প্রধান মেনু খুলুন

তামিল ঈলাম (তামিল: தமிழீழம், প্রতিবর্ণী. তমিল্ড়ীল্ড়ম্) একটি প্রস্তাবিত স্বাধীনসার্বভৌম রাষ্ট্র যা শ্রীলঙ্কার উত্তর ও পূর্বাঞ্চলের তামিল জাতি অধ্যুষিত অঞ্চল নিয়ে গঠিত৷ তামিল ঈলাম মুলত শ্রীলঙ্কার তামিল জাতির লোকের আদিনিবাস৷ এই অঞ্চলের বৈশ্বিক রাষ্ট্রসমূহে কোনো কূটনৈতিক মান্যতা নেই৷ বস্তুত শ্রীলঙ্কার ঈলাম গোষ্ঠী ২০০০ খ্রিষ্টাব্দ থেকে লিবারেশন টাইগার্স অব তামিল ইলম-এর আয়ত্তাধীন৷[৫][৬][৭] তামিল ঈলাম নামটি শ্রীলঙ্কার তামিল ভাষাতে পুরানো নাম ঈলম থেকে গৃহীত৷[৮]

তামিল ঈলাম
தமிழீழம்
আকাঙ্খিত রাজ্য
সঙ্গীত: ஏறுது பார் கொடி (এড়ুদু পার্ কোডি)
দেখো উদীয়মান পতাকা
গাঢ় সবুজ রঙে দাবীকৃৃত তামিল ঈলামের মানচিত্র
গাঢ় সবুজ রঙে দাবীকৃৃত তামিল ঈলামের মানচিত্র
স্থানাঙ্ক: ০৮°৪৫′ উত্তর ৮০°৩০′ পূর্ব / ৮.৭৫০° উত্তর ৮০.৫০০° পূর্ব / 8.750; 80.500স্থানাঙ্ক: ০৮°৪৫′ উত্তর ৮০°৩০′ পূর্ব / ৮.৭৫০° উত্তর ৮০.৫০০° পূর্ব / 8.750; 80.500
রাজধানীত্রিঙ্কোমালাই
বৃৃহত্তম নগরত্রিঙ্কোমালাই
জেলা
আয়তন[১]
 • মোট২১৯৫২ কিমি (৮৪৭৬ বর্গমাইল)
 • স্থলভাগ২০৫৩৩ কিমি (৭৯২৮ বর্গমাইল)
 • জলভাগ১৪১৯ কিমি (৫৪৮ বর্গমাইল)  ৬.৪৬%
জনসংখ্যা (২০১০)[২]
 • মোট৩৩,৬৯,৯১৯
 • জনঘনত্ব১৫০/কিমি (৪০০/বর্গমাইল)
জাতি(১৯৮১)[৩]
 • শ্রীলঙ্কীয় তামিল১১,৮৯,০০০
 • সিংহলি৪৫,০০০
 • মুর৪,১৫,২৬৭
 • ভারতীয় তামিল৭৬,৯০৫
 • অন্যান্য১০২৯২
Religion(২০১০)[৪]
 • হিন্দু১৩,৫৭,৭৪৪ (৪০.২৯%)
 • মুসলিম৭,৬২,২৫৬ (২২.৬২%)
 • বৌদ্ধ৭,১৩,৬০৯ (২১.১৮%)
 • খ্রিস্টান৫,১৩,৭২০ (১৫.২৪%)
 • অন্যান্য২২,৫৯০ (০.৬৭%)
দাপ্তরিক ভাষাতামিল

