তম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। মাদ্রাসাটি দারুল উলুম দেওবন্দের পদ্ধতি অত্যন্ত অনুসরণ করে। প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান অধ্যক্ষের নাম মোহাম্মদ ইয়াহিয়া।[২][৩]

দারুল উলুম বাশকান্দি
دارالعلوم بانسکنڈی
colour image
দারুল উলূম বাঁশকান্দির মসজিদ ২০১৩ সালে
অন্যান্য নাম
বাঁশকান্দি মাদ্রাসা
ধরনদারুল উলুম
স্থাপিত১৮৯৭; ১২৭ বছর আগে (1897)
প্রতিষ্ঠাতাহাফিজ আকবর আলী, ইমদাদুল্লাহ মুহাজিরে মক্কি এর শিষ্য
ধর্মীয় অধিভুক্তি
ইসলাম
অধ্যক্ষমোহাম্মদ ইয়াহিয়া
শিক্ষার্থীআনু. ১২০০
ঠিকানা
বানস্কন্দি, কাছাড় জেলা, আসাম, ৭৮৮৮১০১[১]

২৪°২৯′০১″ উত্তর ৯২°৩২′৪৩″ পূর্ব / ২৪.৪৮৩৬° উত্তর ৯২.৫৪৫৪° পূর্ব / 24.4836; 92.5454
মানচিত্র

ইতিহাস সম্পাদনা

প্রতিষ্ঠানটি হাফেজ আকবর আলী প্রতিষ্ঠিত করে ছিলেন। তিনি ছিলেন একজন মণিপুরী মুসলিম এবং ইমদাদুল্লাহ মুহাজিরে মক্কি শিষ্য ছিলেন।[৪] তাঁর পবিত্র হাতে আনুগত্যের শপথ গ্রহণের পর তিনি মক্কায় তাঁর সাথে তিন বছর অতিবাহিত করেন। একদিন মক্কী তাকে স্বদেশে ফিরে যেতে এবং একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠান করে ইসলামী শিক্ষায় নিজেকে সম্পৃক্ত করার নির্দেশ দেন। এরপর তিনি বাঁশকান্দিতে ফিরে আসেন এবং ১৮৯৭ সালে বাঁশকান্দি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। তার প্রধান সহযোগী ছিলেন নেনা মিয়া যিনি তার জমি প্রতিষ্ঠানকে উপহার দিয়েছিলেন।[৫]

পরে হুসাইন আহমদ মাদানি বাঁশকান্দি মাদ্রাসাকে ভারতের দ্বিতীয় দারুল উলূম এবং ইসলামী শিক্ষার কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার ইচ্ছা পোষণ করেন। তাই তিনি আহমদ আলী বদরপুরীকে শায়খুল হাদীস পদে নিয়োগ দেন। তিনি তার জীবনের শেষ দুই রমজান সেখানে অতিবাহিত করেন এবং ১৯৫৭ সালে নবীর ঐতিহ্য (হাদিস) উদ্বোধন করেন। বাঁশকান্দি মাদ্রাসা থেকে শিক্ষার উদীয়মান আলো খুব শিগগিরই সারা বিশ্বে জ্বলবে বলেও তিনি ভবিষ্যদ্বাণী করেন। মাদ্রাসার মৌলিক অবস্থা ছিল খুবই নাজুক। এখানে একটি ছোট মসজিদ এবং তিনটি কটেজ ছিল মাত্র। কিন্তু আহমদ আলী বদরপুরীর পৃষ্ঠপোষকতায় প্রতিষ্ঠানটি খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত হয়।[৬] [৭] [৮]

অবদানসমূহ সম্পাদনা

স্বাধীনতা আন্দোলন দেওবন্দী আলেমগণ এবং তাদের মাদ্রাসাগুলোর বিশিষ্ট এবং সূক্ষ্ম ভূমিকা পালন করেছিল। তারা ব্রিটিশদের বিতাড়নের লক্ষ্যে ও ভারত ভাগের বিরোধিতা করে একটি ঐক্যবদ্ধ দেশের পক্ষে কথা বলে। বাঁশকান্দি মাদ্রাসাও এর ব্যতিক্রম নয়।[৯] দারুল উলূম বাঁশকান্দি অনেক মহান ইসলামী পন্ডিত, হাফেজ, লেখক, ইমাম, বুদ্ধিজীবী এবং সমাজ সংস্কারক তৈরি করেছে।[১০] দারুল উলূম বাঁশকান্দিকে উত্তর-পূর্ব ভারতের "শান্তিনিকেতন" (শান্তির আবাস) বলা হয় থাকে।[১১]

খ্যাতি এবং শিক্ষাবিদ সম্পাদনা

মর্যাদাপূর্ণ দারুল উলূম দেওবন্দের আদলে তৈরি, এই প্রতিষ্ঠানটি, প্রচুর সংখ্যক অনুষদ সহ, প্রতি বছর হাজার হাজার শিক্ষার্থীকে মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রদান করে। আহমদ আলী বদরপুরীর মাধ্যমে এটি ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছে। এখান থেকে উৎপাদিত উলামায়ে কেরাম উত্তর-পূর্ব অঞ্চল ছাড়াও দেওবন্দ সহ বিভিন্ন স্থানে সেবা প্রদান করেন।[১২]