ইতিহাসসম্পাদনা

প্রাচীনযুগসম্পাদনা

ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের মতো মৃৃতদেহ সমাধিস্থ করার রীতির প্রমাণ পাওয়া যায় শ্রীলঙ্কার এই অঞ্চলগুলিতেও৷ পশ্চিম উপকুলের পোম্পারিপ্পু এবং পূর্ব উপকুলের কাটিরাভেলিতে খননকার্যের মাধ্যমে মেগালিথ থেকে এই সকল প্রমাণ পাওয়া যায়৷ এগুলি খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতাব্দী থেকে খ্রিস্টীয় দ্বিতীয় শতাব্দী পর্যন্ত সময়কালীন বলে অনুমান করা হয়৷[৯] যদিও শ্রীলঙ্কায় তামিল জাতির বসতি ঠিক কোন সময় থেকে রয়েছে তার সঠিক প্রামাণ্য কিছু এখনো অবধি পাওয়া যায়নি৷ তামিল মণিমেকলাই কাব্য অনুযায়ী শ্রীলঙ্কার উত্তরপ্রান্তের জাফনা উপদ্বীপ ছিলো নাগ জনগোষ্ঠীদের আদিবাসস্থান এবং সেখানে স্থানটিকে নাগনাড়ু বলে উল্লেখ করা হয়েছে৷[১০] এরাই পরবর্তীকালে তামিল জাতি হিসাবে অভিযোজিত হয়েছিলো, তাদেরকেই শ্রীলঙ্কার তামিলদের আদিপুরুষ এবং তামিল সংস্কৃতির বাহক হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে৷[১১] দক্ষিণ ভারতের বিক্রমশীল পল্লব সাম্রাজ্য ছিলো তামিল নাড়ুর চোল সাম্রাজ্য এবং নাগনাড়ুর নাগ জনগোষ্ঠীর শাসকদের বৈবাহিক সম্পর্কের ফলে সৃষ্ট৷ ইতিহাস মতে চোলরাজ কিলিবলবন এবং নাগরাজকুমারী পিল্লিবলাইয়ের বিবাহের ফলে পল্লববংশের সৃৃষ্টি৷[১২]

এইসময়ে এখানকার মিল রাজপরিবারগুলি তামিল শৈব ধর্মের পৃষ্টপোষক ছিলো বলে প্রমাণ পাওয়া যায়৷ উপকুল বরাবর পূর্বদিকে এর বিস্তৃতি ঘটে এবং খ্রিস্টীয় ষষ্ঠ শতাব্দীর দিকে ত্রিঙ্কোমালাইয়ের কোনেশ্বরম মন্দির থেকে বাট্টিকালোয়ার তিরুকোভিল মন্দির অবধি নৌপরিহনের ব্যবস্থা থাকার কাব্যিক ও বাস্তবিক বহু প্রমাণ পাওয়া গেছে৷[১৩]

মধ্যযুগসম্পাদনা

খ্রিস্টীয় দ্বাদশ শতাব্দীতে জাফনা উপদ্বীপের জাফনা সাম্রাজ্যের সাথে তামিল হিন্দুদের সার্বিক উন্নয়ন ও সামাজিক সংঘবদ্ধকরণ ব্যপকহারে শুরু হয়৷[১৪] শ্রীলঙ্কার উত্তর উত্তরপূর্ব এবং পশ্চিমাঞ্চলে সাম্রাজ্য বিস্তার করে শক্তিশালী রাজবংশ গঠনের পর এটি ১২৫৮ খ্রিষ্টাব্দ নাগাদ বর্তমান দক্ষিণ ভারতের পান্ড্য রাজবংশ|পান্ড্য সাম্রাজ্যের একটি জায়গীরে পরিণত হয়৷ আবার ১৩২৩ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে পান্ড্য সাম্রাজ্যের বিভাগীকরণের মাধ্যমে এটি স্বাধীনতা পায়৷[১৫][১৬]

খ্রিস্টীয় একাদশ থেকে দ্বাদশ শতাব্দীর মধ্যে পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশের উত্তরাংশে তামিল জাতিরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়, যা ছিলো মূলত তাদের দ্বারাই প্রতিষ্ঠাপ্রাপ্ত৷[১৭] পূর্বাঞ্চলীয় তামিলদের মধ্যে "উর পোডিয়ার"কে কেন্দ্র করে গ্রামাঞ্চলগুলিতে সামন্তপ্রথা প্রবর্তিত হয়৷[১৮] এবং "কুড়ি ব্যবস্থা" এই সংক্রান্ত সমস্ত সামাজিক যোগাযোগ স্থাপন করতো৷ তারা বন্নিমৈ প্রধানদের মাধ্যমে রাজনৈতিকভাবে সংঘবদ্ধ হয়, যা ছিলো ক্যান্ডি সাম্রাজ্যের অংশ৷[১৯] তৎকালীন সিংহলী কাব্যসাহিত্য "মুক্কর হতন" এবং "কোকিলসন্দেশ" থেকে জানা যায় দক্ষিণ ভারত থেকে একাধিকবার ব্যপক হারে তামিলরা শ্রীলঙ্কাতে অনুপ্রবেশ করে৷ এই অনুপ্রবেশকারীরা তখন শ্রীলঙ্কার তামিল সমাজে নিজেদের বেশ ভালো পদে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়, তাদের "মুক্কুবার" বলে অভিহিত করা হতো৷ পূর্ব শ্রীলঙ্কাতে স্থানীয় পদ্ধতিতে ভূসম্পত্তি পরিমাপ ও পুণর্বাসন বিষয়ক প্রচুর তথ্য মাট্ডকলপ্পু মানমিয়ম (তামিল: மட்டக்களப்பு மான்மியம்) গ্রন্থে পাওয়া যায় যা মূলত বাট্টিকালোয়ার ইতিহাস নিয়ে রচিত৷[২০]

মধ্যযুগে বন্নি সর্দারদের তৎপরতায় জাফনার উত্তরাংশের পাননকলম,মালপাত্তু, মুল্লিয়াবলৈ, করুণাবলপাত্তু, কারিকট্টুমুলৈ এবং তেন্নামারবাড়ী প্রভৃৃতি দ্বীপাঞ্চলও জাফনা সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়৷ শুধু তাই নয় সময়ের সাথে সাথে ত্রিঙ্কোমালাইয়ের গোষ্ঠীপতিও উত্তরা জাফনা সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিলো৷ এভাবে জাফনা উপদ্বীপের দক্ষিণাংশ এবং পূর্বে ত্রিঙ্কোমালাই জেলা তাদের করদ রাজ্যে পরিণত হয় ও বার্ষিক রাজস্ব দেয়৷ রাজস্ব মূলত দেওয়া হতো নগদ, ফসল, মধু, হাতি এবং অলংকারের মাধ্যমে৷ মূল জাফনার সাথে অধিক দূরত্ব থাকার জন্য বার্ষিক করসংগ্রহর ওপর অধিক জোর দেওয়া হতো৷[২১]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Area of Sri Lanka by province and district" (PDF)Statistical Abstract 2010। Department of Census & Statistics। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "Estimated mid year population by district, 2005–2009" (PDF)Statistical Abstract 2010। Department of Census & Statistics। ২৭ জুন ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. "Population by ethnic group and district, Census 1981, 2001" (PDF)Statistical Abstract 2010। Department of Census & Statistics। ১৩ নভেম্বর ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "Population by religion and district, Census 1981, 2001" (PDF)Statistical Abstract 2010। Department of Census & Statistics। ৮ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. Senanayake, Sumedha (৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯)। "Sri Lanka's Intractable Conflict"Dissent (American magazine) 
  6. Acharya, Arabinda (৮ জুন ২০০৯)। "Ending the LTTE: Recipe for counter-terrorism?"Nanyang Technological University 
  7. "Sri Lanka crisis set to worsen"Al Jazeera। ১৫ জানুয়ারি ২০০৮। 
  8. What Do Eelam & Ilankai Mean?. Sangam.org (2 April 2006). Retrieved on 28 July 2013.
  9. de Silva, A History of Sri Lanka, p.129
  10. Clarence Maloney (১৯৮০)। People of the Maldive Islands। Orient Longman। পৃষ্ঠা 57। 
  11. Holt, John (২০১১-০৪-১৩)। The Sri Lanka Reader: History, Culture, Politics (ইংরেজি ভাষায়)। Duke University Press। আইএসবিএন 978-0822349822 
  12. Chaurasia, Radhey Shyam (২০০২-০৫-০১)। History of Ancient India: Earliest Times to 1000 A. D. (ইংরেজি ভাষায়)। Atlantic Publishers & Dist। আইএসবিএন 9788126900275 
  13. Ismail, Marina (১৯৯৫-০১-০১)। Early settlements in northern Sri Lanka (ইংরেজি ভাষায়)। Navrang। 
  14. de Silva, A History of Sri Lanka, p.132
  15. de Silva, A History of Sri Lanka, p.91-92
  16. Peebles, History of Sri Lanka, p.31-32
  17. de Silva, A History of Sri Lanka, p.131
  18. "Welcome to UTHRJ: Report 8, Chapter 3"। ১৪ জুলাই ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৫ 
  19. McGilvray, Mukkuvar Vannimai: Tamil Caste and Matriclan Ideology in Batticaloa, Sri Lanka, p.34-97
  20. Subramaniam, Folk traditionas and Songs..., p.20
  21. Gunasingam, M Sri Lankan Tamil Nationalism, p.58