সেমিনারি নিম্নলিখিত কোর্সগুলে করানো হয়:[১৩]

প্রশাসন সম্পাদনা

প্রতিষ্ঠানের শুরু থেকেই হাজী মিয়াধন, খলিলুর রহমান, তাইয়েব আহমদ কাসমি এবং অন্যান্যদের মতো বেশ কয়েকজন উলামা এর প্রধান ও অধ্যক্ষ হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। আহমদ আলী বদরপুরী প্রতিষ্ঠানের মহাপরিচালক হিসেবে ছিলেন। তিনি যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে কখনও অধ্যক্ষের পদে অধিষ্ঠিত হননি। তিনি শাইখ আল-হাদীসের পদমর্যাদার সমস্ত পক্ষকে নিয়ন্ত্রণ করতেন। তিনি ছিলেন সেমিনারের নির্মাতা এবং প্রধান পৃষ্ঠপোষক। দারুল উলুম দেওবন্দের কৃষক ভাইস চ্যান্সেলর কারী মুহাম্মদ তৈয়ব তাঁকে দারুল উলূম বাঁশকান্দির দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাতা বলে অভিহিত করেছেন।[১৪][১৫] প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ইয়াহিয়া।[২][৩][১৬][১৭]

উল্লেখযোগ্য প্রাক্তন ছাত্র সম্পাদনা

  • আব্দুর রশিদ (লঙ্কা), আসাম রাজ্য জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সাধারণ সম্পাদক
  • আব্দুল হক (হোজাই), জামিয়া জালালিয়ার হাদিস অধ্যাপক, হোজাই মো
  • মুজাম্মিল আলী আসামী, জামিআতুশ শাইখ হুসাইন আহমদ আল-মাদানী, খানকাহ, দেওবন্দের রেক্টর
  • হাফিজ আলাউদ্দিন, প্রতিষ্ঠানের সাবেক উপাধ্যক্ষ মো
  • ইব্রাহিম খলিল, বুড়াবুড়ি মাদ্রাসা, মরিগাঁও এর শায়খ আল-হাদিস
  • মুহাম্মদ ইয়াহিয়া, বর্তমান অধ্যক্ষ এবং প্রতিষ্ঠানের শায়খ আল-হাদিস ড
  • আব্দুল কাদির, সাধারণ সম্পাদক, আসাম রাজ্য জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ (এম)

তথ্যসূত্র সম্পাদনা

উদ্ধৃতি সম্পাদনা

  1. Karmakar, Rahul (৯ জুন ২০১৮)। "Assam Islamic seminary tightens admission rules"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ 
  2. "Darul Uloom and Dastarbandi function held at Banskandi" (ইংরেজি ভাষায়)। The Sentinel। ১১ মে ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ 
  3. "Markazul Maarif Mumbai Holds its 18th Convocation"deoband.net (ইংরেজি ভাষায়)। ৭ এপ্রিল ২০১৩। ৭ জুলাই ২০২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ 
  4. Barbhuiya, Atiqur Rahman (২০২০)। "Indigenous People of Barak Valley" (ইংরেজি ভাষায়)। Notion Press। 
  5. Ahmad 2000, পৃ. 1–2।
  6. Badarpuri 1992, পৃ. 21–23।
  7. Qasmi 2010, পৃ. 20।
  8. Ahmad 2000, পৃ. 2।
  9. Ahmad 2000, পৃ. 10–11।
  10. Ahmad 2000, পৃ. 6।
  11. "Assam revives awards in the name of historic Muslim personalities" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ 
  12. Ahmad 2000, পৃ. 5।
  13. Qasmi, Javed Ashraf (২০০০)। Faizan e Darul Uloom Deoband (উর্দু ভাষায়) (1st সংস্করণ)। Department of publication, Madrasah Ubay bin Ka'b Tahfeez al-Quran al-Kareem। পৃষ্ঠা 35। 
  14. Ahmad 2000, পৃ. 2, 6–8।
  15. Qasmi 2010, পৃ. 19–20।
  16. "Family legacy document must for admission; Assam madrassa" (ইংরেজি ভাষায়)। The Northeast Today। ৯ জুন ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ 
  17. Mitra, Naresh (৯ জুন ২০১৮)। "Assam madrassa makes legacy papers a must for admission"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ 

গ্রন্থপঞ্জি সম্পাদনা

  • Ahmad, Tayyib (২০০০)। Darul Uloom BanskandiBanskandi, Cachar district, Assam: Darul Uloom Banskandi। 
  • Badarpuri, Ahmed Ali (১৯৯২)। Salasil-e-Tayyibah। Hojai, Assam: Mufassil Ali। 
  • Qasmi, Abdul Quadir (জানুয়ারি ২০১০)। Sheikh Moulana Ahmed Ali, Jeevan Aru Karma [The Life and Works of Shaikh Maulana Ahmed Ali] (অসমীয়া ভাষায়)। Hojai, Assam: Mufassil Ali।